যে শাসক আল্লাহর আইন অনুযায়ী শাসন করে না তাকে কি নির্বাচিত করা যাবে? ...

আইন অনুযায়ী কোন ঈমানদারেরা সুদৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে, আল্লাহর আইনের চেয়ে উত্তম কোন আইন নেই। আল্লাহর আইন বিরোধী সকল বিধান জাহেলী বিধান। আল্লাহ তাআলা বলেন: “তারা কি তবে আইন অনুযায়ী কোন ্জাযহিলিয়্যাতের বিধান চায়? আর নিশ্চিত বিশ্বাসী কওমের জন্য বিধান প্রদানে আল্লাহর চেয়ে কে অধিক উত্তম ল্লাহর উপর ঈমান ও রাসূলদের প্রতি যা নাযিল করা হয়েছে সেগুলোর প্রতি ঈমান আনার পর আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য কোন আইন গ্রহণ করার প্রবণতাকে আল্লাহ তাআলা ‘বিস্ময়কর’ ঘোষণা করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন: “আপনি কি তাদেরকে দেখেননি, যারা দাবী করে যে, যা আপনার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং আপনার পূর্বে যা অবতীর্ণ হয়েছে আমরা সে বিষয়ের উপর ঈমান আইন অনুযায়ী কোন এনেছি। তারা তাগূতের কাছে বিচার নিয়ে যেতে চায় অথচ তাদেরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাকে অস্বীকার আইন অনুযায়ী কোন করতে। আর শয়তান চায় তাদেরকে ঘোর বিভ্রান্তিতে বিভ্রান্ত করতে।
Romanized Version
আইন অনুযায়ী কোন ঈমানদারেরা সুদৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে, আল্লাহর আইনের চেয়ে উত্তম কোন আইন নেই। আল্লাহর আইন বিরোধী সকল বিধান জাহেলী বিধান। আল্লাহ তাআলা বলেন: “তারা কি তবে আইন অনুযায়ী কোন ্জাযহিলিয়্যাতের বিধান চায়? আর নিশ্চিত বিশ্বাসী কওমের জন্য বিধান প্রদানে আল্লাহর চেয়ে কে অধিক উত্তম ল্লাহর উপর ঈমান ও রাসূলদের প্রতি যা নাযিল করা হয়েছে সেগুলোর প্রতি ঈমান আনার পর আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য কোন আইন গ্রহণ করার প্রবণতাকে আল্লাহ তাআলা ‘বিস্ময়কর’ ঘোষণা করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন: “আপনি কি তাদেরকে দেখেননি, যারা দাবী করে যে, যা আপনার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং আপনার পূর্বে যা অবতীর্ণ হয়েছে আমরা সে বিষয়ের উপর ঈমান আইন অনুযায়ী কোন এনেছি। তারা তাগূতের কাছে বিচার নিয়ে যেতে চায় অথচ তাদেরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাকে অস্বীকার আইন অনুযায়ী কোন করতে। আর শয়তান চায় তাদেরকে ঘোর বিভ্রান্তিতে বিভ্রান্ত করতে।Ain Anujayi Koun Imandarera Sudridhbhabe Biswas Kare Allahar Ainer Cheye Uttam Koun Ain Nei Allahar Ain Birodhi Sakal Bidhan Jaheli Bidhan Allah Taala Baleno “tara Ki Tove Ain Anujayi Koun ্jajhiliyyater Bidhan Say Are Nishchit Bishwasi Kaomer Janya Bidhan Pradane Allahar Cheye K Adhik Uttam Llahar Upar Iman O Rasulder Prati Ja Najil Kara Hayechhe Segulor Prati Iman Anar Par Allahar Ain Baad Diye Anya Koun Ain Grahan Karar Prabanatake Allah Taala ‘bismayakaro Ghoshna Karechhen Allah Taala Baleno “apani Ki Taderake Dekhenani Jara Dabi Kare Je Ja Apanar Prati Abatirna Hayechhe Evan Apanar Purbe Ja Abatirna Hayechhe Amara Say Bishyer Upar Iman Ain Anujayi Koun Enechhi Tara Taguter Kachhe Bichar Niye Jete Say Athos Taderake Nirdesh Dea Hayechhe Take Aswikar Ain Anujayi Koun Karate Are Shayatan Say Taderake Ghor Bibhrantite Bibhranta Karate
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


আইন অনুযায়ী কোন : যে শাসক আল্লাহর আইন অনুযায়ী শাসন করে না তাকে কি নির্বাচিত করা যাবে : ঈমানদারেরা সুদৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে, আল্লাহর আইনের চেয়ে উত্তম কোন আইন নেই। আল্লাহর আইন বিরোধী সকল বিধান জাহেলী বিধান। আর নিশ্চিত বিশ্বাসী কওমের জন্য বিধান প্রদানে আল্লাহর চেয়ে কে অধিক উত্তম?”[সূরা মায়েদা, ০৫:৫০] আল্লাহর উপর ঈমান ও রাসূলদের প্রতি যা নাযিল করা হয়েছে সেগুলোর প্রতি ঈমান আনার পর আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য কোন আইন গ্রহণ করার প্রবণতাকে আল্লাহ ‘বিস্ময়কর’ ঘোষণা করেছেন। আল্লাহ “আপনি কি তাদেরকে দেখেননি, যারা দাবী করে যে, যা আপনার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং আপনার পূর্বে যা অবতীর্ণ হয়েছে আমরা সে বিষয়ের উপর ঈমান এনেছি। তারা তাগূতের কাছে বিচার নিয়ে যেতে চায় অথচ তাদেরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাকে অস্বীকার করতে। আর শয়তান চায় তাদেরকে ঘোর বিভ্রান্তিতে বিভ্রান্ত করতে।”[সূরা নিসা ০৪:৬০] শানকিতি (রহঃ) বলেন: “আল্লাহ উল্লেখ করেছেন যে, যারা আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য আইনে শাসন করে আল্লাহ তাদের ঈমানের দাবীর প্রতি বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। কারণ তাগুতের কাছে বিচার ফয়সালা চাওয়ার পরেও ঈমানের দাবী- মিথ্যা ছাড়া আর কিছু নয়। এমন মিথ্যা সত্যিই বিস্ময়কর।” সমাপ্ত আল্লাহ তাঁর সত্তার শপথ করে বলছেন: কোন ব্যক্তি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রাসূলকে ফয়সালাকারী হিসেবে না মানা পর্যন্ত ঈমানদার হবে না। রাসূল যে ফয়সালা দিয়েছেন সেটাই হক্ব; প্রকাশ্যে ও গোপনে সেটাকে মেনে নিতে হবে। আল্লাহ তাআলা বলেন: “অতএব তোমার রবের কসম, তারা মুমিন হবে না যতক্ষণ না তাদের মধ্যে সৃষ্ট বিবাদের ব্যাপারে তোমাকে বিচারক নির্ধারণ করে, তারপর তুমি যে ফয়সালা দেবে সে ব্যাপারে নিজদের অন্তরে কোন দ্বিধা অনুভব না করে এবং পূর্ণ সম্মতিতে মেনে নেয়।”। [সূরা নিসা, ০৪:৬৫] আল্লাহ বিবদমান বিষয়ে ফয়সালার দায়িত্ব রাসূলের উপর ছেড়ে দেয়া অপরিহার্য করে দিয়েছেন এবং এটাকে ঈমানের শর্ত হিসেবে উল্লেখ করেছেন। সুতরাং আল্লাহর আইন ছাড়া অন্য কোন আইনের শাসন গ্রহণ করা ঈমানের পরিপন্থী। আল্লাহ তাআলা বলেন: “অতঃপর কোন বিষয়ে যদি তোমরা মতবিরোধ কর তাহলে তা আল্লাহ ও রাসূলের দিকে প্রত্যার্পণ কর- যদি তোমরা আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান রাখ। এটি কল্যাণকর এবং পরিণামে উৎকৃষ্টতর।”[সূরা নিসা, ০৪:৫৯]। ইবনে কাছির (রহঃ) বলেন: আয়াতে কারিমা “যদি তোমরা আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান রাখ”নির্দেশ করছে যে, যে ব্যক্তি বিবদমান বিষয়ের ফয়সালা কুরআন ও সুন্নাহ হতে গ্রহণ করে না এবং এ দুটির কাছে ফিরে আসে না সে আল্লাহর প্রতি ও শেষ দিনের প্রতি ঈমানদার নয়। পূর্বোক্ত আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় যে, যে ব্যক্তি আল্লাহর বিধান অনুযায়ী শাসনকার্য পরিচালনা করে না তাকে নির্বাচিত করা হারাম। কারণ এই নির্বাচনের মাধ্যমে এই হারামের প্রতি সন্তুষ্টি ও এই হারাম কাজে সহযোগিতা করা হলো। কোন মুসলমানকে যদি ভোট দিতে যেতে বাধ্য করা হয় তাহলে সে যেতে পারেন গিয়ে এই প্রার্থীর বিপক্ষে ভোট দিতে পারেন অথবা সম্ভব হলে তার ভোট নষ্ট করে দিতে পারেন। যদি এর কোনটাই তার পক্ষে করা সম্ভবপর না হয় এবং এই প্রার্থীর পক্ষে ভোট না দিলে সে নির্যাতিত হওয়ার আশংকা করে তাহলে আমরা আশা করছি এমতাবস্থায় তার কোন গুনাহ হবে না। যেহেতু আল্লাহ তাআলা বলেছেন: “যার উপর জবরদস্তি করা হয় এবং তার অন্তর বিশ্বাসে অটল থাকে সে ব্যতীত” [সূরা নাহল ১৬:১০৬] এবং রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: আমার উম্মতকে ভুল, বিস্মৃতি ও জবরদস্তির গুনাহ হতে নিষ্কৃতি দেয়া হয়েছে।
Romanized Version
আইন অনুযায়ী কোন : যে শাসক আল্লাহর আইন অনুযায়ী শাসন করে না তাকে কি নির্বাচিত করা যাবে : ঈমানদারেরা সুদৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে, আল্লাহর আইনের চেয়ে উত্তম কোন আইন নেই। আল্লাহর আইন বিরোধী সকল বিধান জাহেলী বিধান। আর নিশ্চিত বিশ্বাসী কওমের জন্য বিধান প্রদানে আল্লাহর চেয়ে কে অধিক উত্তম?”[সূরা মায়েদা, ০৫:৫০] আল্লাহর উপর ঈমান ও রাসূলদের প্রতি যা নাযিল করা হয়েছে সেগুলোর প্রতি ঈমান আনার পর আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য কোন আইন গ্রহণ করার প্রবণতাকে আল্লাহ ‘বিস্ময়কর’ ঘোষণা করেছেন। আল্লাহ “আপনি কি তাদেরকে দেখেননি, যারা দাবী করে যে, যা আপনার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং আপনার পূর্বে যা অবতীর্ণ হয়েছে আমরা সে বিষয়ের উপর ঈমান এনেছি। তারা তাগূতের কাছে বিচার নিয়ে যেতে চায় অথচ তাদেরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাকে অস্বীকার করতে। আর শয়তান চায় তাদেরকে ঘোর বিভ্রান্তিতে বিভ্রান্ত করতে।”[সূরা নিসা ০৪:৬০] শানকিতি (রহঃ) বলেন: “আল্লাহ উল্লেখ করেছেন যে, যারা আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য আইনে শাসন করে আল্লাহ তাদের ঈমানের দাবীর প্রতি বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। কারণ তাগুতের কাছে বিচার ফয়সালা চাওয়ার পরেও ঈমানের দাবী- মিথ্যা ছাড়া আর কিছু নয়। এমন মিথ্যা সত্যিই বিস্ময়কর।” সমাপ্ত আল্লাহ তাঁর সত্তার শপথ করে বলছেন: কোন ব্যক্তি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রাসূলকে ফয়সালাকারী হিসেবে না মানা পর্যন্ত ঈমানদার হবে না। রাসূল যে ফয়সালা দিয়েছেন সেটাই হক্ব; প্রকাশ্যে ও গোপনে সেটাকে মেনে নিতে হবে। আল্লাহ তাআলা বলেন: “অতএব তোমার রবের কসম, তারা মুমিন হবে না যতক্ষণ না তাদের মধ্যে সৃষ্ট বিবাদের ব্যাপারে তোমাকে বিচারক নির্ধারণ করে, তারপর তুমি যে ফয়সালা দেবে সে ব্যাপারে নিজদের অন্তরে কোন দ্বিধা অনুভব না করে এবং পূর্ণ সম্মতিতে মেনে নেয়।”। [সূরা নিসা, ০৪:৬৫] আল্লাহ বিবদমান বিষয়ে ফয়সালার দায়িত্ব রাসূলের উপর ছেড়ে দেয়া অপরিহার্য করে দিয়েছেন এবং এটাকে ঈমানের শর্ত হিসেবে উল্লেখ করেছেন। সুতরাং আল্লাহর আইন ছাড়া অন্য কোন আইনের শাসন গ্রহণ করা ঈমানের পরিপন্থী। আল্লাহ তাআলা বলেন: “অতঃপর কোন বিষয়ে যদি তোমরা মতবিরোধ কর তাহলে তা আল্লাহ ও রাসূলের দিকে প্রত্যার্পণ কর- যদি তোমরা আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান রাখ। এটি কল্যাণকর এবং পরিণামে উৎকৃষ্টতর।”[সূরা নিসা, ০৪:৫৯]। ইবনে কাছির (রহঃ) বলেন: আয়াতে কারিমা “যদি তোমরা আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান রাখ”নির্দেশ করছে যে, যে ব্যক্তি বিবদমান বিষয়ের ফয়সালা কুরআন ও সুন্নাহ হতে গ্রহণ করে না এবং এ দুটির কাছে ফিরে আসে না সে আল্লাহর প্রতি ও শেষ দিনের প্রতি ঈমানদার নয়। পূর্বোক্ত আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে বলা যায় যে, যে ব্যক্তি আল্লাহর বিধান অনুযায়ী শাসনকার্য পরিচালনা করে না তাকে নির্বাচিত করা হারাম। কারণ এই নির্বাচনের মাধ্যমে এই হারামের প্রতি সন্তুষ্টি ও এই হারাম কাজে সহযোগিতা করা হলো। কোন মুসলমানকে যদি ভোট দিতে যেতে বাধ্য করা হয় তাহলে সে যেতে পারেন গিয়ে এই প্রার্থীর বিপক্ষে ভোট দিতে পারেন অথবা সম্ভব হলে তার ভোট নষ্ট করে দিতে পারেন। যদি এর কোনটাই তার পক্ষে করা সম্ভবপর না হয় এবং এই প্রার্থীর পক্ষে ভোট না দিলে সে নির্যাতিত হওয়ার আশংকা করে তাহলে আমরা আশা করছি এমতাবস্থায় তার কোন গুনাহ হবে না। যেহেতু আল্লাহ তাআলা বলেছেন: “যার উপর জবরদস্তি করা হয় এবং তার অন্তর বিশ্বাসে অটল থাকে সে ব্যতীত” [সূরা নাহল ১৬:১০৬] এবং রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: আমার উম্মতকে ভুল, বিস্মৃতি ও জবরদস্তির গুনাহ হতে নিষ্কৃতি দেয়া হয়েছে।Ain Anujayi Koun : Je Shasak Allahar Ain Anujayi Hasn Kare Na Take Ki Nirbachit Kara Jabe Imandarera Sudridhbhabe Biswas Kare Allahar Ainer Cheye Uttam Koun Ain Nei Allahar Ain Birodhi Sakal Bidhan Jaheli Bidhan Are Nishchit Bishwasi Kaomer Janya Bidhan Pradane Allahar Cheye K Adhik Uttam ” Sura Mayeda 05 50 Allahar Upar Iman O Rasulder Prati Ja Najil Kara Hayechhe Segulor Prati Iman Anar Par Allahar Ain Baad Diye Anya Koun Ain Grahan Karar Prabanatake Allah ‘bismayakaro Ghoshna Karechhen Allah “apani Ki Taderake Dekhenani Jara Dabi Kare Je Ja Apanar Prati Abatirna Hayechhe Evan Apanar Purbe Ja Abatirna Hayechhe Amara Say Bishyer Upar Iman Enechhi Tara Taguter Kachhe Bichar Niye Jete Say Athos Taderake Nirdesh Dea Hayechhe Take Aswikar Karate Are Shayatan Say Taderake Ghor Bibhrantite Bibhranta Karate ” Sura Nica 04 60 Shankiti Rahah Baleno “allah Ullekh Karechhen Je Jara Allahar Ain Baad Diye Anya Aine Hasn Kare Allah Tader Imaner Dabir Prati Bismay Prakash Karechhen Karan Taguter Kachhe Bichar Fayasala Chawar Pareo Imaner Dabi Mithya Chhara Are Kichhu Noy Eman Mithya Satyii Bismayakar ” Samapta Allah Tanr Sattar Shapath Kare Balachhen Koun Byakti Jibner Pratiti Xetre Rasulake Fayasalakari Hisebe Na Mana Parjanta Imandar Habe Na Rasul Je Fayasala Diyechhen Setai Hakba Prakashye O Gopne Setake Mene Nite Habe Allah Taala Baleno “ataeb Tomar Raber Kasam Tara Mumin Habe Na Jatakshan Na Tader Madhye Srishta Bibader Byapare Tomake Bicharak Nirdharan Kare Tarapar Tumi Je Fayasala Dewey Say Byapare Nijder Antare Koun Dwidha Anubhav Na Kare Evan Purna Sammatite Mene Ney ” Sura Nica 04 65 Allah Bibadaman Vise Fayasalar Dayitba Rasuler Upar Chhere Dea Apariharjya Kare Diyechhen Evan Etake Imaner Sharta Hisebe Ullekh Karechhen Sutarang Allahar Ain Chhara Anya Koun Ainer Hasn Grahan Kara Imaner Paripanthi Allah Taala Baleno “atahpar Koun Vise Jodi Tomra Matabirodh Cor Tahle Ta Allah O Rasuler Dike Pratyarpan Cor Jodi Tomra Allah O Sesh Diner Prati Iman Rakh AT Kalyanakar Evan Pariname Utkrishtatar ” Sura Nica 04 59 Ibane Kachhir Rahah Baleno Ayate Karima “jadi Tomra Allah O Sesh Diner Prati Iman Rakh”nirdesh Karachhe Je Je Byakti Bibadaman Bishyer Fayasala Kuran O Sunnah Hate Grahan Kare Na Evan A Dutir Kachhe Fire Ase Na Say Allahar Prati O Sesh Diner Prati Imandar Noy Purbokta Alochnar Pariprekshite Bala Jay Je Je Byakti Allahar Bidhan Anujayi Shasanakarjya Parichalna Kare Na Take Nirbachit Kara Haram Karan AE Nirbachaner Madhyame AE Haramer Prati Santushti O AE Haram Kaje Sahajogita Kara Holo Koun Musalamanke Jodi Vote Dite Jete Badhya Kara Hya Tahle Say Jete Paren Giye AE Prarthir Bipakshe Vote Dite Paren Athaba Sambhab Hale Taur Vote Nashta Kare Dite Paren Jodi Aare Kontai Taur Pakshe Kara Sambhabapar Na Hya Evan AE Prarthir Pakshe Vote Na Dile Say Nirjatit Hwar Ashanka Kare Tahle Amara Asha Karachhi Ematabasthay Taur Koun Gunah Habe Na Jehetu Allah Taala Balechhen “jar Upar Jabaradasti Kara Hya Evan Taur Antar Bishwase Atal Thake Say Byatit” Sura Nahal 16 106 Evan Rasul Sallallahu Alaihi Wa Sallam Balechhen Amar Ummatake Bhool Bismriti O Jabaradastir Gunah Hate Nishkriti Dea Hayechhe
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Je Shasak Allahar Ain Anujayi Shasan Kore Na Take Ki Nirbachit Kora Jabe,Can A Ruler Who Does Not Rule According To The Law Of God?,


vokalandroid