সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও সম্পর্কে আলোচনা করো । ...

সুভাষ চন্দ্র বসু (১৮৯৭-১৯৪৫) কংগ্রেস দলের বামপন্থী নেতা, ফরওয়ার্ড ব্লক এর প্রতিষ্ঠাতা ও ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মির সর্বাধিনায়ক। সুভাষচন্দ্র বসু ছিলেন জানকীনাথ বসু ও প্রভাবতী দেবীর চৌদ্দ সন্তানের মধ্যে নবম। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও জানকীনাথ বসু পশ্চিমবঙ্গের চবিবশ পরগনা জেলার কোদালিয়া গ্রাম পরিত্যাগ করে কটকে গিয়ে বাস করতে থাকেন এবং সেখানেই ২৩ জানুয়ারি ১৮৯৭-এ সুভাষচন্দ্রের জন্ম হয়। কটকেই তিনি বড় হন এবং ম্যাধমিক স্তর পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও প্রেসিডেন্সি কলেজে তাঁর উচ্চশিক্ষা শুরু হয়। তবে জনৈক ইউরোপীয় শিক্ষকের সাথে কথিত অসদাচরণের জন্য তাঁকে ঐ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বহিষ্কার করা হয়। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও এরপর তিনি কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজে ভর্তি হন এবং সেখান থেকেই ডিস্টিংকশনসহ দর্শনশাস্ত্রে অনার্স ডিগ্রি লাভ করেন। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও আই.সি.এস পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য তিনি ১৯১৯ সালে ইংল্যান্ড যান এবং সাফল্যের সাথে কাঙ্ক্ষিত ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিসে যোগদান করেন।
Romanized Version
সুভাষ চন্দ্র বসু (১৮৯৭-১৯৪৫) কংগ্রেস দলের বামপন্থী নেতা, ফরওয়ার্ড ব্লক এর প্রতিষ্ঠাতা ও ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মির সর্বাধিনায়ক। সুভাষচন্দ্র বসু ছিলেন জানকীনাথ বসু ও প্রভাবতী দেবীর চৌদ্দ সন্তানের মধ্যে নবম। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও জানকীনাথ বসু পশ্চিমবঙ্গের চবিবশ পরগনা জেলার কোদালিয়া গ্রাম পরিত্যাগ করে কটকে গিয়ে বাস করতে থাকেন এবং সেখানেই ২৩ জানুয়ারি ১৮৯৭-এ সুভাষচন্দ্রের জন্ম হয়। কটকেই তিনি বড় হন এবং ম্যাধমিক স্তর পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও প্রেসিডেন্সি কলেজে তাঁর উচ্চশিক্ষা শুরু হয়। তবে জনৈক ইউরোপীয় শিক্ষকের সাথে কথিত অসদাচরণের জন্য তাঁকে ঐ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বহিষ্কার করা হয়। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও এরপর তিনি কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজে ভর্তি হন এবং সেখান থেকেই ডিস্টিংকশনসহ দর্শনশাস্ত্রে অনার্স ডিগ্রি লাভ করেন। সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও আই.সি.এস পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য তিনি ১৯১৯ সালে ইংল্যান্ড যান এবং সাফল্যের সাথে কাঙ্ক্ষিত ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিসে যোগদান করেন।Subhash Chandra Basu 1897 1945 Congress Daler Bamapanthi Neta Farward Block Aare Pratishthata O Indiyan Nyashanal Armir Sarbadhinayak Subhashachandra Basu Chhilen Jankinath Basu O Pravabati Debir Chaudda Santaner Madhye Novom Subhash Chandra Basu Video Jankinath Basu Pashchimabanger Chabibash Parganas Jelar Kodaliya Gram Parityag Kare Katake Giye Bass Karate Thaken Evan Sekhanei 23 Januyari 1897 A Subhashachandrer Janma Hay Katakei Tini Bar Hahn Evan Myadhamik Stor Parjanta Lekhapara Curren Subhash Chandra Basu Video Presidensi Kaleje Tanr Uchchashiksha Shuru Hay Tove Janaik Yuropiya Shikshaker Sathe Kathit Asadacharaner Janya Tanke Ae Siksha Pratisthan Theke Bahishkar Kara Hay Subhash Chandra Basu Video Erapar Tini Kalakatar Skatish Church Kaleje Bharti Hahn Evan Sekhan Thekei Distinkashanasah Darshanashastre Honours Digri Love Curren Subhash Chandra Basu Video I C S Parikshay Angshagrahaner Janya Tini 1919 Sale Inland Jan Evan Safalyer Sathe Kankshit Indiyan Civil Sarbhise Jogdan Curren
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও সম্পর্কে আলোচনা করা হল, ভারতীয় জাতীয়তাবদী নেতা সুভাষ চন্দ্র বসু এর ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৮ অগস্ট জাপানি-অধিকৃত ফরমোসা দ্বীপে (বর্তমান তাইওয়ান) তাঁর অধিক যাত্রীবাহিত বিমান দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়ে দেহাবসান হয়।[১][ক][২][খ] সে যা-ই হোক, তাঁর অনেক অনুগামীই, বিশেষত বাংলায়, সেই সময় ঘটনাটা অস্বীকার করে, এবং এমনকি এখনো তাঁর মৃত্যু সম্পর্কিত পরিস্থিতি এবং তথ্য বিশ্বাস করতে অস্বীকার করে।[৩][গ][৪][ঘ][৫][ঙ] তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব উদ্ভূত হয় এবং তারপর একটা দীর্ঘ ব্যক্তিগত জীবন থাকবার ছিল,[৬][চ] সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে বিভিন্ন সামরিক কাহিনি জিইয়ে রাখা হয়েছে।সুভাষচন্দ্র পরপর দু-বার ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হন। কিন্তু মহাত্মা গান্ধির সঙ্গে আদর্শগত সংঘাত এবং কংগ্রেসের বৈদেশিক ও অভ্যন্তরীণ নীতির প্রকাশ্য সমালোচনা[১] বিরুদ্ধ মত প্রকাশ করার জন্য তাঁকে পদত্যাগ করতে হয়। সুভাষচন্দ্র মনে করতেন গান্ধিজির অহিংসার নীতি ভারতের স্বাধীনতা আনার ক্ষেত্রে যথেষ্ট নয়। এই কারণে তিনি সশস্ত্র বিদ্রোহের পক্ষপাতী ছিলেন। সুভাষ চন্দ্র বসু ফরওয়ার্ড ব্লক নামক একটি রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করে[২] ব্রিটিশ শাসন থেকে ভারতের পূর্ণ ও সত্বর স্বাধীনতার দাবি জানাতে থাকেন। ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ তাঁকে এগারো বার কারারুদ্ধ করেছিল। তাঁর বিখ্যাত উক্তি "তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেবো।"সুভাষ চন্দ্র বসুর কৃতিত্বগুলো অগস্ট, ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের আগেই উপকথার আকার নিতে শুরু করে।[৩২][জ] ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় গৃহবন্দি অবস্থায় অন্তর্ধানের সময় থেকে ভারতে জনশ্রুতি প্রচলিত ছিল যে, তিনি জীবিত আছেন কী না, যদি থাকেন, তবে কোথায় এবং তিনি কী করছেন।[৩২]১৯৪১ খ্রিস্টাব্দে সুদূর জার্মানিতে তাঁর অবস্থান তাঁর কাজকর্ম সম্পর্কে একটা রহস্যের বাতাবরণ তৈরি করেছিল। কংগ্রেস নেতারা জেলে থাকাকালে ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে ভারত ছাড়ো প্রস্তাব জেগে ওঠে এবং ভারতীয় জনগণ রাজনৈতিক খবর পাওয়ার জন্যে অকাঙ্ক্ষিত, বার্লিন থেকে সুভাষ চন্দ্রের বেতার সম্প্রচার ভারতীয় স্বাধীনতার জন্যে মৌলিক পরিকল্পনার নকশা সেই সময় তৈরি হচ্ছিল, যখন জার্মানির ভাগ্য খুলছে এবং ব্রিটেনের ভাগ্য নিচের দিকে, তাঁকে ভারত এবং দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় তোষামোদের ব্যক্তি বানানো হয়েছিল।[৩৩] জার্মানিতে তাঁর দুবছর থাকাকালীন সময়ে, রোমেইন হায়েসের ভাষ্য অনুযায়ী, "যদি সুভাষ চন্দ্র বার্লিনে সম্মান পেয়ে থাকেন, তবে টোকিওতে তিনি পেয়েছেন উষ্ণ শ্রদ্ধা এবং তাঁকে দেখা হোত 'ভারতীয় সেনাধ্যক্ষ' হিসেবে।[৩৪] এইভাবে তাঁকে যখন দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় ১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দের জুলাইতে দেখা গেল, রহস্যজনকভাবে জার্মান এবং জাপানি ডুবোজাহাজে এনেছিল, তিনি ইতিমধ্যেই প্রকৃতিগত দিক থেকে একটা অবাস্তব কাহিনির নায়ক হিসেবে প্রতিভাত হয়েছেন।[৩৩] সুভাষ চন্দ্রের মৃত্যুর পর, তাঁর অন্য লেফটেন্যান্টরা, মাঞ্চুরিয়াতে তাঁর সঙ্গে যাঁদের থাকার কথা ছিল, কিন্তু তাঁদের সায়গনে টারম্যাকে ছেড়ে যাওয়া হয়েছে, তাঁরা কখনোই একটা দেহ দেখেননি।[৩৫] সেখানে সুভাষ চন্দ্রের জখম হওয়া কিংবা অসুস্থ অবস্থার কোনো ফটোগ্রাফ নেওয়া হয়নি, এমনকি মৃত্যুর কোনো নথিভুক্তিকরণ (মৃত্যুর সার্টিফিকেট প্রদান) করা হয়নি।
Romanized Version
সুভাষ চন্দ্র বসু ভিডিও সম্পর্কে আলোচনা করা হল, ভারতীয় জাতীয়তাবদী নেতা সুভাষ চন্দ্র বসু এর ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৮ অগস্ট জাপানি-অধিকৃত ফরমোসা দ্বীপে (বর্তমান তাইওয়ান) তাঁর অধিক যাত্রীবাহিত বিমান দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়ে দেহাবসান হয়।[১][ক][২][খ] সে যা-ই হোক, তাঁর অনেক অনুগামীই, বিশেষত বাংলায়, সেই সময় ঘটনাটা অস্বীকার করে, এবং এমনকি এখনো তাঁর মৃত্যু সম্পর্কিত পরিস্থিতি এবং তথ্য বিশ্বাস করতে অস্বীকার করে।[৩][গ][৪][ঘ][৫][ঙ] তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব উদ্ভূত হয় এবং তারপর একটা দীর্ঘ ব্যক্তিগত জীবন থাকবার ছিল,[৬][চ] সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে বিভিন্ন সামরিক কাহিনি জিইয়ে রাখা হয়েছে।সুভাষচন্দ্র পরপর দু-বার ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হন। কিন্তু মহাত্মা গান্ধির সঙ্গে আদর্শগত সংঘাত এবং কংগ্রেসের বৈদেশিক ও অভ্যন্তরীণ নীতির প্রকাশ্য সমালোচনা[১] বিরুদ্ধ মত প্রকাশ করার জন্য তাঁকে পদত্যাগ করতে হয়। সুভাষচন্দ্র মনে করতেন গান্ধিজির অহিংসার নীতি ভারতের স্বাধীনতা আনার ক্ষেত্রে যথেষ্ট নয়। এই কারণে তিনি সশস্ত্র বিদ্রোহের পক্ষপাতী ছিলেন। সুভাষ চন্দ্র বসু ফরওয়ার্ড ব্লক নামক একটি রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করে[২] ব্রিটিশ শাসন থেকে ভারতের পূর্ণ ও সত্বর স্বাধীনতার দাবি জানাতে থাকেন। ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ তাঁকে এগারো বার কারারুদ্ধ করেছিল। তাঁর বিখ্যাত উক্তি "তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেবো।"সুভাষ চন্দ্র বসুর কৃতিত্বগুলো অগস্ট, ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের আগেই উপকথার আকার নিতে শুরু করে।[৩২][জ] ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় গৃহবন্দি অবস্থায় অন্তর্ধানের সময় থেকে ভারতে জনশ্রুতি প্রচলিত ছিল যে, তিনি জীবিত আছেন কী না, যদি থাকেন, তবে কোথায় এবং তিনি কী করছেন।[৩২]১৯৪১ খ্রিস্টাব্দে সুদূর জার্মানিতে তাঁর অবস্থান তাঁর কাজকর্ম সম্পর্কে একটা রহস্যের বাতাবরণ তৈরি করেছিল। কংগ্রেস নেতারা জেলে থাকাকালে ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে ভারত ছাড়ো প্রস্তাব জেগে ওঠে এবং ভারতীয় জনগণ রাজনৈতিক খবর পাওয়ার জন্যে অকাঙ্ক্ষিত, বার্লিন থেকে সুভাষ চন্দ্রের বেতার সম্প্রচার ভারতীয় স্বাধীনতার জন্যে মৌলিক পরিকল্পনার নকশা সেই সময় তৈরি হচ্ছিল, যখন জার্মানির ভাগ্য খুলছে এবং ব্রিটেনের ভাগ্য নিচের দিকে, তাঁকে ভারত এবং দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় তোষামোদের ব্যক্তি বানানো হয়েছিল।[৩৩] জার্মানিতে তাঁর দুবছর থাকাকালীন সময়ে, রোমেইন হায়েসের ভাষ্য অনুযায়ী, "যদি সুভাষ চন্দ্র বার্লিনে সম্মান পেয়ে থাকেন, তবে টোকিওতে তিনি পেয়েছেন উষ্ণ শ্রদ্ধা এবং তাঁকে দেখা হোত 'ভারতীয় সেনাধ্যক্ষ' হিসেবে।[৩৪] এইভাবে তাঁকে যখন দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় ১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দের জুলাইতে দেখা গেল, রহস্যজনকভাবে জার্মান এবং জাপানি ডুবোজাহাজে এনেছিল, তিনি ইতিমধ্যেই প্রকৃতিগত দিক থেকে একটা অবাস্তব কাহিনির নায়ক হিসেবে প্রতিভাত হয়েছেন।[৩৩] সুভাষ চন্দ্রের মৃত্যুর পর, তাঁর অন্য লেফটেন্যান্টরা, মাঞ্চুরিয়াতে তাঁর সঙ্গে যাঁদের থাকার কথা ছিল, কিন্তু তাঁদের সায়গনে টারম্যাকে ছেড়ে যাওয়া হয়েছে, তাঁরা কখনোই একটা দেহ দেখেননি।[৩৫] সেখানে সুভাষ চন্দ্রের জখম হওয়া কিংবা অসুস্থ অবস্থার কোনো ফটোগ্রাফ নেওয়া হয়নি, এমনকি মৃত্যুর কোনো নথিভুক্তিকরণ (মৃত্যুর সার্টিফিকেট প্রদান) করা হয়নি।Subhash Chandra Basu Video Samparke Alochana Kara Hall Bhartiya Jatiytabdi Neta Subhash Chandra Basu Aare 1945 Khristabder 18 Agasta Japani Adhikrit Faramosa Dwipe Bartaman Taiwan Tanr Adhik Jatribahit Viman Durghatanay Maratmakabhabe Pure Giye Dehabsan Hay 1 Ca 2 Kh Say Ja E Hoek Tanr Anek Anugamii Bisheshat Banglay Sei Samay Ghatanata Aswikar Kare Evan Emanaki Ekhano Tanr Mrityu Samparkit Paristhiti Evan Tathya Biswas Karate Aswikar Kare 3 G 4 Gho 5 N Tanr Mrityur Kayek Ghantar Madhyei Sharajantrer Tattva Udbhut Hay Evan Tarapar Ekata Dirgh Byaktigat Jeevan Thakbar Chhil 6 Shaw Subhash Chandra Samparke Bibhinna Samrik Kahini Jiiye Rakha Hayechhe Subhashachandra Parapar Du Bar Bhartiya Jatiya Kangreser Sabhapati Nirbachit Hahn Kintu Mahatma Gandhir Sange Adarshagat Sanghat Evan Kangreser Baideshik O Abhyantarin Nitir Prakashya Samalochna 1 Biruddha Matt Prakash Karar Janya Tanke Padatyag Karate Hay Subhashachandra Money Karaten Gandhijir Ahinsar Niti Bharter Swadhinata Anar Xetre Jatheshta Nay AE Karne Tini Sashastra Bidroher Pakshapati Chhilen Subhash Chandra Basu Farward Block Namak Ekati Rajnaitik Dal Pratishtha Kare 2 British Hasn Theke Bharter Purna O Satbar Swadhintar Dabi Janate Thaken British Kartripaksh Tanke Egaro Bar Kararuddha Karechhil Tanr Bikhyat Ukti Tomra Amake Rakta Dow Aami Tomader Swadhinata Debo Subhash Chandra Basur Krititbagulo Agasta 1945 Khristabder Agei Upakathar Akar Nite Shuru Kare 32 Jaw 1940 Khristabde Kalakatay Grihabandi Abasthay Antardhaner Samay Theke Bharte Janashruti Prachalit Chhil Je Tini Jibit Achhen Key Na Jodi Thaken Tove Kothay Evan Tini Key Karachhen 32 1941 Khristabde Sudur Jarmanite Tanr Abasthan Tanr Kajakarma Samparke Ekata Rahasyer Batabaran Tairi Karechhil Congress Netara Jele Thakakale 1942 Khristabde Bharat Chharo Prastab Jege Othe Evan Bhartiya Janagan Rajnaitik Khabar Pawar Janye Akankshit Berlin Theke Subhash Chandrer Betar Samprachar Bhartiya Swadhintar Janye Maulik Parikalpanar Nakasha Sei Samay Tairi Hachchhil Jakhan Jarmanir Bhagya Khulchhe Evan Britener Bhagya Nicher Dike Tanke Bharat Evan Dakshinapurba Eshiyay Toshamoder Byakti Banano Hayechhil 33 Jarmanite Tanr Dubachhar Thakakalin Samaye Romein Hayeser Bhashya Anujayi Jodi Subhash Chandra Barline Samman Peye Thaken Tove Tokiote Tini Peyechhen Ushna Shraddha Evan Tanke Dekha Hot Bhartiya Senadhyaksh Hisebe 34 Eibhabe Tanke Jakhan Dakshinapurba Eshiyay 1943 Khristabder Julaite Dekha Gel Rahasyajanakabhabe Jarman Evan Japani Dubojahaje Enechhil Tini Itimadhyei Prakritigat Dik Theke Ekata Abastab Kahinir Nayak Hisebe Pratibhat Hayechhen 33 Subhash Chandrer Mrityur Par Tanr Anya Leftenyantara Manchuriyate Tanr Sange Jander Thakur Katha Chhil Kintu Tander Sayagane Taramyake Chhere Jawa Hayechhe Tanra Kakhanoi Ekata Deh Dekhenani 35 Sekhane Subhash Chandrer Jakham Hwa Kingba Asustha Abasthar Kono Fatograf Newa Hayani Emanaki Mrityur Kono Nathibhuktikaran Mrityur Certificate Pradan Kara Hayani
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Subhash Chandra Basu Video Somporke Alochana Karo,Talk About The Video Of Subhash Chandra Bose.,


vokalandroid