আইন 2017 সম্বন্ধে আলোচনা কর। ...

সব দাবী-দাওয়াকে এক ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে সংসদে পাশ হয়ে গেল ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন 2017 ’। মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ই থাকছে, ছেলেদের থাকছে ২১। তবে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ আদালতের নির্দেশে ও বাবা মায়ের সম্মতিতে যেকোন অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের এবং ছেলেরও বিয়ে হতে পারবে। আইনটি পাশ হয়ে যাওয়ার পর স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে এই যে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ বিয়ের ক্ষেত্রে নির্ধারিত বয়সের আগেই মেয়ে অথবা ছেলেকে যে বিয়ে দেয়া যাবে, এই বয়সটাও কিন্তু নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে আমরা কি ধরে নেবো এই বিশেষ বিধানের ক্ষেত্রে যেকোন বয়সেই শিশুর বিয়ে দেয়া যাবে? অথবা এটা কি বলা যাবে, বাংলাদেশে ‘বিয়ের ন্যূনতম বয়স শূন্য’? এই বিশেষ বিধানের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীরা এমনটাই মনে করছেন। আসলে একটি গুরুত্বপূর্ণ ও বড় ধরনের আইন যখন এরকম একটি দুর্বল বিশেষ বিধান রেখে পাশ হয়ে যায়, তখনতো বলতেই হবে আমরা পেছনে হাঁটলাম। আইনের এই বিশেষ বিধানটি যে স্বার্থান্বেষী মানুষ মন্দভাবে ব্যবহার করবে, তা সহজে অনুমেয়। এই বিশেষ ক্ষেত্রে ১৮ এর নীচে ঠিক কত বছর বয়সে বিয়ে হতে পারে, তা আইনে নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। সমস্যাটা কিন্তু এখানেই। আমাদের আপত্তিটাও এই ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ শীর্ষক ব্যতিক্রমটা নিয়ে। আইনের এই ফাঁকটিরই যথেচ্ছ ব্যবহার করবে অভিভাবকরা। কারণ আমাদের সমাজে এখনও ১১/১২ বছর বয়সের বিয়েটাকেই বাল্য বিয়ে বলে মনে করা হয়। অধিকাংশ মানুষই মনে করে মেয়েদের বিয়ের উপযুক্ত বয়স ১৪ থেকে ১৫। এ প্রসঙ্গে আশঙ্কা প্রকাশ করে সিভিল সোসাইটির সম্মিলিত গ্রুপ ‘গার্লস নট ব্রাইডস’, বলেছে, ‘আমরা আতংকিত যে নয়া এই আইন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনাকে বৈধতা দেয়ার, ধর্ষককে বিয়ে করার ব্যাপারে বাবা-মা মেয়ের উপর চাপ সৃষ্টির ঘটনা এবং সর্বোপরি বাল্যবিয়েতে এগিয়ে থাকা দেশটিতে বাল্যবিয়ের প্রবণতা আরও বাড়াবে।’ তারা এটাও মনে করে যে এই আইন শিশু ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি করবে। ২০১৩ থেকে ২০১৫ সালে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন, ব্র্যাক, ইউনিসেফ, আইসিডিডিআরবি ও প্ল্যান বাংলাদেশের পৃথক গবেষণায় দেখা গেছে আইনত নিষিদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশে বাল্যবিয়ে হচ্ছে। এর হার কমবেশি ৬৪ শতাংশ। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে ৬৫ শতাংশ মেয়ের বিয়ের গড় বয়স ১৫ দশমিক ৫৩। তবে সবচেয়ে ভয়ের ব্যাপার হলো দেশে এখনও ১০ বছরের নীচে মেয়েদের বিয়ে হচ্ছে। ১২ বছরের আগেই ২ দশমিক ২৬ শতাংশ মেয়ে বাল্যবিয়ের শিকার হচ্ছে।
Romanized Version
সব দাবী-দাওয়াকে এক ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে সংসদে পাশ হয়ে গেল ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন 2017 ’। মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ই থাকছে, ছেলেদের থাকছে ২১। তবে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ আদালতের নির্দেশে ও বাবা মায়ের সম্মতিতে যেকোন অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের এবং ছেলেরও বিয়ে হতে পারবে। আইনটি পাশ হয়ে যাওয়ার পর স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে এই যে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ বিয়ের ক্ষেত্রে নির্ধারিত বয়সের আগেই মেয়ে অথবা ছেলেকে যে বিয়ে দেয়া যাবে, এই বয়সটাও কিন্তু নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে আমরা কি ধরে নেবো এই বিশেষ বিধানের ক্ষেত্রে যেকোন বয়সেই শিশুর বিয়ে দেয়া যাবে? অথবা এটা কি বলা যাবে, বাংলাদেশে ‘বিয়ের ন্যূনতম বয়স শূন্য’? এই বিশেষ বিধানের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীরা এমনটাই মনে করছেন। আসলে একটি গুরুত্বপূর্ণ ও বড় ধরনের আইন যখন এরকম একটি দুর্বল বিশেষ বিধান রেখে পাশ হয়ে যায়, তখনতো বলতেই হবে আমরা পেছনে হাঁটলাম। আইনের এই বিশেষ বিধানটি যে স্বার্থান্বেষী মানুষ মন্দভাবে ব্যবহার করবে, তা সহজে অনুমেয়। এই বিশেষ ক্ষেত্রে ১৮ এর নীচে ঠিক কত বছর বয়সে বিয়ে হতে পারে, তা আইনে নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। সমস্যাটা কিন্তু এখানেই। আমাদের আপত্তিটাও এই ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ শীর্ষক ব্যতিক্রমটা নিয়ে। আইনের এই ফাঁকটিরই যথেচ্ছ ব্যবহার করবে অভিভাবকরা। কারণ আমাদের সমাজে এখনও ১১/১২ বছর বয়সের বিয়েটাকেই বাল্য বিয়ে বলে মনে করা হয়। অধিকাংশ মানুষই মনে করে মেয়েদের বিয়ের উপযুক্ত বয়স ১৪ থেকে ১৫। এ প্রসঙ্গে আশঙ্কা প্রকাশ করে সিভিল সোসাইটির সম্মিলিত গ্রুপ ‘গার্লস নট ব্রাইডস’, বলেছে, ‘আমরা আতংকিত যে নয়া এই আইন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনাকে বৈধতা দেয়ার, ধর্ষককে বিয়ে করার ব্যাপারে বাবা-মা মেয়ের উপর চাপ সৃষ্টির ঘটনা এবং সর্বোপরি বাল্যবিয়েতে এগিয়ে থাকা দেশটিতে বাল্যবিয়ের প্রবণতা আরও বাড়াবে।’ তারা এটাও মনে করে যে এই আইন শিশু ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি করবে। ২০১৩ থেকে ২০১৫ সালে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন, ব্র্যাক, ইউনিসেফ, আইসিডিডিআরবি ও প্ল্যান বাংলাদেশের পৃথক গবেষণায় দেখা গেছে আইনত নিষিদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশে বাল্যবিয়ে হচ্ছে। এর হার কমবেশি ৬৪ শতাংশ। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে ৬৫ শতাংশ মেয়ের বিয়ের গড় বয়স ১৫ দশমিক ৫৩। তবে সবচেয়ে ভয়ের ব্যাপার হলো দেশে এখনও ১০ বছরের নীচে মেয়েদের বিয়ে হচ্ছে। ১২ বছরের আগেই ২ দশমিক ২৬ শতাংশ মেয়ে বাল্যবিয়ের শিকার হচ্ছে। Sab Dabi Dawake Ec Futkare Uriye Diye Sansade Pash Huye Gel ‘balyabibah Nirodh Ain 2017 ’ Meyeder Biyer Boy 18i Thakchhe Chheleder Thakchhe 21 Tove ‘bishesh Xetreo Evan ‘sarbottam Swartheo Adalter Nirdeshe O Baba Mayer Sammatite Jekon Apraptabayask Meyer Evan Chhelerao Bie Hate Parbe Ainati Pash Huye Jawar Par Swabhabatai Prashna Uthechhe AE Je ‘bishesh Xetreo Evan ‘sarbottam Swartheo Biyer Xetre Nirdharit Bayaser Agei Meye Athaba Chheleke Je Bie Dea Jabe AE Bayasatao Kintu Nirdharan Kara Hayani Fale Amara Ki Dhare Nebo AE Vishesha Bidhaner Xetre Jekon Bayasei Shishur Bie Dea Jabe Athaba Etah Ki Bala Jabe Bangladeshe ‘biyer Nyunatam Boy Shunyo AE Vishesha Bidhaner Biruddhe Andolanakarira Emanatai Money Karachhen Ashley Ekati Gurutbapurna O Bar Dharaner Ain Jakhan Erakam Ekati Durbal Vishesha Bidhan Rekhe Pash Huye Jay Takhanato Balatei Habe Amara Pechhne Hantalam Ainer AE Vishesha Bidhanati Je Swarthanweshi Manus Mandabhabe Byabahar Karabe Ta Sahaje Anumey AE Vishesha Xetre 18 Aare Niche Thik Kat Bachhar Bayase Bie Hate Pare Ta Aine Nirdishta Kare Bala Hayani Samasyata Kintu Ekhanei Amader Apattitao AE ‘sarbottam Swartheo Sheershak Byatikramata Niye Ainer AE Fankatirai Jathechchh Byabahar Karabe Abhibhabakara Karan Amader Samaje Ekhanao 11 12 Bachhar Bayaser Biyetakei Balya Bie Ble Money Kara Hya Adhikangsh Manushi Money Kare Meyeder Biyer Upajukta Boy 14 Theke 15 A Prasange Ashanka Prakash Kare Civil Sosaitir Sammilit Group ‘girls Not Braidaso Balechhe ‘amara Atankit Je Nea AE Ain Nirjatan O Dharshaner Ghatanake Baidhta Their Dharshakake Bie Karar Byapare Baba MA Meyer Upar Chap Srishtir Ghatana Evan Sarbopari Balyabiyete Egiye Thaka Deshtite Balyabiyer Prabanata RO Barabe ’ Tara Etao Money Kare Je AE Ain Sishu Dharshan O Jaun Nirjataner Ghatana Briddhi Karabe 2013 Theke 2015 Sale Manusher Janya Foundation Bryak Yunisef ICDDRB O Plan Bangladesher Prithak Gabeshnay Dekha Gechhe Ainat Nishiddha Hwa Sattbeo Bangladeshe Balyabiye Hachchhe Aare Her Kamabeshi 64 Shatangsh Manusher Janya Faundeshaner Gabeshnay Dekha Gechhe Bangladeshe 65 Shatangsh Meyer Biyer Gade Boy 15 Dashamik 53 Tove Sabacheye Bhayer Byapar Holo Deshe Ekhanao 10 Bachharer Niche Meyeder Bie Hachchhe 12 Bachharer Agei 2 Dashamik 26 Shatangsh Meye Balyabiyer Shikar Hachchhe
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


আইন 2017 : সব দাবী-দাওয়াকে এক ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে সংসদে পাশ হয়ে গেল ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন 2017 ’। মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ই থাকছে, ছেলেদের থাকছে ২১। তবে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ আদালতের নির্দেশে ও বাবা মায়ের সম্মতিতে যেকোন অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের এবং ছেলেরও বিয়ে হতে পারবে। আইনটি পাশ হয়ে যাওয়ার পর স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে এই যে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ বিয়ের ক্ষেত্রে নির্ধারিত বয়সের আগেই মেয়ে অথবা ছেলেকে যে বিয়ে দেয়া যাবে, এই বয়সটাও কিন্তু নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে আমরা কি ধরে নেবো এই বিশেষ বিধানের ক্ষেত্রে যেকোন বয়সেই শিশুর বিয়ে দেয়া যাবে? অথবা এটা কি বলা যাবে, বাংলাদেশে ‘বিয়ের ন্যূনতম বয়স শূন্য’? এই বিশেষ বিধানের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীরা এমনটাই মনে করছেন। আসলে একটি গুরুত্বপূর্ণ ও বড় ধরনের আইন যখন এরকম একটি দুর্বল বিশেষ বিধান রেখে পাশ হয়ে যায়, তখনতো বলতেই হবে আমরা পেছনে হাঁটলাম। আইনের এই বিশেষ বিধানটি যে স্বার্থান্বেষী মানুষ মন্দভাবে ব্যবহার করবে, তা সহজে অনুমেয়। এই বিশেষ ক্ষেত্রে ১৮ এর নীচে ঠিক কত বছর বয়সে বিয়ে হতে পারে, তা আইনে নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। সমস্যাটা কিন্তু এখানেই। আমাদের আপত্তিটাও এই ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ শীর্ষক ব্যতিক্রমটা নিয়ে। আইনের এই ফাঁকটিরই যথেচ্ছ ব্যবহার করবে অভিভাবকরা। কারণ আমাদের সমাজে এখনও ১১/১২ বছর বয়সের বিয়েটাকেই বাল্য বিয়ে বলে মনে করা হয়। অধিকাংশ মানুষই মনে করে মেয়েদের বিয়ের উপযুক্ত বয়স ১৪ থেকে ১৫। এ প্রসঙ্গে আশঙ্কা প্রকাশ করে সিভিল সোসাইটির সম্মিলিত গ্রুপ ‘গার্লস নট ব্রাইডস’, বলেছে, ‘আমরা আতংকিত যে নয়া এই আইন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনাকে বৈধতা দেয়ার, ধর্ষককে বিয়ে করার ব্যাপারে বাবা-মা মেয়ের উপর চাপ সৃষ্টির ঘটনা এবং সর্বোপরি বাল্যবিয়েতে এগিয়ে থাকা দেশটিতে বাল্যবিয়ের প্রবণতা আরও বাড়াবে।’ তারা এটাও মনে করে যে এই আইন শিশু ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি করবে। বিয়ের বয়স কমানোর আইনের বিতর্ক তুঙ্গে উঠে যখন ফেব্রুয়ারিতে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন সংসদে পাশ হয়৷ সরকারের দাবি, এই আইন ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে বাল্যবিবাহমুক্ত করবে৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাল্যবিবাহ বাড়বে৷ ২০১৪ সালের গার্লস সামিটের পর থেকেই, বাংলাদেশে বিবাহের নূন্যতম বয়স কমিয়ে আনার বিষয়টি আলোচনায় আসে৷ এ বছর ফেব্রুয়ারির ২৭ তারিখে সংসদে ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন- 2017 ' পাশ হয়৷ এ আইন পাশের ফলে, ব্রিটিশ আমলে প্রণীত, ‘চাইল্ড ম্যারেজ রেসট্রেইন্ট অ্যাক্ট-১৯২৯' বাতিল হয়ে যায়৷ নতুন আইন পাশের পরপরই আইনটির ধারা-১৯ নিয়ে নানান বিতর্ক ওঠে৷ বর্তমান সরকার বাল্যবিবাহে, ধর্ষকের সাথে বিবাহে অনুমোদন দিচ্ছে– এমন বক্তব্য উঠে আসতে থাকে বিভিন্ন মহল থেকে৷ হাইকোর্টের বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ ঢাকায় একটি সেমিনারে আইনটিকে সংবিধানের মূলনীতির সঙ্গে ‘সাংঘর্ষিক' অভিহিত করে তা সংশোধনের আহ্বান জানান৷ এরপর জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি ও নারীপক্ষ হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করে৷ রিটের প্রেক্ষিতে, বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও জেবিএম হাসানের বেঞ্চ হাইকোর্টে ১০ এপ্রিল, 2017 তারিখে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের বিশেষ বিধান সংবিধানের সঙ্গে কেন ‘সাংঘর্ষিক' ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দেন৷ তবে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী জনাব আনিসুল হক জানান, ‘‘এই বিশেষ বিধান নতুন আইনকে সুরক্ষা দেওয়া এবং কেউ যদি অপ্রাপ্ত বয়সে সন্তান ধারণ করে ফেলে, তাহলে সন্তানটি যেন পিতামাতার বয়সজনিত কারণে অবৈধ হয়ে না যায়, তাই রাখা হয়েছে৷''
Romanized Version
আইন 2017 : সব দাবী-দাওয়াকে এক ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে সংসদে পাশ হয়ে গেল ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন 2017 ’। মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ই থাকছে, ছেলেদের থাকছে ২১। তবে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ আদালতের নির্দেশে ও বাবা মায়ের সম্মতিতে যেকোন অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের এবং ছেলেরও বিয়ে হতে পারবে। আইনটি পাশ হয়ে যাওয়ার পর স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে এই যে ‘বিশেষ ক্ষেত্রে’ এবং ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ বিয়ের ক্ষেত্রে নির্ধারিত বয়সের আগেই মেয়ে অথবা ছেলেকে যে বিয়ে দেয়া যাবে, এই বয়সটাও কিন্তু নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে আমরা কি ধরে নেবো এই বিশেষ বিধানের ক্ষেত্রে যেকোন বয়সেই শিশুর বিয়ে দেয়া যাবে? অথবা এটা কি বলা যাবে, বাংলাদেশে ‘বিয়ের ন্যূনতম বয়স শূন্য’? এই বিশেষ বিধানের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীরা এমনটাই মনে করছেন। আসলে একটি গুরুত্বপূর্ণ ও বড় ধরনের আইন যখন এরকম একটি দুর্বল বিশেষ বিধান রেখে পাশ হয়ে যায়, তখনতো বলতেই হবে আমরা পেছনে হাঁটলাম। আইনের এই বিশেষ বিধানটি যে স্বার্থান্বেষী মানুষ মন্দভাবে ব্যবহার করবে, তা সহজে অনুমেয়। এই বিশেষ ক্ষেত্রে ১৮ এর নীচে ঠিক কত বছর বয়সে বিয়ে হতে পারে, তা আইনে নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। সমস্যাটা কিন্তু এখানেই। আমাদের আপত্তিটাও এই ‘সর্বোত্তম স্বার্থে’ শীর্ষক ব্যতিক্রমটা নিয়ে। আইনের এই ফাঁকটিরই যথেচ্ছ ব্যবহার করবে অভিভাবকরা। কারণ আমাদের সমাজে এখনও ১১/১২ বছর বয়সের বিয়েটাকেই বাল্য বিয়ে বলে মনে করা হয়। অধিকাংশ মানুষই মনে করে মেয়েদের বিয়ের উপযুক্ত বয়স ১৪ থেকে ১৫। এ প্রসঙ্গে আশঙ্কা প্রকাশ করে সিভিল সোসাইটির সম্মিলিত গ্রুপ ‘গার্লস নট ব্রাইডস’, বলেছে, ‘আমরা আতংকিত যে নয়া এই আইন নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনাকে বৈধতা দেয়ার, ধর্ষককে বিয়ে করার ব্যাপারে বাবা-মা মেয়ের উপর চাপ সৃষ্টির ঘটনা এবং সর্বোপরি বাল্যবিয়েতে এগিয়ে থাকা দেশটিতে বাল্যবিয়ের প্রবণতা আরও বাড়াবে।’ তারা এটাও মনে করে যে এই আইন শিশু ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি করবে। বিয়ের বয়স কমানোর আইনের বিতর্ক তুঙ্গে উঠে যখন ফেব্রুয়ারিতে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন সংসদে পাশ হয়৷ সরকারের দাবি, এই আইন ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে বাল্যবিবাহমুক্ত করবে৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাল্যবিবাহ বাড়বে৷ ২০১৪ সালের গার্লস সামিটের পর থেকেই, বাংলাদেশে বিবাহের নূন্যতম বয়স কমিয়ে আনার বিষয়টি আলোচনায় আসে৷ এ বছর ফেব্রুয়ারির ২৭ তারিখে সংসদে ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন- 2017 ' পাশ হয়৷ এ আইন পাশের ফলে, ব্রিটিশ আমলে প্রণীত, ‘চাইল্ড ম্যারেজ রেসট্রেইন্ট অ্যাক্ট-১৯২৯' বাতিল হয়ে যায়৷ নতুন আইন পাশের পরপরই আইনটির ধারা-১৯ নিয়ে নানান বিতর্ক ওঠে৷ বর্তমান সরকার বাল্যবিবাহে, ধর্ষকের সাথে বিবাহে অনুমোদন দিচ্ছে– এমন বক্তব্য উঠে আসতে থাকে বিভিন্ন মহল থেকে৷ হাইকোর্টের বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ ঢাকায় একটি সেমিনারে আইনটিকে সংবিধানের মূলনীতির সঙ্গে ‘সাংঘর্ষিক' অভিহিত করে তা সংশোধনের আহ্বান জানান৷ এরপর জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি ও নারীপক্ষ হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করে৷ রিটের প্রেক্ষিতে, বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও জেবিএম হাসানের বেঞ্চ হাইকোর্টে ১০ এপ্রিল, 2017 তারিখে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের বিশেষ বিধান সংবিধানের সঙ্গে কেন ‘সাংঘর্ষিক' ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দেন৷ তবে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী জনাব আনিসুল হক জানান, ‘‘এই বিশেষ বিধান নতুন আইনকে সুরক্ষা দেওয়া এবং কেউ যদি অপ্রাপ্ত বয়সে সন্তান ধারণ করে ফেলে, তাহলে সন্তানটি যেন পিতামাতার বয়সজনিত কারণে অবৈধ হয়ে না যায়, তাই রাখা হয়েছে৷'' Ain 2017 : Sab Dabi Dawake Ec Futkare Uriye Diye Sansade Pash Huye Gel ‘balyabibah Nirodh Ain 2017 ’ Meyeder Biyer Boy 18i Thakchhe Chheleder Thakchhe 21 Tove ‘bishesh Xetreo Evan ‘sarbottam Swartheo Adalter Nirdeshe O Baba Mayer Sammatite Jekon Apraptabayask Meyer Evan Chhelerao Bie Hate Parbe Ainati Pash Huye Jawar Par Swabhabatai Prashna Uthechhe AE Je ‘bishesh Xetreo Evan ‘sarbottam Swartheo Biyer Xetre Nirdharit Bayaser Agei Meye Athaba Chheleke Je Bie Dea Jabe AE Bayasatao Kintu Nirdharan Kara Hayani Fale Amara Ki Dhare Nebo AE Vishesha Bidhaner Xetre Jekon Bayasei Shishur Bie Dea Jabe Athaba Etah Ki Bala Jabe Bangladeshe ‘biyer Nyunatam Boy Shunyo AE Vishesha Bidhaner Biruddhe Andolanakarira Emanatai Money Karachhen Ashley Ekati Gurutbapurna O Bar Dharaner Ain Jakhan Erakam Ekati Durbal Vishesha Bidhan Rekhe Pash Huye Jay Takhanato Balatei Habe Amara Pechhne Hantalam Ainer AE Vishesha Bidhanati Je Swarthanweshi Manus Mandabhabe Byabahar Karabe Ta Sahaje Anumey AE Vishesha Xetre 18 Aare Niche Thik Kat Bachhar Bayase Bie Hate Pare Ta Aine Nirdishta Kare Bala Hayani Samasyata Kintu Ekhanei Amader Apattitao AE ‘sarbottam Swartheo Sheershak Byatikramata Niye Ainer AE Fankatirai Jathechchh Byabahar Karabe Abhibhabakara Karan Amader Samaje Ekhanao 11 12 Bachhar Bayaser Biyetakei Balya Bie Ble Money Kara Hya Adhikangsh Manushi Money Kare Meyeder Biyer Upajukta Boy 14 Theke 15 A Prasange Ashanka Prakash Kare Civil Sosaitir Sammilit Group ‘girls Not Braidaso Balechhe ‘amara Atankit Je Nea AE Ain Nirjatan O Dharshaner Ghatanake Baidhta Their Dharshakake Bie Karar Byapare Baba MA Meyer Upar Chap Srishtir Ghatana Evan Sarbopari Balyabiyete Egiye Thaka Deshtite Balyabiyer Prabanata RO Barabe ’ Tara Etao Money Kare Je AE Ain Sishu Dharshan O Jaun Nirjataner Ghatana Briddhi Karabe Biyer Boy Kamanor Ainer Bitark Tunge Uthe Jakhan Februyarite Balyabibah Nirodh Ain Sansade Pash Hayar Sorcerer Dabi AE Ain 2041 Saler Madhye Deshke Balyabibahmukta Karaber Bisheshagyara Balachhen Balyabibah Barber 2014 Saler Girls Samiter Par Thekei Bangladeshe Bibaher Nunyatam Boy Kamiye Anar Bishayati Alochnay Aser A Bachhar Februyarir 27 Tarikhe Sansade ‘balyabibah Nirodh Ain 2017 ' Pash Hayar A Ain Pasher Fale British Amole Pranit ‘child Marriage Resatreinta Act 1929 Batil Huye Jayar NATUN Ain Pasher Paraparai Ainatir Dhara 19 Niye Nanan Bitark Other Bartaman Sarkar Balyabibahe Dharshaker Sathe Bibahe Anumodan Dichchhe– Eman Baktabya Uthe Asate Thake Bibhinna Mahal Theker Haikorter Bicharapati Krishna Debnath Dhakay Ekati Seminare Ainatike Sangbidhaner Mulnitir Sange ‘sangharshik Abhihit Kare Ta Sangshodhner Ahban Jananar Erapar Jatiya Mahila Ainajibi Samiti O Naripaksh Haikorte Ekati Rit Abedan Karer Riter Prekshite Bicharapati Mainul Islam Choudhury O JBM Hasaner Bench Haikorte 10 April 2017 Tarikhe Balyabibah Nirodh Ainer Vishesha Bidhan Sangbidhaner Sange Can ‘sangharshik Ghoshna Kara Habe Na Ta Jante Cheye Rule Denar Tove Ain Bichar O Sansad Bishayak Mantri Janab Anisul Haque Janan ‘‘AE Vishesha Bidhan NATUN Ainake Suraksha Dewa Evan Keu Jodi Aprapta Bayase Santan Dharan Kare Fele Tahle Santanati Jen Pitamatar Bayasajanit Karne Abaidh Huye Na Jay Tai Rakha Hayechher
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Ain 2017 Sombondhe Alochana Kor,Discuss The Law 2017.,


vokalandroid