অশোকের ধর্মনীতি সম্বন্ধে কিছু লিখ। ...

দিব্যাবদান গ্রন্থনুসারে অশোক কয়েকজন ষড়যন্ত্রকারী মন্ত্রীদের দ্বারা শুরু করা বিদ্রোহ দমন করেন। বিন্দুসারের রাজত্বকালে অশোক উজ্জয়িনী নগরীর শাসনকর্তা অশোকের ধর্মনীতি হিসেবে দায়িত্বলাভ করেন। ২৭২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে বিন্দুসারের মৃত্যু হলে উত্তরাধিকারের প্রশ্নে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। অশোকের ধর্মনীতি ণ বিন্দুসার তাঁর অশোকের ধর্মনীতি অপর পুত্র সুসীমকে উত্তরাধিকারী হিসেবে চেয়েছিলেন, কিন্তু সুসীমকে উগ্র ও অহঙ্কারী চরিত্রের মানুষ হিসেবে বিবেচনা করে বিন্দুসারের মন্ত্রীরা অশোকের ধর্মনীতি অশোককে সমর্থন করেন। রাধাগুপ্ত নামক এক মন্ত্রী অশোকের সিংহাসনলাভের পক্ষে প্রধান সহায়ক হয়ে ওঠেন এবং পরবর্তীকালে তাঁর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। অশোক শঠতা করে সুসীমকে একটি জ্বলন্ত কয়লা ভর্তি গর্তে ফেলে দিয়ে হত্যা করেন। দীপবংশ ও মহাবংশ গ্রন্থানুসারে, বীতাশোক নামক একজন ভাইকে ছেড়ে অশোক বাকি নিরানব্বইজন ভাইকে হত্যা করেন, কিন্ত এখনো পর্য্যন্ত এই ঘটনার কোন ঐতিহাসিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ২৬৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে পিতার মৃত্যুর তিন বছর পরে অশোক মৌর্য্য সাম্রাজ্যের সিংহাসনে আরোহণ করেন।
Romanized Version
দিব্যাবদান গ্রন্থনুসারে অশোক কয়েকজন ষড়যন্ত্রকারী মন্ত্রীদের দ্বারা শুরু করা বিদ্রোহ দমন করেন। বিন্দুসারের রাজত্বকালে অশোক উজ্জয়িনী নগরীর শাসনকর্তা অশোকের ধর্মনীতি হিসেবে দায়িত্বলাভ করেন। ২৭২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে বিন্দুসারের মৃত্যু হলে উত্তরাধিকারের প্রশ্নে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। অশোকের ধর্মনীতি ণ বিন্দুসার তাঁর অশোকের ধর্মনীতি অপর পুত্র সুসীমকে উত্তরাধিকারী হিসেবে চেয়েছিলেন, কিন্তু সুসীমকে উগ্র ও অহঙ্কারী চরিত্রের মানুষ হিসেবে বিবেচনা করে বিন্দুসারের মন্ত্রীরা অশোকের ধর্মনীতি অশোককে সমর্থন করেন। রাধাগুপ্ত নামক এক মন্ত্রী অশোকের সিংহাসনলাভের পক্ষে প্রধান সহায়ক হয়ে ওঠেন এবং পরবর্তীকালে তাঁর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। অশোক শঠতা করে সুসীমকে একটি জ্বলন্ত কয়লা ভর্তি গর্তে ফেলে দিয়ে হত্যা করেন। দীপবংশ ও মহাবংশ গ্রন্থানুসারে, বীতাশোক নামক একজন ভাইকে ছেড়ে অশোক বাকি নিরানব্বইজন ভাইকে হত্যা করেন, কিন্ত এখনো পর্য্যন্ত এই ঘটনার কোন ঐতিহাসিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ২৬৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে পিতার মৃত্যুর তিন বছর পরে অশোক মৌর্য্য সাম্রাজ্যের সিংহাসনে আরোহণ করেন।Dibyabadan Granthanusare Ashok Kayekajan Sharajantrakari Mantrider Dwara Shuru Kara Bidroh Daman Curren Bindusarer Rajatbakale Ashok Ujjain Nagarir Shasanakarta Ashokar Dharmaniti Hisebe Dayitbalabh Curren 272 Khristapurbabde Bindusarer Mrityu Hale Uttaradhikarer Prashne Juddha Shuru Haye Jay Ashokar Dharmaniti N Bindusar Tanr Ashokar Dharmaniti Apr Putra Susimake Uttaradhikari Hisebe Cheyechhilen Kintu Susimake Ugra O Ahankari Charitrer Manus Hisebe Bibechana Kare Bindusarer Mantrira Ashokar Dharmaniti Ashokake Samarthan Curren Radhagupta Namak Ec Mantri Ashokar Singhasanalabher Pakshe Pradhan Sahayak Haye Othen Evan Parabartikale Tanr Pradhanamantri Hisebe Dayitba Palan Curren Ashok Shathata Kare Susimake Ekati Jbalanta Kayala Bharti Garte Fele Diye Hatya Curren Dipabangsh O Mahabangsh Granthanusare Bitashok Namak Ekajan Bhaike Chhere Ashok Bace Niranabbaijan Bhaike Hatya Curren Kinta Ekhano Parjyanta AE Ghatanar Koun Aitihasik Praman Pawa Jayni 269 Khristapurbabde Pitar Mrityur Tin Bachhar Pare Ashok Maurjya Samrajyer Singhasane Arohan Curren
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


অশোক (সংস্কৃত: अशोक) (৩০৪ খ্রিস্টপূর্ব-২৩২ খ্রিস্টপূর্ব) তৃতীয় মৌর্য্য সম্রাট ছিলেন[৩], যিনি বিন্দুসারের পর ২৬৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে সিংহাসন লাভ করেন এবং ভারতবর্ষের ইতিহাসে অন্যতম শ্রেষ্ঠ এই সম্রাট ২৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্য্যন্ত দাক্ষিণাত্যের কিছু অংশ বাদ দিয়ে ভারতবর্ষের অধিকাংশ অঞ্চল শাসন করেন। অশোকাবদান গ্রন্থানুসারে, অশোক দ্বিতীয় মৌর্য্য সম্রাট বিন্দুসার ও তাঁর দাসী চম্পা শহরের আজীবিক দার্শনিক মতবাদে বিশ্বাসী[৪] ব্রাহ্মণ বংশের নারী সুভদ্রাঙ্গীর পুত্র ছিলেন।[৫] দিব্যাবদান গ্রন্থে অশোকের মাতাকে জনপদকল্যাণী বলে উল্লেখ করা হয়েছে।[৬][৭] সিংহাসনলাভ দিব্যাবদান গ্রন্থনুসারে অশোক কয়েকজন ষড়যন্ত্রকারী মন্ত্রীদের দ্বারা শুরু করা বিদ্রোহ দমন করেন। বিন্দুসারের রাজত্বকালে অশোক উজ্জয়িনী নগরীর শাসনকর্তা হিসেবে দায়িত্বলাভ করেন।[৭] ২৭২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে বিন্দুসারের মৃত্যু হলে উত্তরাধিকারের প্রশ্নে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। বিন্দুসার তাঁর অপর পুত্র সুসীমকে উত্তরাধিকারী হিসেবে চেয়েছিলেন, কিন্তু সুসীমকে উগ্র ও অহঙ্কারী চরিত্রের মানুষ হিসেবে বিবেচনা করে বিন্দুসারের মন্ত্রীরা অশোককে সমর্থন করেন।[৮] রাধাগুপ্ত নামক এক মন্ত্রী অশোকের সিংহাসনলাভের পক্ষে প্রধান সহায়ক হয়ে ওঠেন এবং পরবর্তীকালে তাঁর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। অশোক শঠতা করে সুসীমকে একটি জ্বলন্ত কয়লা ভর্তি গর্তে ফেলে দিয়ে হত্যা করেন। দীপবংশ ও মহাবংশ গ্রন্থানুসারে, বীতাশোক নামক একজন ভাইকে ছেড়ে অশোক বাকি নিরানব্বইজন ভাইকে হত্যা করেন, কিন্ত এখনো পর্য্যন্ত এই ঘটনার কোন ঐতিহাসিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ২৬৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে পিতার মৃত্যুর তিন বছর পরে অশোক মৌর্য্য সাম্রাজ্যের সিংহাসনে আরোহণ করেন। খ্রিষ্টপূর্ব ৩০৪ অব্দে জন্মগ্রহণ করেন। সম্রাট বিন্দুসার-এর ঔরসে রানি ধর্মা (মতান্তরে সুভদ্রাঙ্গির) গর্ভে জন্মগ্রহণ করেন। উত্তর-ভারতের কিম্বদন্তী অনুসারে চম্পাদেশীয় রাজকন্যা 'সুভদ্রাঙ্গী' ছিলেন অশোকের মা। আর দক্ষিণ ভারতীয় কিম্বদন্তী অনুসারে তাঁর মায়ের নাম ছিল ধর্মা । তাঁর চারজন স্ত্রীর নাম পাওয়া যায়। এঁরা হলেন- তিশ্যারাক্ষ, পদ্মবতী, কারুভাকী, বিদিশা মাত্র ১৮ বৎসর বয়সে বিন্দুসার তাঁকে উজ্জ্বয়িনীর শাসনকর্তা নিয়োগ করেন। তক্ষশীলাবাসী রাজশক্তির অত্যাচরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করলে, তক্ষশীলায় বিদ্রোহ শুরু হলে বিন্দুসার তাঁকে বিদ্রোহ দমনের জন্য তাঁকে তক্ষশীলায় পাঠান। অশোক এই বিদ্রোহ দমন করতে সক্ষম হলে, তাঁকে তক্ষশীলার শাসনভার লাভ করেন। এই সময় তিনি মহাদেবীকে বিবাহ করেন। বিন্দুসার-এর অসুস্থতার খবর ছড়িয়ে পড়লে তাঁর পুত্রদের মধ্যে সিংহাসনের দখল নিয়ে রক্তাক্ত দ্বন্দ্ব শুরু হ্য়। বৌদ্ধ কিম্বদন্তী অনুসারে জানা যায়, বিন্দুসারের স্ত্রীর সংখ্যা ছিল ১৬টি এবং পুত্রের সংখ্যা ছিল ১০১টি। তাঁর মৃত্যুর তাঁর পুত্র অশোক অন্যান্য ভাইদের পরাজিত ও হত্যা করে সিংহাসন দখল করেছিলেন। সিংহলীয় উপাখ্যানসমূহে পাওয়া যায়, তিনি তাঁর ৯৮জন ভাইকে হত্যা করেছিলেন। এই জন্য তাঁকে চণ্ডশোক বলা হয়েছে। সিংহাসন দখলের পর, 'দেবানাম-প্রিয়-পিয়দাসী' অর্থাৎ 'দেবতাদের প্রিয় প্রিয়দর্শী' উপাধি ধারণ করেন। ধারণা করা হয় তিনি খ্রিষ্টপূর্ব ২৭৩ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে দিকে সিংহাসন লাভ করেছিলেন। কিন্তু তাঁর সম্রাট হিসেবে অভিষেক হয়েছিল খ্রিষ্টপূর্ব ২৬৯ অব্দের দিকে। অশোকের ধর্মনীতি ও ধর্ম প্রচার অশোক বৌদ্ধ এবং জৈন ধর্মের অনুরাগী ছিলেন। তবে তাঁর ধর্ম প্রচারণা এবং জীবনাদর্শ বৌদ্ধ ধর্ম প্রাধান্য পেয়েছিল। অশোক বিহারযাত্রার পরিবর্তে ধর্মযাত্রার প্রচলন করেছিলেন। তীর্থযাত্রার সাথে তিনি যুক্ত করেছিলেন শ্রমণদের উপহার দান, বুদ্ধের বাণী প্রচার এবং নানাবিধ উপদেশের মধ্য দিয়ে মানুষকে ধর্মভাবাপন্ন করার কার্যক্রম। সাধারণ মানুষকে বৌদ্ধ ধর্মে উদ্বুদ্ধ করার জন্য তিনি রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে (পাহাড়ের গায়ে, পাথরের স্তম্ভে, পর্বতগুহায়) বুদ্ধের বাণী এবং উপদেশ লিপিবদ্ধ করেছিলেন। ধর্মীয় প্রচারের জন্য তিনি রাজুক, যুত এবং মহাপাত্র নামক পদের সৃষ্টি করেছিলেন। এঁরা অশোকের ধর্মনীতি কে প্রচার করতেন। এছাড়া রাজকর্মচারীদের দ্বারা সাধারণ মানুষ যাতে নিগৃহীত না হয়, তার জন্য ধর্মমহাপাত্র নামক কর্মচারী নিয়োগ করেছিলেন। বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের মধ্যে সংহতি স্থাপনের জন্য এবং বৌদ্ধ সংঘসমূহের ভিতরে আন্তসম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য পাটালিপুত্র নগরে একটি বৌদ্ধ-সংগীতি (তৃতীয়-সংগীতি) আহ্বান করেন। বৌদ্ধ ধর্মের প্রচারের জন্য তিনি রাজপুত্র মহেন্দ্রকে সিংহল দ্বীপে পাঠিয়েছিলেন। অশোকের ধর্মনীতি ও ধর্ম প্রচারঃ অশোক বৌদ্ধ এবং জৈন ধম্রের অনুরাগী ছিলেন।তবে তাঁর ধর্ম প্রচারণা এবং জীবনাদর্শ বৌদ্ধ ধর্ম প্রাধান্য পেয়েছিল। অশোক বিহারযান্রার পরিবর্তে ধর্মযান্রার প্রচলন করেছিলেন। ।তীর্থযাক্রার সাথে তিনি যুত্তু করেছিলেন শ্রামণদের উপহার দান, বুদ্ধের বাণী প্রচার এবং নানাবিধ উপদেশের মধ্য দিয়ে মানুষকে ধর্মভাবাপন্ন করার কার্যক্রম। সাধারণ মানুষকে বৌদ্ধ ধর্মে উদ্বুদ্ধ করার জন্য তিনি রাজ্যের বিভিন্ন স্হানে (পাহাড়ের গায়ে, পাথরের স্তমম্ভে, পবর্তগুহায়)বুদ্ধের বাণী এবং উপদেশে লিপিবদ্ধ করেছিলেন।ধর্মীয় প্রচারের জন্য তিনি রাজুক, যুত এবং মহাপান্র নামক পদের সৃষ্টি করেছিলেন।এরাঁ অশোকের ধর্মনীতি কে প্রচার করতেন।এছাড়া রাজর্মচারীদের দ্বারা সাধারণ মানুষ যাতে নিগৃহীত না হয়।তার জন্য ধর্মমহাপান্র নামক কর্মচারী নিয়োগ করেছিলেন। বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের মধ্যে সংহতি স্থাপনের জন্য এবং বৌদ্ধ সংঘসমূহের ভিতরে আন্তসম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য পাটলিপুত্র নগরে একটি বৌদ্ধ সংগীতি অর্থাৎ তৃতীয় সংগীতি আহ্বান করেন। বৌদ্ধ ধর্ম ধর্মনীতি প্রচারের জন্য তিনি রাজপুত্র মহেন্দ্রকে সিংহল দ্বীপে পাটিয়েছিলেন।
Romanized Version
অশোক (সংস্কৃত: अशोक) (৩০৪ খ্রিস্টপূর্ব-২৩২ খ্রিস্টপূর্ব) তৃতীয় মৌর্য্য সম্রাট ছিলেন[৩], যিনি বিন্দুসারের পর ২৬৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে সিংহাসন লাভ করেন এবং ভারতবর্ষের ইতিহাসে অন্যতম শ্রেষ্ঠ এই সম্রাট ২৩২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্য্যন্ত দাক্ষিণাত্যের কিছু অংশ বাদ দিয়ে ভারতবর্ষের অধিকাংশ অঞ্চল শাসন করেন। অশোকাবদান গ্রন্থানুসারে, অশোক দ্বিতীয় মৌর্য্য সম্রাট বিন্দুসার ও তাঁর দাসী চম্পা শহরের আজীবিক দার্শনিক মতবাদে বিশ্বাসী[৪] ব্রাহ্মণ বংশের নারী সুভদ্রাঙ্গীর পুত্র ছিলেন।[৫] দিব্যাবদান গ্রন্থে অশোকের মাতাকে জনপদকল্যাণী বলে উল্লেখ করা হয়েছে।[৬][৭] সিংহাসনলাভ দিব্যাবদান গ্রন্থনুসারে অশোক কয়েকজন ষড়যন্ত্রকারী মন্ত্রীদের দ্বারা শুরু করা বিদ্রোহ দমন করেন। বিন্দুসারের রাজত্বকালে অশোক উজ্জয়িনী নগরীর শাসনকর্তা হিসেবে দায়িত্বলাভ করেন।[৭] ২৭২ খ্রিস্টপূর্বাব্দে বিন্দুসারের মৃত্যু হলে উত্তরাধিকারের প্রশ্নে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। বিন্দুসার তাঁর অপর পুত্র সুসীমকে উত্তরাধিকারী হিসেবে চেয়েছিলেন, কিন্তু সুসীমকে উগ্র ও অহঙ্কারী চরিত্রের মানুষ হিসেবে বিবেচনা করে বিন্দুসারের মন্ত্রীরা অশোককে সমর্থন করেন।[৮] রাধাগুপ্ত নামক এক মন্ত্রী অশোকের সিংহাসনলাভের পক্ষে প্রধান সহায়ক হয়ে ওঠেন এবং পরবর্তীকালে তাঁর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। অশোক শঠতা করে সুসীমকে একটি জ্বলন্ত কয়লা ভর্তি গর্তে ফেলে দিয়ে হত্যা করেন। দীপবংশ ও মহাবংশ গ্রন্থানুসারে, বীতাশোক নামক একজন ভাইকে ছেড়ে অশোক বাকি নিরানব্বইজন ভাইকে হত্যা করেন, কিন্ত এখনো পর্য্যন্ত এই ঘটনার কোন ঐতিহাসিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ২৬৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে পিতার মৃত্যুর তিন বছর পরে অশোক মৌর্য্য সাম্রাজ্যের সিংহাসনে আরোহণ করেন। খ্রিষ্টপূর্ব ৩০৪ অব্দে জন্মগ্রহণ করেন। সম্রাট বিন্দুসার-এর ঔরসে রানি ধর্মা (মতান্তরে সুভদ্রাঙ্গির) গর্ভে জন্মগ্রহণ করেন। উত্তর-ভারতের কিম্বদন্তী অনুসারে চম্পাদেশীয় রাজকন্যা 'সুভদ্রাঙ্গী' ছিলেন অশোকের মা। আর দক্ষিণ ভারতীয় কিম্বদন্তী অনুসারে তাঁর মায়ের নাম ছিল ধর্মা । তাঁর চারজন স্ত্রীর নাম পাওয়া যায়। এঁরা হলেন- তিশ্যারাক্ষ, পদ্মবতী, কারুভাকী, বিদিশা মাত্র ১৮ বৎসর বয়সে বিন্দুসার তাঁকে উজ্জ্বয়িনীর শাসনকর্তা নিয়োগ করেন। তক্ষশীলাবাসী রাজশক্তির অত্যাচরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করলে, তক্ষশীলায় বিদ্রোহ শুরু হলে বিন্দুসার তাঁকে বিদ্রোহ দমনের জন্য তাঁকে তক্ষশীলায় পাঠান। অশোক এই বিদ্রোহ দমন করতে সক্ষম হলে, তাঁকে তক্ষশীলার শাসনভার লাভ করেন। এই সময় তিনি মহাদেবীকে বিবাহ করেন। বিন্দুসার-এর অসুস্থতার খবর ছড়িয়ে পড়লে তাঁর পুত্রদের মধ্যে সিংহাসনের দখল নিয়ে রক্তাক্ত দ্বন্দ্ব শুরু হ্য়। বৌদ্ধ কিম্বদন্তী অনুসারে জানা যায়, বিন্দুসারের স্ত্রীর সংখ্যা ছিল ১৬টি এবং পুত্রের সংখ্যা ছিল ১০১টি। তাঁর মৃত্যুর তাঁর পুত্র অশোক অন্যান্য ভাইদের পরাজিত ও হত্যা করে সিংহাসন দখল করেছিলেন। সিংহলীয় উপাখ্যানসমূহে পাওয়া যায়, তিনি তাঁর ৯৮জন ভাইকে হত্যা করেছিলেন। এই জন্য তাঁকে চণ্ডশোক বলা হয়েছে। সিংহাসন দখলের পর, 'দেবানাম-প্রিয়-পিয়দাসী' অর্থাৎ 'দেবতাদের প্রিয় প্রিয়দর্শী' উপাধি ধারণ করেন। ধারণা করা হয় তিনি খ্রিষ্টপূর্ব ২৭৩ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে দিকে সিংহাসন লাভ করেছিলেন। কিন্তু তাঁর সম্রাট হিসেবে অভিষেক হয়েছিল খ্রিষ্টপূর্ব ২৬৯ অব্দের দিকে। অশোকের ধর্মনীতি ও ধর্ম প্রচার অশোক বৌদ্ধ এবং জৈন ধর্মের অনুরাগী ছিলেন। তবে তাঁর ধর্ম প্রচারণা এবং জীবনাদর্শ বৌদ্ধ ধর্ম প্রাধান্য পেয়েছিল। অশোক বিহারযাত্রার পরিবর্তে ধর্মযাত্রার প্রচলন করেছিলেন। তীর্থযাত্রার সাথে তিনি যুক্ত করেছিলেন শ্রমণদের উপহার দান, বুদ্ধের বাণী প্রচার এবং নানাবিধ উপদেশের মধ্য দিয়ে মানুষকে ধর্মভাবাপন্ন করার কার্যক্রম। সাধারণ মানুষকে বৌদ্ধ ধর্মে উদ্বুদ্ধ করার জন্য তিনি রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে (পাহাড়ের গায়ে, পাথরের স্তম্ভে, পর্বতগুহায়) বুদ্ধের বাণী এবং উপদেশ লিপিবদ্ধ করেছিলেন। ধর্মীয় প্রচারের জন্য তিনি রাজুক, যুত এবং মহাপাত্র নামক পদের সৃষ্টি করেছিলেন। এঁরা অশোকের ধর্মনীতি কে প্রচার করতেন। এছাড়া রাজকর্মচারীদের দ্বারা সাধারণ মানুষ যাতে নিগৃহীত না হয়, তার জন্য ধর্মমহাপাত্র নামক কর্মচারী নিয়োগ করেছিলেন। বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের মধ্যে সংহতি স্থাপনের জন্য এবং বৌদ্ধ সংঘসমূহের ভিতরে আন্তসম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য পাটালিপুত্র নগরে একটি বৌদ্ধ-সংগীতি (তৃতীয়-সংগীতি) আহ্বান করেন। বৌদ্ধ ধর্মের প্রচারের জন্য তিনি রাজপুত্র মহেন্দ্রকে সিংহল দ্বীপে পাঠিয়েছিলেন। অশোকের ধর্মনীতি ও ধর্ম প্রচারঃ অশোক বৌদ্ধ এবং জৈন ধম্রের অনুরাগী ছিলেন।তবে তাঁর ধর্ম প্রচারণা এবং জীবনাদর্শ বৌদ্ধ ধর্ম প্রাধান্য পেয়েছিল। অশোক বিহারযান্রার পরিবর্তে ধর্মযান্রার প্রচলন করেছিলেন। ।তীর্থযাক্রার সাথে তিনি যুত্তু করেছিলেন শ্রামণদের উপহার দান, বুদ্ধের বাণী প্রচার এবং নানাবিধ উপদেশের মধ্য দিয়ে মানুষকে ধর্মভাবাপন্ন করার কার্যক্রম। সাধারণ মানুষকে বৌদ্ধ ধর্মে উদ্বুদ্ধ করার জন্য তিনি রাজ্যের বিভিন্ন স্হানে (পাহাড়ের গায়ে, পাথরের স্তমম্ভে, পবর্তগুহায়)বুদ্ধের বাণী এবং উপদেশে লিপিবদ্ধ করেছিলেন।ধর্মীয় প্রচারের জন্য তিনি রাজুক, যুত এবং মহাপান্র নামক পদের সৃষ্টি করেছিলেন।এরাঁ অশোকের ধর্মনীতি কে প্রচার করতেন।এছাড়া রাজর্মচারীদের দ্বারা সাধারণ মানুষ যাতে নিগৃহীত না হয়।তার জন্য ধর্মমহাপান্র নামক কর্মচারী নিয়োগ করেছিলেন। বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের মধ্যে সংহতি স্থাপনের জন্য এবং বৌদ্ধ সংঘসমূহের ভিতরে আন্তসম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য পাটলিপুত্র নগরে একটি বৌদ্ধ সংগীতি অর্থাৎ তৃতীয় সংগীতি আহ্বান করেন। বৌদ্ধ ধর্ম ধর্মনীতি প্রচারের জন্য তিনি রাজপুত্র মহেন্দ্রকে সিংহল দ্বীপে পাটিয়েছিলেন। Ashok Sanskrit Ashok 304 Khristapurba 232 Khristapurba Tritiya Maurjya Samrat Chhilen 3 Jini Bindusarer Par 269 Khristapurbabde Singhasan Love Curren Evan Bharatabarsher Itihase Anyatam Shrestha AE Samrat 232 Khristapurbabda Parjyanta Dakshinatyer Kichhu Angsh Baad Diye Bharatabarsher Adhikangsh Anchal Hasn Curren Ashokabdan Granthanusare Ashok Dwitiya Maurjya Samrat Bindusar O Tanr Dasi Champa Shaharer Ajibik Darshanik Matabade Bishwasi 4 Brahman Bangsher Nari Subhadrangir Putra Chhilen 5 Dibyabadan Granthe Ashokar Matake Janapadakalyani Ble Ullekh Kara Hayechhe 6 7 Singhasanalabh Dibyabadan Granthanusare Ashok Kayekajan Sharajantrakari Mantrider Dwara Shuru Kara Bidroh Daman Curren Bindusarer Rajatbakale Ashok Ujjain Nagarir Shasanakarta Hisebe Dayitbalabh Curren 7 272 Khristapurbabde Bindusarer Mrityu Hale Uttaradhikarer Prashne Juddha Shuru Haye Jay Bindusar Tanr Apr Putra Susimake Uttaradhikari Hisebe Cheyechhilen Kintu Susimake Ugra O Ahankari Charitrer Manus Hisebe Bibechana Kare Bindusarer Mantrira Ashokake Samarthan Curren 8 Radhagupta Namak Ec Mantri Ashokar Singhasanalabher Pakshe Pradhan Sahayak Haye Othen Evan Parabartikale Tanr Pradhanamantri Hisebe Dayitba Palan Curren Ashok Shathata Kare Susimake Ekati Jbalanta Kayala Bharti Garte Fele Diye Hatya Curren Dipabangsh O Mahabangsh Granthanusare Bitashok Namak Ekajan Bhaike Chhere Ashok Bace Niranabbaijan Bhaike Hatya Curren Kinta Ekhano Parjyanta AE Ghatanar Koun Aitihasik Praman Pawa Jayni 269 Khristapurbabde Pitar Mrityur Tin Bachhar Pare Ashok Maurjya Samrajyer Singhasane Arohan Curren Khrishtapurba 304 Abde Janmagrahan Curren Samrat Bindusar Aare Aurase Rani Dharma Matantare Subhadrangir Garbhe Janmagrahan Curren Uttar Bharter Kimbadanti Anusare Champadeshiya Rajakanya Subhadrangi Chhilen Ashokar MA Are Dakhin Bharatiya Kimbadanti Anusare Tanr Mayer NAM Chhil Dharma Tanr Charajan STREER NAM Powa Jay Enra Halen Tishyaraksh Padmawati Karubhaki Bidisha Maatr 18 Btsar Bayase Bindusar Tanke Ujjbayinir Shasanakarta Niyog Curren Takshashilabasi Rajashaktir Atyacharer Biruddhe Bidroh Ghoshna Karale Takshashilay Bidroh Shuru Hale Bindusar Tanke Bidroh Damaner Janya Tanke Takshashilay Pathan Ashok AE Bidroh Daman Karate Saksham Hale Tanke Takshashilar Shasanabhar Love Curren AE Camay Tini Mahadebike Vivah Curren Bindusar Aare Asusthatar Khabar Chhariye Parale Tanr Putradara Madhye Singhasner Dakhal Niye Raktakta Dwandwa Shuru Hy Bauddha Kimbadanti Anusare Jaana Jay Bindusarer STREER Sankhya Chhil 16ti Evan Putrer Sankhya Chhil 101ti Tanr Mrityur Tanr Putra Ashok Anyanya Bhaider Parajit O Hatya Kare Singhasan Dakhal Karechhilen Singhaliya Upakhyanasamuhe Powa Jay Tini Tanr 98jan Bhaike Hatya Karechhilen AE Janya Tanke Chandashok Bala Hayechhe Singhasan Dakhaler Par Debanam Priya Piydasi Arthat Debtader Priya Priyadarshi Upadhi Dharan Curren Dharna Kara Hya Tini Khrishtapurba 273 Khrishtapurbabde Dike Singhasan Love Karechhilen Kintu Tanr Samrat Hisebe Abhishek Hayechhil Khrishtapurba 269 Abder Dike Ashokar Dharmaniti O Dharm Prachar Ashok Bauddha Evan Jain Dharmer Anuragi Chhilen Tove Tanr Dharm Pracharana Evan Jibnadarsh Bauddha Dharm Pradhanya Peyechhil Ashok Biharajatrar Paribarte Dharmajatrar Prachalan Karechhilen Tirthajatrar Sathe Tini Jukta Karechhilen Shramanader Upahar Dan Buddher Vani Prachar Evan Nanabidh Upadesher Madhya Diye Manushake Dharmabhabapanna Karar Karjakram Sadharan Manushake Bauddha Dharme Udwuddha Karar Janya Tini Rajyer Bibhinna Sthane Paharer Gaye Pathrer Stambhe Parbataguhay Buddher Vani Evan Upadesh Lipibaddha Karechhilen Dharmiya Pracharer Janya Tini Rajuk Jut Evan Mahapatra Namak Pader Srishti Karechhilen Enra Ashokar Dharmaniti K Prachar Karaten Echhara Rajakarmacharider Dwara Sadharan Manus Jate Nigrihit Na Hya Taur Janya Dharmamahapatra Namak Karmachari Niyog Karechhilen Bauddhadharmabalambider Madhye Sanghati Sthapaner Janya Evan Bauddha Sanghasamuher Bhitre Antasampark Gare Tolar Janya Pataliputra Nagare Ekati Bauddha Sangiti Tritiya Sangiti Ahban Curren Bauddha Dharmer Pracharer Janya Tini Rajputra Mahendrake Singhal Dwipe Pathiyechhilen Ashokar Dharmaniti O Dharm Pracharah Ashok Bauddha Evan Jain Dhamrer Anuragi Chhilen Tove Tanr Dharm Pracharana Evan Jibnadarsh Bauddha Dharm Pradhanya Peyechhil Ashok Biharajanrar Paribarte Dharmajanrar Prachalan Karechhilen Tirthajakrar Sathe Tini Juttu Karechhilen Shramanader Upahar Dan Buddher Vani Prachar Evan Nanabidh Upadesher Madhya Diye Manushake Dharmabhabapanna Karar Karjakram Sadharan Manushake Bauddha Dharme Udwuddha Karar Janya Tini Rajyer Bibhinna Shane Paharer Gaye Pathrer Stamambhe Pabartaguhay Buddher Vani Evan Upadeshe Lipibaddha Karechhilen Dharmiya Pracharer Janya Tini Rajuk Jut Evan Mahapanra Namak Pader Srishti Karechhilen Eran Ashokar Dharmaniti K Prachar Karaten Echhara Rajarmacharider Dwara Sadharan Manus Jate Nigrihit Na Hya Taur Janya Dharmamahapanra Namak Karmachari Niyog Karechhilen Bauddhadharmabalambider Madhye Sanghati Sthapaner Janya Evan Bauddha Sanghasamuher Bhitre Antasampark Gare Tolar Janya Patliputra Nagare Ekati Bauddha Sangiti Arthat Tritiya Sangiti Ahban Curren Bauddha Dharm Dharmaniti Pracharer Janya Tini Rajputra Mahendrake Singhal Dwipe Patiyechhilen
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Ashokar Dharmaniti Sombondhe Kichhu Likh,Write Something About Ashok's Religion.,


vokalandroid