বিজ্ঞান এর কি? ...

বিজ্ঞান এর বিজ্ঞান হল ব্যাপক অর্থে জ্ঞান অর্জনের জন্য ব্যবহৃত একটি বিশেষ শব্দ যা আধুনিক যুগের আগে অনেক ঐতিহাসিক সভ্যতার মধ্যে বিদ্যমান ছিল । আধুনিক বিজ্ঞান তার পদ্ধতিতে স্বতন্ত্র এবং তার ফলাফলের মধ্যে সফল, তাই এটি এখন সংজ্ঞায়িত করে যে বিজ্ঞান শব্দটি কত কঠোর অর্থে ব্যবহৃত হয়।বিজ্ঞান শব্দটি উৎপত্তিগত অর্থে এক ধরনের জ্ঞান বুঝাতো কিন্তু বিজ্ঞান সম্পর্কিত জ্ঞান অর্জন বুঝাতো না । বিশেষ করে এটি ছিল এক ধরনের জ্ঞান যা মানুষ একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে এবং শেয়ার করতে প্রয়োজন হত । উদাহরণস্বরূপ, প্রাকৃতিক বিষয়গুলির জ্ঞান সম্পর্কে রেকর্ড ইতিহাসের অনেক আগেই সংগৃহীত হয়েছিল এবং জটিল বিমূর্ত ধারণাগুলির উন্নয়ন ঘটেছিল । এটি জটিল ক্যালেন্ডার নির্মাণ, কৌশলগত উপায়ে বিষাক্ত উদ্ভিদকে খাবার উপযোগী করে তৈরি করার কৌশল এবং পিরামিডের মতো ভবনগুলি নিয়ে গবেষণা করার কাজে ব্যবহৃত হত । যাইহোক, এই ধরনের জিনিসগুলির জ্ঞানের মধ্যে কোন সঙ্গতিপূর্ণ বিশিষ্ট পার্থক্য তৈরি করা হয়নি যা প্রতিটি সম্প্রদায়ের মধ্যে সত্য এবং অন্যান্য ধরনের সাম্প্রদায়িক জ্ঞানের মতো যেমন -পৌরাণিক কাহিনী এবং আইনি ব্যবস্থা ।আর এখন আমরা এই আধুনিক যুগে এসে সেই বিজ্ঞান নামক জ্ঞান ভাণ্ডারের যন্ত্রটিকে মানুষকে কিভাবে মারা যায় সেই পথে নিয়ে যাচ্ছি। সংক্ষিপ্ত তার কিছু উদাহারণ তুলে ধরলেই আমরা বুঝতে পারবো বিজ্ঞান আমাদের কত ক্ষতি করছে । (*) আগে শুনতাম মানুষ এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বা বেশি দূরের কোন ভ্রমণে গেলে হয়ত পায়ে হেটে নয়ত ঘোড়া বা গরুর গাড়ি ব্যবহার করত ।আর এখন এই আধুনিক যুগে এসে বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন যন্ত্রাঅংশ তৈরি করে গাড়ি বিমান রকেট আরো কত কি তৈরি করেছেন,যার সঠিক হিসেব মানুষের রাখার সাধ্য নেই। আর ওই সব যন্ত্রাঅংশের গাড়িগুলোর কালো ধোয়া আমাদের চারোপাশের পরিবেশকে যেমন করে তুলছে দূষীত তেমন কেড়ে নিচ্ছে অকাল কত মানুষের জীবন ।আমাদের এই পরিবেশ দূষিতর কারনে অকাল শিশুদের প্রাণহানী। (*) আগের যেমন আজ থেকে একশত বা দেড়শত বছর আগে একেকজন মানুষ কম হলেও একশত ত্রিশ থেকে প্রায় একশত ষাট বছর পযন্ত বেঁচে থাকতো,আর এখন এই আধুনিক যুগে এসে আমাদের গড় আয়ু দাঁড়িয়েছে পঞ্চাশ কি ষাট বছর ।আহা!রে এই আধুনিক যুগের বিজ্ঞান যা আমাদের জীবনের ৯৯ থেকে ১০০ বাজিয়ে ছাড়ছে । (*)আদিযুগ অর্থাত সেই পাথুরে যুগের মানুষেরা খেত টাটকা শাকসবজী এবং টাটকা ফলমূল।যা শুধু টাটকাই নয় ছিল বিষ মুক্ত,আর টাটকাতো দূরের কথা যাই খাচ্ছি সবই বিষ যুক্ত খাবার ।
Romanized Version
বিজ্ঞান এর বিজ্ঞান হল ব্যাপক অর্থে জ্ঞান অর্জনের জন্য ব্যবহৃত একটি বিশেষ শব্দ যা আধুনিক যুগের আগে অনেক ঐতিহাসিক সভ্যতার মধ্যে বিদ্যমান ছিল । আধুনিক বিজ্ঞান তার পদ্ধতিতে স্বতন্ত্র এবং তার ফলাফলের মধ্যে সফল, তাই এটি এখন সংজ্ঞায়িত করে যে বিজ্ঞান শব্দটি কত কঠোর অর্থে ব্যবহৃত হয়।বিজ্ঞান শব্দটি উৎপত্তিগত অর্থে এক ধরনের জ্ঞান বুঝাতো কিন্তু বিজ্ঞান সম্পর্কিত জ্ঞান অর্জন বুঝাতো না । বিশেষ করে এটি ছিল এক ধরনের জ্ঞান যা মানুষ একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে এবং শেয়ার করতে প্রয়োজন হত । উদাহরণস্বরূপ, প্রাকৃতিক বিষয়গুলির জ্ঞান সম্পর্কে রেকর্ড ইতিহাসের অনেক আগেই সংগৃহীত হয়েছিল এবং জটিল বিমূর্ত ধারণাগুলির উন্নয়ন ঘটেছিল । এটি জটিল ক্যালেন্ডার নির্মাণ, কৌশলগত উপায়ে বিষাক্ত উদ্ভিদকে খাবার উপযোগী করে তৈরি করার কৌশল এবং পিরামিডের মতো ভবনগুলি নিয়ে গবেষণা করার কাজে ব্যবহৃত হত । যাইহোক, এই ধরনের জিনিসগুলির জ্ঞানের মধ্যে কোন সঙ্গতিপূর্ণ বিশিষ্ট পার্থক্য তৈরি করা হয়নি যা প্রতিটি সম্প্রদায়ের মধ্যে সত্য এবং অন্যান্য ধরনের সাম্প্রদায়িক জ্ঞানের মতো যেমন -পৌরাণিক কাহিনী এবং আইনি ব্যবস্থা ।আর এখন আমরা এই আধুনিক যুগে এসে সেই বিজ্ঞান নামক জ্ঞান ভাণ্ডারের যন্ত্রটিকে মানুষকে কিভাবে মারা যায় সেই পথে নিয়ে যাচ্ছি। সংক্ষিপ্ত তার কিছু উদাহারণ তুলে ধরলেই আমরা বুঝতে পারবো বিজ্ঞান আমাদের কত ক্ষতি করছে । (*) আগে শুনতাম মানুষ এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বা বেশি দূরের কোন ভ্রমণে গেলে হয়ত পায়ে হেটে নয়ত ঘোড়া বা গরুর গাড়ি ব্যবহার করত ।আর এখন এই আধুনিক যুগে এসে বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন যন্ত্রাঅংশ তৈরি করে গাড়ি বিমান রকেট আরো কত কি তৈরি করেছেন,যার সঠিক হিসেব মানুষের রাখার সাধ্য নেই। আর ওই সব যন্ত্রাঅংশের গাড়িগুলোর কালো ধোয়া আমাদের চারোপাশের পরিবেশকে যেমন করে তুলছে দূষীত তেমন কেড়ে নিচ্ছে অকাল কত মানুষের জীবন ।আমাদের এই পরিবেশ দূষিতর কারনে অকাল শিশুদের প্রাণহানী। (*) আগের যেমন আজ থেকে একশত বা দেড়শত বছর আগে একেকজন মানুষ কম হলেও একশত ত্রিশ থেকে প্রায় একশত ষাট বছর পযন্ত বেঁচে থাকতো,আর এখন এই আধুনিক যুগে এসে আমাদের গড় আয়ু দাঁড়িয়েছে পঞ্চাশ কি ষাট বছর ।আহা!রে এই আধুনিক যুগের বিজ্ঞান যা আমাদের জীবনের ৯৯ থেকে ১০০ বাজিয়ে ছাড়ছে । (*)আদিযুগ অর্থাত সেই পাথুরে যুগের মানুষেরা খেত টাটকা শাকসবজী এবং টাটকা ফলমূল।যা শুধু টাটকাই নয় ছিল বিষ মুক্ত,আর টাটকাতো দূরের কথা যাই খাচ্ছি সবই বিষ যুক্ত খাবার । Bigyan Aare Bigyan Hall Byapak Arthe Gyan Arjaner Janya Byabahrit Ekati Vishesha Shabd Ja Adhunik Juger Age Anek Aitihasik Sabhyatar Madhye Bidyaman Chhil Adhunik Bigyan Taur Paddhatite Swatantra Evan Taur Falafler Madhye Safal Tai AT Ekhan Sanggyayit Kare Je Bigyan Shabdati Kat Kathor Arthe Byabahrit Hay Bigyan Shabdati Utpattigat Arthe Ec Dharaner Gyan Bujhato Kintu Bigyan Samparkit Gyan Arjan Bujhato Na Vishesha Kare AT Chhil Ec Dharaner Gyan Ja Manus Aka Aparer Sathe Jogajog Karate Evan Sheyar Karate Prayojan Hato Udaharanaswarup Praakritik Bishayagulir Gyan Samparke Record Itihaser Anek Agei Sangrihit Hayechhil Evan Jatil Bimurta Dharnagulir Unnayan Ghatechhil AT Jatil Kyalendar Nirman Kaushalagat Upaye Bishakta Udbhidake Khabar Upajogi Kare Tairi Karar Kaushal Evan Piramider Mato Bhabanaguli Niye Gabeshana Karar Kaje Byabahrit Hato Jaihok AE Dharaner Jinisgulir Gyaner Madhye Koun Sangatipurna Bishishta Parthakya Tairi Kara Hayani Ja Pratiti Sampradayer Madhye SATHYA Evan Anyanya Dharaner Sampradayik Gyaner Mato Jeman Pauranik Kahini Evan Aini Byabastha Are Ekhan Amara AE Adhunik Juge Ese Sei Bigyan Namak Gyan Bhandarer Jantratike Manushake Kibhabe Mara Jay Sei Pathe Niye Jachchhi Sankshipta Taur Kichhu Udaharan Tule Dharalei Amara Bujhte Parbo Bigyan Amader Kat Xati Karachhe Age Shuntam Manus Ec Sthan Theke Anya Sthane Ba Bedshee Durer Koun Bhramane Gele Hayat Paye Hete Nayat Ghoda Ba Garur Gari Byabahar Karat Are Ekhan AE Adhunik Juge Ese Bigyanira Bibhinna Jantraangsh Tairi Kare Gari Viman Rocket Aro Kat Ki Tairi Karechhen Jar Sathik Hiseb Manusher Rakhar Sadhya Nei Are We Sab Jantraangsher Garigulor Kalo Dhwa Amader Charopasher Paribeshke Jeman Kare Tulchhe Dushit Teman Kere Nichchhe Akal Kat Manusher Jeevan Amader AE Paribesh Dushitar Karne Akal Shishuder Pranahani Ager Jeman Az Theke Ekashat Ba Derashat Bachhar Age Ekekajan Manus Com Haleo Ekashat Trisha Theke Pray Ekashat Saat Bachhar Pajanta Benche Thakto Are Ekhan AE Adhunik Juge Ese Amader Gade Ayu Danriyechhe Panchash Ki Saat Bachhar Aaha Ray AE Adhunik Juger Bigyan Ja Amader Jibner 99 Theke 100 Bajiye Chharchhe Adijug Arthat Sei Pathure Juger Manushera Khet Tatka Shakasabaji Evan Tatka Falamul Ja Shudhu Tatkai Noy Chhil Bish Mukta Are Tatkato Durer Katha Jai Khachchhi Sabai Bish Jukta Khabar
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


বিশ্বের যা কিছু পর্যবেক্ষণযোগ্য, পরীক্ষণযোগ্য ও যাচাইযোগ্য, তার সুশৃঙ্খল, নিয়মতান্ত্রিক গবেষণা ও সেই গবেষণালব্ধ জ্ঞানভাণ্ডারের নাম বিজ্ঞান। ল্যাটিন শব্দ সায়েনটিয়া (scientia) থেকে ইংরেজি সায়েন্স শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে জ্ঞান। বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান শব্দটির অর্থ বিশেষ জ্ঞান।ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার ফলে কোন বিষয়ে প্রাপ্ত ব্যাপক ও বিশেষ জ্ঞানের সাথে জড়িত ব্যক্তি বিজ্ঞানী, বিজ্ঞানবিদ কিংবা বৈজ্ঞানিক নামে পরিচিত হয়ে থাকেন। বিজ্ঞানীরা বিশেষ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসরণ করে জ্ঞান অর্জন করেন এবং প্রকৃতি ও সমাজের নানা মৌলিক বিধি ও সাধারণ সত্য আবিষ্কারের চেষ্টা করেন। বর্তমান বিশ্ব এবং এর প্রগতি নিয়ন্ত্রিত হয় বিজ্ঞানের মাধ্যমে। তাই এর গুরুত্ব অপরিসীম। ব্যাপক অর্থে যেকোনো জ্ঞানের পদ্ধতিগত বিশ্লেষণকে বিজ্ঞান বলা হলেও এখানে বিশেষায়িত ক্ষেত্রে শব্দটি ব্যবহার করা হবে। বিজ্ঞানের ক্ষেত্র মূলত দুটি: সামাজিক বিজ্ঞান এবং প্রাকৃতিক বিজ্ঞান। জীববিজ্ঞান, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন-সহ এ ধরনের সকল বিজ্ঞান প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের অন্তর্ভুক্ত।
Romanized Version
বিশ্বের যা কিছু পর্যবেক্ষণযোগ্য, পরীক্ষণযোগ্য ও যাচাইযোগ্য, তার সুশৃঙ্খল, নিয়মতান্ত্রিক গবেষণা ও সেই গবেষণালব্ধ জ্ঞানভাণ্ডারের নাম বিজ্ঞান। ল্যাটিন শব্দ সায়েনটিয়া (scientia) থেকে ইংরেজি সায়েন্স শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে জ্ঞান। বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান শব্দটির অর্থ বিশেষ জ্ঞান।ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার ফলে কোন বিষয়ে প্রাপ্ত ব্যাপক ও বিশেষ জ্ঞানের সাথে জড়িত ব্যক্তি বিজ্ঞানী, বিজ্ঞানবিদ কিংবা বৈজ্ঞানিক নামে পরিচিত হয়ে থাকেন। বিজ্ঞানীরা বিশেষ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসরণ করে জ্ঞান অর্জন করেন এবং প্রকৃতি ও সমাজের নানা মৌলিক বিধি ও সাধারণ সত্য আবিষ্কারের চেষ্টা করেন। বর্তমান বিশ্ব এবং এর প্রগতি নিয়ন্ত্রিত হয় বিজ্ঞানের মাধ্যমে। তাই এর গুরুত্ব অপরিসীম। ব্যাপক অর্থে যেকোনো জ্ঞানের পদ্ধতিগত বিশ্লেষণকে বিজ্ঞান বলা হলেও এখানে বিশেষায়িত ক্ষেত্রে শব্দটি ব্যবহার করা হবে। বিজ্ঞানের ক্ষেত্র মূলত দুটি: সামাজিক বিজ্ঞান এবং প্রাকৃতিক বিজ্ঞান। জীববিজ্ঞান, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন-সহ এ ধরনের সকল বিজ্ঞান প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের অন্তর্ভুক্ত।Bishwer Ja Kichhu Parjabekshanajogya Parikshanajogya O Jachaijogya Taur Sushrinkhal Niyamatantrik Gabeshana O Sei Gabeshnalabdha Gyanabhandarer NAM Bigyan Lyatin Shabd Sayentiya (scientia) Theke Ingreji Sayens Shabdati Esechhe Jar Earth Hachchhe Gyan Bangla Bhashay Bigyan Shabdatir Earth Vishesha Gyan Dharabahik Parjabekshan O Gabeshnar Fale Koun Bishye Prapta Byapak O Vishesha Gyaner Sathe Jarit Byakti Bigyani Bigyanabid Kingba Baigyanik Name Parichit Haye Thaken Bigyanira Vishesha Baigyanik Paddhati Anusaran Kare Gyan Arjan Curren Evan Prakriti O Samajer Nana Maulik Bidhi O Sadharan SATHYA Abishkarer Cheshta Curren Bartaman Biswa Evan Aare Pragathi Niyantrit Hay Bigyaner Madhyame Tai Aare Gurutba Aparisim Byapak Arthe Jekono Gyaner Paddhatigat Bishleshanake Bigyan Bala Haleo Ekhane Bisheshayit Xetre Shabdati Byabahar Kara Habe Bigyaner Kshetra Mulat Duti Samajik Bigyan Evan Praakritik Bigyan Jibbigyan Padarthabigyan Rasayan Huh A Dharaner Sakal Bigyan Praakritik Bigyaner Antarbhukta
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Bigyan Aare Ki,What Is Science?,


vokalandroid