আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ সম্পর্কে আলোচনা কর? ...

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এ কর্মী ছাটাই ও নিয়োগ এ দুর্নীতির অভিযোগ করেছে সংগঠনটি থেকে ছাটাই হওয়া কর্মীরা। ছাটাই হওয়া কর্মীরা অভিযোগ করেন, যোগ্য কর্মীদের ছাটাই করে কোন প্রকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই ব্যক্তিগত পচ্ছন্দ অনুযায়ী কর্মী নিয়োগ দিয়েছেন তৎকালীন আসক-এর ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নুর খান। আসক- এ অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় কর্মী নিয়োগ , ছাটাই ও অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে গত ৩০ মার্চ রাজধানীর ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলন করেন ছাটাই হওয়া কর্মীরা। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত ২৯.০৯.২০১৬ তারিখে আসক-এর সকল কর্মীকে একযোগে ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নুর খান স্বাক্ষরিত অব্যাহতিপত্র দেওয়া হয়। অব্যাহতির কারন হিসেবে বলা হয়, প্রকল্পের মেয়োদ শেষ হওয়ায় ৩১.১২.২০১৬ তারিখে আসক-এর চাকরীর মেয়াদ শেষ হবে। কর্মীরা অভিযোগ করেন, প্রকল্প মেয়াদের জন্য নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে এমন কোন কথা তাদের নিয়োগপত্রে উল্লেখ করা ছিলো না। অন্যদিকে ২৯.১২.২০১৬ তারিখে আসক-এ প্রায় ৬০ জন কর্মী সম্পূর্ণ নতুনভাবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু উক্ত নিয়োগ দানের ক্ষেত্রে আসক-এর মানবসম্পদ নীতিমাল ও ম্যানুয়োলের কোন বিধান মানা হয়নি। সম্পূর্ণ নতুন কর্মী নিয়োগ দেওয়া হলেও কোন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়নি। এছাড়া গত ১৫.০১.২০১৭ তারিখে আসক-এর প্রাক্তন কর্মী মো: সামীউল আলম সরকার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক (সাবেক) নূর খানের বিরুদ্ধে নির্বাহী সদস্য ও সাধারন সদস্যদের নিকট ইমেইলের মাধ্যমে একটি অভিযোগপত্র পাঠান। অভিযোগপত্রে বলা হয়, নূর খান আসক-এর ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক থাকা অবস্থায় নির্বাহী কমিটির পূর্বানুমোদন ছাড়াই ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এ দীর্ঘদিন কাজ করেছেন যা আসক-এর মানবসম্পদ ও ম্যানুয়াল অনুযায়ী অসদারচন হিসেবে গণ্য। এছাড়া আসক-এর তথ্য ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এ প্রেরণ করেন। উক্ত অভিযোগপত্রে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগও তোলা হয়। বলা হয়, আসক কতৃক সম্পন্নকৃত কাজকে তিনি ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এর জন্য কৃত কাজ হিসেবে প্রদর্শন করে ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ থেকে অর্থ গ্রহণ করতেন। এছাড়া আসক-এর সুযোগ-সুবিধা, জনবল ও কর্মঘন্টা ব্যয় করে ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এর জন্য কাজ করতেন। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের ছাটাই হওয়া কর্মী এডভোকেট নাহিদ শামস বলেন, নিয়োগপত্রে প্রকল্প মেয়াদের কথা উল্লেখ না থাকলেও গত ২৯.০৯.২০১৬ তারিখে ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নুর খান স্বাক্ষরিত অব্যাহতিপত্র দেওয়া হয়। অব্যাহতির কারণ হিসেবে বলা হয়, প্রকল্পের মেয়োদ শেষ হওয়ায় ৩১.১২.২০১৬ তারিখে আসক-এর চাকরীর মেয়াদ শেষ হবে। অব্যাহতিপত্রে পরবর্তী নিয়োগের কোন বিষয়ও উল্লেখ করা হয়নি। এরপর কোন প্রকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই নূর খান তার পচ্ছন্দ অনুযায়ী কর্মী নিয়োগ দেন। নাহিদ শামস অভিযোগ করে বলেন, নূর খান যাদের নিয়োগ দিয়েছেন তাদের মধ্যে তিন জন আছেন যারা ছাটাই হওয়া কর্মীদের তুলনায় শিক্ষা, কাজের অভিজ্ঞতা ও পূর্বের পদ অনুযায়ী জুনিয়র ছিলেন। অথচ তিনি (নাহিদ শামস) ১৪ বছর থেকে আইন পেশায় আছেন এবং নিয়োগ পাওয়া কর্মীদের তুলনায় কাজ ও শিক্ষাগত দিক থেকে অধিক যোগ্য। একই অভিযোগ করেন ছাটাই হওয়া আরেক কর্মী ফারহানা আফরোজ। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে এ বিষয়ে তার কোন মন্তব্য নেই জানিয়ে প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নূর খান আইন ও সালিশ কেন্দ্রে যোগাযোগ করতে বলেন। এ বিষয়ে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের অর্থ ও প্রশাসন বিভাগের পরিচালক মু: মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের মতো এনজিওগুলো প্রকল্প মেয়াদ অনুযায়ী চলে। আসকের প্রকল্প মেয়াদ পাচ বছর। প্রকল্প শেষ হওয়ায় কর্মীদের কাজের মেয়াদও শেষ হয়েছে। এবং এ বিষয়ে কর্মীদেরকে তাদের চাকরীর মেয়াদ শেষ হওয়ার এক বছর আগে একবার ও তিনমাস আগে একবার রিমাইন্ডার দেওয়া হয়েছে। কর্মী ছাটাই ও বিজ্ঞপ্তি ছাড়া নিয়োগের বিষয়ে তিনি জানান, আগের চেয়ে প্রকল্পে ফান্ডের পরিমান অনেক কমেছে। তাই কাজের পরিধিও হ্রাস পেয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে কর্মী ছাটাই করতে হয়েছে। আর নতুন করে বাহির থেকে কোন কর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়নি। যেহেতু কর্মরতদের মধ্য থেকে পুনরায় নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তাই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির প্রয়োজন হয়নি। নূর খানের ইচ্ছানুযায়ী নিয়োগ প্রদানের অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করে তিনি বলেন, পূনরায় নিয়োগের ক্ষেত্রে চার সদস্য বিশিষ্ট এক্সিকিউটিভ কমিটি করে তারপর কর্মরতদের কাজ পর্যালোচনা পূর্বক নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। তাই এখানে একজনের ইচ্ছার প্রতিফলন হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের হেফাজতে মাগুরা থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে এক নারীকে বাস থেকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করেছে একদল যুবক। এ সময় হামলাকারীদের মারপিটে গুরুতর আহত হয়েছেন আইন ও সালিশ কেন্দ্র এর (আসক) এক নারী কর্মী। বুধবার মাগুরা সদর উপজেলা লক্ষ্মীকন্দর গ্রামে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে। আহত আইন ও সালিশ কেন্দ্র এর মাঠকর্মী শামছুন্নাহারকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শামছুন্নাহার সাংবাদিকদের বলেন, মাগুরা শহরের পূর্ব পাড়ার বাসিন্দা রকিবুল ইসলাম রিপুর সপ্তম স্ত্রী তার মারপিট ও নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে এ বছরের শুরুর দিকে স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। তিনি জানান, গত ৪ মার্চ তিনি ঢাকার লালমাটিয়ায় আসকের শেল্টার হোমে আশ্রয় নেন। ইতোমধ্যে তার স্বামী রকিবুল মাগুরা সদর থানায় তার (স্ত্রী) বিরুদ্ধে চুরি ও ব্যাভিচারের মামলা করেন। এই মামলার আসামি হিসেবে মাগুরা সদর থানা পুলিশ মঙ্গলবার (৬ মার্চ) তার স্ত্রীকে আসকের শেল্টার হোম থেকে মাগুরা নিয়ে আসে। আসকের প্রতিনিধি ও জিম্মাদার হিসেবে তিনিও ওই নারীর সঙ্গে মাগুরা আসেন বলে শামসুন্নাহার জানান। তিনি আরও জানান, বুধবার দুপুরে ওই নারীকে আদালতে হাজির করা হয়। শামসুন্নাহার আইনজীবীর মাধ্যমে তার জামিন আবেদন করলে আদালত জামিন মঞ্জুর করে। পরে তার ইচ্ছানুযায়ী আদালত তাকে আসকের জিম্মায় দেয়। শামসুন্নাহার জানান, জামিন লাভের পর পুলিশ হেফাজতে তারা বিকাল সাড়ে ৪টায় মাগুরা বাস টার্মিনাল থেকে ঈগল পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসটি মাগুরা সদরের লক্ষ্মীকন্দর পৌঁছলে একটি মাইক্রোবাস সামনে দিয়ে বাসটিকে থামানো হয়। পরে রিপুর নেতৃত্বে ৪-৫ জন অস্ত্রধারী বাসে উঠে তাকে ও ওই নারীকে মারপিট করে টেনে-হিঁচড়ে নামিয়ে নেয় বলে শামসুন্নাহার জানান। “তারা আমাকে পিটিয়ে রাস্তার ধারে ফেলে রেখে ওই নারীকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।” সদর থানার পরিদর্শক কেন্দ্র (তদন্ত) মাহবুব আল হাসান বলেন, “আসকের প্রতিনিধিসহ অপহৃত নারীকে তাদের চাহিদানুযায়ী পর্যাপ্ত পুলিশী নিরাপত্তা ব্যবস্থা দেওয়া হয়েছিল। তবে পথে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে।” এজন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পুলিশ অপহৃত নারীকে উদ্ধার ও অপহরণকারীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে বলে পরিদর্শক মাহবুব জানান।
Romanized Version
মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এ কর্মী ছাটাই ও নিয়োগ এ দুর্নীতির অভিযোগ করেছে সংগঠনটি থেকে ছাটাই হওয়া কর্মীরা। ছাটাই হওয়া কর্মীরা অভিযোগ করেন, যোগ্য কর্মীদের ছাটাই করে কোন প্রকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই ব্যক্তিগত পচ্ছন্দ অনুযায়ী কর্মী নিয়োগ দিয়েছেন তৎকালীন আসক-এর ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নুর খান। আসক- এ অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় কর্মী নিয়োগ , ছাটাই ও অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে গত ৩০ মার্চ রাজধানীর ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলন করেন ছাটাই হওয়া কর্মীরা। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত ২৯.০৯.২০১৬ তারিখে আসক-এর সকল কর্মীকে একযোগে ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নুর খান স্বাক্ষরিত অব্যাহতিপত্র দেওয়া হয়। অব্যাহতির কারন হিসেবে বলা হয়, প্রকল্পের মেয়োদ শেষ হওয়ায় ৩১.১২.২০১৬ তারিখে আসক-এর চাকরীর মেয়াদ শেষ হবে। কর্মীরা অভিযোগ করেন, প্রকল্প মেয়াদের জন্য নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে এমন কোন কথা তাদের নিয়োগপত্রে উল্লেখ করা ছিলো না। অন্যদিকে ২৯.১২.২০১৬ তারিখে আসক-এ প্রায় ৬০ জন কর্মী সম্পূর্ণ নতুনভাবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু উক্ত নিয়োগ দানের ক্ষেত্রে আসক-এর মানবসম্পদ নীতিমাল ও ম্যানুয়োলের কোন বিধান মানা হয়নি। সম্পূর্ণ নতুন কর্মী নিয়োগ দেওয়া হলেও কোন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়নি। এছাড়া গত ১৫.০১.২০১৭ তারিখে আসক-এর প্রাক্তন কর্মী মো: সামীউল আলম সরকার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক (সাবেক) নূর খানের বিরুদ্ধে নির্বাহী সদস্য ও সাধারন সদস্যদের নিকট ইমেইলের মাধ্যমে একটি অভিযোগপত্র পাঠান। অভিযোগপত্রে বলা হয়, নূর খান আসক-এর ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক থাকা অবস্থায় নির্বাহী কমিটির পূর্বানুমোদন ছাড়াই ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এ দীর্ঘদিন কাজ করেছেন যা আসক-এর মানবসম্পদ ও ম্যানুয়াল অনুযায়ী অসদারচন হিসেবে গণ্য। এছাড়া আসক-এর তথ্য ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এ প্রেরণ করেন। উক্ত অভিযোগপত্রে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগও তোলা হয়। বলা হয়, আসক কতৃক সম্পন্নকৃত কাজকে তিনি ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এর জন্য কৃত কাজ হিসেবে প্রদর্শন করে ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ থেকে অর্থ গ্রহণ করতেন। এছাড়া আসক-এর সুযোগ-সুবিধা, জনবল ও কর্মঘন্টা ব্যয় করে ‘অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল’ এর জন্য কাজ করতেন। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের ছাটাই হওয়া কর্মী এডভোকেট নাহিদ শামস বলেন, নিয়োগপত্রে প্রকল্প মেয়াদের কথা উল্লেখ না থাকলেও গত ২৯.০৯.২০১৬ তারিখে ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নুর খান স্বাক্ষরিত অব্যাহতিপত্র দেওয়া হয়। অব্যাহতির কারণ হিসেবে বলা হয়, প্রকল্পের মেয়োদ শেষ হওয়ায় ৩১.১২.২০১৬ তারিখে আসক-এর চাকরীর মেয়াদ শেষ হবে। অব্যাহতিপত্রে পরবর্তী নিয়োগের কোন বিষয়ও উল্লেখ করা হয়নি। এরপর কোন প্রকার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই নূর খান তার পচ্ছন্দ অনুযায়ী কর্মী নিয়োগ দেন। নাহিদ শামস অভিযোগ করে বলেন, নূর খান যাদের নিয়োগ দিয়েছেন তাদের মধ্যে তিন জন আছেন যারা ছাটাই হওয়া কর্মীদের তুলনায় শিক্ষা, কাজের অভিজ্ঞতা ও পূর্বের পদ অনুযায়ী জুনিয়র ছিলেন। অথচ তিনি (নাহিদ শামস) ১৪ বছর থেকে আইন পেশায় আছেন এবং নিয়োগ পাওয়া কর্মীদের তুলনায় কাজ ও শিক্ষাগত দিক থেকে অধিক যোগ্য। একই অভিযোগ করেন ছাটাই হওয়া আরেক কর্মী ফারহানা আফরোজ। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে এ বিষয়ে তার কোন মন্তব্য নেই জানিয়ে প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নূর খান আইন ও সালিশ কেন্দ্রে যোগাযোগ করতে বলেন। এ বিষয়ে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের অর্থ ও প্রশাসন বিভাগের পরিচালক মু: মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের মতো এনজিওগুলো প্রকল্প মেয়াদ অনুযায়ী চলে। আসকের প্রকল্প মেয়াদ পাচ বছর। প্রকল্প শেষ হওয়ায় কর্মীদের কাজের মেয়াদও শেষ হয়েছে। এবং এ বিষয়ে কর্মীদেরকে তাদের চাকরীর মেয়াদ শেষ হওয়ার এক বছর আগে একবার ও তিনমাস আগে একবার রিমাইন্ডার দেওয়া হয়েছে। কর্মী ছাটাই ও বিজ্ঞপ্তি ছাড়া নিয়োগের বিষয়ে তিনি জানান, আগের চেয়ে প্রকল্পে ফান্ডের পরিমান অনেক কমেছে। তাই কাজের পরিধিও হ্রাস পেয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে কর্মী ছাটাই করতে হয়েছে। আর নতুন করে বাহির থেকে কোন কর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়নি। যেহেতু কর্মরতদের মধ্য থেকে পুনরায় নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তাই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির প্রয়োজন হয়নি। নূর খানের ইচ্ছানুযায়ী নিয়োগ প্রদানের অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করে তিনি বলেন, পূনরায় নিয়োগের ক্ষেত্রে চার সদস্য বিশিষ্ট এক্সিকিউটিভ কমিটি করে তারপর কর্মরতদের কাজ পর্যালোচনা পূর্বক নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। তাই এখানে একজনের ইচ্ছার প্রতিফলন হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের হেফাজতে মাগুরা থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে এক নারীকে বাস থেকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করেছে একদল যুবক। এ সময় হামলাকারীদের মারপিটে গুরুতর আহত হয়েছেন আইন ও সালিশ কেন্দ্র এর (আসক) এক নারী কর্মী। বুধবার মাগুরা সদর উপজেলা লক্ষ্মীকন্দর গ্রামে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে। আহত আইন ও সালিশ কেন্দ্র এর মাঠকর্মী শামছুন্নাহারকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শামছুন্নাহার সাংবাদিকদের বলেন, মাগুরা শহরের পূর্ব পাড়ার বাসিন্দা রকিবুল ইসলাম রিপুর সপ্তম স্ত্রী তার মারপিট ও নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে এ বছরের শুরুর দিকে স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। তিনি জানান, গত ৪ মার্চ তিনি ঢাকার লালমাটিয়ায় আসকের শেল্টার হোমে আশ্রয় নেন। ইতোমধ্যে তার স্বামী রকিবুল মাগুরা সদর থানায় তার (স্ত্রী) বিরুদ্ধে চুরি ও ব্যাভিচারের মামলা করেন। এই মামলার আসামি হিসেবে মাগুরা সদর থানা পুলিশ মঙ্গলবার (৬ মার্চ) তার স্ত্রীকে আসকের শেল্টার হোম থেকে মাগুরা নিয়ে আসে। আসকের প্রতিনিধি ও জিম্মাদার হিসেবে তিনিও ওই নারীর সঙ্গে মাগুরা আসেন বলে শামসুন্নাহার জানান। তিনি আরও জানান, বুধবার দুপুরে ওই নারীকে আদালতে হাজির করা হয়। শামসুন্নাহার আইনজীবীর মাধ্যমে তার জামিন আবেদন করলে আদালত জামিন মঞ্জুর করে। পরে তার ইচ্ছানুযায়ী আদালত তাকে আসকের জিম্মায় দেয়। শামসুন্নাহার জানান, জামিন লাভের পর পুলিশ হেফাজতে তারা বিকাল সাড়ে ৪টায় মাগুরা বাস টার্মিনাল থেকে ঈগল পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসটি মাগুরা সদরের লক্ষ্মীকন্দর পৌঁছলে একটি মাইক্রোবাস সামনে দিয়ে বাসটিকে থামানো হয়। পরে রিপুর নেতৃত্বে ৪-৫ জন অস্ত্রধারী বাসে উঠে তাকে ও ওই নারীকে মারপিট করে টেনে-হিঁচড়ে নামিয়ে নেয় বলে শামসুন্নাহার জানান। “তারা আমাকে পিটিয়ে রাস্তার ধারে ফেলে রেখে ওই নারীকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।” সদর থানার পরিদর্শক কেন্দ্র (তদন্ত) মাহবুব আল হাসান বলেন, “আসকের প্রতিনিধিসহ অপহৃত নারীকে তাদের চাহিদানুযায়ী পর্যাপ্ত পুলিশী নিরাপত্তা ব্যবস্থা দেওয়া হয়েছিল। তবে পথে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে।” এজন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পুলিশ অপহৃত নারীকে উদ্ধার ও অপহরণকারীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে বলে পরিদর্শক মাহবুব জানান। Manbadhikar Sangathan Ain O Salish Kendra Ack A Karmi Chhatai O Niyog A Durnitir Abhijog Karechhe Sangathanati Theke Chhatai Hwa Karmira Chhatai Hwa Karmira Abhijog Curren Jogya Karmider Chhatai Kare Koun Prakar Niyog Bigyapti Chharai Byaktigat Pachchhanda Anujayi Karmi Niyog Diyechhen Ttkalin Ack Aare Bharaprapta Nirbahi Parichalak Noor Khan Ack A Aswachchh Prakriyay Karmi Niyog , Chhatai O Abyabasthapanar Pratibade Gata 30 Marsa Rajdhanir Dhaka Ripotars Yunitite Ec Sangbad Sammelan Curren Chhatai Hwa Karmira Sangbad Sammelane Janano Hya Gata 29 09 2016 Tarikhe Ack Aare Sakal Karmike Ekajoge Bharaprapta Nirbahi Parichalak Noor Khan Swaksharit Abyahatipatra Dewa Hya Abyahatir Curran Hisebe Bala Hya Prakalper Meyod Sesh Hway 31 12 2016 Tarikhe Ack Aare Chakrir Meyad Sesh Habe Karmira Abhijog Curren Prakalpa Meyader Janya Niyog Dewa Hachchhe Eman Koun Katha Tader Niyogapatre Ullekh Kara Chhilo Na Anyadike 29 12 2016 Tarikhe Ack A Pray 60 John Karmi Sampurna Natunbhabe Niyog Dewa Hayechhe Kintu Ukta Niyog Daner Xetre Ack Aare Manabasampad Nitimal O Myanuyoler Koun Bidhan Mana Hayani Sampurna NATUN Karmi Niyog Dewa Haleo Koun Niyog Bigyapti Dewa Hayani Echhara Gata 15 01 2017 Tarikhe Ack Aare Praktan Karmi Mo Samiul Alam Sarkar Bharaprapta Nirbahi Parichalak Sabek Noor Khaner Biruddhe Nirbahi Sadasya O Sadharan Sadasyader Nikat Imeiler Madhyame Ekati Abhijogapatra Pathan Abhijogapatre Bala Hya Noor Khan Ack Aare Bharaprapta Nirbahi Parichalak Thaka Abasthay Nirbahi Kamitir Purbanumodan Chharai ‘amnesti Intaranyashanalo A Dirghadin Kaj Karechhen Ja Ack Aare Manabasampad O Manual Anujayi Asadarachan Hisebe Ganya Echhara Ack Aare Tathya ‘amnesti Intaranyashanalo A Preran Curren Ukta Abhijogapatre Earth Atmasater Abhijogao Tola Hya Bala Hya Ack Katrik Sampannakrit Kajke Tini ‘amnesti Intaranyashanalo Aare Janya Krit Kaj Hisebe Pradarshan Kare ‘amnesti Intaranyashanalo Theke Earth Grahan Karaten Echhara Ack Aare Sujog Subidha Janabal O Karmaghanta Byay Kare ‘amnesti Intaranyashanalo Aare Janya Kaj Karaten Ain O Salish Kendrer Chhatai Hwa Karmi Edabhoket Nahid Shamas Baleno Niyogapatre Prakalpa Meyader Katha Ullekh Na Thakleo Gata 29 09 2016 Tarikhe Bharaprapta Nirbahi Parichalak Noor Khan Swaksharit Abyahatipatra Dewa Hya Abyahatir Karan Hisebe Bala Hya Prakalper Meyod Sesh Hway 31 12 2016 Tarikhe Ack Aare Chakrir Meyad Sesh Habe Abyahatipatre Parabarti Niyoger Koun Bishayao Ullekh Kara Hayani Erapar Koun Prakar Niyog Bigyapti Chharai Noor Khan Taur Pachchhanda Anujayi Karmi Niyog Than Nahid Shamas Abhijog Kare Baleno Noor Khan Jader Niyog Diyechhen Tader Madhye Tin John Achhen Jara Chhatai Hwa Karmider Tulnay Siksha Kajer Abhigyata O Purber Pada Anujayi Junior Chhilen Athos Tini Nahid Shamas 14 Bachhar Theke Ain Peshay Achhen Evan Niyog Powa Karmider Tulnay Kaj O Shikshagat Dik Theke Adhik Jogya Ekai Abhijog Curren Chhatai Hwa Arek Karmi Farhana Afaroj Abhijoger Vise Jante Chaile A Vise Taur Koun Mantabya Nei Janie Praktan Bharaprapta Nirbahi Parichalak Noor Khan Ain O Salish Kendre Jogajog Karate Baleno A Vise Ain O Salish Kendrer Earth O Prashasan Bibhager Parichalak Mu Mustafijur Rahaman Baleno Ain O Salish Kendrer Mato Enajiogulo Prakalpa Meyad Anujayi Chale Asaker Prakalpa Meyad Pass Bachhar Prakalpa Sesh Hway Karmider Kajer Meyadao Sesh Hayechhe Evan A Vise Karmiderke Tader Chakrir Meyad Sesh Hwar Ec Bachhar Age Ekabar O Tinmas Age Ekabar Reminder Dewa Hayechhe Karmi Chhatai O Bigyapti Chhara Niyoger Vise Tini Janan Ager Cheye Prakalpe Fander Pariman Anek Kamechhe Tai Kajer Paridhio Hras Peyechhe Fale Badhya Huye Karmi Chhatai Karate Hayechhe Are NATUN Kare Bahir Theke Koun Karmi Niyog Dewa Hayani Jehetu Karmaratader Madhya Theke Punray Niyog Dewa Hayechhe Tai Niyog Bigyaptir Prayojan Hayani Noor Khaner Ichchhanujayi Niyog Pradaner Abhijogke Bhittihin Dabi Kare Tini Baleno Punray Niyoger Xetre CHAR Sadasya Bishishta Eksikiutibh Kamiti Kare Tarapar Karmaratader Kaj Parjalochna Purbak Niyog Pradan Kara Hayechhe Tai Ekhane Ekajaner Issar Pratifalan Hwar Prashnai Othe Na Ain O Salish Kendrer Hefajate Magura Theke Dhaka Jawar Pathe Ec Narike Bass Theke Astrer Mukhe Apaharan Karechhe Ekadal Jubak A Camay Hamlakarider Marpite Gurutar Ahat Hayechhen Ain O Salish Kendra Aare Ack Ec Nari Karmi Budhbar Magura Sadar Upajela Lakshmikandar Grame Dhaka Khulna Mahasarake A Ghatana Ghate Ble Pulish Janiyechhe Ahat Ain O Salish Kendra Aare Mathakarmi Shamchhunnaharke Magura Sadar Haspatale Bharti Kara Hayechhe Shamchhunnahar Sangbadikder Baleno Magura Shaharer Purba Parar Basinda Rakibul Islam Ripur Saptam Stri Taur Marpit O Nirjatan Sahya Karate Na Pere A Bachharer Shurur Dike Swamir Bari Theke Paliye Jan Tini Janan Gata 4 Marsa Tini Dhakar Lalmatiyay Asaker Shelter Home Ashraya Nen Itomadhye Taur Swamy Rakibul Magura Sadar Thanay Taur Stri Biruddhe Churi O Byabhicharer Mamla Curren AE Mamlar Asami Hisebe Magura Sadar Thaana Pulish Mangalabar 6 Marsa Taur Strike Asaker Shelter Home Theke Magura Niye Ase Asaker Pratinidhi O Jimmadar Hisebe Tinio We Narir Sange Magura Asen Ble Shamsunnahar Janan Tini RO Janan Budhbar Dupure We Narike Adalate Haazir Kara Hya Shamsunnahar Ainajibir Madhyame Taur Jamin Abedan Karale Adalat Jamin Manjur Kare Pare Taur Ichchhanujayi Adalat Take Asaker Jimmay Dey Shamsunnahar Janan Jamin Labher Par Pulish Hefajate Tara Bikal Sare 4tay Magura Bass Tarminal Theke Eagle Paribahaner Ekati Bace Othen Basti Magura Sadarer Lakshmikandar Paunchhale Ekati Maikrobas Samne Diye Bastike Thamano Hya Pare Ripur Netritbe 4 5 John Astradhari Bace Uthe Take O We Narike Marpit Kare Tene Hinchare Namiye Ney Ble Shamsunnahar Janan “tara Amake Pitiye Rastar Dhare Fele Rekhe We Narike Ekati Maikrobase Tule Niye Jay Pare Sthaniyara Amake Uddhar Kare Magura Sadar Haspatale Bharti Kare ” Sadar Thanar Paridarshak Kendra Tadanta Mahbub Al HASAN Baleno “asaker Pratinidhisah Apahrit Narike Tader Chahidanujayi Parjapta Pulishi Nirapatta Byabastha Dewa Hayechhil Tove Pathe Anakankshit Ghatana Ghatechhe ” Ejanya Dayider Biruddhe Ainanug Byabastha Newa Hachchhe Pulish Apahrit Narike Uddhar O Apaharanakarider Greptarer Cheshta Karachhe Ble Paridarshak Mahbub Janan
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ মানবাধিকার ও আইন সহায়তাকারী বেসরকারি সংগঠন। প্রতিষ্ঠা ১৯৮৬। শুরুতে আসক ঢাকা শহরের সুবিধাবঞ্চিত ও দরিদ্র নারী, কর্মজীবী শিশু এবং শ্রমিকদের বিনামূল্যে আইনি সহায়তা প্রদান করে। এরপর গত পঁচিশ বছরে প্রতিষ্ঠানটি মানবাধিকার সংরক্ষণ ও উন্নয়নে অনেক কর্মকৌশল রচনা করে। আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ এই কর্মকৌশলগুলোর মধ্যে রয়েছে মানবাধিকার বিষয়ে সচেতনতা তৈরি, সালিশ ও মামলার মাধ্যমে আইনি সহায়তা প্রদান, মানবাধিকার লঙ্ঘনের তথ্য সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও মানবাধিকার গবেষণা, জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার সাহায্যে আইন ও নীতি সংস্কারের প্রয়াস এবং গণমাধ্যম ও নিজস্ব প্রকাশনার মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য প্রদান। আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার, বিচারের অপেক্ষায় কারাবাস, রাষ্ট্রীয় হেফাজতে মৃত্যু ও নির্যাতনের ঘটনা, বস্তি উচ্ছেদ, বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড, পুলিশী নির্যাতন ও রাজনৈতিক নিপীড়নের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া ও রাষ্ট্রের উপর চাপ সৃষ্টি আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ করা আসক-এর কাজ। এছাড়া আসক মানবাধিকার লঙ্ঘন-এর শিকার ব্যক্তিদের সহায়তা প্রদান করে থাকে।
Romanized Version
আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ মানবাধিকার ও আইন সহায়তাকারী বেসরকারি সংগঠন। প্রতিষ্ঠা ১৯৮৬। শুরুতে আসক ঢাকা শহরের সুবিধাবঞ্চিত ও দরিদ্র নারী, কর্মজীবী শিশু এবং শ্রমিকদের বিনামূল্যে আইনি সহায়তা প্রদান করে। এরপর গত পঁচিশ বছরে প্রতিষ্ঠানটি মানবাধিকার সংরক্ষণ ও উন্নয়নে অনেক কর্মকৌশল রচনা করে। আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ এই কর্মকৌশলগুলোর মধ্যে রয়েছে মানবাধিকার বিষয়ে সচেতনতা তৈরি, সালিশ ও মামলার মাধ্যমে আইনি সহায়তা প্রদান, মানবাধিকার লঙ্ঘনের তথ্য সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও মানবাধিকার গবেষণা, জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার সাহায্যে আইন ও নীতি সংস্কারের প্রয়াস এবং গণমাধ্যম ও নিজস্ব প্রকাশনার মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য প্রদান। আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার, বিচারের অপেক্ষায় কারাবাস, রাষ্ট্রীয় হেফাজতে মৃত্যু ও নির্যাতনের ঘটনা, বস্তি উচ্ছেদ, বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড, পুলিশী নির্যাতন ও রাজনৈতিক নিপীড়নের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া ও রাষ্ট্রের উপর চাপ সৃষ্টি আইন ও সালিশ কেন্দ্র নিয়োগ করা আসক-এর কাজ। এছাড়া আসক মানবাধিকার লঙ্ঘন-এর শিকার ব্যক্তিদের সহায়তা প্রদান করে থাকে।Ain O Salish Kendra Niyog Manbadhikar O Ain Sahaytakari Besarakari Sangathan Pratishtha 1986 Shurute Ack Dhaka Shaharer Subidhabanchit O Daridra Nari Karmajibi Sishu Evan Shramikder Binamulye Aini Sahayata Pradan Kare Erapar Gata Panchish Bachhare Pratishthanati Manbadhikar Sangrakshan O Unnayane Anek Karmakaushal Rachana Kare Ain O Salish Kendra Niyog AE Karmakaushalagulor Madhye Rayechhe Manbadhikar Bishye Sachetanata Tairi Salish O Mamlar Madhyame Aini Sahayata Pradan Manbadhikar Langhaner Tathya Sangrah Sangrakshan O Manbadhikar Gabeshana Janaswarthasangshlishta Mamlar Sahajye Ain O Niti Sanskarer Prayas Evan Ganamadhyam O Nijaswa Prakashnar Madhyame Bistarit Tathya Pradan Ain O Salish Kendra Niyog Vinaa Parwanay Grefatar Bicharer Apekshay Karabas Rashtriya Hefajate Mrityu O Nirjataner Ghatana Basti Uchchhed Bicharabahirbhut Hatyakand Pulishi Nirjatan O Rajnaitik Nipirner Biruddhe Sochchar Hwa O Rashtrer Upar Chap Srishti Ain O Salish Kendra Niyog Kara Ack Aare Kaj Echhara Ack Manbadhikar Langhan Aare Shikar Byaktider Sahayata Pradan Kare Thake
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Ain O Salish Kendra Niyog Somporke Alochana Kor ,Discuss The Appointment Of Law And Arbitration Centers?,


vokalandroid