বিখ্যাত লোক গান লেখো ? ...

বিখ্যাত লোক গান ভাবাগীতি (আক্ষরিক অর্থ 'ভাব কবিতা') হল এক রকম ভাবপ্রকাশের কবিতা এবং লঘু সংগীত। লোক গান বেশির ভাগ কবিতা গাওয়া হয় বিশেষ ধরনের, ভালোবাসা, প্রকৃতি, দর্শন ইত্যাদ, এবং ধরনটা গজল থেকে আলাদা নয়, যদিও গজলের একটা অদ্ভুত ছন্দ আছে। গান এই ধরনটা ভারতের অনেক জায়গায়, লোক বিশেষত কর্ণাটকে জনপ্রিয়। অন্যান্য ভাষায় ভাবগীতির বিভিন্ন নাম আছে। কন্নড় ভাবাগীতি আধুনিক কবিদের কবিতা থেকে নেওয়া হয়, যেমন: কেভেম্পু, ডি আর বেন্দ্রে, গোপালকৃষ্ণ অদিগা, কে এস নরসিমহাস্বামী, জি এস শিবরুদ্রাপ্পা, কে এস নিসার আহমেদ, এন এস লক্ষ্মীনারায়ণা ভট্ট প্রমুখ। বিখ্যাত ভাবাগীতি প্রদর্শকরা হলেন: পি কলিঙ্গ রাও, মাইশোর অনন্তস্বামী, সি অসওয়াথ, শিমোগা সুব্বান্না, অর্চনা উদুপা, রাজু অনন্তস্বামী প্রমুখ।
Romanized Version
বিখ্যাত লোক গান ভাবাগীতি (আক্ষরিক অর্থ 'ভাব কবিতা') হল এক রকম ভাবপ্রকাশের কবিতা এবং লঘু সংগীত। লোক গান বেশির ভাগ কবিতা গাওয়া হয় বিশেষ ধরনের, ভালোবাসা, প্রকৃতি, দর্শন ইত্যাদ, এবং ধরনটা গজল থেকে আলাদা নয়, যদিও গজলের একটা অদ্ভুত ছন্দ আছে। গান এই ধরনটা ভারতের অনেক জায়গায়, লোক বিশেষত কর্ণাটকে জনপ্রিয়। অন্যান্য ভাষায় ভাবগীতির বিভিন্ন নাম আছে। কন্নড় ভাবাগীতি আধুনিক কবিদের কবিতা থেকে নেওয়া হয়, যেমন: কেভেম্পু, ডি আর বেন্দ্রে, গোপালকৃষ্ণ অদিগা, কে এস নরসিমহাস্বামী, জি এস শিবরুদ্রাপ্পা, কে এস নিসার আহমেদ, এন এস লক্ষ্মীনারায়ণা ভট্ট প্রমুখ। বিখ্যাত ভাবাগীতি প্রদর্শকরা হলেন: পি কলিঙ্গ রাও, মাইশোর অনন্তস্বামী, সি অসওয়াথ, শিমোগা সুব্বান্না, অর্চনা উদুপা, রাজু অনন্তস্বামী প্রমুখ।Bikhyat Loka Gone Bhabagiti Aksharik Earth Bhaav Kavita Hall Ec Rakam Bhabaprakasher Kavita Evan Laghu Sangit Loka Gone Beshir Bhag Kavita Gawa Hay Vishesha Dharaner Bhalobasa Prakriti Darshan Ityad Evan Dharanata Gozl Theke Alada Nay Jadio Gajaler Ekata Adbhut Chhanda Ache Gone AE Dharanata Bharter Anek Jaygay Loka Bisheshat Karnatake Janapriya Anyanya Bhashay Bhabgitir Bibhinna NAM Ache Kannar Bhabagiti Adhunik Kabider Kavita Theke Newa Hay Jeman Kebhempu Di Are Bendre Gopalakrishna Adiga K S Narasimhaswami G S Shibrudrappa K S Nisar Ahmeda N S Lakshminarayna Bhatt Pramukh Bikhyat Bhabagiti Pradarshakara Halen Pe Calling Rao Maishor Anantaswami C Aswath Shimoga Subbanna Archana Udupa Raju Anantaswami Pramukh
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


বিখ্যাত লোক গান হাজার বছরের ঐতিহ্য ধারণকারী বাংলাদেশের লোকসংস্কৃতির সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সমৃদ্ধ শাখা লোকসংগীত। ঐতিহাসিক কাল থেকেই বাঙালি সংগীতপ্রিয় জাতি। বাস্তবে এ দেশের মানুষ যখন থেকে বাংলা ভাষা পেয়েছে, তখন থেকেই লোকসংগীতের চল। ১১০০ বছর আগে রচিত ‘চর্যাপদ’ ছিল বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন, ভাষাও ছিল আদি বাংলা। চর্যাগুলো যে গানের আঙ্গিকে ও ভাষায় লিপিবদ্ধ, তা প্রতিটি চর্যাপদের শীর্ষে রাগ-রাগিণীর উচ্চারণে মূর্ত হয়েছে। বিভিন্ন হিসাব করে দেখা গেছে, এরূপ রাগ-রাগিণীর মোট সংখ্যা ১৯, যার মধ্যে দু-চারটি লোকসংগীতের সুর হতে পারে, যেমন— দেশাখ, গউড়া, শাবরী, বঙ্গাল প্রভৃতি। আনুমানিক তেরো শতকে রচিত হলায়ুধ মিশ্রের বিখ্যাত গ্রন্থ ‘সেক শুভোদয়া’ গ্রন্থে ‘ভাটিয়ালী রাগেণ গীয়তে’ বলে একটি ছড়াধর্মী সংগীতের কথা বলা হয়েছে। নন্দিত এ সংগীতটি নদীর ঘাটে স্নান শেষে গৃহে ফেরার পথে দুজন ডাইনি গেয়েছিল। এর ফলেই কয়েকটি চরণ এরূপ হয়েছিল বলে বিশ্লেষকদের ধারণা।অন্যদিকে প্রাচীন ও মধ্যযুগের মৌখিক ধারার লোকসাহিত্য ও লোকসংগীতের প্রকৃত চিত্র কী ছিল, তা আজ আর জানার সুযোগ নেই, কেননা সেগুলোর লিখিত রূপ সংরক্ষিত হয়নি। বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি থেকে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষামালা-৭’ থেকে দেখা যাচ্ছে, ১৯ শতকের আগে লোকসাহিত্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণের ব্যবস্থা ছিল না। এখানে ডাক ও খনার বচনগুলো লোকসাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন বলে গণ্য করা হয়, কিন্তু কত প্রাচীন, তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। স্মৃতি ও শ্রুতিনির্ভর এসব রচনার ভাষায় প্রাচীনতাও রক্ষিত হয়নি। এগুলোকেও সংগীতের আদি ও অকৃত্রিম উত্স বলে দাবি করেছেন কেউ কেউ। যদিও লোকসংগীতের প্রাচীন নমুনা উদ্ধার করা যায়নি, তবে কীর্তন, সারি, জারি, ভাটিয়ালি, বারমাসী, ঝুমুর, ব্রত প্রভৃতি গানের নাম মধ্যযুগের একাধিক কাব্যে পাওয়া গেছে। মঙ্গলকাব্যের বারমাসীর বিষয় ও ফর্ম সরাসরি লৌকিক বারমাসী থেকেই গৃহীত। নদী ও নৌকার সঙ্গে জড়িত মাঝি-মাল্লার গান সারি ও ভাটিয়ালি প্রাচীন হওয়া স্বাভাবিক। চর্যাপদে, কৃষ্ণকথায়, মনসামঙ্গলে, দেহতত্ত্বের গানে নদী ও নৌকার প্রসঙ্গ নানাভাবে এসেছে। তারা যে দাঁড় বাইতে বাইতে সারি গায়, তা সহজেই বোঝা যায়। কল্পকথার ভাবালেখ্যে চাঁদ সওদাগর চৌদ্দ ডিঙ্গার এক বিশাল বহর নিয়ে বাণিজ্যের উদ্দেশে যাত্রা করেছিলেন। নৌকার শ্রমজীবী গাবরদের এ সারিগান নিঃসন্দেহে লোকসংগীত ছিল।বিভিন্ন সূত্র পর্যালোচনা করতে গেলে দেখা যায়, ভাটিয়ালি সুরের কথা চর্যাপদে, সেক শুভোদয়ায়, শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে, ইউসুফ-জোলেখায় আছে। সমকালের লোক প্রচলিত ভাটিয়ালি গান থেকে এ সুর আহূত হয়ে থাকতে পারে। বৈষ্ণব সমাজে কীর্তন ধর্মসাধনার অঙ্গ ছিল, এখনো আছে। চৈতন্যদেব লৌকিক কীর্তনকে ‘নগরকীর্তনে’ ও ‘নামসংকীর্তনে’ রূপান্তর করে কৌলীন্য দান করেন। মনসার মাহাত্ম্য নিয়ে রচিত ‘অষ্টক গান’, ‘রয়ানি গান’, ‘মনসার ভাসান’ প্রভৃতি মনসাপূজা প্রবর্তিত হওয়ার পর প্রচার লাভ করে। পূর্ববঙ্গে মনসাপূজার প্রভাব বেশি। জারিগান শিয়া সম্প্রদায়ের আগমন এবং প্রভাব বিস্তারের পর এ দেশে প্রচলিত হয়। এভাবে ধর্ম, সমাজ, ইতিহাস, ঐতিহ্যের আলোকে এ ধরনের গানের বিকাশ ঘটেছে, যার শ্রেণীকরণের ক্ষেত্রেও এটাকে গুরুত্বের সঙ্গে বিচার করতে হয়। বিশেষত লোকসংগীতের শ্রেণীকরণ সহজ বিষয় নয়।লোক পণ্ডিতরা বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে শ্রেণীভাগ করেছেন। কোনো কোনো পণ্ডিত আঞ্চলিক ও সর্বাঞ্চলীয়, আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক, সাধারণ ও তত্ত্বপ্রধান, তালযুক্ত ও তালহীন, সংস্কারাগত ও সংস্কারনিরপেক্ষ— এমন স্থূলভাবে ভাগ করে নানা উপবিভাগ করেছেন। আশুতোষ ভট্টাচার্য আঞ্চলিক, ব্যবহারিক, আনুষ্ঠানিক, কর্ম ও প্রেম এ পাঁচটি ভাগ করেন বাংলাদেশের গানগুলোকে। অন্যদিকে আশরাফ সিদ্দিকী আঞ্চলিক, ব্যবহারিক, হাস্যমূলক, কর্ম, প্রেম ও বারমাসী— এ ছয়টি ভাগ করেন। তবে লোক অঞ্চল, উপলক্ষ ও বিষয়ভিত্তিক এমন মিশ্র রীতির বিভাজন যুক্তিসঙ্গত নয়। বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি থেকে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষামালা-৭’-এর বর্ণনা থেকে লোকসংগীতের বিষয়ভিত্তিক একটি শ্রেণীকরণ নিম্নরূপে করা যায়— ১. ধর্ম, তত্ত্ব, ভক্তি, আচার ও সংস্কার: অষ্টক গান, কীর্তন, গাজন, জাগ গান, জারি গান, ধামাইল গান, ধুয়া গান, নৈলার গান, বাউল গান, বিচার গান, ভাটিয়ালি গান, মনসা ভাসান বা রয়ানি গান, মর্সিয়া গান, মাইজভাণ্ডারি গান, মারফতি গান, মুর্শিদি গান, হুদমার গীত, উরি বা হোলির গান।২. প্রেম ও বিনোদন: আলকাপ গান, গোসা গান, ঘাটু গান, বারমাসী, বারাষে, বিচ্ছেদি গান, ভাওয়াইয়া, সারি গান।৩. কর্ম ও শ্রম: ক্ষেত নিড়ানির গান, ধান ও পাট কাটার গান, ধান ভানার গীত, হাতি খেদানোর গান। ৪. পেশা ও বৃত্তি: খেমটা গান, পটুয়া সংগীত, পালকিওয়ালার গান, ফেরিওয়ালার গান, বেদে বা সাপুড়ের গান বাওয়ালির গান পুতুলনাচের গান । ৫. হাস্য-কৌতুক: গম্ভীরা গান, চটকা গান, হাবু গান । ৬. মিশ্র ভাব-বিষয়: কবিগান, নাটুয়া গান।
Romanized Version
বিখ্যাত লোক গান হাজার বছরের ঐতিহ্য ধারণকারী বাংলাদেশের লোকসংস্কৃতির সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সমৃদ্ধ শাখা লোকসংগীত। ঐতিহাসিক কাল থেকেই বাঙালি সংগীতপ্রিয় জাতি। বাস্তবে এ দেশের মানুষ যখন থেকে বাংলা ভাষা পেয়েছে, তখন থেকেই লোকসংগীতের চল। ১১০০ বছর আগে রচিত ‘চর্যাপদ’ ছিল বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন, ভাষাও ছিল আদি বাংলা। চর্যাগুলো যে গানের আঙ্গিকে ও ভাষায় লিপিবদ্ধ, তা প্রতিটি চর্যাপদের শীর্ষে রাগ-রাগিণীর উচ্চারণে মূর্ত হয়েছে। বিভিন্ন হিসাব করে দেখা গেছে, এরূপ রাগ-রাগিণীর মোট সংখ্যা ১৯, যার মধ্যে দু-চারটি লোকসংগীতের সুর হতে পারে, যেমন— দেশাখ, গউড়া, শাবরী, বঙ্গাল প্রভৃতি। আনুমানিক তেরো শতকে রচিত হলায়ুধ মিশ্রের বিখ্যাত গ্রন্থ ‘সেক শুভোদয়া’ গ্রন্থে ‘ভাটিয়ালী রাগেণ গীয়তে’ বলে একটি ছড়াধর্মী সংগীতের কথা বলা হয়েছে। নন্দিত এ সংগীতটি নদীর ঘাটে স্নান শেষে গৃহে ফেরার পথে দুজন ডাইনি গেয়েছিল। এর ফলেই কয়েকটি চরণ এরূপ হয়েছিল বলে বিশ্লেষকদের ধারণা।অন্যদিকে প্রাচীন ও মধ্যযুগের মৌখিক ধারার লোকসাহিত্য ও লোকসংগীতের প্রকৃত চিত্র কী ছিল, তা আজ আর জানার সুযোগ নেই, কেননা সেগুলোর লিখিত রূপ সংরক্ষিত হয়নি। বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি থেকে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষামালা-৭’ থেকে দেখা যাচ্ছে, ১৯ শতকের আগে লোকসাহিত্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণের ব্যবস্থা ছিল না। এখানে ডাক ও খনার বচনগুলো লোকসাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন বলে গণ্য করা হয়, কিন্তু কত প্রাচীন, তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। স্মৃতি ও শ্রুতিনির্ভর এসব রচনার ভাষায় প্রাচীনতাও রক্ষিত হয়নি। এগুলোকেও সংগীতের আদি ও অকৃত্রিম উত্স বলে দাবি করেছেন কেউ কেউ। যদিও লোকসংগীতের প্রাচীন নমুনা উদ্ধার করা যায়নি, তবে কীর্তন, সারি, জারি, ভাটিয়ালি, বারমাসী, ঝুমুর, ব্রত প্রভৃতি গানের নাম মধ্যযুগের একাধিক কাব্যে পাওয়া গেছে। মঙ্গলকাব্যের বারমাসীর বিষয় ও ফর্ম সরাসরি লৌকিক বারমাসী থেকেই গৃহীত। নদী ও নৌকার সঙ্গে জড়িত মাঝি-মাল্লার গান সারি ও ভাটিয়ালি প্রাচীন হওয়া স্বাভাবিক। চর্যাপদে, কৃষ্ণকথায়, মনসামঙ্গলে, দেহতত্ত্বের গানে নদী ও নৌকার প্রসঙ্গ নানাভাবে এসেছে। তারা যে দাঁড় বাইতে বাইতে সারি গায়, তা সহজেই বোঝা যায়। কল্পকথার ভাবালেখ্যে চাঁদ সওদাগর চৌদ্দ ডিঙ্গার এক বিশাল বহর নিয়ে বাণিজ্যের উদ্দেশে যাত্রা করেছিলেন। নৌকার শ্রমজীবী গাবরদের এ সারিগান নিঃসন্দেহে লোকসংগীত ছিল।বিভিন্ন সূত্র পর্যালোচনা করতে গেলে দেখা যায়, ভাটিয়ালি সুরের কথা চর্যাপদে, সেক শুভোদয়ায়, শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে, ইউসুফ-জোলেখায় আছে। সমকালের লোক প্রচলিত ভাটিয়ালি গান থেকে এ সুর আহূত হয়ে থাকতে পারে। বৈষ্ণব সমাজে কীর্তন ধর্মসাধনার অঙ্গ ছিল, এখনো আছে। চৈতন্যদেব লৌকিক কীর্তনকে ‘নগরকীর্তনে’ ও ‘নামসংকীর্তনে’ রূপান্তর করে কৌলীন্য দান করেন। মনসার মাহাত্ম্য নিয়ে রচিত ‘অষ্টক গান’, ‘রয়ানি গান’, ‘মনসার ভাসান’ প্রভৃতি মনসাপূজা প্রবর্তিত হওয়ার পর প্রচার লাভ করে। পূর্ববঙ্গে মনসাপূজার প্রভাব বেশি। জারিগান শিয়া সম্প্রদায়ের আগমন এবং প্রভাব বিস্তারের পর এ দেশে প্রচলিত হয়। এভাবে ধর্ম, সমাজ, ইতিহাস, ঐতিহ্যের আলোকে এ ধরনের গানের বিকাশ ঘটেছে, যার শ্রেণীকরণের ক্ষেত্রেও এটাকে গুরুত্বের সঙ্গে বিচার করতে হয়। বিশেষত লোকসংগীতের শ্রেণীকরণ সহজ বিষয় নয়।লোক পণ্ডিতরা বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে শ্রেণীভাগ করেছেন। কোনো কোনো পণ্ডিত আঞ্চলিক ও সর্বাঞ্চলীয়, আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক, সাধারণ ও তত্ত্বপ্রধান, তালযুক্ত ও তালহীন, সংস্কারাগত ও সংস্কারনিরপেক্ষ— এমন স্থূলভাবে ভাগ করে নানা উপবিভাগ করেছেন। আশুতোষ ভট্টাচার্য আঞ্চলিক, ব্যবহারিক, আনুষ্ঠানিক, কর্ম ও প্রেম এ পাঁচটি ভাগ করেন বাংলাদেশের গানগুলোকে। অন্যদিকে আশরাফ সিদ্দিকী আঞ্চলিক, ব্যবহারিক, হাস্যমূলক, কর্ম, প্রেম ও বারমাসী— এ ছয়টি ভাগ করেন। তবে লোক অঞ্চল, উপলক্ষ ও বিষয়ভিত্তিক এমন মিশ্র রীতির বিভাজন যুক্তিসঙ্গত নয়। বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি থেকে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সমীক্ষামালা-৭’-এর বর্ণনা থেকে লোকসংগীতের বিষয়ভিত্তিক একটি শ্রেণীকরণ নিম্নরূপে করা যায়— ১. ধর্ম, তত্ত্ব, ভক্তি, আচার ও সংস্কার: অষ্টক গান, কীর্তন, গাজন, জাগ গান, জারি গান, ধামাইল গান, ধুয়া গান, নৈলার গান, বাউল গান, বিচার গান, ভাটিয়ালি গান, মনসা ভাসান বা রয়ানি গান, মর্সিয়া গান, মাইজভাণ্ডারি গান, মারফতি গান, মুর্শিদি গান, হুদমার গীত, উরি বা হোলির গান।২. প্রেম ও বিনোদন: আলকাপ গান, গোসা গান, ঘাটু গান, বারমাসী, বারাষে, বিচ্ছেদি গান, ভাওয়াইয়া, সারি গান।৩. কর্ম ও শ্রম: ক্ষেত নিড়ানির গান, ধান ও পাট কাটার গান, ধান ভানার গীত, হাতি খেদানোর গান। ৪. পেশা ও বৃত্তি: খেমটা গান, পটুয়া সংগীত, পালকিওয়ালার গান, ফেরিওয়ালার গান, বেদে বা সাপুড়ের গান বাওয়ালির গান পুতুলনাচের গান । ৫. হাস্য-কৌতুক: গম্ভীরা গান, চটকা গান, হাবু গান । ৬. মিশ্র ভাব-বিষয়: কবিগান, নাটুয়া গান।Bikhyat Loka Gone Hajar Bachharer Aitihya Dharanakari Bangladesher Lokasanskritir Sabacheye Janapriya O Samriddha Shakha Lokasangit Aitihasik Kaal Thekei Bangali Sangitapriya JATI Bastabe A Desher Manus Jakhan Theke Bangla Bhasha Peyechhe Takhan Thekei Lokasangiter Challa 1100 Bachhar Age Rachit ‘charjapado Chhil Bangla Sahityer Adi Nidarshan Bhashao Chhil Adi Bangla Charjagulo Je Ganer Angike O Bhashay Lipibaddha Ta Pratiti Charjapader Shirshe Ragha Raginir Uchcharane Murta Hayechhe Bibhinna Hisab Kare Dekha Gechhe Erup Ragha Raginir Mot Sankhya 19 Jar Madhye Du Charti Lokasangiter Sur Hate Pare Jeman— Deshakh Gaura Shabri Bengal Prabhriti Anumanik Tero Shatake Rachit Halayudh Mishrer Bikhyat Grantha ‘sec Shubhodyao Granthe ‘bhatiyali Ragen Giyteo Ble Ekati Chharadharmi Sangiter Katha Bala Hayechhe Nandit A Sangitati Nadir Ghate Snan Sheshe Grihe Ferar Pathe Dujon Daini Geyechhil Aare Falei Kayekati Charan Erup Hayechhil Ble Bishleshakader Dharna Anyadike Prachin O Madhyajuger Maukhik Dharar Loksahitya O Lokasangiter Prakrit Chitra Key Chhil Ta Az Are Janar Sujog Nei Kenna Segulor Likhit Roopa Sangrakshit Hayani Bangladesh Eshiyatik Sosaiti Theke Prakashit ‘bangladesh Sanskritik Samikshamala 7o Theke Dekha Jachchhe 19 Shataker Age Loksahitya Sangrah O Sangrakshaner Byabastha Chhil Na Ekhane Duck O Khanar Bachanagulo Loksahityer Prachin Nidarshan Ble Ganya Kara Hya Kintu Kat Prachin Ta Nishchit Kare Bala Jay Na Smriti O Shrutinirbhar Esab Rachanar Bhashay Prachintao Rakshit Hayani Egulokeo Sangiter Adi O Akritrim Uts Ble Dabi Karechhen Keu Keu Jadio Lokasangiter Prachin Namuna Uddhar Kara Jayni Tove Keerthana Sari Jari Bhatiyali Barmasi Jhumur Brat Prabhriti Ganer NAM Madhyajuger Ekadhik Kabye Powa Gechhe Mangalakabyer Barmasir Vysya O Form Sarasari Laukik Barmasi Thekei Grihit Nadi O Naukar Sange Jarit Majhi Mallar Gone Sari O Bhatiyali Prachin Hwa Swabhabik Charjapade Krishnakathay Manasamangale Dehatattber Gane Nadi O Naukar Prasanga Nanabhabe Esechhe Tara Je Danr Baite Baite Sari Gaya Ta Sahajei Bojha Jay Kalpakathar Bhabalekhye Saad Saudagar Chaudda Dingar Ec Vishal Vohra Niye Banijyer Uddeshe Jatra Karechhilen Naukar Shramajibi Gabarader A Sarigan Nihsandehe Lokasangit Chhil Bibhinna Sutra Parjalochna Karate Gele Dekha Jay Bhatiyali Surer Katha Charjapade Shek Shubhodyay Shrikrishnakirtane Yusuf Jolekhay Ache Samakaler Loka Prachalit Bhatiyali Gone Theke A Sur Ahut Huye Thakte Pare Baishnab Samaje Keerthana Dharmasadhnar Ong Chhil Ekhano Ache Chaitanyadeb Laukik Kirtanake ‘nagarakirtaneo O ‘namasankirtaneo Rupantar Kare Kaulinya Dan Curren Manasar Mahatmya Niye Rachit ‘ashtak Gano ‘rayani Gano ‘manasar Bhasano Prabhriti Manasapuja Prabartit Hwar Par Prachar Love Kare Purbabange Manasapujar Prabhab Bedshee Jarigan Shiya Sampradayer Aagman Evan Prabhab Bistarer Par A Deshe Prachalit Hya Ebhabe Dharm Samaj Itihas Aitihyer Aloke A Dharaner Ganer Vikas Ghatechhe Jar Shrenikaraner Xetreo Etake Gurutber Sange Bichar Karate Hya Bisheshat Lokasangiter Shrenikaran Suhaj Vysya Noy Loka Panditara Bibhinna Drishtikon Theke Shrenibhag Karechhen Kono Kono Pandit Anchalik O Sarbanchaliya Anushthanik O Ananushthanik Sadharan O Tattbapradhan Talajukta O Talhin Sanskaragat O Sanskaranirpeksh— Eman Sthulabhabe Bhag Kare Nana Upabibhag Karechhen Ashutosh Bhattacharjya Anchalik Byabaharik Anushthanik Karma O Prem A Panchati Bhag Curren Bangladesher Ganguloke Anyadike Asharaf Siddiki Anchalik Byabaharik Hasyamulak Karma Prem O Barmasi— A Chhayati Bhag Curren Tove Loka Anchal Upalaksh O Bishayabhittik Eman Mishra Ritir Bibhajan Juktisangat Noy Bangladesh Eshiyatik Sosaiti Theke Prakashit ‘bangladesh Sanskritik Samikshamala 7o Aare Barnana Theke Lokasangiter Bishayabhittik Ekati Shrenikaran Nimnarupe Kara Jay— 1 Dharm Tattva Bhakti Achar O Sanskar Ashtak Gone Keerthana Gajan Jug Gone Jari Gone Dhamail Gone Dhua Gone Nailar Gone Bowl Gone Bichar Gone Bhatiyali Gone Manasa Bhasan Ba Rayani Gone Marsiya Gone Maijabhandari Gone Marafati Gone Murshidi Gone Hudmar Geet Uri Ba Holir Gone 2 Prem O Binodan Alakap Gone Gosa Gone Ghatu Gone Barmasi Barashe Bichchhedi Gone Bhawaiya Sari Gone 3 Karma O Shram Xet Niranir Gone Dhan O Pete Cutter Gone Dhan Bhanar Geet Hati Khedanor Gone 4 Pesa O Britti Khemta Gone Patuya Sangit Palkiwalar Gone Feriwalar Gone Bede Ba Sapurer Gone Bawalir Gone Putulnacher Gone 5 Hasya Kautuk Gamvira Gone Chataka Gone Habu Gone 6 Mishra Bhaav Vysya Kabigan Natuya Gone
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Bikhyat Loka Gone Lekho ?,Write Famous Songs?,


vokalandroid