বাঁশ কেন ঝরে? ...

বাঁশ কেন ঝরে কঞ্চি কলম সংগ্রহ@ কঞ্চি কলম সংগ্রহ কলম কাটার জন্য সুস্থ্য, সবল, বাঁশ কেন ঝরে অপেক্ষাকৃত মোটা আকৃতির কেন ঝরে এক বছর বা তার কম বয়সের বাঁশ নির্বাচন করুন। বাঁশের কেন গা ঘেঁষে আঙ্গুলের মত মোটা কঞ্চি হাত করাত দিয়ে কেটে সংগ্রহ করুন। কঞ্চির গোড়া হতে ৩-৫ গিট বা দেড় হাত লম্বা করে কঞ্চি কলম কাটুন। সংগৃহীত কঞ্চিগুলি নার্সারি বেডে লাগানোর পূর্ব পর্যন্ত ভেজা চট দিয়ে মুড়িয়ে রাখুন অথবা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। কার্তিক-মাঘ (অক্টোবর – ফেব্রুয়ারি) মাস বাদে সারা বছরই কঞ্চি কলম করা যায়। ফাল্গুন-আশ্বিন (মার্চ -সেপ্টেম্বর ) মাস কঞ্চি কলম কাটার উপযুক্ত সময়। @বালির বেড তৈরি@ বালির বেড তৈরি চার ফুট চওড়া এবং প্রয়োজন মত লম্বা বালির বেড তৈরি করুন। বালির বেডের উচ্চতা বা পুরুত্ব কমপক্ষে ১০ ইঞ্চি হতে হবে। বালি সব রকমের আবর্জনা মুক্ত হতে হবে। বালির বেডের কিনার বাঁধার জন্য চারদিকে ইট বা তরজা ব্যবহার করুন অথবা সমতল মাটিতে বেডের আকৃতিতে মাটি কেটে আয়তকার ১০ ইঞ্চি গভীরতার ব্লক তৈরী করুন । মাটিতে কাটা ব্লকটি বালি দিয়ে ভরে দিন । এটি একটি বেড হয়ে গে @বেডে কঞ্চি কলম রোপন@ বেডে কঞ্চি কলম রোপন বালির বেডে কঞ্চিগুলি ২-৩ ইঞ্চি দূরত্বে সারিবদ্ধভাবে ৩-৫ ইঞ্চি গভীরে ভালভাবে বালি চেপে লাগান। বেডে কঞ্চি রোপনের পর হতে ২০-২৫ দিন পর্যন্ত দিনে ২-৩ বার ঝরনা দিয়ে পানি সেচ দিন। এ সময়ের মধ্যেই কঞ্চিতে নতুন শাখা-প্রশাখা ও পাতা গজিয়ে সম্পূর্ণ বেড সবুজ আকার ধারণ করবে এবং কঞ্চি-কলমের গোড়ায় যথেষ্ট শিকড় গজাবে। তখন বেডে ধীরে ধীরে পানি সেচের পরিমাণ কমিয়ে দিন। @কলম স্থানান্তর ও রোপণ@ কলম স্থানান্তর ও রোপণ শিকড়যুক্ত কলম পলিথিন ব্যাগ বা উপযুক্ত পাত্রে ৩:১ অনুপাতে মাটি-গোবর মিশ্রণের মধ্যে স্থানান্তর করুন। প্রতিটি ব্যাগ বা পাত্রে একটি করে শিকড় গজানো কঞ্চি কলম স্থানান্তর করুন। ৭-১০ দিন কলমটি ছায়ায় রাখুন। এ সময় নিয়মিত দিনে একবার পানি দিন। এরপর ব্যাগগুলি সারিবদ্ধ ভাবে বেডে সাজিয়ে রাখুন। মাঠে রোপনের পূর্ব পর্যন্ত ব্যাগের আগাছা বাছাই করুন ও পরিমিত পানি দিন। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে ১৫-২০ ফুট দূরত্বে দেড় ফুট ঢ দেড় ফুট ঢ দেড় ফুট গর্তে কঞ্চি কলম মাঠে লাগিয়ে দিন। চার বছরে একটি কঞ্চিকলম ঝাড়ে পরিণত হয় ছয় বছর হলে আপনি ঝাড় হতে বাঁশ আহরন করতে পারবেন। @বাঁশের ঝাড় ব্যবস্থাপনা@ বাঁশের ঝাড় ব্যবস্স্থাপনা আপনার বাঁশঝাড় থেকে কি আশানুরূপ বাঁশ পাচ্ছেন না? আপনি বাঁশঝাড়ের উন্নত ব্যবস্থাপনা করে বাঁশ উৎপাদন বাড়াতে ও অধিক সবল বাঁশ পেতে ইচ্ছুক? খুব কম খরচে বাঁশঝাড় সঠিকভাবে ব্যবস্থাপনা করে আপনি সহজেই অধিক লাভবান হতে পারেন। বাঁশঝাড় ব্যবস্থাপনা করবেন কেন? বাঁশঝাড় ব্যবস্থাপনা দ্বারা সুস্থ্-সবল ও পুষ্ট বাঁশ উৎপাদন করে ভাল বাজার মূল্য পাওয়া যায়। পরিচর্যার ফলে ঝাড় থেকে বেশি সংখ্যক বাঁশ পাওয়া সম্ভব। এতে আপনি পারিবারিক চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি বাড়তি আয়ও করতে পারেন। কিভাবে ব্যবস্থাপনা করবেন? পরিস্কারকরণ বাঁশঝাড় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত। ময়লা-আবর্জনা, পাতা, খড়কুটো, পচা বা রোগাক্রান্ত বাঁশ, কঞ্চি, কোঁড়ল ঝাড় থেকে নিয়মিতভাবে অপসারণ করতে হবে। চারা, কঞ্চি, মুথা বা অফসেট মাটিতে লাগানোর পর প্রথম ১ -২ বছর চিকন ও সরু বাঁশ গজায়, যা মরে গিয়ে ঝাড়ে গাদাগাদি করে থাকে। গাদাগাদি করে থাকা চিকন ও মরা বাঁশ অপসারণ করে ফেলুন। প্রতি বছর ফাল্গুন-চৈত্র মাসে হালকা নিয়ন্ত্রিত আগুন দিয়ে ঝাড় এলাকার আবর্জনা ও শুকনো পাতা পুড়িয়ে দিন। এতে ঝাড়ে অনুকুল স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি হবে যা প্রচুর নতুন কোঁড়ল মাটি থেকে বের হয়ে স্বাস্থ্যবান ঝাড় সৃষ্টিতে সহায়ক হবে। নতুন মাটি প্রয়োগ সাধারণত প্রতি বছর চৈত্র-বৈশাখ মাসে বাঁশের কোঁড়ল গজায়। তাই প্রতি বছর ফাল্গুন-চৈত্র মাসে ঝাড়ের গোড়ায় নতুন মাটি দেওয়া উচিত। এতে কোঁড়ল দ্রুত বেড়ে উঠবে ও সুস্থ্য বাঁশ পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে রোগাক্রান্ত বা পুরাতন ঝাড়ের মাটি কখনও ব্যবহার করবেন না। এতে সুস্থ বাঁশ ঝাড়ে রোগ বিস্তারের আশংকা থাকে। সার প্রয়োগ মাঝারি আকারের ঝাড়ের গোড়ায় প্রতি বছর ফাল্গুন-চৈত্র মাসে ১০০-১২৫ গ্রাম ইউরিয়া, সমপরিমান ফসফেট ও ৫০-৬৫ গ্রাম পটাশ সার প্রয়োগ করতে হবে। ঝাড়ের চারিদিকে মাটিতে ১৮ ইঞ্চি চওড়া ও ২৪ ইঞ্চি গভীর নালা কেটে সেই নালায় সার প্রয়োগের পর নালাটি মাটি দিয়ে ঢেকে দিন। সার প্রয়োগের পর বৃষ্টি না হলে অবশ্যই সেচ দিতে হবে। পানি সেচ খরা মৌসুমে চারা গাছ সুষ্ঠু ভাবে বৃদ্ধি পায় না এবং কোন কোন ক্ষেত্রে মারাও যায়। তাই প্রথম কয়েক বছর নতুন ঝাড়ে পরিমিত পানি সেচ দেওয়া প্রয়োজন। এক সপ্তাহে পর পর এক বা দুই কলস পানি বাঁশের চারার গোড়ায় ঢেলে দিয়ে ছন বা কচুরিপানা দিয়ে ঢেঁকে দিতে হবে। পাতলাকরণ বাঁশের বৃদ্ধির জন্য যথেষ্ট জায়গা প্রয়োজন। অতিরিক্ত কঞ্চি বা পচা
Romanized Version
বাঁশ কেন ঝরে কঞ্চি কলম সংগ্রহ@ কঞ্চি কলম সংগ্রহ কলম কাটার জন্য সুস্থ্য, সবল, বাঁশ কেন ঝরে অপেক্ষাকৃত মোটা আকৃতির কেন ঝরে এক বছর বা তার কম বয়সের বাঁশ নির্বাচন করুন। বাঁশের কেন গা ঘেঁষে আঙ্গুলের মত মোটা কঞ্চি হাত করাত দিয়ে কেটে সংগ্রহ করুন। কঞ্চির গোড়া হতে ৩-৫ গিট বা দেড় হাত লম্বা করে কঞ্চি কলম কাটুন। সংগৃহীত কঞ্চিগুলি নার্সারি বেডে লাগানোর পূর্ব পর্যন্ত ভেজা চট দিয়ে মুড়িয়ে রাখুন অথবা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। কার্তিক-মাঘ (অক্টোবর – ফেব্রুয়ারি) মাস বাদে সারা বছরই কঞ্চি কলম করা যায়। ফাল্গুন-আশ্বিন (মার্চ -সেপ্টেম্বর ) মাস কঞ্চি কলম কাটার উপযুক্ত সময়। @বালির বেড তৈরি@ বালির বেড তৈরি চার ফুট চওড়া এবং প্রয়োজন মত লম্বা বালির বেড তৈরি করুন। বালির বেডের উচ্চতা বা পুরুত্ব কমপক্ষে ১০ ইঞ্চি হতে হবে। বালি সব রকমের আবর্জনা মুক্ত হতে হবে। বালির বেডের কিনার বাঁধার জন্য চারদিকে ইট বা তরজা ব্যবহার করুন অথবা সমতল মাটিতে বেডের আকৃতিতে মাটি কেটে আয়তকার ১০ ইঞ্চি গভীরতার ব্লক তৈরী করুন । মাটিতে কাটা ব্লকটি বালি দিয়ে ভরে দিন । এটি একটি বেড হয়ে গে @বেডে কঞ্চি কলম রোপন@ বেডে কঞ্চি কলম রোপন বালির বেডে কঞ্চিগুলি ২-৩ ইঞ্চি দূরত্বে সারিবদ্ধভাবে ৩-৫ ইঞ্চি গভীরে ভালভাবে বালি চেপে লাগান। বেডে কঞ্চি রোপনের পর হতে ২০-২৫ দিন পর্যন্ত দিনে ২-৩ বার ঝরনা দিয়ে পানি সেচ দিন। এ সময়ের মধ্যেই কঞ্চিতে নতুন শাখা-প্রশাখা ও পাতা গজিয়ে সম্পূর্ণ বেড সবুজ আকার ধারণ করবে এবং কঞ্চি-কলমের গোড়ায় যথেষ্ট শিকড় গজাবে। তখন বেডে ধীরে ধীরে পানি সেচের পরিমাণ কমিয়ে দিন। @কলম স্থানান্তর ও রোপণ@ কলম স্থানান্তর ও রোপণ শিকড়যুক্ত কলম পলিথিন ব্যাগ বা উপযুক্ত পাত্রে ৩:১ অনুপাতে মাটি-গোবর মিশ্রণের মধ্যে স্থানান্তর করুন। প্রতিটি ব্যাগ বা পাত্রে একটি করে শিকড় গজানো কঞ্চি কলম স্থানান্তর করুন। ৭-১০ দিন কলমটি ছায়ায় রাখুন। এ সময় নিয়মিত দিনে একবার পানি দিন। এরপর ব্যাগগুলি সারিবদ্ধ ভাবে বেডে সাজিয়ে রাখুন। মাঠে রোপনের পূর্ব পর্যন্ত ব্যাগের আগাছা বাছাই করুন ও পরিমিত পানি দিন। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে ১৫-২০ ফুট দূরত্বে দেড় ফুট ঢ দেড় ফুট ঢ দেড় ফুট গর্তে কঞ্চি কলম মাঠে লাগিয়ে দিন। চার বছরে একটি কঞ্চিকলম ঝাড়ে পরিণত হয় ছয় বছর হলে আপনি ঝাড় হতে বাঁশ আহরন করতে পারবেন। @বাঁশের ঝাড় ব্যবস্থাপনা@ বাঁশের ঝাড় ব্যবস্স্থাপনা আপনার বাঁশঝাড় থেকে কি আশানুরূপ বাঁশ পাচ্ছেন না? আপনি বাঁশঝাড়ের উন্নত ব্যবস্থাপনা করে বাঁশ উৎপাদন বাড়াতে ও অধিক সবল বাঁশ পেতে ইচ্ছুক? খুব কম খরচে বাঁশঝাড় সঠিকভাবে ব্যবস্থাপনা করে আপনি সহজেই অধিক লাভবান হতে পারেন। বাঁশঝাড় ব্যবস্থাপনা করবেন কেন? বাঁশঝাড় ব্যবস্থাপনা দ্বারা সুস্থ্-সবল ও পুষ্ট বাঁশ উৎপাদন করে ভাল বাজার মূল্য পাওয়া যায়। পরিচর্যার ফলে ঝাড় থেকে বেশি সংখ্যক বাঁশ পাওয়া সম্ভব। এতে আপনি পারিবারিক চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি বাড়তি আয়ও করতে পারেন। কিভাবে ব্যবস্থাপনা করবেন? পরিস্কারকরণ বাঁশঝাড় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা উচিত। ময়লা-আবর্জনা, পাতা, খড়কুটো, পচা বা রোগাক্রান্ত বাঁশ, কঞ্চি, কোঁড়ল ঝাড় থেকে নিয়মিতভাবে অপসারণ করতে হবে। চারা, কঞ্চি, মুথা বা অফসেট মাটিতে লাগানোর পর প্রথম ১ -২ বছর চিকন ও সরু বাঁশ গজায়, যা মরে গিয়ে ঝাড়ে গাদাগাদি করে থাকে। গাদাগাদি করে থাকা চিকন ও মরা বাঁশ অপসারণ করে ফেলুন। প্রতি বছর ফাল্গুন-চৈত্র মাসে হালকা নিয়ন্ত্রিত আগুন দিয়ে ঝাড় এলাকার আবর্জনা ও শুকনো পাতা পুড়িয়ে দিন। এতে ঝাড়ে অনুকুল স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি হবে যা প্রচুর নতুন কোঁড়ল মাটি থেকে বের হয়ে স্বাস্থ্যবান ঝাড় সৃষ্টিতে সহায়ক হবে। নতুন মাটি প্রয়োগ সাধারণত প্রতি বছর চৈত্র-বৈশাখ মাসে বাঁশের কোঁড়ল গজায়। তাই প্রতি বছর ফাল্গুন-চৈত্র মাসে ঝাড়ের গোড়ায় নতুন মাটি দেওয়া উচিত। এতে কোঁড়ল দ্রুত বেড়ে উঠবে ও সুস্থ্য বাঁশ পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে রোগাক্রান্ত বা পুরাতন ঝাড়ের মাটি কখনও ব্যবহার করবেন না। এতে সুস্থ বাঁশ ঝাড়ে রোগ বিস্তারের আশংকা থাকে। সার প্রয়োগ মাঝারি আকারের ঝাড়ের গোড়ায় প্রতি বছর ফাল্গুন-চৈত্র মাসে ১০০-১২৫ গ্রাম ইউরিয়া, সমপরিমান ফসফেট ও ৫০-৬৫ গ্রাম পটাশ সার প্রয়োগ করতে হবে। ঝাড়ের চারিদিকে মাটিতে ১৮ ইঞ্চি চওড়া ও ২৪ ইঞ্চি গভীর নালা কেটে সেই নালায় সার প্রয়োগের পর নালাটি মাটি দিয়ে ঢেকে দিন। সার প্রয়োগের পর বৃষ্টি না হলে অবশ্যই সেচ দিতে হবে। পানি সেচ খরা মৌসুমে চারা গাছ সুষ্ঠু ভাবে বৃদ্ধি পায় না এবং কোন কোন ক্ষেত্রে মারাও যায়। তাই প্রথম কয়েক বছর নতুন ঝাড়ে পরিমিত পানি সেচ দেওয়া প্রয়োজন। এক সপ্তাহে পর পর এক বা দুই কলস পানি বাঁশের চারার গোড়ায় ঢেলে দিয়ে ছন বা কচুরিপানা দিয়ে ঢেঁকে দিতে হবে। পাতলাকরণ বাঁশের বৃদ্ধির জন্য যথেষ্ট জায়গা প্রয়োজন। অতিরিক্ত কঞ্চি বা পচাBansh Can Jhare Kanchi Kalamma Sangrah Kanchi Kalamma Sangrah Kalamma Cutter Janya Susthya Sabal Bansh Can Jhare Apekshakrit Mota Akritir Can Jhare Ec Bachhar Ba Taur Com Bayaser Bansh Nirbachan Karoon Bansher Can Ga Ghenshe Anguler Matt Mota Kanchi Haut Karat Diye Kete Sangrah Karoon Kanchir Gora Hate 3 5 Git Ba Ded Haut Lamba Kare Kanchi Kalamma Katun Sangrihit Kanchiguli Nursery Bede Laganor Purba Parjanta Bheja Shot Diye Muriye Rakhun Athaba Panite Bhijiye Rakhun Karthik Magh Aktobar – Februyari Massa Bade Sara Bachharai Kanchi Kalamma Kara Jay Falgun Ashwin Marsa Septembar ) Massa Kanchi Kalamma Cutter Upajukta Camay Balir Bad Tairi Balir Bad Tairi CHAR Foot Chaora Evan Prayojan Matt Lamba Balir Bad Tairi Karoon Balir Beder Uchchata Ba Purutba Kamapakshe 10 Inch Hate Habe Bally Sab Rakamer Abarjana Mukta Hate Habe Balir Beder KINAR Bandhar Janya Chardike It Ba Taraja Byabahar Karoon Athaba Samatal Matite Beder Akritite Mete Kete Ayatakar 10 Inch Gabhirtar Block Tairi Karoon Matite Kata Blakati Bally Diye Bhare Dinh AT Ekati Bad Huye Ge Bede Kanchi Kalamma Ropan Bede Kanchi Kalamma Ropan Balir Bede Kanchiguli 2 3 Inch Duratbe Saribaddhabhabe 3 5 Inch Gabhire Bhalbhabe Bally Chepe Lagan Bede Kanchi Ropner Par Hate 20 25 Dinh Parjanta Dine 2 3 Bar JHARNA Diye Pani Sech Dinh A Samayer Madhyei Kanchite NATUN Shakha Prashakha O Pata Gajiye Sampurna Bad Sabuj Akar Dharan Karabe Evan Kanchi Kalmar Goray Jatheshta Sikar Gajabe Takhan Bede Dhire Dhire Pani Secher Pariman Kamiye Dinh Kalamma Sthanantar O Ropan Kalamma Sthanantar O Ropan Shikarajukta Kalamma Palithin Bag Ba Upajukta Patre 3 1 Anupate Mete Gobar Mishraner Madhye Sthanantar Karoon Pratiti Bag Ba Patre Ekati Kare Sikar Gajano Kanchi Kalamma Sthanantar Karoon 7 10 Dinh Kalamati Chhayay Rakhun A Camay Niymit Dine Ekabar Pani Dinh Erapar Byagaguli Saribaddha Bhabe Bede Sajiye Rakhun Mathe Ropner Purba Parjanta Byager Agachha Bachhai Karoon O Parimit Pani Dinh Vaishakh Jyaishtha Mase 15 20 Foot Duratbe Ded Foot Dh Ded Foot Dh Ded Foot Garte Kanchi Kalamma Mathe Lagiye Dinh CHAR Bachhare Ekati Kanchikalam Jhare Parinat Hya Chhay Bachhar Hale Apni Jhar Hate Bansh Aharan Karate Paraben Bansher Jhar Byabasthapana Bansher Jhar Byabassthapana Apanar Banshajhar Theke Ki Ashanurup Bansh Pachchhen Na Apni Banshajharer Unnat Byabasthapana Kare Bansh Utpadan Barate O Adhik Sabal Bansh Pete Ichchhuk Khub Com Kharache Banshajhar Sathikbhabe Byabasthapana Kare Apni Sahajei Adhik Labhban Hate Paren Banshajhar Byabasthapana Karaben Can Banshajhar Byabasthapana Dwara Susth Sabal O Pushta Bansh Utpadan Kare Bhal Bazaar Mulya Powa Jay Paricharjar Fale Jhar Theke Bedshee Sankhyak Bansh Powa Sambhab Ete Apni Paribarik Sahida Metanor Pashapashi Barti Io Karate Paren Kibhabe Byabasthapana Karaben Pariskarakaran Banshajhar Pariskar Parichchhanna Rakha Uchit Mayala Abarjana Pata Kharakuto Pacha Ba Rogakranta Bansh Kanchi Konral Jhar Theke Niymitbhabe Apasaran Karate Habe Charra Kanchi Mutha Ba Offset Matite Laganor Par Pratham 1 2 Bachhar Chikan O Saru Bansh Gajay Ja Mare Giye Jhare Gadagadi Kare Thake Gadagadi Kare Thaka Chikan O Mara Bansh Apasaran Kare Felun Prati Bachhar Falgun Chaitra Mase Halka Niyantrit Agun Diye Jhar Elakar Abarjana O Shukno Pata Puriye Dinh Ete Jhare Anukul Swasthyakar Paribesh Tairi Habe Ja Prachur NATUN Konral Mete Theke Ber Huye Swasthyaban Jhar Srishtite Sahayak Habe NATUN Mete Prayog Sadharanat Prati Bachhar Chaitra Vaishakh Mase Bansher Konral Gajay Tai Prati Bachhar Falgun Chaitra Mase Jharer Goray NATUN Mete Dewa Uchit Ete Konral Drut Bere Uthabe O Susthya Bansh Powa Jabe A Xetre Rogakranta Ba Puratan Jharer Mete Kakhanao Byabahar Karaben Na Ete Sustha Bansh Jhare Rogue Bistarer Ashanka Thake Sir Prayog Majhari Akarer Jharer Goray Prati Bachhar Falgun Chaitra Mase 100 125 Gram Yuriya Samapariman Phosphate O 50 65 Gram Patash Sir Prayog Karate Habe Jharer Charidike Matite 18 Inch Chaora O 24 Inch Gabhir Nala Kete Sei Nalay Sir Prayoger Par Nalati Mete Diye Dheke Dinh Sir Prayoger Par Wristy Na Hale Abashyai Sech Dite Habe Pani Sech Khara Mausume Charra Gachh Sushthu Bhabe Briddhi Pay Na Evan Koun Koun Xetre Marao Jay Tai Pratham Kayek Bachhar NATUN Jhare Parimit Pani Sech Dewa Prayojan Ec Saptahe Par Par Ec Ba Dui Kalasa Pani Bansher Charar Goray Dhele Diye Chhan Ba Kachuripana Diye Dhenke Dite Habe Patlakaran Bansher Briddhir Janya Jatheshta Jayga Prayojan Atirikta Kanchi Ba Pacha
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


বাঁশ কেন ঝরে : বাঁশ কেন ঝরে দিয়ে কবিতা : কেউ করে ফুলচুরি রোজ রাতভোরে কেউ বলে সংসদ ভরে গেছে চোরে; বইচুরি করে কেউ উদাসীন মুখে সময়ও তো চুরি যায় বলে নিন্দুকে; প্রেমিকার মন চুরি নানা ছলেবলে জানিনাকি মতলব আছে তলে তলে; ছ- সেকেন্ড চুরি যায় প্রতি বৎসরে পুঁথি দেখ, লেখা আছে ছাপা অক্ষরে; অপিসের বড়বাবু, গোঁফ গেল চুরি কবিতায় সুকুমার নেই তার জুড়ি; প্রচলিত চোরে চুরি করে রাত্তিরে থালা, বাটি, গ্লাস, জুত, জহরত হীরে; কনসেপ্ট চুরি করে কেউ অগ্রণী নোবেলের সন্মান পান মারকনি; রেষারেষি নেই কোন সাড়ি, চুড়িদারে, সগর্বে ঘোরে কেউ বারমুডা পড়ে; এঁচোড়ে কি চোরে খায়,রীতিমত ভাবি কেউ সাধে রুটি দিয়ে চচ্চড়ি খাবি? ইস্কুলে যায় কেউ সাইকেল চড়ে কি বিপদ গেল কই? নিল নাকি চোরে? কচুরিতে প্রাতরাশ জিলিপির প্যাঁচে সবকিছু নিঃশেষ দেখি শেষ ব্যাচে; ছায়া চুরি, খোলা মাঠে খটখটে রোদে টিফিনে তো চুরি যেত পাউরুটি বোঁদে; সুর চুরি হলে সোজা যেও আদালতে গল্পের প্লট চুরি হয় বাঁধা গতে; কেউ বলে দেখছকি মেশে তেলে জলে ছোটোখাটো চুরি? সেতো করে সক্কলে; কেউ বলে, আমি চোর? বাকি সব সাধু? পুকুর যে চুরি গেল, দেখলেনা চাঁদু; মিছিলেতে হেটে কেউ রাঙা প্রতিবাদে গুণীজনও চুরি করে, দেখি সংবাদে; পোস্টারে বলে কেউ সব্বাই চোর বল দেখি কি কারনে মাথাব্যাথা তোর? স্পেকট্রাম চুরি হয়, চুরি কোল গেটে, পাসওয়ার্ড চুরি যায় রেগুলার নেটে; চুরি নিয়ে আলোচনা আনন্দ,স্টারে বুঝে গেছি মোটামুটি বাঁশ কেন ঝরে ? চোরেদের সভা ছেড়ে ভয়ানক রাগে প্রতিবাদী বাম নেতা বহুদিন আগে; তারপর চোরে চোরে মাসতুত ভ্রাতা সংসদে 'কালিধন',হাতে কালো ছাতা; মিছিমিছি বকো, আগে হোক প্রমানিত মোবাইল, ট্যাব চুরি যায় নিয়মিত; কেউ বলে আমি চোর? অভিমান ভরে, জান যদি বল কেন এতদিন পড়ে? মার গলা বড় হলে,ছেলে বুঝি চোর? এ তো শুধু অনুমান, ভুল উত্তর; আইনত সমাদর পাক চুরি, চোরে চোরকাঁটা, চোরাবালি, চোরাস্রোত ধরে।।
Romanized Version
বাঁশ কেন ঝরে : বাঁশ কেন ঝরে দিয়ে কবিতা : কেউ করে ফুলচুরি রোজ রাতভোরে কেউ বলে সংসদ ভরে গেছে চোরে; বইচুরি করে কেউ উদাসীন মুখে সময়ও তো চুরি যায় বলে নিন্দুকে; প্রেমিকার মন চুরি নানা ছলেবলে জানিনাকি মতলব আছে তলে তলে; ছ- সেকেন্ড চুরি যায় প্রতি বৎসরে পুঁথি দেখ, লেখা আছে ছাপা অক্ষরে; অপিসের বড়বাবু, গোঁফ গেল চুরি কবিতায় সুকুমার নেই তার জুড়ি; প্রচলিত চোরে চুরি করে রাত্তিরে থালা, বাটি, গ্লাস, জুত, জহরত হীরে; কনসেপ্ট চুরি করে কেউ অগ্রণী নোবেলের সন্মান পান মারকনি; রেষারেষি নেই কোন সাড়ি, চুড়িদারে, সগর্বে ঘোরে কেউ বারমুডা পড়ে; এঁচোড়ে কি চোরে খায়,রীতিমত ভাবি কেউ সাধে রুটি দিয়ে চচ্চড়ি খাবি? ইস্কুলে যায় কেউ সাইকেল চড়ে কি বিপদ গেল কই? নিল নাকি চোরে? কচুরিতে প্রাতরাশ জিলিপির প্যাঁচে সবকিছু নিঃশেষ দেখি শেষ ব্যাচে; ছায়া চুরি, খোলা মাঠে খটখটে রোদে টিফিনে তো চুরি যেত পাউরুটি বোঁদে; সুর চুরি হলে সোজা যেও আদালতে গল্পের প্লট চুরি হয় বাঁধা গতে; কেউ বলে দেখছকি মেশে তেলে জলে ছোটোখাটো চুরি? সেতো করে সক্কলে; কেউ বলে, আমি চোর? বাকি সব সাধু? পুকুর যে চুরি গেল, দেখলেনা চাঁদু; মিছিলেতে হেটে কেউ রাঙা প্রতিবাদে গুণীজনও চুরি করে, দেখি সংবাদে; পোস্টারে বলে কেউ সব্বাই চোর বল দেখি কি কারনে মাথাব্যাথা তোর? স্পেকট্রাম চুরি হয়, চুরি কোল গেটে, পাসওয়ার্ড চুরি যায় রেগুলার নেটে; চুরি নিয়ে আলোচনা আনন্দ,স্টারে বুঝে গেছি মোটামুটি বাঁশ কেন ঝরে ? চোরেদের সভা ছেড়ে ভয়ানক রাগে প্রতিবাদী বাম নেতা বহুদিন আগে; তারপর চোরে চোরে মাসতুত ভ্রাতা সংসদে 'কালিধন',হাতে কালো ছাতা; মিছিমিছি বকো, আগে হোক প্রমানিত মোবাইল, ট্যাব চুরি যায় নিয়মিত; কেউ বলে আমি চোর? অভিমান ভরে, জান যদি বল কেন এতদিন পড়ে? মার গলা বড় হলে,ছেলে বুঝি চোর? এ তো শুধু অনুমান, ভুল উত্তর; আইনত সমাদর পাক চুরি, চোরে চোরকাঁটা, চোরাবালি, চোরাস্রোত ধরে।।Bansh Can Jhare Bansh Can Jhare Diye Kavita Keu Kare Fulchuri Rose Ratbhore Keu Ble Sansad Bhare Gechhe Chore Baichuri Kare Keu Udasin Mukhe Samayao Toh Churi Jay Ble Ninduke Premikar Mon Churi Nana Chhalebale Janinaki Matlab Ache Tale Tale Chh Second Churi Jay Prati Btsare Punthi Dekho Lekha Ache Chhapa Aksaray Apiser Barababu Gonf Gel Churi Kabitay Sukumar Nei Taur Juri Prachalit Chore Churi Kare Rattire Thala Bati Glass Jut Jaharat Hire Kanasepta Churi Kare Keu Agrani Nobeler Sanman Pene Marakani Reshareshi Nei Koun Sari Churidare Sagarbe Ghore Keu Barmuda Pare Enchore Ki Chore Khay Ritimat Bhabi Keu Sadhe Ruti Diye Chachchari Khabi Iskule Jay Keu Saikel Chare Ki Bipad Gel Kai Nil Naki Chore Kachurite Pratarash Jilipir Pyanche Sabakichhu Nihshesh Dekhi Sesh Byache Chhaya Churi Khola Mathe Khatakhate Rode Tifine Toh Churi Jet Pauruti Bonde Sur Churi Hale Soja Jeo Adalate Galper Plot Churi Hay Bandha Gate Keu Ble Dekhachhaki Meshe Tele Jale Chhotokhato Churi Seto Kare Sakkale Keu Ble Aami Chor Bace Sab Sadhu Pukur Je Churi Gel Dekhlena Chandu Michhilete Hete Keu Ranga Pratibade Gunijanao Churi Kare Dekhi Sangbade Postare Ble Keu Sabbai Chor Ball Dekhi Ki Karne Mathabyatha Tor Spectrum Churi Hay Churi Coll Gete Pasward Churi Jay Regular Nete Churi Niye Alochana Ananth Stare Bujhe Gechhi Motamuti Bansh Can Jhare Choreder Subha Chhere Bhayanak Rage Pratibadi Bam Neta Bahudin Age Tarapar Chore Chore Mastut Bhrata Sansade Kalidhan Hate Kalo Chhata Michhimichhi Bako Age Hoek Pramanit Mobile Tab Churi Jay Niymit Keu Ble Aami Chor Abhiman Bhare Jaan Jodi Ball Can Etadin Pare Mar Gola Bar Hale Chhele Bujhi Chor A Toh Shudhu Anuman Bhool Uttar Ainat Samadar Pak Churi Chore Chorakanta Chorabali Chorasrot Dhare
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Bansh Can Jhare,Why Bamboo Falls?,


vokalandroid