বাংলায় তুর্কি শব্দ অর্থ কি? ...

বাংলায় তুর্কি শব্দ তুর্কি, জাতি তেরো শতকের প্রারম্ভে প্রথম মুসলিম বিজেতা বখতিয়ার খলজীর সঙ্গে বাংলায় তুর্কিদের আগমন ঘটে। বখতিয়ার খলজী ছিলেন তুর্কি জাতির খলজী গোত্রসম্ভূত। এঁরা সিস্তানের পূর্ব সীমান্তের গড়মসির নামক স্থানে বসতি স্থাপন করেন। বর্তমানে স্থানটির নাম দাশ্ত-ই-মার্গো।যখতিয়ার ও অন্যান্য তুর্কিরা উন্নততর জীবিকার সন্ধানে জন্মভূমি ছেড়ে বেরিয়ে পড়েন। গৌড় (লক্ষ্মণাবতী) ও তার পার্শ্ববর্তী রাজ্যসমূহে মুসলিম অধিকার প্রতিষ্ঠার পর বখতিয়ার খলজী শাসনকার্যের সুবিধার জন্য তাঁর অধীনস্থ রাজ্যকে কয়েকটি ইকতায় বিভক্ত করেন এবং তিনজন প্রতিনিধির ওপর এগুলির শাসনভার ন্যস্ত করেন। এঁরা ছিলেন আলী মর্দান খলজী, মুহম্মদ শিরাণ খলজী ও হুসামউদ্দীন ইওজ খলজী। এছাড়া তিনি মুসলিম সমাজ বিকাশেও কতিপয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। এসবের মধ্যে ছিল মসজিদ, মাদ্রাসা এবং সুফি সাধকদের জন্য খানকাহ প্রতিষ্ঠা। বখতিয়ার খলজীর মৃত্যুর পর তাঁর তিন সেনাপতি মুহম্মদ শিরাণ খলজী, আলী মর্দান খলজী ও হুসামউদ্দীন ইওজ খলজীর মধ্যে ক্ষমতার দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। এঁরা একের পর এক ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন। এ খলজী মালিকদের মধ্যে হুসামউদ্দীন ইওজ খলজী ছিলেন সবচেয়ে সফল শাসক। তিনি ছিলেন শান্ত, সুচতুর, বিচক্ষণ ও তীক্ষ্ণ বিচারবুদ্ধিসম্পন্ন। ১২১২ খ্রিস্টাব্দে ক্ষমতা গ্রহণের পর তিনি সুলতান গিয়াসউদ্দীন ইওজ খলজী উপাধি ধারণ করেন। তিনি বেশ কিছু জনকল্যাণমূলক কাজ করেন যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল মহাসড়ক নির্মাণ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ। কৌশলগত কারণে তিনি একটি দুর্গ নির্মাণ ও একটি নৌবহর গড়ে তোলেন।বাংলা যখন খলজীদের শাসনাধীনে তখন ইলবারি তুর্কিগণ দিল্লিতে রাজত্ব করছিলেন। তাঁরা লক্ষ্মণাবতীতে খলজী সার্বভৌমত্বকে সুনজরে দেখেন নি। সুলতান শামসুদ্দীন ইলতুৎমিশ ছিলেন ইলবারি তুর্কি। তিনি লক্ষমণাবতীর স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেন নি। ১২২৭ খ্রিস্টাব্দে তিনি ইওজ খলজীকে পরাজিত করে লক্ষ্মণাবতী দিল্লি সালতানাতের অন্তর্ভুক্ত করেন। খলজীরা তাদের ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে ব্যর্থ হয়। পরবর্তী ষাট বছর লক্ষ্মণাবতী শাসন করেন দিল্লির ইলবারিগণ। ১২৩৬ খ্রিস্টাব্দে ইলতুৎমিশের মৃত্যুর পর তুর্কি অভিজাতগণ ক্ষমতাশালী হয়ে ওঠেন এবং সুলতানগণ তাঁদের হাতের ক্রীড়নকে পরিণত হন। দিল্লি থেকে প্রেরিত বাংলার গভর্নরগণ ছিলেন তুর্কি অভিজাত শ্রেণিভুক্ত। তাঁরা সকলেই ছিলেন উচ্চাভিলাষী। কখনও কখনও তাঁরা লক্ষ্মণাবতীর ক্ষমতা দখলের জন্য একে অন্যের বিরুদ্ধে লড়াই করেন। ফলে লক্ষ্মণাবতীর মুসলিম রাজ্যের সম্প্রসারণ ব্যাহত হয়। দিল্লির সুলতান গিয়াসউদ্দীন বলবন এর মৃত্যুর (১২৮৭) পর কলহ আরও চরমে পৌঁছে। এ সুযোগে ১২৯০ খ্রিস্টাব্দে জালালুদ্দীন ফিরুজ শাহের নেতৃত্বে খলজীগণ দিল্লির সিংহাসন অধিকার করেন। বলবনের পুত্র বুগরা খান বাংলায় স্বাধীনতা ঘোষণা করে সুলতান নাসিরুদ্দীন মাহমুদ উপাধি গ্রহণ করেন। এভাবেই দিল্লিতে ইলবারি তুর্কিরা ক্ষমতা হারান এবং খলজীগণ তা দখল করেন। অন্যদিকে ইলবারিগণ বাংলার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন।১২৯০ থেকে ১৩২৪ খ্রিস্টাব্দের মধ্যবর্তী সময় বাংলার মুসলিম রাজ্য সাতগাঁও, সোনারগাঁও, ময়মনসিংহ ও সিলেট পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। ১৩২৪ খ্রিস্টাব্দে দিল্লির সুলতান গিয়াসউদ্দীন তুগলক এক অভিযান চালিয়ে লক্ষমণাবতী দখল করেন। বাংলায় তুগলক (কারাউনা তুর্কি) শাসন ১৩৩৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বহাল ছিল। ১৩৩৮ খ্রিস্টাব্দে ফখরুদ্দীন মুবারক শাহ সোনারগাঁয়ে স্বাধীন রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেন। দিল্লি সাম্রাজ্যের অন্যান্য অংশে সুলতান মুহম্মদ বিন তুগলকের ব্যস্ততার সুযোগ নিয়ে আলাউদ্দীন আলী শাহ লক্ষ্মণাবতীতে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। অবশেষে সিজিস্তান থেকে আগত তুর্কি ভাগ্যান্বেষী হাজী ইলিয়াস লক্ষ্মণাবতীর সিংহাসন দখল করে সুলতান শামসুদ্দীন ইলিয়াস শাহ উপাধি ধারণ করেন। তাঁর সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার সঙ্গে সঙ্গে বাংলায় তুর্কি শাসনের নবযুগের সূচনা হয়। ইলিয়াস শাহ সমগ্র বাংলা স্বীয় অধিকারে আনেন এবং লক্ষ্মণাবতী রাজ্যকে বাঙ্গালাহ রাজ্যে রূপান্তরিত করেন। বাংলায় ইলিয়াস শাহ ও তাঁর উত্তরাধিকারীদের রাজত্বকাল ১৪৮৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। এর মধ্যবর্তী ২৩ বছর (১৪১২ থেকে ১৪৩৫ খ্রি.) রাজা গণেশ ও তাঁর উত্তরাধিকারীগণ ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ছিলেন। ইলিয়াস শাহী বংশের সর্বশেষ সুলতান জালালুদ্দীন ফতেহ শাহ তাঁর হাবশী ক্রীতদাস কর্তৃক নিহত হলে বাংলায় তুর্কি শাসনের অবসান ঘটে। হাবশীরা স্বল্প সময়ের জন্য ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ছিলেন। সুলতান আলাউদ্দীন হোসেন শাহ তাদের ক্ষমতাচ্যূত করেন। তিনি ছিলেন সৈয়দ বংশীয়। ১৫৩৮ খ্রিস্টাব্দে শেরশাহ এর ক্ষমতা দখলের ফলে হোসেন শাহী রাজবংশের পতন ঘটে এবং বাংলায় স্বাধীন সুলতানি আমলের অবসান হয়। আফগানরা বাংলা শাসন করেন ১৫৭৬ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত। তারপর শুরু হয় মুগল শাসন।
Romanized Version
বাংলায় তুর্কি শব্দ তুর্কি, জাতি তেরো শতকের প্রারম্ভে প্রথম মুসলিম বিজেতা বখতিয়ার খলজীর সঙ্গে বাংলায় তুর্কিদের আগমন ঘটে। বখতিয়ার খলজী ছিলেন তুর্কি জাতির খলজী গোত্রসম্ভূত। এঁরা সিস্তানের পূর্ব সীমান্তের গড়মসির নামক স্থানে বসতি স্থাপন করেন। বর্তমানে স্থানটির নাম দাশ্ত-ই-মার্গো।যখতিয়ার ও অন্যান্য তুর্কিরা উন্নততর জীবিকার সন্ধানে জন্মভূমি ছেড়ে বেরিয়ে পড়েন। গৌড় (লক্ষ্মণাবতী) ও তার পার্শ্ববর্তী রাজ্যসমূহে মুসলিম অধিকার প্রতিষ্ঠার পর বখতিয়ার খলজী শাসনকার্যের সুবিধার জন্য তাঁর অধীনস্থ রাজ্যকে কয়েকটি ইকতায় বিভক্ত করেন এবং তিনজন প্রতিনিধির ওপর এগুলির শাসনভার ন্যস্ত করেন। এঁরা ছিলেন আলী মর্দান খলজী, মুহম্মদ শিরাণ খলজী ও হুসামউদ্দীন ইওজ খলজী। এছাড়া তিনি মুসলিম সমাজ বিকাশেও কতিপয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। এসবের মধ্যে ছিল মসজিদ, মাদ্রাসা এবং সুফি সাধকদের জন্য খানকাহ প্রতিষ্ঠা। বখতিয়ার খলজীর মৃত্যুর পর তাঁর তিন সেনাপতি মুহম্মদ শিরাণ খলজী, আলী মর্দান খলজী ও হুসামউদ্দীন ইওজ খলজীর মধ্যে ক্ষমতার দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। এঁরা একের পর এক ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন। এ খলজী মালিকদের মধ্যে হুসামউদ্দীন ইওজ খলজী ছিলেন সবচেয়ে সফল শাসক। তিনি ছিলেন শান্ত, সুচতুর, বিচক্ষণ ও তীক্ষ্ণ বিচারবুদ্ধিসম্পন্ন। ১২১২ খ্রিস্টাব্দে ক্ষমতা গ্রহণের পর তিনি সুলতান গিয়াসউদ্দীন ইওজ খলজী উপাধি ধারণ করেন। তিনি বেশ কিছু জনকল্যাণমূলক কাজ করেন যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল মহাসড়ক নির্মাণ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ। কৌশলগত কারণে তিনি একটি দুর্গ নির্মাণ ও একটি নৌবহর গড়ে তোলেন।বাংলা যখন খলজীদের শাসনাধীনে তখন ইলবারি তুর্কিগণ দিল্লিতে রাজত্ব করছিলেন। তাঁরা লক্ষ্মণাবতীতে খলজী সার্বভৌমত্বকে সুনজরে দেখেন নি। সুলতান শামসুদ্দীন ইলতুৎমিশ ছিলেন ইলবারি তুর্কি। তিনি লক্ষমণাবতীর স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেন নি। ১২২৭ খ্রিস্টাব্দে তিনি ইওজ খলজীকে পরাজিত করে লক্ষ্মণাবতী দিল্লি সালতানাতের অন্তর্ভুক্ত করেন। খলজীরা তাদের ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে ব্যর্থ হয়। পরবর্তী ষাট বছর লক্ষ্মণাবতী শাসন করেন দিল্লির ইলবারিগণ। ১২৩৬ খ্রিস্টাব্দে ইলতুৎমিশের মৃত্যুর পর তুর্কি অভিজাতগণ ক্ষমতাশালী হয়ে ওঠেন এবং সুলতানগণ তাঁদের হাতের ক্রীড়নকে পরিণত হন। দিল্লি থেকে প্রেরিত বাংলার গভর্নরগণ ছিলেন তুর্কি অভিজাত শ্রেণিভুক্ত। তাঁরা সকলেই ছিলেন উচ্চাভিলাষী। কখনও কখনও তাঁরা লক্ষ্মণাবতীর ক্ষমতা দখলের জন্য একে অন্যের বিরুদ্ধে লড়াই করেন। ফলে লক্ষ্মণাবতীর মুসলিম রাজ্যের সম্প্রসারণ ব্যাহত হয়। দিল্লির সুলতান গিয়াসউদ্দীন বলবন এর মৃত্যুর (১২৮৭) পর কলহ আরও চরমে পৌঁছে। এ সুযোগে ১২৯০ খ্রিস্টাব্দে জালালুদ্দীন ফিরুজ শাহের নেতৃত্বে খলজীগণ দিল্লির সিংহাসন অধিকার করেন। বলবনের পুত্র বুগরা খান বাংলায় স্বাধীনতা ঘোষণা করে সুলতান নাসিরুদ্দীন মাহমুদ উপাধি গ্রহণ করেন। এভাবেই দিল্লিতে ইলবারি তুর্কিরা ক্ষমতা হারান এবং খলজীগণ তা দখল করেন। অন্যদিকে ইলবারিগণ বাংলার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন।১২৯০ থেকে ১৩২৪ খ্রিস্টাব্দের মধ্যবর্তী সময় বাংলার মুসলিম রাজ্য সাতগাঁও, সোনারগাঁও, ময়মনসিংহ ও সিলেট পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। ১৩২৪ খ্রিস্টাব্দে দিল্লির সুলতান গিয়াসউদ্দীন তুগলক এক অভিযান চালিয়ে লক্ষমণাবতী দখল করেন। বাংলায় তুগলক (কারাউনা তুর্কি) শাসন ১৩৩৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বহাল ছিল। ১৩৩৮ খ্রিস্টাব্দে ফখরুদ্দীন মুবারক শাহ সোনারগাঁয়ে স্বাধীন রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেন। দিল্লি সাম্রাজ্যের অন্যান্য অংশে সুলতান মুহম্মদ বিন তুগলকের ব্যস্ততার সুযোগ নিয়ে আলাউদ্দীন আলী শাহ লক্ষ্মণাবতীতে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। অবশেষে সিজিস্তান থেকে আগত তুর্কি ভাগ্যান্বেষী হাজী ইলিয়াস লক্ষ্মণাবতীর সিংহাসন দখল করে সুলতান শামসুদ্দীন ইলিয়াস শাহ উপাধি ধারণ করেন। তাঁর সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার সঙ্গে সঙ্গে বাংলায় তুর্কি শাসনের নবযুগের সূচনা হয়। ইলিয়াস শাহ সমগ্র বাংলা স্বীয় অধিকারে আনেন এবং লক্ষ্মণাবতী রাজ্যকে বাঙ্গালাহ রাজ্যে রূপান্তরিত করেন। বাংলায় ইলিয়াস শাহ ও তাঁর উত্তরাধিকারীদের রাজত্বকাল ১৪৮৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। এর মধ্যবর্তী ২৩ বছর (১৪১২ থেকে ১৪৩৫ খ্রি.) রাজা গণেশ ও তাঁর উত্তরাধিকারীগণ ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ছিলেন। ইলিয়াস শাহী বংশের সর্বশেষ সুলতান জালালুদ্দীন ফতেহ শাহ তাঁর হাবশী ক্রীতদাস কর্তৃক নিহত হলে বাংলায় তুর্কি শাসনের অবসান ঘটে। হাবশীরা স্বল্প সময়ের জন্য ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত ছিলেন। সুলতান আলাউদ্দীন হোসেন শাহ তাদের ক্ষমতাচ্যূত করেন। তিনি ছিলেন সৈয়দ বংশীয়। ১৫৩৮ খ্রিস্টাব্দে শেরশাহ এর ক্ষমতা দখলের ফলে হোসেন শাহী রাজবংশের পতন ঘটে এবং বাংলায় স্বাধীন সুলতানি আমলের অবসান হয়। আফগানরা বাংলা শাসন করেন ১৫৭৬ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত। তারপর শুরু হয় মুগল শাসন। Banglay Turki Shabd Turki JATI Tero Shataker Prarambhe Pratham Muslim Bijeta Bakhatiyar Khalajir Sange Banglay Turkider Aagman Ghate Bakhatiyar Khalaji Chhilen Turki Jatir Khalaji Gotrasambhut Enra Sistaner Purba Simanter Garamasir Namak Sthane Basati Sthapan Curren Bartamane Sthanatir NAM Dashta E Margo Jakhatiyar O Anyanya Turkira Unnatatar Jibikar Sandhane Janmabhumi Chhere Beriye Paren Gaur Lakshmanabti O Taur Parshwabarti Rajyasamuhe Muslim Adhikar Pratishthar Par Bakhatiyar Khalaji Shasanakarjer Subidhar Janya Tanr Adhinastha Rajyake Kayekati Ikatay Bibhakta Curren Evan Tinajan Pratinidhir Opar Egulir Shasanabhar Nyasta Curren Enra Chhilen Ali Mardan Khalaji Muhammed Shiran Khalaji O Husamauddin Ioj Khalaji Echhara Tini Muslim Samaj Bikasheo Katipay Padakshep Grahan Curren Esaber Madhye Chhil Masajid Madrasa Evan Sufi Sadhakader Janya Khankah Pratishtha Bakhatiyar Khalajir Mrityur Par Tanr Tin SENAPATI Muhammed Shiran Khalaji Ali Mardan Khalaji O Husamauddin Ioj Khalajir Madhye Xamatar Dwandwa Srishti Hay Enra Eker Par Ec Xamatay Adhishthit Hahn A Khalaji Malikder Madhye Husamauddin Ioj Khalaji Chhilen Sabacheye Safal Shasak Tini Chhilen Shanta Suchtur Bichakshan O Tikshna Bicharbuddhisampanna 1212 Khristabde Xamata Grahaner Par Tini Sultan Giyasauddin Ioj Khalaji Upadhi Dharan Curren Tini Bash Kichhu Janakalyanamulak Kaj Curren Jar Madhye Ullekhajogya Chhil Mahasarak Nirman O Banya Niyantran Kaushalagat Karne Tini Ekati Durg Nirman O Ekati Naubahar Gare Tolen Bangla Jakhan Khalajider Shasnadhine Takhan Ilabari Turkigan Dillite Rajatba Karachhilen Tanra Lakshmanabtite Khalaji Sarbabhaumatbake Sunajare Dekhen Ni Sultan Shamsuddin Ilatutmish Chhilen Ilabari Turki Tini Lakshamanabtir Swadhinata Mene Nite Paren Ni 1227 Khristabde Tini Ioj Khalajike Parajit Kare Lakshmanabti Dilli Saltanater Antarbhukta Curren Khalajira Tader Xamata Punruddhare Byartha Hay Parabarti Saat Bachhar Lakshmanabti Hasn Curren Dillir Ilabarigan 1236 Khristabde Ilatutmisher Mrityur Par Turki Abhijatagan Xamatashali Haye Othen Evan Sultanagan Tander Hater Kriranake Parinat Hahn Dilli Theke Prerit Banglar Gabharnaragan Chhilen Turki Abhijat Shrenibhukta Tanra Sakalei Chhilen Uchchabhilashi Kakhanao Kakhanao Tanra Lakshmanabtir Xamata Dakhaler Janya Aka Anyer Biruddhe Larai Curren Fale Lakshmanabtir Muslim Rajyer Samprasaran Byahat Hay Dillir Sultan Giyasauddin Balaban Aare Mrityur 1287 Par Kolah RO Charame Paunchhe A Sujoge 1290 Khristabde Jalaluddin Firuj Shaher Netritbe Khalajigan Dillir Singhasan Adhikar Curren Balabaner Putra Bugra Khan Banglay Swadhinata Ghoshna Kare Sultan Nasiruddin Mahmud Upadhi Grahan Curren Ebhabei Dillite Ilabari Turkira Xamata Haran Evan Khalajigan Ta Dakhal Curren Anyadike Ilabarigan Banglar Xamatay Adhishthit Hahn 1290 Theke 1324 Khristabder Madhyabarti Samay Banglar Muslim Rajya Satagaon Sonaragaon Mayamanasingh O Silet Parjanta Bistrita Hay 1324 Khristabde Dillir Sultan Giyasauddin Tugalak Ec Abhijan Chaliye Lakshamanabti Dakhal Curren Banglay Tugalak Karauna Turki Hasn 1338 Khristabda Parjanta Bahal Chhil 1338 Khristabde Fakhruddin Mubarak Shah Sonaraganye Sweden Rajatba Pratishtha Curren Dilli Samrajyer Anyanya Angshe Sultan Muhammed Binh Tugalaker Byastatar Sujog Niye Alauddin Ali Shah Lakshmanabtite Swadhinata Ghoshna Curren Abasheshe Sijistan Theke Agatha Turki Bhagyanweshi Hazy Iliyas Lakshmanabtir Singhasan Dakhal Kare Sultan Shamsuddin Iliyas Shah Upadhi Dharan Curren Tanr Sarbabhaumatba Pratishthar Sange Sange Banglay Turki Shasner Nabajuger Suchna Hay Iliyas Shah Samagra Bangla Swiya Adhikare Anen Evan Lakshmanabti Rajyake Bangalah Rajye Rupantarit Curren Banglay Iliyas Shah O Tanr Uttaradhikarider Rajatbakal 1487 Khristabda Parjanta Sthayi Chhil Aare Madhyabarti 23 Bachhar 1412 Theke 1435 Khri Raja Ganesh O Tanr Uttaradhikarigan Xamatay Adhishthit Chhilen Iliyas Shahi Bangsher Sarbashesh Sultan Jalaluddin Fateh Shah Tanr Habshi Kritadas Kartrik Nihat Hale Banglay Turki Shasner Abasan Ghate Habshira Swalpa Samayer Janya Xamatay Adhishthit Chhilen Sultan Alauddin Hossain Shah Tader Xamatachyut Curren Tini Chhilen Saiyad Bangshiya 1538 Khristabde Shershah Aare Xamata Dakhaler Fale Hossain Shahi Rajabangsher Patna Ghate Evan Banglay Sweden Sultani Amaler Abasan Hay Afaganra Bangla Hasn Curren 1576 Khristabda Parjanta Tarapar Shuru Hay Mughal Hasn
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


বাংলায় তুর্কি শব্দ অর্থ তুর্কি বিশ্বের প্রায় ৭ কোটি মানুষের মুখের ভাষা। এটি মূলত তুরস্কে কথিত হয়, তবে সাইপ্রাস, গ্রিস, ও পূর্ব ইউরোপের বহু দেশে তুর্কীভাষী সম্প্রদায় আছে। এছাড়াও পশ্চিম ইউরোপে, বিশেষত জার্মানিতে একাধিক মিলিয়ন অভিবাসীর মুখের ভাষা তুর্কি। এটি তুর্কীয় ভাষাগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি কথিত ভাষা।তুর্কি ভাষার জন্ম মধ্য এশিয়ায়। সেখানে ভাষাটির ১২০০ বছর আগে লেখা নমুনা খুঁজে পাওয়া গেছে। উসমানীয় সাম্রাজ্যের বিস্তারের সাথে সাথে পাশ্চাত্যে উসমানীয় তুর্কি ভাষার প্রভাব বৃদ্ধি পায়। উসমানীয় তুর্কি ছিল বর্তমান আধুনিক তুর্কি ভাষার পূর্বসুরি। ১৯২৮ সালে কামাল আতাতুর্কের বিভিন্ন সংস্কারমূলক কাজের একটি হিসেবে উসমানীয় তুর্কি লিপিকে একটি ধ্বনিমূলক লাতিন বর্ণমালা দিয়ে প্রতিস্থাপিত করা হয়। একই সাথে নবগঠিত তুর্কি ভাষা সংগঠন
Romanized Version
বাংলায় তুর্কি শব্দ অর্থ তুর্কি বিশ্বের প্রায় ৭ কোটি মানুষের মুখের ভাষা। এটি মূলত তুরস্কে কথিত হয়, তবে সাইপ্রাস, গ্রিস, ও পূর্ব ইউরোপের বহু দেশে তুর্কীভাষী সম্প্রদায় আছে। এছাড়াও পশ্চিম ইউরোপে, বিশেষত জার্মানিতে একাধিক মিলিয়ন অভিবাসীর মুখের ভাষা তুর্কি। এটি তুর্কীয় ভাষাগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি কথিত ভাষা।তুর্কি ভাষার জন্ম মধ্য এশিয়ায়। সেখানে ভাষাটির ১২০০ বছর আগে লেখা নমুনা খুঁজে পাওয়া গেছে। উসমানীয় সাম্রাজ্যের বিস্তারের সাথে সাথে পাশ্চাত্যে উসমানীয় তুর্কি ভাষার প্রভাব বৃদ্ধি পায়। উসমানীয় তুর্কি ছিল বর্তমান আধুনিক তুর্কি ভাষার পূর্বসুরি। ১৯২৮ সালে কামাল আতাতুর্কের বিভিন্ন সংস্কারমূলক কাজের একটি হিসেবে উসমানীয় তুর্কি লিপিকে একটি ধ্বনিমূলক লাতিন বর্ণমালা দিয়ে প্রতিস্থাপিত করা হয়। একই সাথে নবগঠিত তুর্কি ভাষা সংগঠন Banglay Turki Shabd Earth Turki Bishwer Pray 7 Koti Manusher Mukher Bhasha AT Mulat Turaske Kathit Hay Tove Saipras Grish O Purba Yuroper Bahu Deshe Turkibhashi Sampraday Ache Echharao Pashchim Yurope Bisheshat Jarmanite Ekadhik Miliyan Abhibasir Mukher Bhasha Turki AT Turkiya Bhashagulir Madhye Sabacheye Bedshee Kathit Bhasha Turki Bhashar Janma Madhya Eshiyay Sekhane Bhashatir 1200 Bachhar Age Lekha Namuna Khunje Pawa Gechhe Usamaniya Samrajyer Bistarer Sathe Sathe Pashchatye Usamaniya Turki Bhashar Prabhab Briddhi Pay Usamaniya Turki Chhil Bartaman Adhunik Turki Bhashar Purbasuri 1928 Sale Kamal Ataturker Bibhinna Sanskaramulak Kajer Ekati Hisebe Usamaniya Turki Lipike Ekati Dhbanimulak Latin Varnamala Diye Pratisthapit Kara Hay Ekai Sathe Nabagathit Turki Bhasha Sangathan
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Banglay Turkey Shabd Earth Ki,What Does Turkish Mean In Bengal?,


vokalandroid