বিজ্ঞান উপসর্গ কি? ...

বিজ্ঞান উপসর্গ :- উপসর্গ : বাংলা ভাষায় কিছু কিছু অব্যয়সূচক শব্দাংশ বাক্যে পৃথকভাবে স্বাধীন কোনো পদ হিসেবে ব্যবহৃত না হয়ে বিভিন্ন শব্দের শুরুতে আশ্রিত হয়ে ব্যবহৃত হয়। এগুলোকে বলা হয় উপসর্গ। এগুলোর নিজস্ব কোন অর্থ নেই, তবে এগুলো শব্দের পূর্বে ব্যবহৃত হয়ে শব্দের অর্থের পরিবর্তন, পরিবর্ধন বা সংকোচন সাধন করে। উপসর্গ কোন শব্দ নয়, শব্দাংশ। এটি শুধুমাত্র শব্দের শুরুতে যোগ হয়। খেয়াল রাখতে হবে, উপসর্গ শুধুমাত্র শব্দেরই আগে বসে, কোন শব্দাংশের আগে বসে না। সুতরাং যে শব্দকে ভাঙলে বা সন্ধিবিচ্ছেদ করলে কোন মৌলিক শব্দ পাওয়া যায় না, তার শুরুতে কোন উপসর্গের মতো শব্দাংশ থাকলেও সেটা উপসর্গ নয়। এক্ষেত্রে নতুন শব্দের সঙ্গে মৌলিক শব্দটির কোন অর্থগত সম্পর্ক নাও থাকতে পারে। শব্দের শুরুতে যোগ হয়ে এটি- নতুন শব্দ তৈরি করতে পারে, অর্থের সম্প্রসারণ করতে পারে, অর্থের সংকোচন করতে পারে এবং অর্থের পরিবর্তন করতে পারে। উপসর্গের নিজস্ব অর্থবাচকতা বা অর্থ নেই, কিন্তু অন্য কোন শব্দের আগে বসে নতুন শব্দ তৈরির ক্ষমতা বা অর্থদ্যোতকতা আছে। যেমন, ‘আড়’ একটি উপসর্গ, যার নিজস্ব কোন অর্থ নেই। কিন্তু এটি যখন ‘চোখে’র আগে বসবে তখন একটি নতুন শব্দ ‘আড়চোখে’ তৈরি করে, যার অর্থ বাঁকা চোখে। অর্থাৎ, এখানে আড় উপসর্গটি চোখে শব্দের অর্থের পরিবর্তন করেছে। আবার এটিই ‘পাগলা’র আগে বসে তৈরি করে ‘আড়পাগলা’, যার অর্থ পুরোপুরি নয়, বরং খানিকটা পাগলা। এখানে পাগলা শব্দের অর্থের সংকোচন ঘটেছে। আবার ‘গড়া’ শব্দের আগে বসে তৈরি করে ‘আড়গড়া’ শব্দটি, যার অর্থ আস্তাবল। এখানে আবার শব্দের অর্থ পুরোপুরিই পরিবর্তিত হয়ে গেছে। অর্থাৎ দেখা যাচ্ছে, উপসর্গের নিজস্ব অর্থবাচকতা না থাকলেও তার অর্থদ্যোতকতা আছে। উপসর্গ অন্য কোন শব্দের আগে বসে নতুন শব্দ তৈরি করতে পারে । বিজ্ঞান এর ইতিহাস বলতে আমরা এখানে বুঝব এমন ধরণের ঐতিহাসিক নিদর্শন বা ঘটনাসমষ্টি যা যুগে যুগে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বিস্তার লাভ করেছে এবং যার ধারাবাহিকতায় বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থেকেছে সবসময়। মূলত বিজ্ঞান কখনোও থেমে থাকেনি, বরং বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রার মাধ্যমেই পৃথিবী এগিয়েছে এবং বিভিন্ন যুগ অতিক্রম করে বর্তমান অবস্থায় উপনীত হয়েছে। সত্যিকার অর্থে বিজ্ঞানের সূচনা মানব জন্মের শুরু থেকেই, পার্থক্য এই যে সে সময় মানুষ জানত না যে সে কি করেছে বা কোন সভ্যতার সূচনা ঘটতে চলেছে তার দ্বারা। প্রথম যে মানুষটি পাথরে পাথর ঘষে আগুন সৃষ্টি করেছিল সে কষ্মিনকালেও ভাবেনি যে সে একটি নব সভ্যতার জন্ম দিলো। এভাবেই চলেছিল অনেকটা কাল। তারপর একসময় যখন মানুষ তার কর্ম দেখে তার কাজের অর্থ ও গুরুত্ব বুঝতে পারল তখন সে তার কাজগুলোকে গুছিয়ে আনার চেষ্টা করল। আর এভাবেই জন্ম নিলো বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি। তারপরের ইতিহাস হল বিপ্লবের ইতিহাস যার পরে আর মানব সভ্যতাকে আর কখনও পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। ষোড়শ ও সপ্তদশ শতাব্দীতে যখন বৈজ্ঞানিক বিপ্লবের সূচনা হয় তখন মানুষ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির মাধ্যমে জ্ঞানের বিবর্তনকেও পরিচালনা ও প্রত্যক্ষ করার যোগ্যতা অর্জন করে। এধরণের জ্ঞান এতটাই মৌলিক ছিল যে অনেকে (বিশেষত বিজ্ঞানের দার্শনিকরা) মনে করেন এই পরিবর্তনটি প্রাক বৈজ্ঞানিকতাকে নির্দেশ করে। অর্থাৎ যখন মানব মন বিকশিতই হয়নি তখনকার সময়কেও এটি অন্তর্ভুক্ত করে এবং নিগূঢ় অনুসন্ধান করে।
Romanized Version
বিজ্ঞান উপসর্গ :- উপসর্গ : বাংলা ভাষায় কিছু কিছু অব্যয়সূচক শব্দাংশ বাক্যে পৃথকভাবে স্বাধীন কোনো পদ হিসেবে ব্যবহৃত না হয়ে বিভিন্ন শব্দের শুরুতে আশ্রিত হয়ে ব্যবহৃত হয়। এগুলোকে বলা হয় উপসর্গ। এগুলোর নিজস্ব কোন অর্থ নেই, তবে এগুলো শব্দের পূর্বে ব্যবহৃত হয়ে শব্দের অর্থের পরিবর্তন, পরিবর্ধন বা সংকোচন সাধন করে। উপসর্গ কোন শব্দ নয়, শব্দাংশ। এটি শুধুমাত্র শব্দের শুরুতে যোগ হয়। খেয়াল রাখতে হবে, উপসর্গ শুধুমাত্র শব্দেরই আগে বসে, কোন শব্দাংশের আগে বসে না। সুতরাং যে শব্দকে ভাঙলে বা সন্ধিবিচ্ছেদ করলে কোন মৌলিক শব্দ পাওয়া যায় না, তার শুরুতে কোন উপসর্গের মতো শব্দাংশ থাকলেও সেটা উপসর্গ নয়। এক্ষেত্রে নতুন শব্দের সঙ্গে মৌলিক শব্দটির কোন অর্থগত সম্পর্ক নাও থাকতে পারে। শব্দের শুরুতে যোগ হয়ে এটি- নতুন শব্দ তৈরি করতে পারে, অর্থের সম্প্রসারণ করতে পারে, অর্থের সংকোচন করতে পারে এবং অর্থের পরিবর্তন করতে পারে। উপসর্গের নিজস্ব অর্থবাচকতা বা অর্থ নেই, কিন্তু অন্য কোন শব্দের আগে বসে নতুন শব্দ তৈরির ক্ষমতা বা অর্থদ্যোতকতা আছে। যেমন, ‘আড়’ একটি উপসর্গ, যার নিজস্ব কোন অর্থ নেই। কিন্তু এটি যখন ‘চোখে’র আগে বসবে তখন একটি নতুন শব্দ ‘আড়চোখে’ তৈরি করে, যার অর্থ বাঁকা চোখে। অর্থাৎ, এখানে আড় উপসর্গটি চোখে শব্দের অর্থের পরিবর্তন করেছে। আবার এটিই ‘পাগলা’র আগে বসে তৈরি করে ‘আড়পাগলা’, যার অর্থ পুরোপুরি নয়, বরং খানিকটা পাগলা। এখানে পাগলা শব্দের অর্থের সংকোচন ঘটেছে। আবার ‘গড়া’ শব্দের আগে বসে তৈরি করে ‘আড়গড়া’ শব্দটি, যার অর্থ আস্তাবল। এখানে আবার শব্দের অর্থ পুরোপুরিই পরিবর্তিত হয়ে গেছে। অর্থাৎ দেখা যাচ্ছে, উপসর্গের নিজস্ব অর্থবাচকতা না থাকলেও তার অর্থদ্যোতকতা আছে। উপসর্গ অন্য কোন শব্দের আগে বসে নতুন শব্দ তৈরি করতে পারে । বিজ্ঞান এর ইতিহাস বলতে আমরা এখানে বুঝব এমন ধরণের ঐতিহাসিক নিদর্শন বা ঘটনাসমষ্টি যা যুগে যুগে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বিস্তার লাভ করেছে এবং যার ধারাবাহিকতায় বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থেকেছে সবসময়। মূলত বিজ্ঞান কখনোও থেমে থাকেনি, বরং বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রার মাধ্যমেই পৃথিবী এগিয়েছে এবং বিভিন্ন যুগ অতিক্রম করে বর্তমান অবস্থায় উপনীত হয়েছে। সত্যিকার অর্থে বিজ্ঞানের সূচনা মানব জন্মের শুরু থেকেই, পার্থক্য এই যে সে সময় মানুষ জানত না যে সে কি করেছে বা কোন সভ্যতার সূচনা ঘটতে চলেছে তার দ্বারা। প্রথম যে মানুষটি পাথরে পাথর ঘষে আগুন সৃষ্টি করেছিল সে কষ্মিনকালেও ভাবেনি যে সে একটি নব সভ্যতার জন্ম দিলো। এভাবেই চলেছিল অনেকটা কাল। তারপর একসময় যখন মানুষ তার কর্ম দেখে তার কাজের অর্থ ও গুরুত্ব বুঝতে পারল তখন সে তার কাজগুলোকে গুছিয়ে আনার চেষ্টা করল। আর এভাবেই জন্ম নিলো বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি। তারপরের ইতিহাস হল বিপ্লবের ইতিহাস যার পরে আর মানব সভ্যতাকে আর কখনও পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। ষোড়শ ও সপ্তদশ শতাব্দীতে যখন বৈজ্ঞানিক বিপ্লবের সূচনা হয় তখন মানুষ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির মাধ্যমে জ্ঞানের বিবর্তনকেও পরিচালনা ও প্রত্যক্ষ করার যোগ্যতা অর্জন করে। এধরণের জ্ঞান এতটাই মৌলিক ছিল যে অনেকে (বিশেষত বিজ্ঞানের দার্শনিকরা) মনে করেন এই পরিবর্তনটি প্রাক বৈজ্ঞানিকতাকে নির্দেশ করে। অর্থাৎ যখন মানব মন বিকশিতই হয়নি তখনকার সময়কেও এটি অন্তর্ভুক্ত করে এবং নিগূঢ় অনুসন্ধান করে। Bigyan Upasarg :- Upasarg : Bangla Bhashay Kichhu Kichhu Abyayasuchak Shabdangsh Bakye Prithakabhabe Sweden Kono Pada Hisebe Byabahrit Na Huye Bibhinna Shabder Shurute Ashrit Huye Byabahrit Hay Eguloke Bala Hay Upasarg Egulor Nijaswa Koun Earth Nei Tove Egulo Shabder Purbe Byabahrit Huye Shabder Arther Parivartan Paribardhan Ba Sankochan Sadhan Kare Upasarg Koun Shabd Noy Shabdangsh AT Shudhumatra Shabder Shurute Jog Hay Kheyal Rakhte Habe Upasarg Shudhumatra Shabderai Age Base Koun Shabdangsher Age Base Na Sutarang Je Shabdake Bhangle Ba Sandhibichchhed Karale Koun Maulik Shabd Powa Jay Na Taur Shurute Koun Upasarger Mato Shabdangsh Thakleo SATA Upasarg Noy Ekshetre NATUN Shabder Sange Maulik Shabdatir Koun Arthagat Sampark Now Thakte Pare Shabder Shurute Jog Huye AT NATUN Shabd Tairi Karate Pare Arther Samprasaran Karate Pare Arther Sankochan Karate Pare Evan Arther Parivartan Karate Pare Upasarger Nijaswa Arthabachakata Ba Earth Nei Kintu Anya Koun Shabder Age Base NATUN Shabd Tairir Xamata Ba Arthadyotakata Ache Jeman ‘aro Ekati Upasarg Jar Nijaswa Koun Earth Nei Kintu AT Jakhan ‘chokheor Age Basabe Takhan Ekati NATUN Shabd ‘arachokheo Tairi Kare Jar Earth Banka Chokhe Arthat Ekhane Ad Upasargati Chokhe Shabder Arther Parivartan Karechhe Abar ATE ‘paglaor Age Base Tairi Kare ‘arapaglao Jar Earth Puropuri Noy Wrong Khanikata Pagla Ekhane Pagla Shabder Arther Sankochan Ghatechhe Abar ‘garao Shabder Age Base Tairi Kare ‘aragarao Shabdati Jar Earth Astabal Ekhane Abar Shabder Earth Puropurii Paribartit Huye Gechhe Arthat Dekha Jachchhe Upasarger Nijaswa Arthabachakata Na Thakleo Taur Arthadyotakata Ache Upasarg Anya Koun Shabder Age Base NATUN Shabd Tairi Karate Pare Bigyan Aare Itihas Volte Amara Ekhane Bujhab Eman Dharaner Aitihasik Nidarshan Ba Ghatanasamashti Ja Juge Juge Bibhinna Sanskritik Parimandale Bistar Love Karechhe Evan Jar Dharabahiktay Bigyaner Agrajatra Abyahat Thekechhe Sabasamay Mulat Bigyan Kakhanoo Theme Thakeni Wrong Bigyaner Agrajatrar Madhyamei Prithibi Egiyechhe Evan Bibhinna Jug Atikram Kare Bartaman Abasthay UPANITA Hayechhe Satyikar Arthe Bigyaner Suchna Menabe Janmer Shuru Thekei Parthakya AE Je Say Samay Manus Janat Na Je Say Ki Karechhe Ba Koun Sabhyatar Suchna Ghatate Chalechhe Taur Dwara Pratham Je Manushati Pathre Puthur Ghashe Agun Srishti Karechhil Say Kashminakaleo Bhabeni Je Say Ekati Nav Sabhyatar Janma Dilo Ebhabei Chalechhil Anekata Kaal Tarapar Ekasamay Jakhan Manus Taur Karma Dekhe Taur Kajer Earth O Gurutba Bujhte Paral Takhan Say Taur Kajguloke Guchhiye Anar Cheshta Karal Are Ebhabei Janma Nilo Baigyanik Paddhati Taraparer Itihas Hall Biplaber Itihas Jar Pare Are Menabe Sabhyatake Are Kakhanao Pichhan Fire Takate Hayani Shorash O Saptadash Shatabdite Jakhan Baigyanik Biplaber Suchna Hay Takhan Manus Baigyanik Paddhatir Madhyame Gyaner Bibartanakeo Parichalna O Pratyaksh Karar Jogyata Arjan Kare Edharaner Gyan Etatai Maulik Chhil Je Aneke Bisheshat Bigyaner Darshanikra Money Curren AE Paribartanati Prak Baigyaniktake Nirdesh Kare Arthat Jakhan Menabe Mon Bikshitai Hayani Takhanakar Samayakeo AT Antarbhukta Kare Evan Nigudh Anusandhan Kare
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


উপসর্গের সংজ্ঞা: যেসব বর্ণ বা বর্ণের সমষ্টি ধাতু এবং শব্দের পূর্বে বসে সাধিত শব্দের অর্থের পরিবর্তন, সম্প্রসারণ কিংবা সংকোচন ঘটায়, তাদেরকে বলা হয় উপসর্গ। যেমন—প্র, পরা, পরি, নির ইত্যাদি। ‘উপসর্গ’ কথাটির মূল অর্থ ‘উপসৃষ্ট’। এর কাজ হলো নতুন শব্দ গঠন করা। উপসর্গের নিজস্ব কোন অর্থ নেই, তবে এগুলো অন্য শব্দের সাথে যুক্ত হয়ে বিশেষ অর্থ প্রকাশ করে থাকে। মনে রাখতে হবে, উপসর্গ সব সময় মূল শব্দের পূর্বে যুক্ত হয়। বি বিশেষ রূপে "বিধৃত, বিশুদ্ধ, বিজ্ঞান , বিবস্ত্র, বিশুষ্ক । বি বিশেষ, অভাব, গতি, অপ্রকৃতস্থ : বিশুদ্ধ, বিজ্ঞান , বিবর্ণ, বিশৃঙ্খল, বিফল ।
Romanized Version
উপসর্গের সংজ্ঞা: যেসব বর্ণ বা বর্ণের সমষ্টি ধাতু এবং শব্দের পূর্বে বসে সাধিত শব্দের অর্থের পরিবর্তন, সম্প্রসারণ কিংবা সংকোচন ঘটায়, তাদেরকে বলা হয় উপসর্গ। যেমন—প্র, পরা, পরি, নির ইত্যাদি। ‘উপসর্গ’ কথাটির মূল অর্থ ‘উপসৃষ্ট’। এর কাজ হলো নতুন শব্দ গঠন করা। উপসর্গের নিজস্ব কোন অর্থ নেই, তবে এগুলো অন্য শব্দের সাথে যুক্ত হয়ে বিশেষ অর্থ প্রকাশ করে থাকে। মনে রাখতে হবে, উপসর্গ সব সময় মূল শব্দের পূর্বে যুক্ত হয়। বি বিশেষ রূপে "বিধৃত, বিশুদ্ধ, বিজ্ঞান , বিবস্ত্র, বিশুষ্ক । বি বিশেষ, অভাব, গতি, অপ্রকৃতস্থ : বিশুদ্ধ, বিজ্ঞান , বিবর্ণ, বিশৃঙ্খল, বিফল । Upasarger Sanggya Jesab Burn Ba Barner Samashti Dhatu Evan Shabder Purbe Base Sadhit Shabder Arther Parivartan Samprasaran Kingba Sankochan Ghatay Taderake Bala Hay Upasarg Jeman—pra Para Pari Nir Ityadi ‘upasargo Kathatir Mul Earth ‘upasrishto Aare Kaj Holo NATUN Shabd Gathan Kara Upasarger Nijaswa Koun Earth Nei Tove Egulo Anya Shabder Sathe Jukta Haye Vishesha Earth Prakash Kare Thake Money Rakhte Habe Upasarg Sab Samay Mul Shabder Purbe Jukta Hay Be Vishesha Rupe Bidhrit Bishuddha Bigyan , Bibastra Bishushk Be Vishesha Abhab Gatti Aprakritastha : Bishuddha Bigyan , Bibarna Bishrinkhal Bifal
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Bigyan Upasarg Ki,What Is The Symptoms Of Science?,


vokalandroid