আকাশ থেকে পড়া মানে কি? ...

আকাশ থেকে পড়া :- ঘটনাটা ১৮৭৬ সালের ।অলিম্পিয়ানের কেন্টাকি ।সেখানেই ঘটল মাংস বৃষ্টির আজব এই ঘটনা ।বলা নেই কওয়া নাই পরিষ্কার আকাশ থেকে পড়ল তিন ইঞ্চি মাংসের টুকরোগুলো !! আর মাংসগুলোর স্বাদ নাকি ছিল হরিণ বা মহিষের মাংসের মত!!! বৃটেনের মাক্রোস্কপিকাল রয়েল সোসাইটি ধারনা করে যে , হয়তবা কিছু বাজপাখি কোনো মৃত প্রানীর মাংস খায় এবং তারা তা ঐ শহরের উপর উগরে দেয় । ২০০১ সালের ভারতের কেরালা রাজ্যে ঘটে রহস্যময় লাল-বৃষ্টি যাতে ছিল অসংখ্য লাল কণা ।কণাগুলো ছিল খুব ক্ষুদ্র কোষ আকৃতির । এই কণাগুলোর জন্যই বৃষ্টির পানির রঙ লাল হয়েছিল ।আর পরীক্ষা করে তার ডিএনএ র কোনো হদিস পাওয়া গেলনা যদিও তখনো কণাগুলোর সংখ্যা তখনো বৃদ্ধি ঘটছিল!!!! আর তাই এই আশ্চার্য কণাগুলের নাম দেয়া হয়েছিল ‘এলিয়েনের কণা’ । সেদিন জ্যাক রেভেলের ঘুম ভেঙ্গেছিল বেশ ভোরে ফোনের শব্দে। ভোর পাঁচটা কি ছয়টা তখন। টেলিফোন করেছেন তাঁর বস। ১৯৬১ সালের জানুয়ারি মাস। জ্যাক রেভেল তখন মার্কিন বিমানবাহিনীর একজন লেফটেন্যান্ট। থাকেন ওহাইওতে। কাজ করেন বিমানবাহিনীর বম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, অর্থাৎ বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলে। পেশাগত কাজে যখন কেউ এভাবে ফোন করেন, তখন কিছু কোড নেম এবং কোড ওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়। কিন্তু সেই দিনটা ছিল ব্যতিক্রম। "আমার বস সেদিন কোন কোড নেম বা কোড ওয়ার্ড ব্যবহার না করে সরাসরি আমার নাম ধরে সম্বোধন করলেন। তিনি বললেন, জ্যাক, আমি তোমাকে আমি একটা সত্যিকারের কাজে পাঠাচ্ছি এবার।" জ্যাক রেভেলের কোন ধারণা ছিল না, কী কাজে যাচ্ছেন তিনি। খুব দ্রুত তৈরি হতে হয়েছিল। এরপর ছুটে গেছেন কাছের এক বিমান ঘাঁটিতে। সেখানে আগে থেকে প্রস্তুত ছিল একটি সামরিক বিমান। তার অপেক্ষায় ছিলেন বিমানবাহিনীর এক পাইলট। যেভাবে এই বিমানটির উড্ডয়নের জন্য সব আনুষ্ঠানিকতা অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে শেষ করা হয়েছিল, তাতে পাইলটের মনে হয়েছিল, অতি গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজে যাচ্ছেন লেফটেন্যান্ট জ্যাক রেভেল। কৌতূহল চেপে রাখতে না পেরে ব্যাপারটি কী জানতে চেয়েছিলেন পাইলট। "আমি বিমানে চড়ার আগেই আমার সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন। এটা সচরাচর ঘটে না। নিশ্চয়ই খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু ঘটছে। পাইলট আমার কাছে জানতে চাইছিলো বিষয়টা কী। আমি বললাম, এটা খুবই গোপনীয় ব্যাপার, বলা সম্ভব নয়।" ঘটনাটি নিয়ে এরকম কঠোর গোপনীয়তার দরকার ছিল। কারণ বিষয়টি জানাজানি হলে তোলপাড় শুরু হয়ে যেত দুনিয়া জুড়ে। দুটি পরমাণু বোমা নিয়ে বিধ্বস্ত হয়েছে মার্কিন বিমানবাহিনীর এক যুদ্ধ বিমান। আকাশে খন্ড-বিখন্ড হয়ে যাওয়া বিমানটি পড়েছে নর্থ ক্যারোলাইনার গোল্ডসবোরোতে। লেফটেন্যান্ট জ্যাক রেভেলের কাজ হবে তার দলকে নিয়ে মাটিতে পড়া পরমাণু বোমা নিষ্ক্রিয় করা।
Romanized Version
আকাশ থেকে পড়া :- ঘটনাটা ১৮৭৬ সালের ।অলিম্পিয়ানের কেন্টাকি ।সেখানেই ঘটল মাংস বৃষ্টির আজব এই ঘটনা ।বলা নেই কওয়া নাই পরিষ্কার আকাশ থেকে পড়ল তিন ইঞ্চি মাংসের টুকরোগুলো !! আর মাংসগুলোর স্বাদ নাকি ছিল হরিণ বা মহিষের মাংসের মত!!! বৃটেনের মাক্রোস্কপিকাল রয়েল সোসাইটি ধারনা করে যে , হয়তবা কিছু বাজপাখি কোনো মৃত প্রানীর মাংস খায় এবং তারা তা ঐ শহরের উপর উগরে দেয় । ২০০১ সালের ভারতের কেরালা রাজ্যে ঘটে রহস্যময় লাল-বৃষ্টি যাতে ছিল অসংখ্য লাল কণা ।কণাগুলো ছিল খুব ক্ষুদ্র কোষ আকৃতির । এই কণাগুলোর জন্যই বৃষ্টির পানির রঙ লাল হয়েছিল ।আর পরীক্ষা করে তার ডিএনএ র কোনো হদিস পাওয়া গেলনা যদিও তখনো কণাগুলোর সংখ্যা তখনো বৃদ্ধি ঘটছিল!!!! আর তাই এই আশ্চার্য কণাগুলের নাম দেয়া হয়েছিল ‘এলিয়েনের কণা’ । সেদিন জ্যাক রেভেলের ঘুম ভেঙ্গেছিল বেশ ভোরে ফোনের শব্দে। ভোর পাঁচটা কি ছয়টা তখন। টেলিফোন করেছেন তাঁর বস। ১৯৬১ সালের জানুয়ারি মাস। জ্যাক রেভেল তখন মার্কিন বিমানবাহিনীর একজন লেফটেন্যান্ট। থাকেন ওহাইওতে। কাজ করেন বিমানবাহিনীর বম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, অর্থাৎ বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলে। পেশাগত কাজে যখন কেউ এভাবে ফোন করেন, তখন কিছু কোড নেম এবং কোড ওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়। কিন্তু সেই দিনটা ছিল ব্যতিক্রম। "আমার বস সেদিন কোন কোড নেম বা কোড ওয়ার্ড ব্যবহার না করে সরাসরি আমার নাম ধরে সম্বোধন করলেন। তিনি বললেন, জ্যাক, আমি তোমাকে আমি একটা সত্যিকারের কাজে পাঠাচ্ছি এবার।" জ্যাক রেভেলের কোন ধারণা ছিল না, কী কাজে যাচ্ছেন তিনি। খুব দ্রুত তৈরি হতে হয়েছিল। এরপর ছুটে গেছেন কাছের এক বিমান ঘাঁটিতে। সেখানে আগে থেকে প্রস্তুত ছিল একটি সামরিক বিমান। তার অপেক্ষায় ছিলেন বিমানবাহিনীর এক পাইলট। যেভাবে এই বিমানটির উড্ডয়নের জন্য সব আনুষ্ঠানিকতা অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে শেষ করা হয়েছিল, তাতে পাইলটের মনে হয়েছিল, অতি গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজে যাচ্ছেন লেফটেন্যান্ট জ্যাক রেভেল। কৌতূহল চেপে রাখতে না পেরে ব্যাপারটি কী জানতে চেয়েছিলেন পাইলট। "আমি বিমানে চড়ার আগেই আমার সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন। এটা সচরাচর ঘটে না। নিশ্চয়ই খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু ঘটছে। পাইলট আমার কাছে জানতে চাইছিলো বিষয়টা কী। আমি বললাম, এটা খুবই গোপনীয় ব্যাপার, বলা সম্ভব নয়।" ঘটনাটি নিয়ে এরকম কঠোর গোপনীয়তার দরকার ছিল। কারণ বিষয়টি জানাজানি হলে তোলপাড় শুরু হয়ে যেত দুনিয়া জুড়ে। দুটি পরমাণু বোমা নিয়ে বিধ্বস্ত হয়েছে মার্কিন বিমানবাহিনীর এক যুদ্ধ বিমান। আকাশে খন্ড-বিখন্ড হয়ে যাওয়া বিমানটি পড়েছে নর্থ ক্যারোলাইনার গোল্ডসবোরোতে। লেফটেন্যান্ট জ্যাক রেভেলের কাজ হবে তার দলকে নিয়ে মাটিতে পড়া পরমাণু বোমা নিষ্ক্রিয় করা। Aakash Theke Para Ghatanata 1876 Saler Alimpiyaner Kentaki Sekhanei Ghatal Mans Brishtir Ajab AE Ghatana Bala Nei Kwa Nai Parishkar Aakash Theke Paral Tin Inch Manser Tukrogulo !! Are Mansagulor Swad Naki Chhil HARIN Ba Mahisher Manser Matt Britener Makroskapikal Rayel Sosaiti Dharna Kare Je , Hayataba Kichhu Bajpakhi Kono Mrit Pranir Mans Khay Evan Tara Ta Ae Shaharer Upar Ugare Dey 2001 Saler Bharter Kerala Rajye Ghate Rahasyamay Lal Wristy Jate Chhil Asankhya Lal Kuna Kanagulo Chhil Khub Xudra Kosh Akritir AE Kanagulor Janyai Brishtir Panir Rang Lal Hayechhil Are Pariksha Kare Taur DNA Ra Kono Hadis Pawa Gelna Jadio Takhano Kanagulor Sankhya Takhano Briddhi Ghatachhil Are Tai AE Ashcharjya Kanaguler NAM Deya Hayechhil ‘eliyener Kanao Sedin Jack Rebheler Ghum Bhengechhil Bash Bhore Foner Shabde Bhor Panchata Ki Chhayata Takhan Telephone Karechhen Tanr Bus 1961 Saler Januyari Massa Jack Rebhel Takhan Markin Bimanbahinir Ekajan Leftenyanta Thaken Ohaiote Kaj Curren Bimanbahinir Bomb Dispojal Unit Arthat Boma Nishkriyakaran Dale Peshagat Kaje Jakhan Keu Ebhabe Phone Curren Takhan Kichhu Code Name Evan Code Ward Byabahar Kara Hay Kintu Sei Dinta Chhil Byatikram Amar Bus Sedin Koun Code Name Ba Code Ward Byabahar Na Kare Sarasari Amar NAM Dhare Sambodhan Karalen Tini Balalen Jack Aami Tomake Aami Ekata Satyikarer Kaje Pathachchhi Ebar Jack Rebheler Koun Dharna Chhil Na Key Kaje Jachchhen Tini Khub Drut Tairi Hate Hayechhil Erapar Chhute Gechhen Kachher Ec Viman Ghantite Sekhane Age Theke Prastut Chhil Ekati Samrik Viman Taur Apekshay Chhilen Bimanbahinir Ec Pilot Jebhabe AE Bimantir Uddayaner Janya Sab Anushthanikta Atyanta Drutatar Sange Sesh Kara Hayechhil Tate Pailater Money Hayechhil Atti Gurutbapurna Koun Kaje Jachchhen Leftenyanta Jack Rebhel Kautuhal Chepe Rakhte Na Pere Byaparati Key Jante Cheyechhilen Pilot Aami Bimane Charar Agei Amar Sab Anushthanikta Sampann Etah Sacharachar Ghate Na Nishchayai Khub Gurutbapurna Kichhu Ghatachhe Pilot Amar Kachhe Jante Chaichhilo Bishayata Key Aami Balalam Etah Khubai Gopniya Byapar Bala Sambhab Nay Ghatanati Niye Erakam Kathor Gopniytar Darakar Chhil Karan Bishayati Janajani Hale Tolpar Shuru Haye Jet Duniya Jure Duti Paramanu Boma Niye Bidhbasta Hayechhe Markin Bimanbahinir Ec Juddha Viman Akashe Khand Bikhand Haye Jawa Bimanati Parechhe North Kyarolainar Goldasaborote Leftenyanta Jack Rebheler Kaj Habe Taur Dalake Niye Matite Para Paramanu Boma Nishkriya Kara
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


আকাশ থেকে পড়া হল একটি প্রবাদবাক্য বা বাগধারা শব্দের আভিধানিক অর্থ কথার বচন ভঙ্গি বা ভাব বা কথার ঢং। বাক্য বা বাক্যাংশের বিশেষ প্রকাশভঙ্গিকে বলা হয় বাগধারা। বিশেষ প্রসঙ্গে শব্দের বিশিষ্টার্থক প্রয়োগের ফলে বাংলায় বহু বাগধারা তৈরী হয়েছে। এ ধরনের প্রয়োগের পদগুচ্ছ বা বাক্যাংশ আভিধানিক অর্থ ছাপিয়ে বিশেষ অর্থের দ্যোতক হয়ে ওঠে। যে পদগুচ্ছ বা বাক্যাংশ বিশিষ্টার্থক প্রয়োগের ফলে আভিধানিক অর্থের বাইরে আলাদা অর্থ প্রকাশ করে, তাকে বলা হয় বাগধারা।বাগধারা ভাষাকে সংক্ষিপ্ত করে, ভাবের ইঙ্গিতময় প্রকাশ ঘটিয়ে বক্তব্যকে রসমধুর করে উপস্থাপন করে। এদিক থেকে বাগধারা বাংলা সাহিত্যের বিশেষ সম্পদ। বাগধারা গঠনে বিভিন্ন শব্দের ব্যবহারকে শব্দের রীতিসিদ্ধ প্রয়োগও বলা হয়। একে বাগবিধিও বলা হয়ে থাকে। আকাশ থেকে পড়া মানে অপ্রত্যাশিত
Romanized Version
আকাশ থেকে পড়া হল একটি প্রবাদবাক্য বা বাগধারা শব্দের আভিধানিক অর্থ কথার বচন ভঙ্গি বা ভাব বা কথার ঢং। বাক্য বা বাক্যাংশের বিশেষ প্রকাশভঙ্গিকে বলা হয় বাগধারা। বিশেষ প্রসঙ্গে শব্দের বিশিষ্টার্থক প্রয়োগের ফলে বাংলায় বহু বাগধারা তৈরী হয়েছে। এ ধরনের প্রয়োগের পদগুচ্ছ বা বাক্যাংশ আভিধানিক অর্থ ছাপিয়ে বিশেষ অর্থের দ্যোতক হয়ে ওঠে। যে পদগুচ্ছ বা বাক্যাংশ বিশিষ্টার্থক প্রয়োগের ফলে আভিধানিক অর্থের বাইরে আলাদা অর্থ প্রকাশ করে, তাকে বলা হয় বাগধারা।বাগধারা ভাষাকে সংক্ষিপ্ত করে, ভাবের ইঙ্গিতময় প্রকাশ ঘটিয়ে বক্তব্যকে রসমধুর করে উপস্থাপন করে। এদিক থেকে বাগধারা বাংলা সাহিত্যের বিশেষ সম্পদ। বাগধারা গঠনে বিভিন্ন শব্দের ব্যবহারকে শব্দের রীতিসিদ্ধ প্রয়োগও বলা হয়। একে বাগবিধিও বলা হয়ে থাকে। আকাশ থেকে পড়া মানে অপ্রত্যাশিতAakash Theke Para Hall Ekati Prabadbakya Ba Bagdhara Shabder Abhidhanik Earth Kathar Bachna Bhangi Ba Bhaav Ba Kathar Dhang Bakya Ba Bakyangsher Vishesha Prakashabhangike Bala Hay Bagdhara Vishesha Prasange Shabder Bishishtarthak Prayoger Fale Banglay Bahu Bagdhara Tairi Hayechhe A Dharaner Prayoger Padaguchchh Ba Bakyangsh Abhidhanik Earth Chhapiye Vishesha Arther Dyotak Haye Othe Je Padaguchchh Ba Bakyangsh Bishishtarthak Prayoger Fale Abhidhanik Arther Baire Alada Earth Prakash Kare Take Bala Hay Bagdhara Bagdhara Bhashake Sankshipta Kare Bhaber Ingitamay Prakash Ghatiye Baktabyake Rasamadhur Kare Upasthapan Kare Edik Theke Bagdhara Bangla Sahityer Vishesha Sampada Bagdhara Gathane Bibhinna Shabder Byabaharke Shabder Ritisiddha Prayogao Bala Hay Aka Bagbidhio Bala Haye Thake Aakash Theke Para Mane Apratyashit
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Aakash Theke Pora Mane Ki,What Does Reading From The Sky Mean?,


vokalandroid