বিখ্যাত গদ্য কবিতা লেখ। ...

গদ্য কবিতা কি ? গদ্য কবিতা সে-ই কবিতা যা গদ্যে লিখিত হয়;অন্য কথায় পদ্য ও গদ্যের সংমিশ্রত উৎকৃষ্ট জাতীয় কবিতার নাম গদ্য কবিতা। প্রকৃতির বাস্তবতার কাব্যিক ব্যঞ্জনার নাম গদ্য কবিতা। গদ্য কবিতা প্রচীন যুগে হিব্রু স্কলারদের দ্বারা প্রথম লিখিত হয়। সপ্তদশ শতাব্দীতে নাম-না-জানা কয়েকজন লেখক ইংরেজীতে গ্রীক ও হিব্রু বাইবেল অনুবাদ করেছিলেন। স্বীকার না করে উপায় নেই যে,সলোমনের গান ডেভিডের গাঁথা সত্যিকার কাব্য। এই অনুবাদের ভাষায় আশ্চর্য শক্তি এদের মধ্যে কাব্যের রস ও রূপকে নিঃসংশয়ে পরিস্ফুট করেছে। এই গানগুলোতে গদ্যছন্দের মুক্ত পদক্ষেপ লক্ষণীয়। তথাপিও বলা যায় ১৮৪২ সালে প্রকাশিত হয় Aloysius Bertand-এর Gespard La nuit যা গদ্য কবিতাকে প্রথম স্বীকৃতি এনে দেয়। এর ছন্দোময় ও কাব্যিক ভাষা পরবর্তীতে অনেককে এই ফরমেটে কবিতা লেখাতে আগ্রহী করে তুলে। ১৮৬৯ সালে প্রকাশিত হয় Bandelaire-এর Petis poems en Prose. অন্য লেখকদের মধ্যে Rimbond এবং Oscar Wilde, Amy Lowell এই ধারায় লেখার প্রয়াস পান। Virginia Wolf কমপক্ষে একটি উপন্যাস এই ধারায় অনুসরণ করেন যেমন করেন Gertrnde Stien- ÔTender Buttons এ। এর শুরু হয় ফ্রান্স থেকে এবং পৃথিবী ব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। সাউথ আমেরিকায় Pablo Neruda এবং Borges, রাশিয়ার Turgenev, ইতালীতে Marinetti এবং ডেনমার্কে J. B. Jacobson, উত্তর আমেরিকায় Whitman, Robert Bly, W. S. Merwin প্রমুখ এই ধারার স্বার্থক ও প্রমাণিত কবি।
Romanized Version
গদ্য কবিতা কি ? গদ্য কবিতা সে-ই কবিতা যা গদ্যে লিখিত হয়;অন্য কথায় পদ্য ও গদ্যের সংমিশ্রত উৎকৃষ্ট জাতীয় কবিতার নাম গদ্য কবিতা। প্রকৃতির বাস্তবতার কাব্যিক ব্যঞ্জনার নাম গদ্য কবিতা। গদ্য কবিতা প্রচীন যুগে হিব্রু স্কলারদের দ্বারা প্রথম লিখিত হয়। সপ্তদশ শতাব্দীতে নাম-না-জানা কয়েকজন লেখক ইংরেজীতে গ্রীক ও হিব্রু বাইবেল অনুবাদ করেছিলেন। স্বীকার না করে উপায় নেই যে,সলোমনের গান ডেভিডের গাঁথা সত্যিকার কাব্য। এই অনুবাদের ভাষায় আশ্চর্য শক্তি এদের মধ্যে কাব্যের রস ও রূপকে নিঃসংশয়ে পরিস্ফুট করেছে। এই গানগুলোতে গদ্যছন্দের মুক্ত পদক্ষেপ লক্ষণীয়। তথাপিও বলা যায় ১৮৪২ সালে প্রকাশিত হয় Aloysius Bertand-এর Gespard La nuit যা গদ্য কবিতাকে প্রথম স্বীকৃতি এনে দেয়। এর ছন্দোময় ও কাব্যিক ভাষা পরবর্তীতে অনেককে এই ফরমেটে কবিতা লেখাতে আগ্রহী করে তুলে। ১৮৬৯ সালে প্রকাশিত হয় Bandelaire-এর Petis poems en Prose. অন্য লেখকদের মধ্যে Rimbond এবং Oscar Wilde, Amy Lowell এই ধারায় লেখার প্রয়াস পান। Virginia Wolf কমপক্ষে একটি উপন্যাস এই ধারায় অনুসরণ করেন যেমন করেন Gertrnde Stien- ÔTender Buttons এ। এর শুরু হয় ফ্রান্স থেকে এবং পৃথিবী ব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। সাউথ আমেরিকায় Pablo Neruda এবং Borges, রাশিয়ার Turgenev, ইতালীতে Marinetti এবং ডেনমার্কে J. B. Jacobson, উত্তর আমেরিকায় Whitman, Robert Bly, W. S. Merwin প্রমুখ এই ধারার স্বার্থক ও প্রমাণিত কবি। Gudja Kavita Ki ? Gudja Kavita Say E Kavita Ja Gadye Likhit Hya Anya Kathay Padya O Gadyer Sangmishrat Utkrishta Jatiya Kabitar NAM Gudja Kavita Prakritir Bastabatar Kabyik Byanjanar NAM Gudja Kavita Gudja Kavita Prachin Juge Hibru Skalarder Dwara Pratham Likhit Hya Saptadash Shatabdite NAM Na Jaana Kayekajan Lekhak Ingrejite Greece O Hibru Bible Anubad Karechhilen Sweekar Na Kare Upaay Nei Je Salomner Gone Debhider Gatha Satyikar Kavya AE Anubader Bhashay Aschorjo Shakti Eder Madhye Kabyer Ross O Rupke Nihsangshaye Parisfut Karechhe AE Gangulote Gadyachhander Mukta Padakshep Lakshaniya Tathapio Bala Jay 1842 Sale Prakashit Hya Aloysius Aare Gespard La Nuit Ja Gudja Kabitake Pratham Swikriti Ene Dey Aare Chhandomay O Kabyik Bhasha Parabartite Anekake AE Faramete Kavita Lekhate Agrahi Kare Tule 1869 Sale Prakashit Hya Aare Petis Poems En Prose. Anya Lekhakader Madhye Rimbond Evan Oscar Wilde, Amy Lowell AE Dharay Lekhar Prayas Pene Virginia Wolf Kamapakshe Ekati Upanyas AE Dharay Anusaran Curren Jeman Curren Gertrnde Stien- Ô Buttons A Aare Shuru Hya France Theke Evan Prithibi Byapi Chhariye Pare South Amerikay Pablo Neruda Evan Borges, Rashiyar Turgenev, Italite Marinetti Evan Denmarke J. B. Jacobson, Uttar Amerikay Whitman, Robert Bly, W. S. Merwin Pramukh AE Dharar Swarthak O Pramanit Cbe
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


বিখ্যাত গদ্য কবিতা মানুষ তার আপন মনের ভাবনাকে প্রথমত শারীরিক অঙ্গ-ভঙ্গির মাধ্যমে অন্যজনের কাছে প্রকাশ করে,অত:পর নানাবিধ ধ্বনির সাহায্যে। যেহেতু ধ্বনি একস্থান থেকে অন্যস্থানে প্রতিস্থাপিত হয় ইথারের স্পন্দনের মাধ্যমে তাই সেই ধ্বনিকে একটি নির্দিষ্ট গাঁথুনিতে বেঁধে দিয়ে তৈরি করা যায় একটা রিদম। ভাষার উৎপত্তির শুরু থেকে মানুষ সৃষ্টিশীল ভাবনার এই ধ্বনিগুচ্ছ নানাবিধ গাঁথুনিতে গেঁথে অন্যজনের কাছে পৌঁছে দিত। পৃথিবীর প্রতিটি ভাষাই তাই প্রথম উদ্ভব হতে দেখা যায় পদ্যে বা গানে। মানুষের মস্তিষ্কে অন্তঃস্থিত যে মেমোরি সেল রয়েছে সেখানে শ্রুতি বা দৃশ্য দর্শনের মাধ্যমে যেসব তথ্য পাঠানো হয় তাকে দীর্ঘস্থায়ীভাবে স্মরণযোগ্য করে রাখার জন্য এবং প্রয়োজনীয় সময়ে প্রকাশ করার জন্য প্রয়োজন হয় একটি সুনির্দিষ্ট গাঁথুনি বা ঘটনার পরস্পরা। একটি ছন্দময় গাঁথুনি দিয়ে বেঁধে ধ্বনিপুঞ্জকে যদি মস্তিষ্কে প্রেরণ করা যায় তবে তা মস্তিষ্ক সহজেই স্মরণে রাখতে পারে। ধ্বনিগুলোকে ক্রমাগত সাজিয়ে মানুষ তার মনের ভাব প্রকাশ করে,কথা বলে। কিন্তু কথ্য ভাষার সকল শব্দই একটি নির্দিষ্ট রিদমে ফেলা যায় না। যে সমস্ত ধ্বনিসমষ্টি একটি নির্দিষ্ট রিদমে গেঁথে মনের ভাবকে প্রকাশ করা যায় সেই সকল ধ্বনি সমষ্টিকে ক্রমাগত সাজিয়ে পদ্য রচিত হয়, যা দ্বারা মনের আবেগকে অন্যের মাঝে সঞ্চারিত করা যায়। কিছু কিছু ভাব বিন্যাস শব্দের গাঁথুনিতে এতোটাই মাধুর্যমন্ডিত হয়ে উঠে যে, মস্তিষ্কে তা গেঁথে যায় এবং বারবার উচ্চারিত হয়ে আনন্দিত হয়। মনের ভাবকে প্রকাশ করার জন্য বা মানুষের অভিজ্ঞতাকে অন্যের মাঝে বর্ণনা করার জন্য প্রয়োজন হয়ে উঠে রূপকের। একটি অজানা বস্তুকে বুঝাবার জন্য জানা বস্তুর সাথে বা অজানা ভাবকে বুঝাবার জন্য জানা ভাবকে রূপক হিসাবে ব্যবহার করা হয়। কখনো কখনো এই সকল রূপক শ্রুতিমধুর ধ্বনিপুঞ্জের সাহায্যে কেবল তথ্য বা খবরের সন্ধান দেয় না,তৈরী করে এক ধরনের অনির্বচনীয় আবেগ,আপ্লুত করে মানুষের সৃষ্টিশীলতাকে। নির্মল আনন্দে আপ্লুত হয়ে উঠে মানুষের মন। মানুষের মস্তিষ্কের প্রকৃতিই এমন যে,প্রথম অভিজ্ঞতায় সে যে আনন্দে ভেসে যায় তার বহু ব্যবহারে সে বিরক্ত হয়ে উঠে। তার সৃষ্টিশীলতা নতুন অভিজ্ঞতাকে প্রয়োজনীয় করে তুলে। মানুষের মস্তিষ্ক একস্থানে স্থির অবস্থান নেয়না কখনো। মস্তিষ্কের পর্যবেক্ষণ মানুষকে ক্রমে ক্রমে সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যায়। নানবিধ পর্যবেক্ষণ প্রকৃতির নানা রীতিনীতকে আত্মস্থ করে মানুষ তার জ্ঞানের উন্মেষ ঘটাতে থাকে। বদলে যেতে থাকে জীবন যাত্রার মান। জটিল থেকে জটিলতর সামাজিক কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে এগুতে থাকে মানুষ। এই যে মানুষের সৃষ্টিশীলতা প্রকাশের অন্যতম মাধ্যম পদ্য বা কবিতা তাও নানারূপ ছন্দের পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে এগুতে থাকে। রূপকে আসতে থাকে নানা বৈচিত্র্য। ভাবে চলে আসে সমৃদ্ধি। তৈরী হতে থাকে কাব্য চেতনা। তৈরী হয় অসাধারণ ভাবের প্রকাশ শব্দের নানাবিধ বিন্যাসে। ছন্দগুলো সরলীকরণের পথ অতিক্রম করে জটিল থেকে জটিলতর হতে থাকে। চলে আসে মাত্রায় গাণিতিক প্রয়োগ। বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার চেতনায় এনে দেয় বৈপ্লবিক পরিবর্তন। চলে আসে লিখিত অবয়ব। যে ছন্দগুলো ধ্বনিপুঞ্জের তালের সাহায্যে এগুচ্ছিল তা-ই এক পর্যায়ে অন্য মাত্রায় রূপান্তরিত হয়। অর্থনৈতিক,রাজনৈতিক,সামাজিক,বৈজ্ঞানিক কর্মকান্ড পরিচালনা হতে জন্ম নেয় এক ধরনের ভাষা যাকে গদ্য বলা হয়। পরিবর্তিত পৃথিবী অনেক যুদ্ধ,প্রতিহিংসা,সামাজিক অনাচার আর বিপ্লবের মাধ্যমে এগুতে থাকে। কিন্তু মানুষের সৃষ্টিশীলতা থেমে থাকেনা। তার সৃষ্টিশীলতা প্রকাশের জন্য তৈরী হতে থাকে শক্তিশালী বাঁধন,গদ্যের বাঁধন। ভাব প্রকাশের যে মাধ্যমটি ছিলো নারীর মতো কোমল,স্নিগ্ধ, রিদমিক তা কঠিন প্রকৃতির মতো গদ্যে রূপান্তরিত হতে থাকে। তৈরী হতে থাকে এক পৌরুষদীপ্ত ফরমেট। জন্ম নেয় গল্প, ছোট গল্প, উপন্যাসের মতো শক্তিশালী মাধ্যম। পদ্যের একচ্ছত্র আধিপত্য খর্বিত হয়। কল্পনাপ্রবণ মানুষ সৃষ্টিশীলতাকে নিবেদন করতে থাকে নানামুখী ফরমেটে। পদ্যের শারিরীক কোমল গঠনের কারণে যেখানে সে স্থবির থাকে আর এগুতে পারেনা,সেখানে গদ্য তার ভূমিকায় অনন্য হয়ে উঠে। মানুষ জীবনের জটিলতাকে অত্যন্ত শক্তিশালী দীর্ঘমেয়াদী চিন্তা চেতনার সাহায্যে ব্যাখ্যা করতে থাকে। মানবজাতির সূচনার সেই সহজ-সরল অভিব্যক্তি ছন্দের তালে তালে যে স্পন্দিত হচ্ছিল, অত্যন্ত শক্তিশালী মাধ্যম হিসাবে সেও তার ফরমেটে পরিবর্তন নিয়ে আসে। কেননা সৌন্দর্য আর মননশীলতা প্রকাশের এই যে অনন্য মাধ্যম পদ্য বা কবিতা তার ভিতর রয়ে গেছে এক ধরনের মাদকতা যাকে কোন কালেই মানুষ হারাতে পারেনি। কবিতায় ক্রমে ক্রমে ভাষাগত ছন্দের আঁটা-আঁটির সমান্তরে ভাবগত ছন্দে উদ্ভাসিত হয়। তার শ্রাব্য সীমারেখা ছাড়িয়ে হয়ে উঠে প্রধানত পাঠ্য।
Romanized Version
বিখ্যাত গদ্য কবিতা মানুষ তার আপন মনের ভাবনাকে প্রথমত শারীরিক অঙ্গ-ভঙ্গির মাধ্যমে অন্যজনের কাছে প্রকাশ করে,অত:পর নানাবিধ ধ্বনির সাহায্যে। যেহেতু ধ্বনি একস্থান থেকে অন্যস্থানে প্রতিস্থাপিত হয় ইথারের স্পন্দনের মাধ্যমে তাই সেই ধ্বনিকে একটি নির্দিষ্ট গাঁথুনিতে বেঁধে দিয়ে তৈরি করা যায় একটা রিদম। ভাষার উৎপত্তির শুরু থেকে মানুষ সৃষ্টিশীল ভাবনার এই ধ্বনিগুচ্ছ নানাবিধ গাঁথুনিতে গেঁথে অন্যজনের কাছে পৌঁছে দিত। পৃথিবীর প্রতিটি ভাষাই তাই প্রথম উদ্ভব হতে দেখা যায় পদ্যে বা গানে। মানুষের মস্তিষ্কে অন্তঃস্থিত যে মেমোরি সেল রয়েছে সেখানে শ্রুতি বা দৃশ্য দর্শনের মাধ্যমে যেসব তথ্য পাঠানো হয় তাকে দীর্ঘস্থায়ীভাবে স্মরণযোগ্য করে রাখার জন্য এবং প্রয়োজনীয় সময়ে প্রকাশ করার জন্য প্রয়োজন হয় একটি সুনির্দিষ্ট গাঁথুনি বা ঘটনার পরস্পরা। একটি ছন্দময় গাঁথুনি দিয়ে বেঁধে ধ্বনিপুঞ্জকে যদি মস্তিষ্কে প্রেরণ করা যায় তবে তা মস্তিষ্ক সহজেই স্মরণে রাখতে পারে। ধ্বনিগুলোকে ক্রমাগত সাজিয়ে মানুষ তার মনের ভাব প্রকাশ করে,কথা বলে। কিন্তু কথ্য ভাষার সকল শব্দই একটি নির্দিষ্ট রিদমে ফেলা যায় না। যে সমস্ত ধ্বনিসমষ্টি একটি নির্দিষ্ট রিদমে গেঁথে মনের ভাবকে প্রকাশ করা যায় সেই সকল ধ্বনি সমষ্টিকে ক্রমাগত সাজিয়ে পদ্য রচিত হয়, যা দ্বারা মনের আবেগকে অন্যের মাঝে সঞ্চারিত করা যায়। কিছু কিছু ভাব বিন্যাস শব্দের গাঁথুনিতে এতোটাই মাধুর্যমন্ডিত হয়ে উঠে যে, মস্তিষ্কে তা গেঁথে যায় এবং বারবার উচ্চারিত হয়ে আনন্দিত হয়। মনের ভাবকে প্রকাশ করার জন্য বা মানুষের অভিজ্ঞতাকে অন্যের মাঝে বর্ণনা করার জন্য প্রয়োজন হয়ে উঠে রূপকের। একটি অজানা বস্তুকে বুঝাবার জন্য জানা বস্তুর সাথে বা অজানা ভাবকে বুঝাবার জন্য জানা ভাবকে রূপক হিসাবে ব্যবহার করা হয়। কখনো কখনো এই সকল রূপক শ্রুতিমধুর ধ্বনিপুঞ্জের সাহায্যে কেবল তথ্য বা খবরের সন্ধান দেয় না,তৈরী করে এক ধরনের অনির্বচনীয় আবেগ,আপ্লুত করে মানুষের সৃষ্টিশীলতাকে। নির্মল আনন্দে আপ্লুত হয়ে উঠে মানুষের মন। মানুষের মস্তিষ্কের প্রকৃতিই এমন যে,প্রথম অভিজ্ঞতায় সে যে আনন্দে ভেসে যায় তার বহু ব্যবহারে সে বিরক্ত হয়ে উঠে। তার সৃষ্টিশীলতা নতুন অভিজ্ঞতাকে প্রয়োজনীয় করে তুলে। মানুষের মস্তিষ্ক একস্থানে স্থির অবস্থান নেয়না কখনো। মস্তিষ্কের পর্যবেক্ষণ মানুষকে ক্রমে ক্রমে সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যায়। নানবিধ পর্যবেক্ষণ প্রকৃতির নানা রীতিনীতকে আত্মস্থ করে মানুষ তার জ্ঞানের উন্মেষ ঘটাতে থাকে। বদলে যেতে থাকে জীবন যাত্রার মান। জটিল থেকে জটিলতর সামাজিক কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে এগুতে থাকে মানুষ। এই যে মানুষের সৃষ্টিশীলতা প্রকাশের অন্যতম মাধ্যম পদ্য বা কবিতা তাও নানারূপ ছন্দের পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে এগুতে থাকে। রূপকে আসতে থাকে নানা বৈচিত্র্য। ভাবে চলে আসে সমৃদ্ধি। তৈরী হতে থাকে কাব্য চেতনা। তৈরী হয় অসাধারণ ভাবের প্রকাশ শব্দের নানাবিধ বিন্যাসে। ছন্দগুলো সরলীকরণের পথ অতিক্রম করে জটিল থেকে জটিলতর হতে থাকে। চলে আসে মাত্রায় গাণিতিক প্রয়োগ। বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার চেতনায় এনে দেয় বৈপ্লবিক পরিবর্তন। চলে আসে লিখিত অবয়ব। যে ছন্দগুলো ধ্বনিপুঞ্জের তালের সাহায্যে এগুচ্ছিল তা-ই এক পর্যায়ে অন্য মাত্রায় রূপান্তরিত হয়। অর্থনৈতিক,রাজনৈতিক,সামাজিক,বৈজ্ঞানিক কর্মকান্ড পরিচালনা হতে জন্ম নেয় এক ধরনের ভাষা যাকে গদ্য বলা হয়। পরিবর্তিত পৃথিবী অনেক যুদ্ধ,প্রতিহিংসা,সামাজিক অনাচার আর বিপ্লবের মাধ্যমে এগুতে থাকে। কিন্তু মানুষের সৃষ্টিশীলতা থেমে থাকেনা। তার সৃষ্টিশীলতা প্রকাশের জন্য তৈরী হতে থাকে শক্তিশালী বাঁধন,গদ্যের বাঁধন। ভাব প্রকাশের যে মাধ্যমটি ছিলো নারীর মতো কোমল,স্নিগ্ধ, রিদমিক তা কঠিন প্রকৃতির মতো গদ্যে রূপান্তরিত হতে থাকে। তৈরী হতে থাকে এক পৌরুষদীপ্ত ফরমেট। জন্ম নেয় গল্প, ছোট গল্প, উপন্যাসের মতো শক্তিশালী মাধ্যম। পদ্যের একচ্ছত্র আধিপত্য খর্বিত হয়। কল্পনাপ্রবণ মানুষ সৃষ্টিশীলতাকে নিবেদন করতে থাকে নানামুখী ফরমেটে। পদ্যের শারিরীক কোমল গঠনের কারণে যেখানে সে স্থবির থাকে আর এগুতে পারেনা,সেখানে গদ্য তার ভূমিকায় অনন্য হয়ে উঠে। মানুষ জীবনের জটিলতাকে অত্যন্ত শক্তিশালী দীর্ঘমেয়াদী চিন্তা চেতনার সাহায্যে ব্যাখ্যা করতে থাকে। মানবজাতির সূচনার সেই সহজ-সরল অভিব্যক্তি ছন্দের তালে তালে যে স্পন্দিত হচ্ছিল, অত্যন্ত শক্তিশালী মাধ্যম হিসাবে সেও তার ফরমেটে পরিবর্তন নিয়ে আসে। কেননা সৌন্দর্য আর মননশীলতা প্রকাশের এই যে অনন্য মাধ্যম পদ্য বা কবিতা তার ভিতর রয়ে গেছে এক ধরনের মাদকতা যাকে কোন কালেই মানুষ হারাতে পারেনি। কবিতায় ক্রমে ক্রমে ভাষাগত ছন্দের আঁটা-আঁটির সমান্তরে ভাবগত ছন্দে উদ্ভাসিত হয়। তার শ্রাব্য সীমারেখা ছাড়িয়ে হয়ে উঠে প্রধানত পাঠ্য। Bikhyat Gudja Kavita Manus Taur Upon Maner Bhabnake Prathamat Sharirik Ong Bhangir Madhyame Anyajaner Kachhe Prakash Kare Ot Par Nanabidh Dhbanir Sahajye Jehetu Dhvani Ekasthan Theke Anyasthane Pratisthapit Hya Itharer Spandaner Madhyame Tai Sei Dhbanike Ekati Nirdishta Ganthunite Bendhe Diye Tairi Kara Jay Ekata Ridam Bhashar Utpattir Shuru Theke Manus Srishtishil Bhabnar AE Dhbaniguchchh Nanabidh Ganthunite Genthe Anyajaner Kachhe Paunchhe Dit Prithibir Pratiti Bhashai Tai Pratham Udbhav Hate Dekha Jay Padye Ba Gane Manusher Mastishke Antahsthit Je Memori Sale Rayechhe Sekhane Shruti Ba Drishya Darshaner Madhyame Jesab Tathya Pathano Hya Take Dirghasthayibhabe Smaranajogya Kare Rakhar Janya Evan Prayojniya Some Prakash Karar Janya Prayojan Hya Ekati Sunirdishta Ganthuni Ba Ghatanar Paraspara Ekati Chhandamay Ganthuni Diye Bendhe Dhbanipunjake Jodi Mastishke Preran Kara Jay Tove Ta Mastishk Sahajei Smarane Rakhte Pare Dhbaniguloke Kramagat Sajiye Manus Taur Maner Bhaav Prakash Kare Katha Ble Kintu Kathya Bhashar Sakal Shabdai Ekati Nirdishta Ridme Fela Jay Na Je Samasta Dhbanisamashti Ekati Nirdishta Ridme Genthe Maner Bhabke Prakash Kara Jay Sei Sakal Dhvani Samashtike Kramagat Sajiye Padya Rachit Hya Ja Dwara Maner Abegake Anyer Majhe Sancharit Kara Jay Kichhu Kichhu Bhaav Binyas Shabder Ganthunite Etotai Madhurjamandit Huye Uthe Je Mastishke Ta Genthe Jay Evan Barbar Uchcharit Huye Anandit Hya Maner Bhabke Prakash Karar Janya Ba Manusher Abhigyatake Anyer Majhe Barnana Karar Janya Prayojan Huye Uthe Rupker Ekati Ajana Bastuke Bujhabar Janya Jaana Bastur Sathe Ba Ajana Bhabke Bujhabar Janya Jaana Bhabke Roopak Hisabe Byabahar Kara Hya Kakhano Kakhano AE Sakal Roopak Shrutimdhur Dhbanipunjer Sahajye Cable Tathya Ba Khabarer Sandhan Dey Na Tairi Kare Ec Dharaner Anirbachaniya Abeg Aplut Kare Manusher Srishtishiltake Nirmal Anande Aplut Huye Uthe Manusher Mon Manusher Mastishker Prakritii Eman Je Pratham Abhigyatay Say Je Anande Bhese Jay Taur Bahu Byabahare Say Birakta Huye Uthe Taur Srishtishilta NATUN Abhigyatake Prayojniya Kare Tule Manusher Mastishk Ekasthane Sthir Abasthan Neyna Kakhano Mastishker Parjabekshan Manushake Krame Krame Samriddhir Dike Niye Jay Nanbidh Parjabekshan Prakritir Nana Ritinitke Atmastha Kare Manus Taur Gyaner Unmesh Ghatate Thake Badale Jete Thake Jeevan Jatrar Maan Jatil Theke Jatilatar Samajik Karmakander Madhye Diye Egute Thake Manus AE Je Manusher Srishtishilta Prakasher Anyatam Madhyam Padya Ba Kavita Tao Nanarup Chhander Pariksha Nirikshar Madhyame Egute Thake Rupke Asate Thake Nana Baichitrya Bhabe Chale Ase Samriddhi Tairi Hate Thake Kavya Chethana Tairi Hya Asadharan Bhaber Prakash Shabder Nanabidh Binyase Chhandagulo Saralikaraner Path Atikram Kare Jatil Theke Jatilatar Hate Thake Chale Ase Matray Ganitik Prayog Baigyanik Abishkar Chetnay Ene Dey Baiplabik Parivartan Chale Ase Likhit Aviva Je Chhandagulo Dhbanipunjer Taler Sahajye Eguchchhil Ta E Ec Parjaye Anya Matray Rupantarit Hya Arthanaitik Rajnaitik Samajik Baigyanik Karmakand Parichalna Hate Janma Ney Ec Dharaner Bhasha Jake Gudja Bala Hya Paribartit Prithibi Anek Juddha Pratihinsa Samajik Anachar Are Biplaber Madhyame Egute Thake Kintu Manusher Srishtishilta Theme Thakena Taur Srishtishilta Prakasher Janya Tairi Hate Thake Shaktishali Badhon Gadyer Badhon Bhaav Prakasher Je Madhyamati Chhilo Narir Mato Komal Snigdha Ridmik Ta Kathin Prakritir Mato Gadye Rupantarit Hate Thake Tairi Hate Thake Ec Paurushdipta Faramet Janma Ney Galpa Chhot Galpa Upanyaser Mato Shaktishali Madhyam Padyer Ekachchhatra Adhipatya Kharbit Hya Kalpanapraban Manus Srishtishiltake Nibedan Karate Thake Nanamukhi Faramete Padyer Sharirik Komal Gathaner Karne Jekhanay Say Sthabir Thake Are Egute Parena Sekhane Gudja Taur Bhumikay Ananya Huye Uthe Manus Jibner Jatiltake Atyanta Shaktishali Dirghameyadi Chinta Chetnar Sahajye Byakhya Karate Thake Manabajatir Suchnar Sei Suhaj Soral Abhibyakti Chhander Tale Tale Je Spandit Hachchhil Atyanta Shaktishali Madhyam Hisabe Sao Taur Faramete Parivartan Niye Ase Kenna Saundarjya Are Mananashilta Prakasher AE Je Ananya Madhyam Padya Ba Kavita Taur Bhitar Re Gechhe Ec Dharaner Madakata Jake Koun Kalayi Manus Harate Pareni Kabitay Krame Krame Bhashagat Chhander Anta Antir Samantare Bhabagat Sunday Udbhasit Hya Taur Shrabya Simarekha Chhariye Huye Uthe Pradhanat Pathya
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Bikhyat Gudja Kavita Lekh,Writing Famous Prose Poems.,


vokalandroid