এশিয়ার বৃহত্তম বটগাছ টির সম্পর্কে লেখ? ...

বটগাছ এমনিতেই বড়। বিশাল জায়গা নিয়ে এ গাছ তার ডালপালা বিস্তৃত করে। কিন্তু এই জায়গা যদি দুই একর নিয়ে হয় তাহলে সেই গাছ কত বড়! হ্যাঁ, এমনই একটি বটগাছের অবস্থান ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার সুইতলা মল্লিকপুরে। ঝিনাদহের কালীগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে চিকন পিচের রাস্তা মল্লিকপুর ছুঁয়েছে। ১২ কিলোমিটার এগিয়ে গেলে চোখে পড়বে সবুজের পাহাড়। যে সবুজের শেষ নেই। এটি সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছ। ৮নং মালিয়াট ইউনিয়নের বেথুলী মৌজায় বর্তমানে ১১ একর জমি জুড়ে রয়েছে এর অস্তিত্ব। এর উচ্চতা আনুমানিক ২৫০ থেকে ৩০০ ফুট। বর্তমানে বটগাছটি ৫২টি বটগাছে রূপ নিয়েছে। বিবিসির জরিপে ১৯৮৪ সালে এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম খ্যাত এ বটগাছের অবস্থান ও নামকরণ নিয়ে রয়েছে নানা জটিলতা এবং রয়েছে কিংবদন্তী। কারও কাছে সুইতলার বটগাছ, কারও কাছে সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছ আবার কারও কাছে বেথুলীর বটগাছ বলে এটি পরিচিত। বিবিসির জরিপে একে এশিয়ার সবচেয়ে বড় বটগাছ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। আর ২০০৯ সাল থেকে সামাজিক বন বিভাগ যশোর এ বটগাছটির ব্যবস্থাপনা করে আসছে। গাছটির উত্পত্তি সম্পর্কে স্থানীয়রা কোনো সুনিদির্ষ্ট তথ্য দিতে পারেনি, তবে প্রায় দুইশ’ থেকে তিনশ’ বছর পুরোনো বলে ধারণা করা হয়। গাছটি কে বা কারা লাগিয়েছে তার কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য কেউ না দিতে পারলেও জানা যায়, এখানে আগে কুমারদের বসতি ছিল। কুমার পরিবারের কোনো একটি কুয়োর মধ্যে আজকের বটগাছটির জন্ম। স্থানীয়দের মুখে গাছটি সম্পর্কে কথিত আছে ক’বছর আগে কুদরতউল্লা নামে একজন গাছের ডাল কাটলে অসুস্থ হয়ে পড়ে। শুরু হয় রক্তবমি। কুদরতের স্ত্রী বট গাছ আগলে ধরে কান্নাকাটি করে। স্বামীর প্রাণ ভিক্ষা চায়। অবশেষে তার স্বামী সুস্থ হয়ে ওঠে। এ রকম অনেক গল্প মল্লিকপুরবাসীদের কাছে শোনা যায়। বটগাছটি কেন্দ্র করে পাশেই বাংলা ১৩৬০ সালের দিকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বেথুলী বা মল্লিকপুরের বাজার। এই বাজারের প্রথম দোকানদার ছিলেন মল্লিকপুর গ্রামের বেলায়েত আলী, বেথুলী গ্রামের স্বরজিত কুমার সাহা, মমতাজ ডাক্তার, মল্লিকপুরের মুনছুর বিশ্বাস ও মথুরাপুর গ্রামের হামিদুল। বটতলায় কালীপূজার জন্য একটি স্থায়ী পিঁড়ি তৈরি করা হয়েছে। চাপরাইল গ্রামের গৌর পদ অধিকারী এবং হাজারী লাল অধিকারীর আর্থিক সহায়তায় এটি নির্মিত হয়। এলাকাবাসী জানান, অযত্ন-অবহেলা, রক্ষণাবেক্ষণের অভাব ও নানামুখী অত্যাচারের কারণে ঐতিহ্যবাহী এ বটগাছের অস্তিত্ব আজ নষ্ট হতে চলেছে। মল্লিকপুর গ্রামের বেলায়েত মিয়া বেঁচে থাকা পর্যন্ত তিনি এসব দেখাশোনা করতেন। তিনি নিজ সন্তানের মতো ভালোবাসতেন এ বটবৃক্ষকে। যে কারণে তিনি এই বটগাছের কাছে সর্বপ্রথম দোকান দেন এবং বাজার প্রতিষ্ঠা করেন। স্থানীয়রা আরও জানান, ১৯৮২ সালের পূর্ব পর্যন্ত এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বৃহত্তম বটগাছ বলে পরিচিতি ছিল কলকাতার বোটানিকেল গার্ডেনের একটি গাছ। পরবর্তীতে বিবিসির এক তথ্যানুষ্ঠান প্রতিবেদনে প্রচার হয়-‘মল্লিকপুরের বটগাছই এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম। ১৯৯৮ সালের দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার তত্কালীন নির্বাহী কর্মকর্তা সুশেন চন্দ্র রায়ের সহযোগিতায় সেখানে একটি ফুলের বাগান তৈরি করা হয়। বটগাছের চারপাশ ঘিরে প্রাচীর নির্মাণের ব্যবস্থাও করেন তিনি। এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তর বটগাছের ঐতিহাসিক দিক বিবেচনা করে অনেক স্থান থেকে প্রতিনিয়ত দর্শনার্থীরা আসেন। এর গুরুত্ব বিবেচনা করেই ১৯৯০ সালেই বটগাছের পাশেই প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি রেস্ট হাউজ নির্মাণ করা হয়। মল্লিকপুর গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি আব্দুর রাজ্জাক জানান, এ বট গাছটির বয়স কত তা আশেপাশের গ্রামের লোকজন বলতে পারে না। তিনি মুরব্বিদের কাছে শুনেছেন ৩শ’ বছরের বেশি হবে। যে স্থানে মূল বটগাছের শুরু ওই স্থানের আশেপাশে কুমার সম্প্রদায়ে বাস ছিল। সেনদের জায়গায় একটি পাতকুয়া ছিল। কোনো পাখি হয়তো কুয়োর ওপর বটের বীজ এনে ফেলে। সে বীজ থেকে চারা গজায়। জায়গাটি ছিল জঙ্গলাকীর্ণ। আস্তে আস্তে বেড়ে ওঠে বিস্তৃর্ণ জায়গা জুড়ে ফেলে গাছটি। বাড়তে বাড়তে এক সময় প্রায় দুই একর জায়গা দখল করে নেয় সেটি। পরিচিতি পায় এশিয়ার সর্ববৃহত্ বটগাছ হিসবে। হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ গাছের গোড়াতে পূজা-অর্চনা শুরু করে। লোকসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বটগাছ এলাকায় নির্জনতা থাকে না। গাছের বৃদ্ধি ঘটে প্রোপরুট বা বোয়ার ওপর ভর করে। এশিয়া মহাদেশের অন্যতম বৃহত্ এ বটগাছটির ঐতিহাসিক দিক বিবেচনা করে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন দর্শনার্থী আসেন এখানে। গুরুত্ব বিবেচনা করে ঝিনাইদহ জেলা পরিষদ বটবৃক্ষটির পাশে একটি রেস্ট হাউস নির্মাণ করেন ১৯৯০ সালে। বিস্তৃত বটগাছটির দৃষ্টিনন্দন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, পাখির কলরব, ছায়াঘেরা শীতল পরিবেশ মুগ্ধ করে দর্শনার্থীদের।
Romanized Version
বটগাছ এমনিতেই বড়। বিশাল জায়গা নিয়ে এ গাছ তার ডালপালা বিস্তৃত করে। কিন্তু এই জায়গা যদি দুই একর নিয়ে হয় তাহলে সেই গাছ কত বড়! হ্যাঁ, এমনই একটি বটগাছের অবস্থান ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার সুইতলা মল্লিকপুরে। ঝিনাদহের কালীগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে চিকন পিচের রাস্তা মল্লিকপুর ছুঁয়েছে। ১২ কিলোমিটার এগিয়ে গেলে চোখে পড়বে সবুজের পাহাড়। যে সবুজের শেষ নেই। এটি সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছ। ৮নং মালিয়াট ইউনিয়নের বেথুলী মৌজায় বর্তমানে ১১ একর জমি জুড়ে রয়েছে এর অস্তিত্ব। এর উচ্চতা আনুমানিক ২৫০ থেকে ৩০০ ফুট। বর্তমানে বটগাছটি ৫২টি বটগাছে রূপ নিয়েছে। বিবিসির জরিপে ১৯৮৪ সালে এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম খ্যাত এ বটগাছের অবস্থান ও নামকরণ নিয়ে রয়েছে নানা জটিলতা এবং রয়েছে কিংবদন্তী। কারও কাছে সুইতলার বটগাছ, কারও কাছে সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছ আবার কারও কাছে বেথুলীর বটগাছ বলে এটি পরিচিত। বিবিসির জরিপে একে এশিয়ার সবচেয়ে বড় বটগাছ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। আর ২০০৯ সাল থেকে সামাজিক বন বিভাগ যশোর এ বটগাছটির ব্যবস্থাপনা করে আসছে। গাছটির উত্পত্তি সম্পর্কে স্থানীয়রা কোনো সুনিদির্ষ্ট তথ্য দিতে পারেনি, তবে প্রায় দুইশ’ থেকে তিনশ’ বছর পুরোনো বলে ধারণা করা হয়। গাছটি কে বা কারা লাগিয়েছে তার কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য কেউ না দিতে পারলেও জানা যায়, এখানে আগে কুমারদের বসতি ছিল। কুমার পরিবারের কোনো একটি কুয়োর মধ্যে আজকের বটগাছটির জন্ম। স্থানীয়দের মুখে গাছটি সম্পর্কে কথিত আছে ক’বছর আগে কুদরতউল্লা নামে একজন গাছের ডাল কাটলে অসুস্থ হয়ে পড়ে। শুরু হয় রক্তবমি। কুদরতের স্ত্রী বট গাছ আগলে ধরে কান্নাকাটি করে। স্বামীর প্রাণ ভিক্ষা চায়। অবশেষে তার স্বামী সুস্থ হয়ে ওঠে। এ রকম অনেক গল্প মল্লিকপুরবাসীদের কাছে শোনা যায়। বটগাছটি কেন্দ্র করে পাশেই বাংলা ১৩৬০ সালের দিকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বেথুলী বা মল্লিকপুরের বাজার। এই বাজারের প্রথম দোকানদার ছিলেন মল্লিকপুর গ্রামের বেলায়েত আলী, বেথুলী গ্রামের স্বরজিত কুমার সাহা, মমতাজ ডাক্তার, মল্লিকপুরের মুনছুর বিশ্বাস ও মথুরাপুর গ্রামের হামিদুল। বটতলায় কালীপূজার জন্য একটি স্থায়ী পিঁড়ি তৈরি করা হয়েছে। চাপরাইল গ্রামের গৌর পদ অধিকারী এবং হাজারী লাল অধিকারীর আর্থিক সহায়তায় এটি নির্মিত হয়। এলাকাবাসী জানান, অযত্ন-অবহেলা, রক্ষণাবেক্ষণের অভাব ও নানামুখী অত্যাচারের কারণে ঐতিহ্যবাহী এ বটগাছের অস্তিত্ব আজ নষ্ট হতে চলেছে। মল্লিকপুর গ্রামের বেলায়েত মিয়া বেঁচে থাকা পর্যন্ত তিনি এসব দেখাশোনা করতেন। তিনি নিজ সন্তানের মতো ভালোবাসতেন এ বটবৃক্ষকে। যে কারণে তিনি এই বটগাছের কাছে সর্বপ্রথম দোকান দেন এবং বাজার প্রতিষ্ঠা করেন। স্থানীয়রা আরও জানান, ১৯৮২ সালের পূর্ব পর্যন্ত এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বৃহত্তম বটগাছ বলে পরিচিতি ছিল কলকাতার বোটানিকেল গার্ডেনের একটি গাছ। পরবর্তীতে বিবিসির এক তথ্যানুষ্ঠান প্রতিবেদনে প্রচার হয়-‘মল্লিকপুরের বটগাছই এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম। ১৯৯৮ সালের দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার তত্কালীন নির্বাহী কর্মকর্তা সুশেন চন্দ্র রায়ের সহযোগিতায় সেখানে একটি ফুলের বাগান তৈরি করা হয়। বটগাছের চারপাশ ঘিরে প্রাচীর নির্মাণের ব্যবস্থাও করেন তিনি। এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তর বটগাছের ঐতিহাসিক দিক বিবেচনা করে অনেক স্থান থেকে প্রতিনিয়ত দর্শনার্থীরা আসেন। এর গুরুত্ব বিবেচনা করেই ১৯৯০ সালেই বটগাছের পাশেই প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি রেস্ট হাউজ নির্মাণ করা হয়। মল্লিকপুর গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি আব্দুর রাজ্জাক জানান, এ বট গাছটির বয়স কত তা আশেপাশের গ্রামের লোকজন বলতে পারে না। তিনি মুরব্বিদের কাছে শুনেছেন ৩শ’ বছরের বেশি হবে। যে স্থানে মূল বটগাছের শুরু ওই স্থানের আশেপাশে কুমার সম্প্রদায়ে বাস ছিল। সেনদের জায়গায় একটি পাতকুয়া ছিল। কোনো পাখি হয়তো কুয়োর ওপর বটের বীজ এনে ফেলে। সে বীজ থেকে চারা গজায়। জায়গাটি ছিল জঙ্গলাকীর্ণ। আস্তে আস্তে বেড়ে ওঠে বিস্তৃর্ণ জায়গা জুড়ে ফেলে গাছটি। বাড়তে বাড়তে এক সময় প্রায় দুই একর জায়গা দখল করে নেয় সেটি। পরিচিতি পায় এশিয়ার সর্ববৃহত্ বটগাছ হিসবে। হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ গাছের গোড়াতে পূজা-অর্চনা শুরু করে। লোকসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বটগাছ এলাকায় নির্জনতা থাকে না। গাছের বৃদ্ধি ঘটে প্রোপরুট বা বোয়ার ওপর ভর করে। এশিয়া মহাদেশের অন্যতম বৃহত্ এ বটগাছটির ঐতিহাসিক দিক বিবেচনা করে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন দর্শনার্থী আসেন এখানে। গুরুত্ব বিবেচনা করে ঝিনাইদহ জেলা পরিষদ বটবৃক্ষটির পাশে একটি রেস্ট হাউস নির্মাণ করেন ১৯৯০ সালে। বিস্তৃত বটগাছটির দৃষ্টিনন্দন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, পাখির কলরব, ছায়াঘেরা শীতল পরিবেশ মুগ্ধ করে দর্শনার্থীদের।Batagachh Emanitei Bar Vishal Jayga Niye A Gachh Taur Dalpala Bistrita Kare Kintu AE Jayga Jodi Dui Ecru Niye Hya Tahle Sei Gachh Kat Bar Hyan Emanai Ekati Batagachher Abasthan Jhinaidaher Kaliganj Upajelar Suitala Mallikapure Jhinadher Kaliganj Upajela Sahor Theke Chikan Picher Rostaa Mollikpur Chhunyechhe 12 KM Egiye Gele Chokhe Parabe Sabujer Pahad Je Sabujer Sesh Nei AT Suitala Mallikapurer Batagachh 8nang Maliyat Yuniyner Bethuli Maujay Bartamane 11 Ecru Jami Jure Rayechhe Aare Astitva Aare Uchchata Anumanik 250 Theke 300 Foot Bartamane Batagachhti 52ti Batagachhe Roopa Niyechhe Bibisir Jaripe 1984 Sale Asia Mahadesher Brihattam Khyat A Batagachher Abasthan O Namakaran Niye Rayechhe Nana Jatilata Evan Rayechhe Kingbadanti Karao Kachhe Suitalar Batagachh Karao Kachhe Suitala Mallikapurer Batagachh Abar Karao Kachhe Bethulir Batagachh Ble AT Parichit Bibisir Jaripe Aka Eshiyar Sabacheye Bar Batagachh Hisebe Swikriti Dewa Hayechhe Are 2009 Saala Theke Samajik Ban Bibhag Jashor A Batagachhtir Byabasthapana Kare Ashche Gachhtir Utpatti Samparke Sthaniyara Kono Sunidirshta Tathya Dite Pareni Tove Pray Duisho Theke Tinasho Bachhar Purono Ble Dharna Kara Hya Gachhti K Ba Kara Lagiyechhe Taur Kono Sunirdishta Tathya Keu Na Dite Parleo Jaana Jay Ekhane Age Kumarder Basati Chhil Kumar Paribarer Kono Ekati Kuyor Madhye Ajaker Batagachhtir Janma Sthaniyder Mukhe Gachhti Samparke Kathit Ache Kobachhar Age Kudarataulla Name Ekajan Gachher Dal Katle Asustha Huye Pare Shuru Hya Raktabami Kudarater Stri Bought Gachh Agale Dhare Kannakati Kare Swamir Pran Bhiksha Say Abasheshe Taur Swamy Sustha Huye Othe A Rakam Anek Galpa Mallikapurbasider Kachhe Shona Jay Batagachhti Kendra Kare Pashei Bangla 1360 Saler Dike Pratishthit Hayechhe Bethuli Ba Mallikapurer Bazaar AE Bajarer Pratham Dokandar Chhilen Mollikpur Gramer Belayet Ali Bethuli Gramer Swarajit Kumar Saha Mamataj Daktar Mallikapurer Munchhur Biswas O Mathurapur Gramer Hamidul Batatalay Kalipujar Janya Ekati Sthayi Pinri Tairi Kara Hayechhe Chaprail Gramer Gaur Pada Adhikari Evan Hajari Lal Adhikarir Arthik Sahaytay AT Nirmit Hya Elakabasi Janan Ajatna Abahela Rakshanabekshaner Abhab O Nanamukhi Atyacharer Karne Aitihyabahi A Batagachher Astitva Az Nashta Hate Chalechhe Mollikpur Gramer Belayet Mia Benche Thaka Parjanta Tini Esab Dekhashona Karaten Tini Nij Santaner Mato Bhalobasten A Batabrikshake Je Karne Tini AE Batagachher Kachhe Sarbapratham Dokan Than Evan Bazaar Pratishtha Curren Sthaniyara RO Janan 1982 Saler Purba Parjanta Asia Mahadesher Madhye Brihattam Batagachh Ble Parichiti Chhil Kalakatar Botanikel Gardener Ekati Gachh Parabartite Bibisir Ec Tathyanushthan Pratibedne Prachar Hya ‘mallikapurer Batagachhai Asia Mahadesher Brihattam 1998 Saler Dike Kaliganj Upajelar Tatkalin Nirbahi Karmakarta Sushen Chandra Rayer Sahajogitay Sekhane Ekati Fuler Bagan Tairi Kara Hya Batagachher Charpash Ghire Prachir Nirmaner Byabasthao Curren Tini Asia Mahadesher Brihattar Batagachher Aitihasik Dik Bibechana Kare Anek Sthan Theke Pratiniyat Darshanarthira Asen Aare Gurutba Bibechana Karei 1990 Salei Batagachher Pashei Pray 10 Lac Taka Byaye Ekati Rest Hauj Nirman Kara Hya Mollikpur Gramer Pravin Byakti Abdur Razzaq Janan A Bought Gachhtir Boy Kat Ta Ashepasher Gramer Lokajan Volte Pare Na Tini Murabbider Kachhe Shunechhen 3sho Bachharer Bedshee Habe Je Sthane Mul Batagachher Shuru We Sthaner Ashepashe Kumar Sampradaye Bass Chhil Sender Jaygay Ekati Patkuya Chhil Kono Pakhi Hayato Kuyor Opar Butter Wiz Ene Fele Say Wiz Theke Charra Gajay Jaygati Chhil Jangalakirna Aste Aste Bere Othe Bistrirna Jayga Jure Fele Gachhti Barte Barte Ec Camay Pray Dui Ecru Jayga Dakhal Kare Ney Seti Parichiti Pay Eshiyar Sarbabrihat Batagachh Hisbe Hindu Sampradayer Manus Gachher Gorate Puja Archana Shuru Kare Lokasankhya Briddhir Fale Batagachh Elakay Nirjanata Thake Na Gachher Briddhi Ghate Proparut Ba Bwar Opar Bhar Kare Asia Mahadesher Anyatam Brihat A Batagachhtir Aitihasik Dik Bibechana Kare Desher Bibhinna Sthan Theke Pratidin Darshanarthi Asen Ekhane Gurutba Bibechana Kare Jhinaidah Jela Parishad Batabrikshatir PAUSE Ekati Rest House Nirman Curren 1990 Sale Bistrita Batagachhtir Drishtinandan Praakritik Saundarjya Pakhir Kalarab Chhayaghera Sheetal Paribesh Mugdha Kare Darshanarthider
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

এশিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম ইস্পাত কেন্দ্র কোনটি তার সম্পর্কে লেখ? ...

এশিয়ার বৃহত্তম ইস্পাত কেন্দ্র তৃতীয় স্থান - ভিলাই ইস্পাত কারখানা নবগঠিত ছত্রিশ গড় রাজ্যের দুর্গ জেলার অন্তর্গত ভিলাই নামক স্থানে ভিলাই ইস্পাত কারখানাটি পূর্বতন সোভিয়েত যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতায় দ্বিতীजवाब पढ़िये
ques_icon

More Answers


এশিয়ার বৃহত্তম বটগাছ- ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে রয়েছে এশিয়া মহাদেশের প্রাচীন বৃহত্তম বটগাছ। জেলার কালীগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে পূর্বে আট কিলোমিটার দূরে ৮ নম্বর মালিঘাট ইউনিয়নের বেথুলী মৌজায় এই বটগাছের অবস্থান। স্থানীয়রা জানান, ১৯৮২ সালের পূর্ব পর্যন্ত এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বৃহত্তম বটগাছ বলে পরিচিতি ছিল কলকাতার বোটানিক্যাল গার্ডেনের একটি গাছ। পরে বিবিসির এক তথ্যানুষ্ঠান প্রতিবেদনে প্রচার হয়। কালীগঞ্জ উপজেলার বেথুলী মৌজার সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছই এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম বটগাছ। ১১ একর জমিজুড়ে রয়েছে এর অস্তিত্ব। এর উচ্চতা আনুমানিক ২৫০ থেকে ৩০০ ফুট। বর্তমানে বটগাছটি ৫২টি বটগাছে রূপ নিয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে সামাজিক বন বিভাগ যশোর এ বটগাছটির ব্যবস্থাপনা করে আসছে। গাছটি সম্পর্কে স্থানীয়রা কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে পারেনি, তবে প্রায় দুইশ’ থেকে তিনশ’ বছর পুরোনো বলে ধারণা করা হয়। এটি এশিয়ার বৃহত্তম বটগাছ হিসেবে খ্যাত।
Romanized Version
এশিয়ার বৃহত্তম বটগাছ- ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে রয়েছে এশিয়া মহাদেশের প্রাচীন বৃহত্তম বটগাছ। জেলার কালীগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে পূর্বে আট কিলোমিটার দূরে ৮ নম্বর মালিঘাট ইউনিয়নের বেথুলী মৌজায় এই বটগাছের অবস্থান। স্থানীয়রা জানান, ১৯৮২ সালের পূর্ব পর্যন্ত এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বৃহত্তম বটগাছ বলে পরিচিতি ছিল কলকাতার বোটানিক্যাল গার্ডেনের একটি গাছ। পরে বিবিসির এক তথ্যানুষ্ঠান প্রতিবেদনে প্রচার হয়। কালীগঞ্জ উপজেলার বেথুলী মৌজার সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছই এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম বটগাছ। ১১ একর জমিজুড়ে রয়েছে এর অস্তিত্ব। এর উচ্চতা আনুমানিক ২৫০ থেকে ৩০০ ফুট। বর্তমানে বটগাছটি ৫২টি বটগাছে রূপ নিয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে সামাজিক বন বিভাগ যশোর এ বটগাছটির ব্যবস্থাপনা করে আসছে। গাছটি সম্পর্কে স্থানীয়রা কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে পারেনি, তবে প্রায় দুইশ’ থেকে তিনশ’ বছর পুরোনো বলে ধারণা করা হয়। এটি এশিয়ার বৃহত্তম বটগাছ হিসেবে খ্যাত।Eshiyar Brihattam Batagachh Jhinaidaher Kaliganje Rayechhe Asia Mahadesher Prachin Brihattam Batagachh Jelar Kaliganj Upajela Sahor Theke Purbe At KM Dure 8 Number Malighat Yuniyner Bethuli Maujay AE Batagachher Abasthan Sthaniyara Janan 1982 Saler Purba Parjanta Asia Mahadesher Madhye Brihattam Batagachh Ble Parichiti Chhil Kalakatar Botanikyal Gardener Ekati Gachh Pare Bibisir Ec Tathyanushthan Pratibedne Prachar Hya Kaliganj Upajelar Bethuli Maujar Suitala Mallikapurer Batagachhai Asia Mahadesher Brihattam Batagachh 11 Ecru Jamijure Rayechhe Aare Astitva Aare Uchchata Anumanik 250 Theke 300 Foot Bartamane Batagachhti 52ti Batagachhe Roopa Niyechhe 2009 Saala Theke Samajik Ban Bibhag Jashor A Batagachhtir Byabasthapana Kare Ashche Gachhti Samparke Sthaniyara Kono Sunirdishta Tathya Dite Pareni Tove Pray Duisho Theke Tinasho Bachhar Purono Ble Dharna Kara Hya AT Eshiyar Brihattam Batagachh Hisebe Khyat
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Eshiyar Brihottomo Batagachh Tir Somporke Lekho,Write About The Biggest Tree In Asia?,


vokalandroid