শিশুদের খর্বকায়তারোধে পরিচ্ছন্নতা ও অভ্যাসগত পরিবর্তন কেন জরুরি ? ...

অফিসের বস পদবীর ব্যক্তিরা কম কথা বলে আবার পিয়ন চাপরাসিরা নাকি বেশি কথা বলে । কেউ বলেন খোলা দিল ওয়ালা মানুষরা বেশি কথা বলেন আর প্যাচ ওয়ালা মনের মানুষরা কম কথা বলেন। পুরুষরা নাকি কম কথা বলেন আর নারীরা নাকি বেশি কথা বলেন । বিজ্ঞানীরা বলেন, কথা কম বলা বেশি বলা মানুষের অভ্যাসগত ব্যাপার ।
Romanized Version
অফিসের বস পদবীর ব্যক্তিরা কম কথা বলে আবার পিয়ন চাপরাসিরা নাকি বেশি কথা বলে । কেউ বলেন খোলা দিল ওয়ালা মানুষরা বেশি কথা বলেন আর প্যাচ ওয়ালা মনের মানুষরা কম কথা বলেন। পুরুষরা নাকি কম কথা বলেন আর নারীরা নাকি বেশি কথা বলেন । বিজ্ঞানীরা বলেন, কথা কম বলা বেশি বলা মানুষের অভ্যাসগত ব্যাপার । Afiser Bus Padabir Byaktira Com Katha Ble Abar Piyan Chaprasira Naki Bedshee Katha Ble Keu Baleno Khola Dil Wala Manushara Bedshee Katha Baleno Are Patch Wala Maner Manushara Com Katha Baleno Purushara Naki Com Katha Baleno Are Narira Naki Bedshee Katha Baleno Bigyanira Baleno Katha Com Bala Bedshee Bala Manusher Abhyasagat Byapar
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

শিশুদের সুন্দর ইসলামিক নাম ও অর্থসহ ছেলে শিশুদের সুন্দর ইসলামিক নাম গুলি কি? ...

আমার নাম ইব্রাহিম। ছোটকালে আব্বুকে যখন জিজ্ঞেস করুনলাম, এই নাম কেন রাখলা? আব্বু একটি হাদিস শোনালেন, “এক ব্যক্তি নামাজ পড়তনা, গুনাহগার ছিলো, কিন্তু তার নামটা কোন এক নবীর নামে ছিল। প্রতিদিন যখন লোকজন তাजवाब पढ़िये
ques_icon

সমাজ ও রাষ্ট্র সম্পর্কে লেখকের সুনির্দিষ্ট ধারণা থাকা জরুরি কেন ? ...

সমাজ ও রাষ্ট্র সম্পর্কে লেখকের সুনির্দিষ্ট ধারণা থাকা জরুরি বীর চট্টগ্রাম মঞ্চ আয়োজিত ৪৩তম মাসিক সাহিত্য সভায় বক্তারা বলেছেন, লিখতে হলে পড়তে হবে প্রচুর। মনে রাখতে হবে, লেখকের পথ বড়ই বিপদসংকুল। সমাজ ওजवाब पढ़िये
ques_icon

উপস্থাপনা/উপস্থাপনার প্রস্তুতি/উপস্থাপনায় যেগুলি জরুরি সেগুলি কী? ...

সঠিক প্রস্তুতিতে জনসম্মুখে কথা বলার বিষয়টি হতে পারে একটি উপভোগ্য অভিজ্ঞতা।আপনি যদি একজন সফল উদ্যোক্তা হতে চান কিংবা পেশাগত জীবনে সফল হতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই একজন ভালো উপস্থাপক হতে হবে।অনেকের ক্ষেত্जवाब पढ़िये
ques_icon

More Answers


শিশুদের সঠিক শারীরিক বিকাশের জন্য শুধু পুষ্টিকর খাবারই নয়, পরিচ্ছন্নতা ও অভ্যাসগত কিছু পরিবর্তনও জরুরি। সঠিকভাবে পুষ্টি ও স্যানিটেশন সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে না ওঠায় দেশে বর্তমানে ৫ বছরের কম বয়সী ৪০ ভাগ শিশুই কোনো না কোনো ভাবে খর্বাকায়তার শিকার। এজন্য সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে একযোগে কাজ করা প্রয়োজন। সোমবার ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ভোরের কাগজ সম্মেলন কক্ষে ’এ্যাপ্রোচ টু স্টানটিং ফ্রি ভিলেজেস‘ শীর্ষক এক কর্মশালায় বক্তারা এ অভিমত ব্যক্ত করেন। কর্মশালার সহযোগী আয়োজক ছিল উন্নয়ন সহযোগী টিম, কমিটমেন্ট কনসালটেন্স এবং স্পেস। মিডিয়া পার্টনার ছিল ভোরের কাগজ। কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুভাষ চন্দ্র সরকার। ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর রিয়াদ ইমাম মাহমুদ, ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের পরামর্শক মার্ক এলারি, ওয়াটার এইডের হেড অফ পলিসি এণ্ড অ্যাডভোকেসি শামীম আহমেদ, সোসাইটি ফর পিপলস একশন ইন চেঞ্জ এণ্ড ইক্যুইটি (স্পেস) এর নির্বাহী পরিচালক আজাহার আলী প্রামাণিক, ব্র্র্যাক প্রতিনিধি মামুন মিয়া, আডিএসকে এর নির্বাহী পরিচালক ড. দিবালোক সিংহা প্রমুখ কর্মশালায় অংশ নেন। ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত আলোচনা পর্বের সঞ্চালনা করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, খর্বাকৃতির অনেক কারণ আমাদের এখনো অজানা রয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে সচেতনতার অভাবে এই অপুষ্টির ঘটনা ঘটে। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার উদহারণ দিয়ে তিনি বলেন, তার পরিবারে সামর্থ্য ছিল টয়লেট তৈরি করার। কিন্তু এই টয়লেটের প্রয়োজনীয়তা তাদের জানা ছিল না। তাই তাদের কোনো টয়লেট ছিল না। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আগে আমরা শুধু ডায়রিয়া বা কলেরা প্রতিরোধেই স্যানিটেশনের প্রতি গুরুত্ব দিতাম। কিন্তু আজকের কর্মশালার মাধ্যমে এটা পরিষ্কার হলো যে খর্বাকৃতি রোধেও স্যানিটেশনের বিকল্প নেই। তাই সরকারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে যা করার আমরা তাই করব। ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর রিয়াদ ইমাম মাহমুদ তার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, এ দেশের অনেক শিশু তার বয়স অনুযায়ী সঠিকভাবে বাড়ছে না। এ বিষয়টি আমাদের অনেক ভাবিয়েছে। এই তাগিদ থেকে ম্যাক্স ২০১২ সালে খর্বাকৃতি শিশু-এ বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করে। তিনি বলেন, এই সমস্যা থেকে বের হয়ে আসার জন্য সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। গনমাধ্যম এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সরকার এবং বেসরকারি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাও ভূমিকা রাখতে পারে। তবে একক ভাবে কাজ করার চাইতে সমন্বিতভাবে কাজ করলে দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে। কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের পরামর্শক মার্ক এলারি। তিনি বলেন, এ দেশে বিশেষ করে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে অনেক শিশু বয়সের তুলনায় কম বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হচ্ছে। এদেশে ৫ বছরের কম বয়সী ৪০ শতাংশ শিশুই খর্বাকায়। এটা একটা ভয়াবহ সমস্যা। সাধারণত মনে করা হয় পুষ্টিহীনতার কারণে শিশুদের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। তবে কেবল পুষ্টি পুরণ করে এ সমস্যা থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব নয়। কারণ, শিশুদের খর্বকৃতির একটি কারণ পুষ্টিহীনতা। আক্রান্ত শিশুর ৩৩ শতাংশ পুষ্টিহীনতার কারণে কম বৃদ্ধি পায়। এ ছাড়া ডায়রিযাজনিত কারণে প্রায় আড়াই শতাংশ শিশু এ সমস্যার শিকার হয়। কিন্তু বাকি ৬৫ শতাংশ শিশু কী কারণে ছোট আকারের হয় তা এখনও সঠিকভাবে জানা যায়নি। এ ব্যাপারে আমরা কাজ করছি। মার্ক বলেন, আমাদের মনে হয়েছে, এ দেশের পরিবেশ এবং প্রতিবেশ এ সমস্যার জন্য অনেকটাই দায়ী। দেখা গেছে অনেক শিশু প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ করার পরও বাড়ছে না। কারণ শিশুটি পুষ্টি ধরে রাখতে পারছে না। পাকস্থলি সংক্রমনের কারণে শিশু এই পুষ্টি গ্রহণে অসমর্থ বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, ২ বছরের কম বয়সী শিশুর ক্ষেত্রে পাকস্থলি সংক্রমণের সমস্যা প্রবল। এর অন্যতম কারণ উন্মুক্তস্থানে মলমূত্র ত্যাগ। গ্রামাঞ্চলের সর্বস্তরের মানুষকে যদি এর অপকারিতা সম্পর্কে সচেতন হয় তা হলে এ সমস্যা অনেকটাই মোকাবেলা করা সম্ভব। মার্ক বলেন, মা-বাবার সচেতনতাও শিশুর শরীর বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। দেখা যায় যে, শিশু ৬ মাস বয়সের পর থেকে সবকিছু মুখে দিতে চায়। বাবা-মা এ ব্যাপারে সচেতন হলে শিশু জীবাণু সংক্রমণের হার অনেকটাই কমে যাবে। কর্মশালায় মুক্ত আলোচনায় ওয়াটার এইডের হেড অফ পলিসি এণ্ড অ্যাডভোকেসি শামীম আহমেদ বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশে স্বাস্থ্যখাতে সামগ্রিক উন্নতি হয়েছে। কিন্তু এখনও স্বাস্থ্যখাতে অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এর মধ্যে খর্বাকৃতির শিশু অন্যতম একটি। পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থাপনা সঠিক না হওয়া এই সমস্যার জন্য অনেকটাই দায়ী। এর উন্নয়ন ঘটানো গেলে দেশে খর্বাকায় শিশুর সংখ্যা কমে যাবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। ব্র্র্যাক প্রতিনিধি মামুন মিয়া বলেন, কেবল টীকা দিয়ে শিশুদের সব রোগ প্রতিরোধ করা যাবে না। পরিচছন্নতা ও খাবারের ধরণও রোগ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি বলেন, শিশুদের জিংক, আয়রণ, পটাসিয়ম ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধি খাবার সরবরাহ করতে হবে। এটাও শিশুর শরীর বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে। সোসাইটি ফর পিপলস একশন ইন চেঞ্জ এণ্ড ইক্যুইটি (স্পেস) এর নির্বাহী পরিচালক আজাহার আলী প্রামাণিক বলেন, বর্তমানে খাদ্যশস্য উৎপাদনে নানারকম রাসায়ণিক সার ব্যবহার করা হচ্ছে। এই খাবার কতটা পুষ্টিসমৃদ্ধ তা নিয়ে আরো গবেষণা দরকার। কর্মশালায় উপস্থিত আইডিএসকে এর নির্বাহী পরিচালক ড. দিবালোক সিংহা বলেন, আমাদের দেশের শিশুরা এখন যে হারে খর্বাকৃতির হচ্ছে তা ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। শুধু পানি ও স্যানিটেশন সমস্যা ছাড়াও আর কি কি কারণে শিশুরা এমন হচ্ছে তা নির্ধারণ করে সঠিক কর্মপদ্ধতির আলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারি ও বেসরকারিভাবে কাজ করতে হবে। শিশুর পুষিহীনতার অন্যতম কারণ মায়ের পুষ্টিহীনতা। এই কারণে মায়েদের স্বাস্থ্যের প্রতিও গুরুত্ব দিতে হবে। ইউএসটি’র নির্বাহী পরিচালক ড. আনোয়ার কামাল বলেন, খর্বাকৃতি শিশু হওয়ার পেছনে বিভিন্ন কারণ রয়েছে। শুধু স্যানিটেশন ও অপুষ্টিকর খাদ্যের কারণেই এটা হচ্ছে এমনটি বিবেচনা করা ঠিক নয়। সার্বিক পরিবেশও এর জন্য অন্যতম কারণ। গ্রামের মায়েরা স্বল্প শিক্ষিত হওয়ায় অনেক সময় সচেতন ভাবে শিশুদের যত্ন নিতে পারে না। তাই গ্রামের মায়েদের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কাজ করতে হবে। আমাদের একটি ধারণা পিতা-মাতার খর্বাকৃতির কারণে অনেক সময় শিশুরাও খর্বাকৃতির হয়। কিন্তু এটি শুধু ধারণা, বাস্তবে তা নয়। আশার কথা হলো, বাংলাদেশ যেভাবে স্যানিটেশন সমস্যাকে মোকাবেলা করেছে এই সমস্যাকেও স্বল্প সময়ের মধ্যে মোকাবেলা করতে পারবে। এই সমস্যা সমাধানের জন্য শুধু পরিবার নয় সমাজ ও রাষ্ট্রকেও এগিয়ে আসতে হবে। কমিটমেন্ট কনসালটেন্টেসের পরিচালক শফিউল আজম আহমেদ বলেন, ১০ বছর আগে মনে হয়েছিল স্যানিটেশন সমস্যা মোকাবেলা করতে আমরা ব্যর্থ হবো। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমরা তা মোকাবেলা করতে সম্পূর্ণ সফল হয়েছি। তাই এখন থেকে আমরা যদি শিশুদের খর্বাকৃতি রোধে কাজ করি তা হলে স্বল্প সময়ের আমরা তাও মোকাবেলা করতে সক্ষম হবো। এড ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের সুবোধ কে দাস বলেন, শিশুকে নিয়ে ভাবতে হলে আগে মা’কে নিয়ে ভাবতে হবে। মায়েদের খর্বাকৃতির কারণে শতকরা ১০ভাগ শিশুও খর্বাকৃতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে মায়েদের সচেতন হলে পরবর্তী প্রজন্ম খর্বাকৃতি রোধ করা সম্ভব।
Romanized Version
শিশুদের সঠিক শারীরিক বিকাশের জন্য শুধু পুষ্টিকর খাবারই নয়, পরিচ্ছন্নতা ও অভ্যাসগত কিছু পরিবর্তনও জরুরি। সঠিকভাবে পুষ্টি ও স্যানিটেশন সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে না ওঠায় দেশে বর্তমানে ৫ বছরের কম বয়সী ৪০ ভাগ শিশুই কোনো না কোনো ভাবে খর্বাকায়তার শিকার। এজন্য সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে একযোগে কাজ করা প্রয়োজন। সোমবার ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ভোরের কাগজ সম্মেলন কক্ষে ’এ্যাপ্রোচ টু স্টানটিং ফ্রি ভিলেজেস‘ শীর্ষক এক কর্মশালায় বক্তারা এ অভিমত ব্যক্ত করেন। কর্মশালার সহযোগী আয়োজক ছিল উন্নয়ন সহযোগী টিম, কমিটমেন্ট কনসালটেন্স এবং স্পেস। মিডিয়া পার্টনার ছিল ভোরের কাগজ। কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুভাষ চন্দ্র সরকার। ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর রিয়াদ ইমাম মাহমুদ, ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের পরামর্শক মার্ক এলারি, ওয়াটার এইডের হেড অফ পলিসি এণ্ড অ্যাডভোকেসি শামীম আহমেদ, সোসাইটি ফর পিপলস একশন ইন চেঞ্জ এণ্ড ইক্যুইটি (স্পেস) এর নির্বাহী পরিচালক আজাহার আলী প্রামাণিক, ব্র্র্যাক প্রতিনিধি মামুন মিয়া, আডিএসকে এর নির্বাহী পরিচালক ড. দিবালোক সিংহা প্রমুখ কর্মশালায় অংশ নেন। ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত আলোচনা পর্বের সঞ্চালনা করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, খর্বাকৃতির অনেক কারণ আমাদের এখনো অজানা রয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে সচেতনতার অভাবে এই অপুষ্টির ঘটনা ঘটে। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার উদহারণ দিয়ে তিনি বলেন, তার পরিবারে সামর্থ্য ছিল টয়লেট তৈরি করার। কিন্তু এই টয়লেটের প্রয়োজনীয়তা তাদের জানা ছিল না। তাই তাদের কোনো টয়লেট ছিল না। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আগে আমরা শুধু ডায়রিয়া বা কলেরা প্রতিরোধেই স্যানিটেশনের প্রতি গুরুত্ব দিতাম। কিন্তু আজকের কর্মশালার মাধ্যমে এটা পরিষ্কার হলো যে খর্বাকৃতি রোধেও স্যানিটেশনের বিকল্প নেই। তাই সরকারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে যা করার আমরা তাই করব। ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর রিয়াদ ইমাম মাহমুদ তার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, এ দেশের অনেক শিশু তার বয়স অনুযায়ী সঠিকভাবে বাড়ছে না। এ বিষয়টি আমাদের অনেক ভাবিয়েছে। এই তাগিদ থেকে ম্যাক্স ২০১২ সালে খর্বাকৃতি শিশু-এ বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করে। তিনি বলেন, এই সমস্যা থেকে বের হয়ে আসার জন্য সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। গনমাধ্যম এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সরকার এবং বেসরকারি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাও ভূমিকা রাখতে পারে। তবে একক ভাবে কাজ করার চাইতে সমন্বিতভাবে কাজ করলে দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে। কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের পরামর্শক মার্ক এলারি। তিনি বলেন, এ দেশে বিশেষ করে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে অনেক শিশু বয়সের তুলনায় কম বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হচ্ছে। এদেশে ৫ বছরের কম বয়সী ৪০ শতাংশ শিশুই খর্বাকায়। এটা একটা ভয়াবহ সমস্যা। সাধারণত মনে করা হয় পুষ্টিহীনতার কারণে শিশুদের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। তবে কেবল পুষ্টি পুরণ করে এ সমস্যা থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব নয়। কারণ, শিশুদের খর্বকৃতির একটি কারণ পুষ্টিহীনতা। আক্রান্ত শিশুর ৩৩ শতাংশ পুষ্টিহীনতার কারণে কম বৃদ্ধি পায়। এ ছাড়া ডায়রিযাজনিত কারণে প্রায় আড়াই শতাংশ শিশু এ সমস্যার শিকার হয়। কিন্তু বাকি ৬৫ শতাংশ শিশু কী কারণে ছোট আকারের হয় তা এখনও সঠিকভাবে জানা যায়নি। এ ব্যাপারে আমরা কাজ করছি। মার্ক বলেন, আমাদের মনে হয়েছে, এ দেশের পরিবেশ এবং প্রতিবেশ এ সমস্যার জন্য অনেকটাই দায়ী। দেখা গেছে অনেক শিশু প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ করার পরও বাড়ছে না। কারণ শিশুটি পুষ্টি ধরে রাখতে পারছে না। পাকস্থলি সংক্রমনের কারণে শিশু এই পুষ্টি গ্রহণে অসমর্থ বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, ২ বছরের কম বয়সী শিশুর ক্ষেত্রে পাকস্থলি সংক্রমণের সমস্যা প্রবল। এর অন্যতম কারণ উন্মুক্তস্থানে মলমূত্র ত্যাগ। গ্রামাঞ্চলের সর্বস্তরের মানুষকে যদি এর অপকারিতা সম্পর্কে সচেতন হয় তা হলে এ সমস্যা অনেকটাই মোকাবেলা করা সম্ভব। মার্ক বলেন, মা-বাবার সচেতনতাও শিশুর শরীর বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। দেখা যায় যে, শিশু ৬ মাস বয়সের পর থেকে সবকিছু মুখে দিতে চায়। বাবা-মা এ ব্যাপারে সচেতন হলে শিশু জীবাণু সংক্রমণের হার অনেকটাই কমে যাবে। কর্মশালায় মুক্ত আলোচনায় ওয়াটার এইডের হেড অফ পলিসি এণ্ড অ্যাডভোকেসি শামীম আহমেদ বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশে স্বাস্থ্যখাতে সামগ্রিক উন্নতি হয়েছে। কিন্তু এখনও স্বাস্থ্যখাতে অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। এর মধ্যে খর্বাকৃতির শিশু অন্যতম একটি। পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থাপনা সঠিক না হওয়া এই সমস্যার জন্য অনেকটাই দায়ী। এর উন্নয়ন ঘটানো গেলে দেশে খর্বাকায় শিশুর সংখ্যা কমে যাবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। ব্র্র্যাক প্রতিনিধি মামুন মিয়া বলেন, কেবল টীকা দিয়ে শিশুদের সব রোগ প্রতিরোধ করা যাবে না। পরিচছন্নতা ও খাবারের ধরণও রোগ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি বলেন, শিশুদের জিংক, আয়রণ, পটাসিয়ম ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধি খাবার সরবরাহ করতে হবে। এটাও শিশুর শরীর বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে। সোসাইটি ফর পিপলস একশন ইন চেঞ্জ এণ্ড ইক্যুইটি (স্পেস) এর নির্বাহী পরিচালক আজাহার আলী প্রামাণিক বলেন, বর্তমানে খাদ্যশস্য উৎপাদনে নানারকম রাসায়ণিক সার ব্যবহার করা হচ্ছে। এই খাবার কতটা পুষ্টিসমৃদ্ধ তা নিয়ে আরো গবেষণা দরকার। কর্মশালায় উপস্থিত আইডিএসকে এর নির্বাহী পরিচালক ড. দিবালোক সিংহা বলেন, আমাদের দেশের শিশুরা এখন যে হারে খর্বাকৃতির হচ্ছে তা ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। শুধু পানি ও স্যানিটেশন সমস্যা ছাড়াও আর কি কি কারণে শিশুরা এমন হচ্ছে তা নির্ধারণ করে সঠিক কর্মপদ্ধতির আলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারি ও বেসরকারিভাবে কাজ করতে হবে। শিশুর পুষিহীনতার অন্যতম কারণ মায়ের পুষ্টিহীনতা। এই কারণে মায়েদের স্বাস্থ্যের প্রতিও গুরুত্ব দিতে হবে। ইউএসটি’র নির্বাহী পরিচালক ড. আনোয়ার কামাল বলেন, খর্বাকৃতি শিশু হওয়ার পেছনে বিভিন্ন কারণ রয়েছে। শুধু স্যানিটেশন ও অপুষ্টিকর খাদ্যের কারণেই এটা হচ্ছে এমনটি বিবেচনা করা ঠিক নয়। সার্বিক পরিবেশও এর জন্য অন্যতম কারণ। গ্রামের মায়েরা স্বল্প শিক্ষিত হওয়ায় অনেক সময় সচেতন ভাবে শিশুদের যত্ন নিতে পারে না। তাই গ্রামের মায়েদের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কাজ করতে হবে। আমাদের একটি ধারণা পিতা-মাতার খর্বাকৃতির কারণে অনেক সময় শিশুরাও খর্বাকৃতির হয়। কিন্তু এটি শুধু ধারণা, বাস্তবে তা নয়। আশার কথা হলো, বাংলাদেশ যেভাবে স্যানিটেশন সমস্যাকে মোকাবেলা করেছে এই সমস্যাকেও স্বল্প সময়ের মধ্যে মোকাবেলা করতে পারবে। এই সমস্যা সমাধানের জন্য শুধু পরিবার নয় সমাজ ও রাষ্ট্রকেও এগিয়ে আসতে হবে। কমিটমেন্ট কনসালটেন্টেসের পরিচালক শফিউল আজম আহমেদ বলেন, ১০ বছর আগে মনে হয়েছিল স্যানিটেশন সমস্যা মোকাবেলা করতে আমরা ব্যর্থ হবো। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমরা তা মোকাবেলা করতে সম্পূর্ণ সফল হয়েছি। তাই এখন থেকে আমরা যদি শিশুদের খর্বাকৃতি রোধে কাজ করি তা হলে স্বল্প সময়ের আমরা তাও মোকাবেলা করতে সক্ষম হবো। এড ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের সুবোধ কে দাস বলেন, শিশুকে নিয়ে ভাবতে হলে আগে মা’কে নিয়ে ভাবতে হবে। মায়েদের খর্বাকৃতির কারণে শতকরা ১০ভাগ শিশুও খর্বাকৃতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে মায়েদের সচেতন হলে পরবর্তী প্রজন্ম খর্বাকৃতি রোধ করা সম্ভব। Shishuder Sathik Sharirik Bikasher Janya Shudhu Pushtikar Khabarai Noy Parichchhannata O Abhyasagat Kichhu Paribartanao Jaruri Sathikbhabe Pushti O Sanitation Samparke Sachetanata Gare Na Othay Deshe Bartamane 5 Bachharer Com Bayasi 40 Bhag Shishui Kono Na Kono Bhabe Kharbakaytar Shikar Ejanya Sarakari O Besarakari Parjaye Ekajoge Kaj Kara Prayojan Sombar Max Faundeshaner Udyoge Bhorer Kaagaz Sammelan Kakshe ’eyaproch To Stanating Free Villages‘ Sheershak Ec Karmashalay Baktara A Abhimat Byakta Curren Karmashalar Sahajogi Ayojak Chhil Unnayan Sahajogi Tim Commitment Kanasaltens Evan Space Media Partner Chhil Bhorer Kaagaz Karmashalay Pradhan Atithi Hisebe Upasthit Chhilen Swasthya O Paribar Kalyan Mantranalyer Atirikta Sachiv Subhash Chandra Sarkar Max Faundeshaner Kantri Direktar Riyad Imam Mahmud Max Faundeshaner Paramarshak March Elari Water Eider Had Of Policy And Adbhokesi Shamim Ahmeda Sosaiti For Pipalas Ekashan In Change And Ikyuiti Space Aare Nirbahi Parichalak Ajahar Ali Pramanik Brryak Pratinidhi Mamun Mia Adiesake Aare Nirbahi Parichalak D Dibalok Singha Pramukh Karmashalay Angsh Nen Bhorer Kaagaz Sampadak Shyamal Dutt Alochana Parber Sanchalana Curren Pradhan Atithir Baktabye Swasthya O Paribar Kalyan Mantranalyer Atirikta Sachiv Subhash Chandra Sarkar Baleno Kharbakritir Anek Karan Amader Ekhano Ajana Rayechhe Anek Xetre Sachetanatar Abhabe AE Apushtir Ghatana Ghate Byaktigat Abhigyatar Udaharan Diye Tini Baleno Taur Paribare Samarthya Chhil Toilet Tairi Karar Kintu AE Tayaleter Prayojniyta Tader Jaana Chhil Na Tai Tader Kono Toilet Chhil Na Tini Baleno Swasthya Sachetanatar Kono Vikalp Nei Age Amara Shudhu Dayriya Ba Kalera Pratirodhei Syaniteshner Prati Gurutba Ditam Kintu Ajaker Karmashalar Madhyame Etah Parishkar Holo Je Kharbakriti Rodheo Syaniteshner Vikalp Nei Tai Sorcerer Pax Theke A Byapare Ja Karar Amara Tai Karab Max Faundeshaner Kantri Direktar Riyad Imam Mahmud Taur Swaagat Baktabye Baleno A Desher Anek Sishu Taur Boy Anujayi Sathikbhabe Barchhe Na A Bishayati Amader Anek Bhabiyechhe AE Tagid Theke Max 2012 Sale Kharbakriti Sishu A Bishayati Niye Kaj Shuru Kare Tini Baleno AE Samasya Theke Ber Huye Asar Janya Samanwitabhabe Kaj Karate Habe Ganamadhyam Ekshetre Gurutbapurna Bhumika Rakhte Pare Sarkar Evan Besarakari Bibhinna Besarakari Sansthao Bhumika Rakhte Pare Tove Ekk Bhabe Kaj Karar Chaite Samanwitabhabe Kaj Karale Drut Samasyar Samadhan Habe Karmashalay Mul Prabandha Upasthapan Curren Max Faundeshaner Paramarshak March Elari Tini Baleno A Deshe Vishesha Kare Pratyanta Gramanchale Anek Sishu Bayaser Tulnay Com Briddhiprapta Hachchhe Edeshe 5 Bachharer Com Bayasi 40 Shatangsh Shishui Kharbakay Etah Ekata Bhayabah Samasya Sadharanat Money Kara Hya Pushtihintar Karne Shishuder Briddhi Byahat Hya Tove Cable Pushti Puran Kare A Samasya Theke Mukta Hwa Sambhab Noy Karan Shishuder Kharbakritir Ekati Karan Pushtihinta Akranta Shishur 33 Shatangsh Pushtihintar Karne Com Briddhi Pay A Chhara Dayrijajnit Karne Pray Arai Shatangsh Sishu A Samasyar Shikar Hya Kintu Bace 65 Shatangsh Sishu Key Karne Chhot Akarer Hya Ta Ekhanao Sathikbhabe Jaana Jayni A Byapare Amara Kaj Karachhi March Baleno Amader Money Hayechhe A Desher Paribesh Evan Pratibesh A Samasyar Janya Anektai Dayi Dekha Gechhe Anek Sishu Prayojniya Pushti Grahan Karar Parao Barchhe Na Karan Shishuti Pushti Dhare Rakhte Parchhe Na Pakasthali Sankramaner Karne Sishu AE Pushti Grahane Asamartha Ble Janan Tini Tini Aro Baleno 2 Bachharer Com Bayasi Shishur Xetre Pakasthali Sankramaner Samasya Prabal Aare Anyatam Karan Unmuktasthane Malamutra Tyag Gramanchaler Sarbastarer Manushake Jodi Aare Apakarita Samparke Sachetan Hya Ta Hale A Samasya Anektai Mokabela Kara Sambhab March Baleno MA Babar Sachetanatao Shishur Sharir Briddhite Gurutbapurna Bhumika Rakhte Pare Dekha Jay Je Sishu 6 Massa Bayaser Par Theke Sabakichhu Mukhe Dite Say Baba MA A Byapare Sachetan Hale Sishu Jibanu Sankramaner Her Anektai Kame Jabe Karmashalay Mukta Alochnay Water Eider Had Of Policy And Adbhokesi Shamim Ahmeda Baleno Gata 10 Bachhare Bangladeshe Swasthyakhate Samagrik Unnati Hayechhe Kintu Ekhanao Swasthyakhate Anek Challenge Rayechhe Aare Madhye Kharbakritir Sishu Anyatam Ekati Pani O Sanitation Byabasthapana Sathik Na Hwa AE Samasyar Janya Anektai Dayi Aare Unnayan Ghatano Gele Deshe Kharbakay Shishur Sankhya Kame Jabe Ble Tini Mantabya Curren Brryak Pratinidhi Mamun Mia Baleno Cable Tika Diye Shishuder Sab Rogue Pratirodh Kara Jabe Na Parichachhannata O Khabarer Dharanao Rogue Pratirodhe Bhumika Rakhte Pare Tini Baleno Shishuder Jink Ayaran Patasiyam O Calcium Samriddhi Khabar Sarabarah Karate Habe Etao Shishur Sharir Briddhite Bhumika Rakhbe Sosaiti For Pipalas Ekashan In Change And Ikyuiti Space Aare Nirbahi Parichalak Ajahar Ali Pramanik Baleno Bartamane Khadyashasya Utpadne Nanarakam Rasaynik Sir Byabahar Kara Hachchhe AE Khabar Katata Pushtisamriddha Ta Niye Aro Gabeshana Darakar Karmashalay Upasthit IDSK Aare Nirbahi Parichalak D Dibalok Singha Baleno Amader Desher Shishura Ekhan Je Hurray Kharbakritir Hachchhe Ta Bhabnar Karan Huye Danriyechhe Shudhu Pani O Sanitation Samasya Chharao Are Ki Ki Karne Shishura Eman Hachchhe Ta Nirdharan Kare Sathik Karmapaddhatir Aloke Aikyabaddhabhabe Sarakari O Besarakaribhabe Kaj Karate Habe Shishur Pushihintar Anyatam Karan Mayer Pushtihinta AE Karne Mayeder Swasthyer Pratio Gurutba Dite Habe Yuesatior Nirbahi Parichalak D Anwar Kamal Baleno Kharbakriti Sishu Hwar Pechhne Bibhinna Karan Rayechhe Shudhu Sanitation O Apushtikar Khadyer Karnei Etah Hachchhe Emanati Bibechana Kara Thik Noy Sarbik Paribeshao Aare Janya Anyatam Karan Gramer Mayera Swalpa Shikshit Hway Anek Camay Sachetan Bhabe Shishuder Jatna Nite Pare Na Tai Gramer Mayeder Sachetanata Briddhi Karate Bibhinna Sachetanatamulak Kaj Karate Habe Amader Ekati Dharna Pita Matar Kharbakritir Karne Anek Camay Shishurao Kharbakritir Hya Kintu AT Shudhu Dharna Bastabe Ta Noy Axar Katha Holo Bangladesh Jebhabe Sanitation Samasyake Mokabela Karechhe AE Samasyakeo Swalpa Samayer Madhye Mokabela Karate Parbe AE Samasya Samadhaner Janya Shudhu Paribar Noy Samaj O Rashtrakeo Egiye Asate Habe Commitment Kanasaltenteser Parichalak Shafiul Azam Ahmeda Baleno 10 Bachhar Age Money Hayechhil Sanitation Samasya Mokabela Karate Amara Byartha Habo Kintu Bartaman Some Amara Ta Mokabela Karate Sampurna Safal Hayechhi Tai Ekhan Theke Amara Jodi Shishuder Kharbakriti Rodhe Kaj Kari Ta Hale Swalpa Samayer Amara Tao Mokabela Karate Saksham Habo Ad Intaranyashanal Bangladesher Subodh K Das Baleno Shishuke Niye Bhabte Hale Age Maoke Niye Bhabte Habe Mayeder Kharbakritir Karne Shatakara 10bhag Shishuo Kharbakriti Hwar Sambhabana Rayechhe Sekshetre Mayeder Sachetan Hale Parabarti Prajanma Kharbakriti Rodh Kara Sambhab
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Shishuder Kharbakaytarodhe Parichchhannata O Abhyasagat Poriborton Kano Jaruri ?,Why Is Cleanliness And Habitual Change In Children's Urgency?,


vokalandroid