অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ কি কি? ...

প্রকাশভঙ্গি অনুযায়ী বাক্যের শ্রেণীবিভাগ বাক্যের প্রকাশভঙ্গির ভিত্তিতে বাক্যকে ৫ ভাগে ভাগ করা হয়েছে- বিবৃতিমূলক বাক্য : কোন কিছু সাধারণভাবে বর্ণনা করা হয় যে বাক্যে, তাকে বিবৃতিমূলক বাক্য বলে। বিবৃতিমূলক বাক্য ২ প্রকার। ক) অস্তিবাচক বাক্য/ হাঁ বাচক বাক্য : যে বাক্যে সমর্থনের মাধ্যমে কোন কিছু বর্ণনা করা হয়, তাকে অস্তিবাচক বাক্য বা হাঁ বাচক বলে। যে বাক্যে হাঁ বাচক শব্দ থাকে, তাকে হাঁ বাচক বা অস্তিবাচক বাক্য বলে। যেমন- তুমি কালকে আসবে। আমি ঢাকা যাব। [সদর্থক বা অস্তিবাচক বাক্য : এতে কোনো নির্দেশ, ঘটনার সংঘটন বা হওয়ার সংবাদ থাকে। যেমন : বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা জিতেছে। আজ দোকানপাট বন্ধ থাকবে। ভাষা অনুশীলন; হৈমন্তী] খ) নেতিবাচক বাক্য/ না বাচক বাক্য : যে বাক্যে অসমর্থনের মাধ্যমে কোন কিছু বর্ণনা করা হয়, তাকে নেতিবাচক বাক্য বা না বাচক বলে। যে বাক্যে না বাচক শব্দ থাকে, তাকে নেতিবাচক বাক্য বা না বাচক বাক্য বলে। যেমন- তুমি কালকে আসবে না। আমি ঢাকা যাব না। [নেতিবাচক বা নঞর্থক বাক্য : এ ধরনের বাক্যে কোন কিছু হয় না বা ঘটছে না- নিষেধ, আকাঙ্ক্ষা, অস্বীকৃতি ইত্যাদি সংবাদ কিংবা ভাব প্রকাশ করা যায়। যেমন : আজ ট্রেন চলবে না। আপনি আমার সঙ্গে কথা বলবেন না। অস্তিবাচক- নেতিবাচক বাক্যের রূপান্তর [বাক্য রূপান্তর : বাক্যের অর্থ পরিবর্তন না করে বাক্যের প্রকাশভঙ্গি বা গঠনরীতিতে পরিবর্তন করাকেই বাক্য রূপান্তর বলা হয়। অর্থাৎ, বাক্য রূপান্তর করার সময় খেয়াল রাখতে হবে, বাক্যের অর্থ যেন পাল্টে না যায়। বাক্যের অর্থ পাল্টে গেলে বাক্যটি অন্য বাক্যে রূপান্তরিত হয়ে যাবে। কিন্তু বাক্য রূপান্তরের ক্ষেত্রে আমাদেরকে বাক্যের প্রকাশভঙ্গি বা গঠনরীতি তথা রূপ (Form) পরিবর্তন করতে হবে, বাক্যের অর্থ পরিবর্তন করা যাবে না।] অস্তিবাচক বাক্যকে নেতিবাচক বাক্যে রূপান্তরের কৌশল ক) বিশেষণ পদের বিপরীত শব্দ ব্যবহার করে অনেক অস্তিবাচক বাক্যকে নেতিবাচক বাক্যে রূপান্তর করা যায়। যেমন- অস্তিবাচক বাক্য : তুমি খুব ভাল। নেতিবাচক বাক্য : তুমি মোটেও খারাপ নও। (ভাল- খারাপ) খ) ‘না করলেই নয়’, ‘না করে পারবো না’ ইত্যাদি বাক্যাংশ যোগ করে অনেক অস্তিবাচক বাক্যকে নেতিবাচক বাক্যে রূপান্তর করতে হয়। যেমন- অস্তিবাচক বাক্য : তুমি কালকে আসবে। নেতিবাচক বাক্য : তুমি কালকে না আসলেই নয়। অস্তিবাচক বাক্য : ইডিপিডিবিডি ওয়েবসাইটটি এতো ভাল, তুমি আবার ঢুকবেই। নেতিবাচক বাক্য : ইডিপিডিবিডি ওয়েবসাইটটি এতো ভাল, তুমি আবার না ঢুকে পারবেই না। গ) নতুন কোন বিপরীতার্থক বা নঞর্থক (না বোধক) শব্দ যোগ করে। যেমন- অস্তিবাচক বাক্য : সে বইয়ের পাতা উল্টাতে থাকল। নেতিবাচক বাক্য : সে বইয়ের পাতা উল্টানো বন্ধ রাখলো না। নেতিবাচক বাক্যকে অস্তিবাচক বাক্যে রূপান্তরের কৌশল ক) বিশেষণ পদের বিপরীত শব্দ ব্যবহার করে অনেক নেতিবাচক বাক্যকে অস্তিবাচক বাক্যে রূপান্তর করা যায়। যেমন- নেতিবাচক বাক্য : সে ক্লাশে উপস্থিত ছিল না। অস্তিবাচক বাক্য : সে ক্লাশে অনুপস্থিত ছিল। খ) নেতিবাচক বাক্যের না বোধক বাক্যাংশকে কোন বিপরীতার্থক বিশেষণে রূপান্তর করেও অস্তিবাচক বাক্যে রূপান্তর করা যায়। যেমন- নেতিবাচক বাক্য : দেবার্চনার কথা তিনি কোনদিন চিন্তাও করেন নি। অস্তিবাচক বাক্য : দেবার্চনার কথা তার কাছে অচিন্ত্যনীয় ছিল। নেতিবাচক বাক্য : এসব কথা সে মুখেও আনতে পারত না। অস্তিবাচক বাক্য : এসব কথা তার কাছে অকথ্য ছিল।
Romanized Version
প্রকাশভঙ্গি অনুযায়ী বাক্যের শ্রেণীবিভাগ বাক্যের প্রকাশভঙ্গির ভিত্তিতে বাক্যকে ৫ ভাগে ভাগ করা হয়েছে- বিবৃতিমূলক বাক্য : কোন কিছু সাধারণভাবে বর্ণনা করা হয় যে বাক্যে, তাকে বিবৃতিমূলক বাক্য বলে। বিবৃতিমূলক বাক্য ২ প্রকার। ক) অস্তিবাচক বাক্য/ হাঁ বাচক বাক্য : যে বাক্যে সমর্থনের মাধ্যমে কোন কিছু বর্ণনা করা হয়, তাকে অস্তিবাচক বাক্য বা হাঁ বাচক বলে। যে বাক্যে হাঁ বাচক শব্দ থাকে, তাকে হাঁ বাচক বা অস্তিবাচক বাক্য বলে। যেমন- তুমি কালকে আসবে। আমি ঢাকা যাব। [সদর্থক বা অস্তিবাচক বাক্য : এতে কোনো নির্দেশ, ঘটনার সংঘটন বা হওয়ার সংবাদ থাকে। যেমন : বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা জিতেছে। আজ দোকানপাট বন্ধ থাকবে। ভাষা অনুশীলন; হৈমন্তী] খ) নেতিবাচক বাক্য/ না বাচক বাক্য : যে বাক্যে অসমর্থনের মাধ্যমে কোন কিছু বর্ণনা করা হয়, তাকে নেতিবাচক বাক্য বা না বাচক বলে। যে বাক্যে না বাচক শব্দ থাকে, তাকে নেতিবাচক বাক্য বা না বাচক বাক্য বলে। যেমন- তুমি কালকে আসবে না। আমি ঢাকা যাব না। [নেতিবাচক বা নঞর্থক বাক্য : এ ধরনের বাক্যে কোন কিছু হয় না বা ঘটছে না- নিষেধ, আকাঙ্ক্ষা, অস্বীকৃতি ইত্যাদি সংবাদ কিংবা ভাব প্রকাশ করা যায়। যেমন : আজ ট্রেন চলবে না। আপনি আমার সঙ্গে কথা বলবেন না। অস্তিবাচক- নেতিবাচক বাক্যের রূপান্তর [বাক্য রূপান্তর : বাক্যের অর্থ পরিবর্তন না করে বাক্যের প্রকাশভঙ্গি বা গঠনরীতিতে পরিবর্তন করাকেই বাক্য রূপান্তর বলা হয়। অর্থাৎ, বাক্য রূপান্তর করার সময় খেয়াল রাখতে হবে, বাক্যের অর্থ যেন পাল্টে না যায়। বাক্যের অর্থ পাল্টে গেলে বাক্যটি অন্য বাক্যে রূপান্তরিত হয়ে যাবে। কিন্তু বাক্য রূপান্তরের ক্ষেত্রে আমাদেরকে বাক্যের প্রকাশভঙ্গি বা গঠনরীতি তথা রূপ (Form) পরিবর্তন করতে হবে, বাক্যের অর্থ পরিবর্তন করা যাবে না।] অস্তিবাচক বাক্যকে নেতিবাচক বাক্যে রূপান্তরের কৌশল ক) বিশেষণ পদের বিপরীত শব্দ ব্যবহার করে অনেক অস্তিবাচক বাক্যকে নেতিবাচক বাক্যে রূপান্তর করা যায়। যেমন- অস্তিবাচক বাক্য : তুমি খুব ভাল। নেতিবাচক বাক্য : তুমি মোটেও খারাপ নও। (ভাল- খারাপ) খ) ‘না করলেই নয়’, ‘না করে পারবো না’ ইত্যাদি বাক্যাংশ যোগ করে অনেক অস্তিবাচক বাক্যকে নেতিবাচক বাক্যে রূপান্তর করতে হয়। যেমন- অস্তিবাচক বাক্য : তুমি কালকে আসবে। নেতিবাচক বাক্য : তুমি কালকে না আসলেই নয়। অস্তিবাচক বাক্য : ইডিপিডিবিডি ওয়েবসাইটটি এতো ভাল, তুমি আবার ঢুকবেই। নেতিবাচক বাক্য : ইডিপিডিবিডি ওয়েবসাইটটি এতো ভাল, তুমি আবার না ঢুকে পারবেই না। গ) নতুন কোন বিপরীতার্থক বা নঞর্থক (না বোধক) শব্দ যোগ করে। যেমন- অস্তিবাচক বাক্য : সে বইয়ের পাতা উল্টাতে থাকল। নেতিবাচক বাক্য : সে বইয়ের পাতা উল্টানো বন্ধ রাখলো না। নেতিবাচক বাক্যকে অস্তিবাচক বাক্যে রূপান্তরের কৌশল ক) বিশেষণ পদের বিপরীত শব্দ ব্যবহার করে অনেক নেতিবাচক বাক্যকে অস্তিবাচক বাক্যে রূপান্তর করা যায়। যেমন- নেতিবাচক বাক্য : সে ক্লাশে উপস্থিত ছিল না। অস্তিবাচক বাক্য : সে ক্লাশে অনুপস্থিত ছিল। খ) নেতিবাচক বাক্যের না বোধক বাক্যাংশকে কোন বিপরীতার্থক বিশেষণে রূপান্তর করেও অস্তিবাচক বাক্যে রূপান্তর করা যায়। যেমন- নেতিবাচক বাক্য : দেবার্চনার কথা তিনি কোনদিন চিন্তাও করেন নি। অস্তিবাচক বাক্য : দেবার্চনার কথা তার কাছে অচিন্ত্যনীয় ছিল। নেতিবাচক বাক্য : এসব কথা সে মুখেও আনতে পারত না। অস্তিবাচক বাক্য : এসব কথা তার কাছে অকথ্য ছিল।Prakashabhangi Anujayi Bakyer Shrenibibhag Bakyer Prakashabhangir Bhittite Bakyake 5 Bhage Bhag Kara Hayechhe Bibritimulak Bakya : Koun Kichhu Sadharanabhabe Barnana Kara Hay Je Bakye Take Bibritimulak Bakya Ble Bibritimulak Bakya 2 Prakar Ca Astibachak Bakya Haa Bachak Bakya : Je Bakye Samarthaner Madhyame Koun Kichhu Barnana Kara Hay Take Astibachak Bakya Ba Haa Bachak Ble Je Bakye Haa Bachak Shabd Thake Take Haa Bachak Ba Astibachak Bakya Ble Jeman Tumi Kalke Asabe Aami Dhaka Jab Sadarthak Ba Astibachak Bakya : Ete Kono Nirdesh Ghatanar Sanghatan Ba Hwar Sangbad Thake Jeman Bishwakape Shrilanka Jitechhe Az Dokanpat Bandh Thakbe Bhasha Anushilan Haimanti Kh Netibachak Bakya Na Bachak Bakya : Je Bakye Asamarthaner Madhyame Koun Kichhu Barnana Kara Hay Take Netibachak Bakya Ba Na Bachak Ble Je Bakye Na Bachak Shabd Thake Take Netibachak Bakya Ba Na Bachak Bakya Ble Jeman Tumi Kalke Asabe Na Aami Dhaka Jab Na Netibachak Ba Nanyarthak Bakya : A Dharaner Bakye Koun Kichhu Hay Na Ba Ghatachhe Na Nishedh Akanksha Aswikriti Ityadi Sangbad Kingba Bhaav Prakash Kara Jay Jeman Az Train Chalabe Na Apni Amar Sange Katha Balaben Na Astibachak Netibachak Bakyer Rupantar Bakya Rupantar : Bakyer Earth Parivartan Na Kare Bakyer Prakashabhangi Ba Gathanaritite Parivartan Karakei Bakya Rupantar Bala Hay Arthat Bakya Rupantar Karar Samay Kheyal Rakhte Habe Bakyer Earth Jen Palte Na Jay Bakyer Earth Palte Gele Bakyati Anya Bakye Rupantarit Haye Jabe Kintu Bakya Rupantarer Xetre Amaderke Bakyer Prakashabhangi Ba Gathanariti Tatha Roopa (Form) Parivartan Karate Habe Bakyer Earth Parivartan Kara Jabe Na Astibachak Bakyake Netibachak Bakye Rupantarer Kaushal Ca Bisheshan Pader Biprit Shabd Byabahar Kare Anek Astibachak Bakyake Netibachak Bakye Rupantar Kara Jay Jeman Astibachak Bakya : Tumi Khub Bhal Netibachak Bakya : Tumi Moteo Kharap No Bhal Kharap Kh ‘na Karalei Nayo ‘na Kare Parbo Nao Ityadi Bakyangsh Jog Kare Anek Astibachak Bakyake Netibachak Bakye Rupantar Karate Hay Jeman Astibachak Bakya : Tumi Kalke Asabe Netibachak Bakya : Tumi Kalke Na Asalei Nay Astibachak Bakya : EDPDBD Oyebsaitati Eto Bhal Tumi Abar Dhukbei Netibachak Bakya : EDPDBD Oyebsaitati Eto Bhal Tumi Abar Na Dhuke Parbei Na G NATUN Koun Bipritarthak Ba Nanyarthak Na Bodhak Shabd Jog Kare Jeman Astibachak Bakya : Say Baiyer Pata Ultate Thakal Netibachak Bakya : Say Baiyer Pata Ultano Bandh Rakhlo Na Netibachak Bakyake Astibachak Bakye Rupantarer Kaushal Ca Bisheshan Pader Biprit Shabd Byabahar Kare Anek Netibachak Bakyake Astibachak Bakye Rupantar Kara Jay Jeman Netibachak Bakya : Say Klashe Upasthit Chhil Na Astibachak Bakya : Say Klashe Anupasthit Chhil Kh Netibachak Bakyer Na Bodhak Bakyangshake Koun Bipritarthak Bisheshane Rupantar Kareo Astibachak Bakye Rupantar Kara Jay Jeman Netibachak Bakya : Debarchanar Katha Tini Kondin Chintao Curren Ni Astibachak Bakya : Debarchanar Katha Taur Kachhe Achintyaniya Chhil Netibachak Bakya : Esab Katha Say Mukheo Anate Parat Na Astibachak Bakya : Esab Katha Taur Kachhe Akathya Chhil
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


এক বা একাধিক বিভক্তিযুক্ত পদের দ্বারা যখন বক্তার মনোভাব সম্পূর্ণরূপে প্রকাশ পায়, তখন তাকে বাক্য বা অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ বলেঅথবা,যে সুবিন্যেস্ত পদসমষ্টি দ্বারা কোনো বিষয়ে বক্তার মনোভাব সম্পূর্ণরুপে প্রকাশিত হয়,তাকে বাক্য অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ বলে। কতগুলো পদের সমষ্টিতে বাক্য গঠিত হলেও যে কোনো পদসমষ্টিই বাক্য নয়। বাক্যের বিভিন্ন পদের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক বা অন্বয় থাকা আবশ্যক।এ ছাড়াও বাক্যের অন্তর্গত বিভিন্ন পদ দ্বারা মিলিতভাবে একটি অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ অখণ্ডভাব পূর্ণ রুপে প্রকাশিত হওয়া প্রয়োজন, তবেই তা বাক্য হবে। বাক্য হল যোগ্যতা,আকাঙ্ক্ষা,আসত্তি সম্পন্ন পদসমষ্টি,যা বক্তার অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ মনের ভাব সম্পূর্ণভাবে প্রকাশ করে।
Romanized Version
এক বা একাধিক বিভক্তিযুক্ত পদের দ্বারা যখন বক্তার মনোভাব সম্পূর্ণরূপে প্রকাশ পায়, তখন তাকে বাক্য বা অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ বলেঅথবা,যে সুবিন্যেস্ত পদসমষ্টি দ্বারা কোনো বিষয়ে বক্তার মনোভাব সম্পূর্ণরুপে প্রকাশিত হয়,তাকে বাক্য অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ বলে। কতগুলো পদের সমষ্টিতে বাক্য গঠিত হলেও যে কোনো পদসমষ্টিই বাক্য নয়। বাক্যের বিভিন্ন পদের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক বা অন্বয় থাকা আবশ্যক।এ ছাড়াও বাক্যের অন্তর্গত বিভিন্ন পদ দ্বারা মিলিতভাবে একটি অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ অখণ্ডভাব পূর্ণ রুপে প্রকাশিত হওয়া প্রয়োজন, তবেই তা বাক্য হবে। বাক্য হল যোগ্যতা,আকাঙ্ক্ষা,আসত্তি সম্পন্ন পদসমষ্টি,যা বক্তার অর্থ অনুসারে বাংলা বাক্যের শ্রেণীবিভাগ মনের ভাব সম্পূর্ণভাবে প্রকাশ করে।Ec Ba Ekadhik Bibhaktijukta Pader Dwara Jakhan Baktar Manobhab Sampurnarupe Prakash Pay Takhan Take Bakya Ba Earth Anusare Bangla Bakyer Shrenibibhag Baleathaba Je Subinyesta Padasamashti Dwara Kono Bishye Baktar Manobhab Sampurnarupe Prakashit Hay Take Bakya Earth Anusare Bangla Bakyer Shrenibibhag Ble Katagulo Pader Samashtite Bakya Gathit Haleo Je Kono Padasamashtii Bakya Nay Bakyer Bibhinna Pader Madhye Parasparik Sampark Ba Anway Thaka Aawashyak A Chharao Bakyer Antargat Bibhinna Pada Dwara Militbhabe Ekati Earth Anusare Bangla Bakyer Shrenibibhag Akhandabhab Purna Rupe Prakashit Hwa Prayojan Tabei Ta Bakya Habe Bakya Hall Jogyata Akanksha Asatti Sampann Padasamashti Ja Baktar Earth Anusare Bangla Bakyer Shrenibibhag Maner Bhaav Sampurnabhabe Prakash Kare
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Ortho Anusare Bangla Bakyer Shrenibibhag Ki Ki,What Is The Classification Of Bengali Sentence According To The Meaning?,


vokalandroid