অর্থনীতির জনক কে ? ...

অর্থনীতির জনক :- কিছুদিন আগে স্বভাবসুলভ চ্যানেল ভ্রমণ করছিলাম রিমোট হাতে, হঠাৎই একজন সুবেশী মৌলানার কণ্ঠে অ্যাডাম স্মীথ নামটি শুনে চক্ষু স্থির হয়ে গেল! উনি বলছিলেন, অ্যাডাম স্মীথকে অর্থনীতির জনক বলা সত্যের অপলাপ মাত্র! কারণ অ্যাডাম স্মীথের বহু আগেই ইসলাম অর্থনৈতিক সমস্যার এক চিরস্থায়ী সমাধান উপহার দিয়েছে বিশ্ববাসীকে! আর এ কারণে স্মীথের ‘ওয়েলথ অব ন্যাশান্স’ নয়, বরং ধর্মপুস্তকই অর্থনীতি বাছাধনকে পৃথিবীর আলোর মুখ দেখানোর প্রধান দাবীদার! এখন প্রশ্ন উঠবে, কি সেই যাদু-বটিকা যার মাধ্যমে ইসলামই সর্বপ্রথম অর্থনৈতিক ধ্যান-ধারণার গোড়াপত্তন করল, বিশ্ববাসীকে শোনাল অর্থনৈতিক মুক্তির অমিয় সঙ্গীত? মৌলানা সাহেবের কথা থেকে বোঝা গেল, যাকাতই হচ্ছে সেই প্রাণ-ভোমরা যাতে লুকিয়ে রয়েছে সকল অর্থনৈতিক সমস্যার দাওয়াই, মানুষের নিরাপদ অর্থনৈতিক জীবনের ভূত-ভবিষ্যৎ! বস্তুত যাকাত নিয়ে ইসলামি চিন্তাবিদদের অহংকারের শেষ নেই! ধর্মের শ্রেষ্ঠত্ব নিরূপণে তারা যাকাতকে শক্ত গুটি হিসেবেই ব্যবহার করেন! যেমন, বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ সাইয়িদ আবুল আ’লা মওদূদীর ভাষ্যে: এই হচ্ছে অর্থনৈতিক সমস্যা সমাধানে ধর্মীয় দাওয়াইয়ের সার কথা! শুনতে ভাল লাগলেও এই দাওয়াই নিয়ে কিন্তু অনেক প্রশ্ন তোলা যায়! যেমন, এমন মহা-বিধান থাকার পরেও মুসলিম বিশ্বে এত বৈষম্য কেন? মিডল ইস্টের আকাশ-ছোঁয়া দৌলত ও পশ্চিম আফ্রিকার কঙ্কালসার শিশুর ছবি কেন পাশাপাশি দেখতে হয় আমাদের? কেন বাংলাদেশের মত মুসলিম অধ্যুষিত দেশে ধনী-গরিবের এমন আশ্চর্য সহাবস্থান চোখে পড়ে (হিলারি ক্লিনটনের ‘লিভিং হিস্ট্রি’র বাংলাদেশ প্রসঙ্গ প্রণিধানযোগ্য, যেখানে পাঁচতারা সোনারগাঁয়ের পাশেই পোকা-মাকড়ের ঘর-বসতি-সম বস্তি দেখে যারপরনাই অবাক হওয়ার কথা লিখেছিলেন তিনি)। তবে ধর্মীয় চিন্তাবিদগণের কাছে এইসব প্রশ্নের উত্তরও সদা-প্রস্তুত রয়েছে, যেমন, তারা বলে থাকেন, সত্যিকারের যাকাত ব্যবস্থা বাংলাদেশের মত মুসলিম দেশগুলোতে বাস্তবায়িত করা যাচ্ছে না বলেই তো এইসব বৈষম্য দেখতে হচ্ছে আমাদের! কিন্তু ধর্মতাত্ত্বিকদের এই যুক্তি ধোপে টিকে কি আদৌ? কারণ পৃথিবীর সব অর্থনৈতিক ব্যবস্থাই উত্তম উত্তম বুলিতে ভর্তি, সবাই অর্থনৈতিক সমস্যার সত্যিকার সমাধান দেয়ার সবচেয়ে বড় দাবীদার! এইসব ব্যবস্থার সমর্থকেরাও ধার্মিক চিন্তকদের মত করেই বলেন, তাদের ব্যবস্থা পুরোপুরি বাস্তবায়িত হচ্ছে না বলেই…… সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী লৌহমানবী মার্গারেট থ্যাচার। বলা হয় তার সার্বক্ষণিক সঙ্গী ছিল একটি বই। যা তিনি বয়ে বেড়াতেন তার হ্যান্ডব্যাগে। নাম ‘দ্য ওয়েলথ অব ন্যাশনস’, রচয়িতা এ্যাডাম স্মিথ। এ গ্রন্থটি তাকে দিয়েছে আধুনিক অর্থনীতির জনকের তকমা। এ্যাডাম স্মিথের জন্ম ৫ জুন ১৭২৩, ফিদো কাউন্টি, স্কটল্যান্ড। জন্মের দুই মাস পর মৃত্যু ঘটে পিতার । বার্ণ স্কুল অব ফ্রিক্যালডিতে অধ্যয়ন। বিষয় ছিল ল্যাটিন, গণিত, ইতিহাস এবং রাইটিং। চৌদ্দ বছর বয়সে ইউনিভার্সিটি অব গ্লাসগোতে ফ্রান্সিস হ্যাচিনসনের অধীনে নৈতিক দর্শন বিষয়ে পাঠ শুরু। সেখানে তার আগ্রহ জন্মে স্বাধীনতা, কার্যকারণ এবং বাকস্বাধীনতার মতো বিষয়গুলোতে। অক্সফোর্ডের প্রথম দিকের বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্রদের মধ্যে তিনি একজন। সে সময় তার পরিচয় হয় ডেভিড হিউমের সঙ্গে। শিক্ষা জীবন শেষে যোগ দেন ইউনিভার্সিটি অব গ্লাসগোতে। নৈতিক দর্শনের অধ্যাপক রূপে। পরবর্তী জীবনে টিউটর পদে অধিষ্ঠিত হয়ে ব্যাপক ভ্রমণ করেন ইউরোপ। সে সময় সংস্পর্শে আসেন ইউরোপের নেতৃস্থানীয় চিন্তাবিদদের। গ্লাসগোতে অধ্যাপনার সময় প্রকাশিত হয় ‘দ্য থিউরি অব মরাল সেন্টিমেন্টস’ ১৭৫৯-এ এবং ইউরোপজুড়ে আলোড়ন তোলে। ১৭৭৬ এ প্রকাশিত হয় তার অমর রচনা ‘এন ইনক্যুয়ারি ইনটু দ্য নেচার এ্যান্ড কজেস অব দ্য ওয়েলথ অব নেশন্স’ যা গড়ে দেয় আধুনিক অর্থনীতির ভিত। আর তাকে দিয়েছে অমরত্ব¡। এই গ্রন্থে তিনি স্থাপন করেন ‘মুক্ত বাজার’ অর্থনীতির ভিত্তি। তিনি সামনে আনেন অর্থনৈতিক শৃঙ্খলার গুরুত্ব। ‘ওয়েলথ অব নেশন’-এ তিনি তুলে ধরেন ‘ডিভিশন অব লেবার’ তত্ত্ব। তিনিই প্রথম বলেন ব্যক্তিস্বার্থ আর প্রতিযোগিতার মাঝেই অর্থনৈতিক উন্নতি নিহিত। ২০০৫ এ তার ওয়েলথ অব নেশন সর্বকালের সেরা ১০০ স্কটিস গ্রন্থের তালিকায়
Romanized Version
অর্থনীতির জনক :- কিছুদিন আগে স্বভাবসুলভ চ্যানেল ভ্রমণ করছিলাম রিমোট হাতে, হঠাৎই একজন সুবেশী মৌলানার কণ্ঠে অ্যাডাম স্মীথ নামটি শুনে চক্ষু স্থির হয়ে গেল! উনি বলছিলেন, অ্যাডাম স্মীথকে অর্থনীতির জনক বলা সত্যের অপলাপ মাত্র! কারণ অ্যাডাম স্মীথের বহু আগেই ইসলাম অর্থনৈতিক সমস্যার এক চিরস্থায়ী সমাধান উপহার দিয়েছে বিশ্ববাসীকে! আর এ কারণে স্মীথের ‘ওয়েলথ অব ন্যাশান্স’ নয়, বরং ধর্মপুস্তকই অর্থনীতি বাছাধনকে পৃথিবীর আলোর মুখ দেখানোর প্রধান দাবীদার! এখন প্রশ্ন উঠবে, কি সেই যাদু-বটিকা যার মাধ্যমে ইসলামই সর্বপ্রথম অর্থনৈতিক ধ্যান-ধারণার গোড়াপত্তন করল, বিশ্ববাসীকে শোনাল অর্থনৈতিক মুক্তির অমিয় সঙ্গীত? মৌলানা সাহেবের কথা থেকে বোঝা গেল, যাকাতই হচ্ছে সেই প্রাণ-ভোমরা যাতে লুকিয়ে রয়েছে সকল অর্থনৈতিক সমস্যার দাওয়াই, মানুষের নিরাপদ অর্থনৈতিক জীবনের ভূত-ভবিষ্যৎ! বস্তুত যাকাত নিয়ে ইসলামি চিন্তাবিদদের অহংকারের শেষ নেই! ধর্মের শ্রেষ্ঠত্ব নিরূপণে তারা যাকাতকে শক্ত গুটি হিসেবেই ব্যবহার করেন! যেমন, বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ সাইয়িদ আবুল আ’লা মওদূদীর ভাষ্যে: এই হচ্ছে অর্থনৈতিক সমস্যা সমাধানে ধর্মীয় দাওয়াইয়ের সার কথা! শুনতে ভাল লাগলেও এই দাওয়াই নিয়ে কিন্তু অনেক প্রশ্ন তোলা যায়! যেমন, এমন মহা-বিধান থাকার পরেও মুসলিম বিশ্বে এত বৈষম্য কেন? মিডল ইস্টের আকাশ-ছোঁয়া দৌলত ও পশ্চিম আফ্রিকার কঙ্কালসার শিশুর ছবি কেন পাশাপাশি দেখতে হয় আমাদের? কেন বাংলাদেশের মত মুসলিম অধ্যুষিত দেশে ধনী-গরিবের এমন আশ্চর্য সহাবস্থান চোখে পড়ে (হিলারি ক্লিনটনের ‘লিভিং হিস্ট্রি’র বাংলাদেশ প্রসঙ্গ প্রণিধানযোগ্য, যেখানে পাঁচতারা সোনারগাঁয়ের পাশেই পোকা-মাকড়ের ঘর-বসতি-সম বস্তি দেখে যারপরনাই অবাক হওয়ার কথা লিখেছিলেন তিনি)। তবে ধর্মীয় চিন্তাবিদগণের কাছে এইসব প্রশ্নের উত্তরও সদা-প্রস্তুত রয়েছে, যেমন, তারা বলে থাকেন, সত্যিকারের যাকাত ব্যবস্থা বাংলাদেশের মত মুসলিম দেশগুলোতে বাস্তবায়িত করা যাচ্ছে না বলেই তো এইসব বৈষম্য দেখতে হচ্ছে আমাদের! কিন্তু ধর্মতাত্ত্বিকদের এই যুক্তি ধোপে টিকে কি আদৌ? কারণ পৃথিবীর সব অর্থনৈতিক ব্যবস্থাই উত্তম উত্তম বুলিতে ভর্তি, সবাই অর্থনৈতিক সমস্যার সত্যিকার সমাধান দেয়ার সবচেয়ে বড় দাবীদার! এইসব ব্যবস্থার সমর্থকেরাও ধার্মিক চিন্তকদের মত করেই বলেন, তাদের ব্যবস্থা পুরোপুরি বাস্তবায়িত হচ্ছে না বলেই…… সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী লৌহমানবী মার্গারেট থ্যাচার। বলা হয় তার সার্বক্ষণিক সঙ্গী ছিল একটি বই। যা তিনি বয়ে বেড়াতেন তার হ্যান্ডব্যাগে। নাম ‘দ্য ওয়েলথ অব ন্যাশনস’, রচয়িতা এ্যাডাম স্মিথ। এ গ্রন্থটি তাকে দিয়েছে আধুনিক অর্থনীতির জনকের তকমা। এ্যাডাম স্মিথের জন্ম ৫ জুন ১৭২৩, ফিদো কাউন্টি, স্কটল্যান্ড। জন্মের দুই মাস পর মৃত্যু ঘটে পিতার । বার্ণ স্কুল অব ফ্রিক্যালডিতে অধ্যয়ন। বিষয় ছিল ল্যাটিন, গণিত, ইতিহাস এবং রাইটিং। চৌদ্দ বছর বয়সে ইউনিভার্সিটি অব গ্লাসগোতে ফ্রান্সিস হ্যাচিনসনের অধীনে নৈতিক দর্শন বিষয়ে পাঠ শুরু। সেখানে তার আগ্রহ জন্মে স্বাধীনতা, কার্যকারণ এবং বাকস্বাধীনতার মতো বিষয়গুলোতে। অক্সফোর্ডের প্রথম দিকের বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্রদের মধ্যে তিনি একজন। সে সময় তার পরিচয় হয় ডেভিড হিউমের সঙ্গে। শিক্ষা জীবন শেষে যোগ দেন ইউনিভার্সিটি অব গ্লাসগোতে। নৈতিক দর্শনের অধ্যাপক রূপে। পরবর্তী জীবনে টিউটর পদে অধিষ্ঠিত হয়ে ব্যাপক ভ্রমণ করেন ইউরোপ। সে সময় সংস্পর্শে আসেন ইউরোপের নেতৃস্থানীয় চিন্তাবিদদের। গ্লাসগোতে অধ্যাপনার সময় প্রকাশিত হয় ‘দ্য থিউরি অব মরাল সেন্টিমেন্টস’ ১৭৫৯-এ এবং ইউরোপজুড়ে আলোড়ন তোলে। ১৭৭৬ এ প্রকাশিত হয় তার অমর রচনা ‘এন ইনক্যুয়ারি ইনটু দ্য নেচার এ্যান্ড কজেস অব দ্য ওয়েলথ অব নেশন্স’ যা গড়ে দেয় আধুনিক অর্থনীতির ভিত। আর তাকে দিয়েছে অমরত্ব¡। এই গ্রন্থে তিনি স্থাপন করেন ‘মুক্ত বাজার’ অর্থনীতির ভিত্তি। তিনি সামনে আনেন অর্থনৈতিক শৃঙ্খলার গুরুত্ব। ‘ওয়েলথ অব নেশন’-এ তিনি তুলে ধরেন ‘ডিভিশন অব লেবার’ তত্ত্ব। তিনিই প্রথম বলেন ব্যক্তিস্বার্থ আর প্রতিযোগিতার মাঝেই অর্থনৈতিক উন্নতি নিহিত। ২০০৫ এ তার ওয়েলথ অব নেশন সর্বকালের সেরা ১০০ স্কটিস গ্রন্থের তালিকায় Arthanitir Junk Kichhudin Age Swabhabsulabh Channel Bhraman Karachhilam Remote Hate Hathati Ekajan Subeshi Maulanar Kanthe Adam Smith Namti Shune Chakshu Sthir Huye Gel Uni Balachhilen Adam Smithake Arthanitir Junk Bala Satyer Apalap Maatr Karan Adam Smither Bahu Agei Islam Arthanaitik Samasyar Ec Chirasthayi Samadhan Upahar Diyechhe Bishwabasike Are A Karne Smither ‘oyelath Av Nyashanso Noy Wrong Dharmapustakai Arthaniti Bachhadhanake Prithibir Alor Mukha Dekhanor Pradhan Dabidar Ekhan Prashna Uthabe Ki Sei Jadu Vatika Jar Madhyame Isalamai Sarbapratham Arthanaitik Dhyaan Dharnar Gorapattan Karal Bishwabasike Sonal Arthanaitik Muktir Amiya Sangeeta Maulana Saheber Katha Theke Bojha Gel Jakatai Hachchhe Sei Pran Bhomra Jate Lukiye Rayechhe Sakal Arthanaitik Samasyar Dawai Manusher Nirapada Arthanaitik Jibner Voot Bhabishyt Bastut Jakat Niye Islami Chintabidder Ahankarer Sesh Nei Dharmer Shreshthatba Nirupane Tara Jakatake Shakta Guti Hisebei Byabahar Curren Jeman Bishishta Islami Chintabid Saiyid Aavula Aola Maodudir Bhashye AE Hachchhe Arthanaitik Samasya Samadhane Dharmiya Dawaiyer Sir Katha Shunte Bhal Lagleo AE Dawai Niye Kintu Anek Prashna Tola Jay Jeman Eman Maha Bidhan Thakur Pareo Muslim Bishwe Et Baishamya Can Middle Ester Aakash Chhonya Daulat O Pashchim Afrikar Kankalasar Shishur Sbi Can Pashapashi Dekhte Hya Amader Can Bangladesher Matt Muslim Adhyushit Deshe Dhoni Gariber Eman Aschorjo Sahabasthan Chokhe Pare Hilari Klinataner ‘libhing Histrior Bangladesh Prasanga Pranidhanajogya Jekhanay Panchatara Sonaraganyer Pashei Poka Makrer Ghar Basati Some Basti Dekhe Jaraparanai Abec Hwar Katha Likhechhilen Tini Tove Dharmiya Chintabidaganer Kachhe Eisab Prashner Uttarao Sada Prastut Rayechhe Jeman Tara Ble Thaken Satyikarer Jakat Byabastha Bangladesher Matt Muslim Deshgulote Bastabayit Kara Jachchhe Na Balei Toh Eisab Baishamya Dekhte Hachchhe Amader Kintu Dharmatattbikader AE Jukti Dhope TK Ki Adau Karan Prithibir Sab Arthanaitik Byabasthai Uttam Uttam Bulite Bharti Sabai Arthanaitik Samasyar Satyikar Samadhan Their Sabacheye Bar Dabidar Eisab Byabasthar Samarthakerao Dharmik Chintakader Matt Karei Baleno Tader Byabastha Puropuri Bastabayit Hachchhe Na Balei…… Sabek British Pradhanamantri Lauhmanbi Margaret Thyachar Bala Hya Taur Sarbakshanik Sangi Chhil Ekati By Ja Tini Be Beraten Taur Hyandabyage NAM ‘dya Oyelath Av Nyashanaso Rachayita Eyadam Smith A Granthati Take Diyechhe Adhunik Arthanitir Jonker Tukuma Eyadam Smither Janma 5 June 1723 Fido Kaunti Skatalyand Janmer Dui Massa Par Mrityu Ghate Pitar Barna School Av Frikyaladite Adhyayan Vysya Chhil Lyatin Ganit Itihas Evan Writing Chaudda Bachhar Bayase University Av Glasagote Francis Hyachinasaner Adhine Naitik Darshan Vise Path Shuru Sekhane Taur Agrah Janmay Swadhinata Karjakaran Evan Bakaswadhintar Mato Bishayagulote Aksaforder Pratham Diker Brittiprapta Chhatrader Madhye Tini Ekajan Say Camay Taur Parichay Hya David Hiumer Sange Siksha Jeevan Sheshe Jog Than University Av Glasagote Naitik Darshaner Adhyapak Rupe Parabarti Jibne Tutor Pode Adhishthit Huye Byapak Bhraman Curren Europe Say Camay Sansparshe Asen Yuroper Netristhaniya Chintabidder Glasagote Adhyapanar Camay Prakashit Hya ‘dya Thiuri Av Maral Sentimentaso 1759 A Evan Yuropjure Aloran Tole 1776 A Prakashit Hya Taur Amar Rachana ‘N Inakyuyari Inatu The Nature Eyand Kajes Av The Oyelath Av Neshanso Ja Gare Dey Adhunik Arthanitir Vita Are Take Diyechhe Amaratba¡ AE Granthe Tini Sthapan Curren ‘mukta Bajaro Arthanitir Bhitti Tini Samne Anen Arthanaitik Shrinkhalar Gurutba ‘oyelath Av Neshano A Tini Tule Dharen ‘dibhishan Av Lebaro Tattva Tinii Pratham Baleno Byaktiswartha Are Pratijogitar Majhei Arthanaitik Unnati Nihit 2005 A Taur Oyelath Av Nation Sarbakaler SAIRA 100 Skatis Granther Talikay
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


অর্থনীতির জনক হলেন এডামস্মিথ । অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ তিনি ১৭৭৬ সালে An Inquiry into the Nature and Causes of the Wealth of Nations নামক গ্রন্থ লিখে অর্থনীতির মূল বিষয়গুলি সম্পর্কে ধারণা দেন৷ অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ স্কটল্যান্ডের ফিফের ক্রিকক্যাল্ডি শহরের একজন রাজস্ব নিয়ন্ত্রকের পুত্র ছিলেন। অর্থনীতির জনক স্মিথের সঠিক জন্মতারিখ অজানা, কিন্তু তিনি ১৭২৩ সালের ৫ই জুন ক্রিকক্যাল্ডি শহরে খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করেন। অর্থনীতির জনক স্মিথ ৪ বছর বয়সে একদল ইহুদী তাঁকে অপহরণ করে। কিন্তু অর্থনীতির জনক যিনি তিনি তাঁর চাচার সহযোগিতায় দ্রুত মুক্ত হন এবং মায়ের কাছে ফেরত যান। ১৪ বছর বয়সে অর্থনীতির জনক স্মিথ গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন, সেখানে অর্থনীতির জনক স্মিথ ফ্রান্সিস হাচিসনের অধীনে দর্শনশাস্ত্র অধ্যয়ন করেন। অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয় ওর তাঁর সহকর্মী স্কটল্যান্ডের জন স্নেল কর্তৃক চালু হওয়া বৃত্তি প্রাপ্ত প্রথম ছাত্র ছিলেন।
Romanized Version
অর্থনীতির জনক হলেন এডামস্মিথ । অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ তিনি ১৭৭৬ সালে An Inquiry into the Nature and Causes of the Wealth of Nations নামক গ্রন্থ লিখে অর্থনীতির মূল বিষয়গুলি সম্পর্কে ধারণা দেন৷ অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ স্কটল্যান্ডের ফিফের ক্রিকক্যাল্ডি শহরের একজন রাজস্ব নিয়ন্ত্রকের পুত্র ছিলেন। অর্থনীতির জনক স্মিথের সঠিক জন্মতারিখ অজানা, কিন্তু তিনি ১৭২৩ সালের ৫ই জুন ক্রিকক্যাল্ডি শহরে খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করেন। অর্থনীতির জনক স্মিথ ৪ বছর বয়সে একদল ইহুদী তাঁকে অপহরণ করে। কিন্তু অর্থনীতির জনক যিনি তিনি তাঁর চাচার সহযোগিতায় দ্রুত মুক্ত হন এবং মায়ের কাছে ফেরত যান। ১৪ বছর বয়সে অর্থনীতির জনক স্মিথ গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন, সেখানে অর্থনীতির জনক স্মিথ ফ্রান্সিস হাচিসনের অধীনে দর্শনশাস্ত্র অধ্যয়ন করেন। অর্থনীতির জনক অ্যাডাম স্মিথ গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয় ওর তাঁর সহকর্মী স্কটল্যান্ডের জন স্নেল কর্তৃক চালু হওয়া বৃত্তি প্রাপ্ত প্রথম ছাত্র ছিলেন। Arthanitir Junk Halen Edamasmith Arthanitir Junk Adam Smith Tini 1776 Sale An Inquiry Into The Nature And Causes Of The Wealth Of Nations Namak Grantha Likhe Arthanitir Mul Bishayaguli Samparke Dharna Denar Arthanitir Junk Adam Smith Skatalyander Fifer Krikakyaldi Shaharer Ekajan Rajaswa Niyantraker Putra Chhilen Arthanitir Junk Smither Sathik Janmatarikh Ajana Kintu Tini 1723 Saler 5i June Krikakyaldi Shahare Khristadharma Grahan Curren Arthanitir Junk Smith 4 Bachhar Bayase Ekadal Ihudi Tanke Apaharan Kare Kintu Arthanitir Junk Jini Tini Tanr Chachar Sahajogitay Drut Mukta Hahn Evan Mayer Kachhe Ferat Jan 14 Bachhar Bayase Arthanitir Junk Smith Glasago Bishwabidyalaye Bharti Hahn Sekhane Arthanitir Junk Smith Francis Hachisner Adhine Darshanashastra Adhyayan Curren Arthanitir Junk Adam Smith Glasago Bishwabidyalay Wore Tanr Sahakarmi Skatalyander John Snel Kartrik Chalu Hwa Britti Prapta Pratham Chhatra Chhilen
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Arthanitir Junk Ke ? ,Who Is The Father Of The Economy?,


vokalandroid