আইন পেশার ভবিষ্যত কেমন? ...

আইন পেশা প্রাচীন পেশাগুলোর মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশে এ পেশার ইতিহাস পুরনো। ঐতিহাসিকরা মনে করেন, আমাদের এই ভূখণ্ডে প্রাচীনকালে আইন পেশার প্রচলন থাকলেও তা আধুনিককালের মতো. সুসংগঠিত ছিল না। মুসলিম শাসনামলে বাংলায় আইনচর্চা মহৎ পেশা হিসেবে স্বীকৃত ছিল। মুসলিম যুগে বিচারক (কাজী) এবং আইনজীবী
Romanized Version
আইন পেশা প্রাচীন পেশাগুলোর মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশে এ পেশার ইতিহাস পুরনো। ঐতিহাসিকরা মনে করেন, আমাদের এই ভূখণ্ডে প্রাচীনকালে আইন পেশার প্রচলন থাকলেও তা আধুনিককালের মতো. সুসংগঠিত ছিল না। মুসলিম শাসনামলে বাংলায় আইনচর্চা মহৎ পেশা হিসেবে স্বীকৃত ছিল। মুসলিম যুগে বিচারক (কাজী) এবং আইনজীবী Ain Pesa Prachin Peshagulor Madhye Anyatam Bangladeshe A Peshar Itihas Purno Aitihasikra Money Curren Amader AE Bhukhande Prachinkale Ain Peshar Prachalan Thakleo Ta Adhunikkaler Mato Susangathit Chhil Na Muslim Shasnamle Banglay Ainacharcha Maht Pesa Hisebe Swikrit Chhil Muslim Juge Bicharak Kazi Evan Ainajibi
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

এক বিশ্ব তত্ত্ব: ভবিষ্যত পৃথিবী নিয়ে ইহুদী পরিকল্পনা করেন কি ? ...

বিশ্ব তত্ত্ব প্রাচীন ইহুদী ধর্মগ্রন্থে প্রতিশ্রুত ‘এক বিশ্ব’ ধারনার সাথে আমরা কমবেশি সকলেই পরিচিত। বিশ্ব তত্ত্ব সারা পৃথিবীতে একটি যুদ্ধ বিদ্বেষ হানাহানি বিহীন রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হবে এবং সেখানে সমস্ত জাजवाब पढ़िये
ques_icon

More Answers


আইন পেশা : কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে বহু প্রতিযোগিতা করে আইন পেশায় ভালো করতে হয়। যারা এ পেশা য় আসতে চান তারা এসব জেনে বুঝেই আসেন। যারা ধৈর্য-একাগ্রতা নিয়ে আইন বিষয়ে পড়েন এবং পরবর্তীতে প্রাকটিসে সততা ন্যায়নিষ্ঠা বজায় রাখেন তাদের জন্য এ পেশা য় রয়েছে উজ্জ্বল ক্যারিয়ার গড়ার হাতছানি। বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের পছন্দক্রমের শীর্ষে উঠে এসেছে আইন বিষয়ে পড়ালেখা। মেধাবীরাই আইনে পড়তে আসছে। এক্ষেত্রে একটি সুবিধা হচ্ছে- যে কোনো ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থী বা পেশা জীবীর আইন পড়ার সুযোগ আছে। সে বিজ্ঞানের ছাত্র হোক, মানবিক, বাণিজ্য কিংবা মাদ্রাসা ব্যাকগ্রাউন্ডের হোক না কেন। বিসিএস ও অন্য যে কোনো নন ক্যাডারের চাকরি, ব্যাংক, স্বায়ত্তশাসিত ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে চাকরির ক্ষেত্রে আইনের ছাত্রদের অন্য ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থীদের মতো সমান সুযোগ আছে। বিশেষ কিছু পেশা আছে যেখানে শুধু আইনের ছাত্ররাই কাজ করতে পারবেন, অন্যরা নয়। যেমন- ওকালতি। জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের অধীনে জাজশিপ। ব্যাংকসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে, সশস্ত্র বাহিনীতে ল’ অফিসার হিসেবে শুধু এ বিষয়ের শিক্ষার্থীদেরই নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে। সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে, আইন কলেজে আইন বিভাগের গ্রাজুয়েটদের শিক্ষকতার সুযোগ রয়েছে। আইনে ডিগ্রি ও খরচ: বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের পছন্দক্রমের শীর্ষে উঠে এসেছে আইন বিষয়ে পড়ালেখা। মেধাবীরাই আইনে পড়তে আসছে। এক্ষেত্রে একটি সুবিধা হচ্ছে- যে কোনো ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থী বা পেশা জীবীর আইন পড়ার সুযোগ আছে। সে বিজ্ঞানের ছাত্র হোক, মানবিক, বাণিজ্য কিংবা মাদ্রাসা ব্যাকগ্রাউন্ডের হোক না কেন। আইন পেশায় আসতে হলে প্রথমে এইচএসসির পর পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হয়ে চার বছর মেয়াদি এলএলবি অনার্স করতে হবে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে নামমাত্র খরচ হবে। আর প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে তা গিয়ে দাঁড়াবে ৩ থেকে ৮ লাখ টাকায়। সনদ পরীক্ষা: পড়াশোনা শেষে আইন পেশায় নিয়োজিত হওয়ার জন্য বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট সনদ পরীক্ষায় পাস করতে হয়। পরীক্ষার সিলেবাস পাওয়া যাবে বার কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে। এ বিষয়ে তথ্য পাওয়া যাবে বার কাউন্সিলে। ঠিকানা: বার কাউন্সিল ভবন, ৩ শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী সরণি, শাহবাগ, ঢাকা। আইন পেশায় ক্যারিয়ার : বলাই বাহুল্য, আইন পেশায় এখন যোগ হয়েছে নতুন নতুন মাত্রা ও সম্ভাবনা। বিসিএস ও অন্য যে কোনো নন ক্যাডারের চাকরি, ব্যাংক, স্বায়ত্তশাসিত ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে চাকরির ক্ষেত্রে আইনের ছাত্রদের অন্য ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থীদের মতো সমান সুযোগ আছে। তবে বিশেষ কিছু পেশা আছে যেখানে শুধু আইনের ছাত্ররাই কাজ করতে পারবেন, অন্যরা নয়। আইনজীবী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার সুযোগ ছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি-স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান, আন্তর্জাতিক সংস্থা, বিভিন্ন বেসরকারি মানবাধিকার সংস্থা, বিভিন্ন দেশের দূতাবাস, বহুজাতিক কোম্পানি ও এনজিওতে আছে আইন কর্মকর্তা বা প্যানেল আইনজীবী হিসেবে কাজ করার সুযোগ। রয়েছে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিম্ন আদালতে যোগ দেওয়ার সুযোগ। এছাড়াও সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে, আইন কলেজে আইন বিভাগের গ্রাজুয়েটদের শিক্ষকতার সুযোগ রয়েছে। নিম্ন আদালতে প্র্যাকটিস: বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেই মিলবে সনদ এবং বারের সদস্য পদ। একজন আইনজীবী একই সঙ্গে দুটি বারের সদস্য হতে পারেন। সাধারণত একজন নবীন আইনজীবী সিনিয়র আইনজীবীর জুনিয়র হিসেবে কাজ শুরু করেন। পরে সিনিয়র হলে নিজে স্বাধীনভাবে নিম্ন আদালতে প্র্যাকটিস করতে পারেন। নিম্ন আদালতে অ্যাডভোকেটরা সাধারণত দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা পরিচালনা করে থাকেন। হাইকোর্ট বিভাগে প্র্যাকটিস: নিম্নআদালতে দুই বছর আইনজীবী হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে হাইকোর্ট বিভাগে আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্তির জন্য আবেদন করা যায়। হাইকোর্টে ১০ বছরের বেশি প্র্যাকটিস করছেন, এমন এক সিনিয়র আইনজীবীর সঙ্গে শিক্ষানবিশ চুক্তি করতে হয়। তবে বার-অ্যাট-ল’ বা এলএলএম পরীক্ষায় কমপক্ষে ৫০ শতাংশ নম্বর থাকলে এক বছর পরেই আবেদন করা যায়। এ প্রক্রিয়া অনেকটাই নিম্ন আদালতে অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট পরীক্ষার মতো। আপিল বিভাগে প্র্যাকটিস: একজন আইনজীবী হাইকোর্ট বিভাগে পাঁচ বছর প্র্যাকটিসের পর আপিল বিভাগে মামলা পরিচালনার জন্য আবেদন করতে পারেন। এক্ষেত্রে লাগবে ‘আপিল বিভাগে প্র্যাকটিসের যোগ্য’ এই মর্মে প্রধান বিচারপতি ও হাইকোর্টের বিচারপতিদের সংখ্যাগরিষ্ঠের দেওয়া প্রত্যয়ন। আর এটি পেলেই আপিল বিভাগে মামলা পরিচালনার যোগ্যতা অর্জন করেন একজন আইনজীবী। দেওয়ানি মামলা: সম্পত্তির ওপর স্বত্ব ও দখলের অধিকার নিয়ে যে মামলা হয়, সেটাই দেওয়ানি মামলা। আদালতের ভাষায় এটিকে ‘মোকদ্দমা’ বলে। সব ধরনের দৃশ্যমান স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি এবং অদৃশ্য সব ধরনের অধিকারসংক্রান্ত মোকদ্দমা আইনজীবীরা জেলা জজ আদালতে পরিচালনা করেন। এ মামলা পরিচালনার জন্য ১৮৭৭ সালের সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন, দেওয়ানি কার্যবিধি আইন, সাক্ষ্য আইনের বিভিন্ন ধারা সম্পর্কে ভালো দখল থাকতে হয়। ফৌজদারি মামলা: চুরি, ডাকাতি, খুন, মারামারি, ধর্ষণ ইত্যাদি সংঘটিত অপরাধের বিচার ফৌজদারি মামলার আওতাধীন। এ মামলা আইনজীবীরা ফৌজদারি আদালতে পরিচালনা করে থাকেন। এ মামলা পরিচালনার জন্য ১৮৯৮ সালের ফৌজদারি কার্যবিধি, দণ্ডবিধি ও সাক্ষ্য আইনের বিভিন্ন ধারা সম্পর্কে ভালো জ্ঞান রাখতে হয়। ইনকাম ট্যাক্স আইনজীবী: যারা আইন বিষয়ে পড়াশোনা করেছেন, কিন্তু অ্যাডভোকেট না, তারাও চাইলে আয়কর আইনজীবী হিসেবে প্র্যাকটিসের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও ট্যাক্স বারের সদস্য পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। বাণিজ্য বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীরাও আয়কর আইনজীবী হওয়ার জন্য এনবিআরে আবেদন করতে পারেন। একই সঙ্গে তাদের ট্যাক্স বারের সদস্য হতে হয়। অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণের পর ট্যাক্স বারের সদস্য হতে হবে। আবেদন করতে হবে নির্ধারিত ফরমে। আয়কর আইনজীবীরা আয়কর, সম্পদ, আমদানি শুল্ক, আবগারি শুল্ক ইত্যাদি বিষয়ে মামলা পরিচালনা করেন। তাদের আয়কর অধ্যাদেশ, ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন, সম্পদ বিবরণী ইত্যাদি বিষয়ে ভালো জ্ঞান রাখতে হয়। করপোরেট ল’ প্র্যাকটিস অ্যান্ড লিটিগেশন: যিনি করপোরেশন আইনে বিশেষ জ্ঞান রাখেন, তিনি করপোরেট আইনজীবী। করপোরেট খাতে আইনজীবীদের কাজের ক্ষেত্র দিন দিন বাড়ছে। করপোরেট আইনজীবী হতে হলে কন্ট্রাক্ট ল, কোম্পানি রেজিস্ট্রেশন, ট্রেড লাইসেন্স, ট্যাক্স ল, অ্যাকাউন্টিং, সিকিউরিটি ল, দেউলিয়া আইন, মেধাস্বত্ব আইন সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। আইন বিষয়ে পড়েও বা অ্যাডভোকেট হয়েও কোর্টে প্র্যাকটিস করতে না চাইলে বিভিন্ন ল’ ফার্মে কাজের সুযোগ পেতে পারেন। ল’ ফার্মগুলোয় বিভিন্ন কোম্পানির ডকুমেন্টেশন প্রস্তুত, লিগ্যাল অ্যাডভাইস দেওয়া, ফাইল তৈরি, মামলার ড্রাফট তৈরির কাজ করতে পারেন। আরও কাজের ক্ষেত্র: বাংলাদেশে তেমন প্রচলন না থাকলে সাইবার ক্রাইম, ইমিগ্রেশন, স্পোর্টস ও মিডিয়া আইনজীবী হলে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও পেতে পারেন কাজের সুযোগ। তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারের ফলে সাইবার বিষয়ে নানা ধরনের আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে। আর মিডিয়া, মিডিয়াকর্মী বা সেলিব্রিটিদের বিভিন্ন আইনি জটিলতার ক্ষেত্রে অভিজ্ঞদের কদর বাংলাদেশেও তৈরি হচ্ছে। আয়: আইনজীবীদের আয়ের বিষয়টি নির্ভর করে অভিজ্ঞতা, ব্যক্তিগত দক্ষতা, সামাজিক যোগাযোগ, মামলার ধরন ও মক্কেলের ওপর। ৫০ হাজার থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ ও আপিল বিভাগের একজন আইনজীবী। বার-অ্যাট-ল’ ডিগ্রি থাকলে মক্কেলদের কাছে বাড়ে গ্রহণযোগ্যতা। একজন নতুন আইনজীবী সাধারণত ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা আয় করতে পারেন। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বা সহকারী জজ পদে নিয়োগ পেলে সম্মান, নানা সুযোগ-সুবিধাসহ মিলবে আকর্ষণীয় বেতন। মানসিক প্রস্তুতিই হচ্ছে আইন পেশা এর প্রধান হাতিয়ার। আইন পেশার শুরুটা একটু চ্যালেঞ্জের, একটু দুর্গম। তাই শুরু থেকে কঠিন পরিশ্রম, প্রত্যয় এবং একাগ্রতা নিয়ে কাজ করার প্রস্তুতি নিতে হবে। তা ছাড়া এখানে রাজ্যের ধৈর্য নিয়ে আপনাকে বিচারপ্রার্থীর সমস্যার কথা মন দিয়ে শোনার মানসিকতা রাখতে হবে। এ পেশার শুরুটা হয় একজন জ্যেষ্ঠ আইনজীবীর সঙ্গে কাজ দিয়ে। প্রথমে আয়-রোজগারের দিকে না তাকিয়ে কাজের প্রতি মনোযোগী হওয়া বাঞ্ছনীয়। একাডেমিক ফলের চেয়ে আইন পেশা য় পেশা জীবনের মেধা, আইন সম্পর্কে খুটিনাটি জানাশোনা, পরিচিত, পরিশ্রম ও ধৈর্যই এনে দেবে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ।
Romanized Version
আইন পেশা : কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে বহু প্রতিযোগিতা করে আইন পেশায় ভালো করতে হয়। যারা এ পেশা য় আসতে চান তারা এসব জেনে বুঝেই আসেন। যারা ধৈর্য-একাগ্রতা নিয়ে আইন বিষয়ে পড়েন এবং পরবর্তীতে প্রাকটিসে সততা ন্যায়নিষ্ঠা বজায় রাখেন তাদের জন্য এ পেশা য় রয়েছে উজ্জ্বল ক্যারিয়ার গড়ার হাতছানি। বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের পছন্দক্রমের শীর্ষে উঠে এসেছে আইন বিষয়ে পড়ালেখা। মেধাবীরাই আইনে পড়তে আসছে। এক্ষেত্রে একটি সুবিধা হচ্ছে- যে কোনো ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থী বা পেশা জীবীর আইন পড়ার সুযোগ আছে। সে বিজ্ঞানের ছাত্র হোক, মানবিক, বাণিজ্য কিংবা মাদ্রাসা ব্যাকগ্রাউন্ডের হোক না কেন। বিসিএস ও অন্য যে কোনো নন ক্যাডারের চাকরি, ব্যাংক, স্বায়ত্তশাসিত ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে চাকরির ক্ষেত্রে আইনের ছাত্রদের অন্য ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থীদের মতো সমান সুযোগ আছে। বিশেষ কিছু পেশা আছে যেখানে শুধু আইনের ছাত্ররাই কাজ করতে পারবেন, অন্যরা নয়। যেমন- ওকালতি। জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের অধীনে জাজশিপ। ব্যাংকসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে, সশস্ত্র বাহিনীতে ল’ অফিসার হিসেবে শুধু এ বিষয়ের শিক্ষার্থীদেরই নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে। সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে, আইন কলেজে আইন বিভাগের গ্রাজুয়েটদের শিক্ষকতার সুযোগ রয়েছে। আইনে ডিগ্রি ও খরচ: বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের পছন্দক্রমের শীর্ষে উঠে এসেছে আইন বিষয়ে পড়ালেখা। মেধাবীরাই আইনে পড়তে আসছে। এক্ষেত্রে একটি সুবিধা হচ্ছে- যে কোনো ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থী বা পেশা জীবীর আইন পড়ার সুযোগ আছে। সে বিজ্ঞানের ছাত্র হোক, মানবিক, বাণিজ্য কিংবা মাদ্রাসা ব্যাকগ্রাউন্ডের হোক না কেন। আইন পেশায় আসতে হলে প্রথমে এইচএসসির পর পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হয়ে চার বছর মেয়াদি এলএলবি অনার্স করতে হবে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে নামমাত্র খরচ হবে। আর প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে তা গিয়ে দাঁড়াবে ৩ থেকে ৮ লাখ টাকায়। সনদ পরীক্ষা: পড়াশোনা শেষে আইন পেশায় নিয়োজিত হওয়ার জন্য বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট সনদ পরীক্ষায় পাস করতে হয়। পরীক্ষার সিলেবাস পাওয়া যাবে বার কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে। এ বিষয়ে তথ্য পাওয়া যাবে বার কাউন্সিলে। ঠিকানা: বার কাউন্সিল ভবন, ৩ শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী সরণি, শাহবাগ, ঢাকা। আইন পেশায় ক্যারিয়ার : বলাই বাহুল্য, আইন পেশায় এখন যোগ হয়েছে নতুন নতুন মাত্রা ও সম্ভাবনা। বিসিএস ও অন্য যে কোনো নন ক্যাডারের চাকরি, ব্যাংক, স্বায়ত্তশাসিত ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে চাকরির ক্ষেত্রে আইনের ছাত্রদের অন্য ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থীদের মতো সমান সুযোগ আছে। তবে বিশেষ কিছু পেশা আছে যেখানে শুধু আইনের ছাত্ররাই কাজ করতে পারবেন, অন্যরা নয়। আইনজীবী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার সুযোগ ছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি-স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান, আন্তর্জাতিক সংস্থা, বিভিন্ন বেসরকারি মানবাধিকার সংস্থা, বিভিন্ন দেশের দূতাবাস, বহুজাতিক কোম্পানি ও এনজিওতে আছে আইন কর্মকর্তা বা প্যানেল আইনজীবী হিসেবে কাজ করার সুযোগ। রয়েছে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিম্ন আদালতে যোগ দেওয়ার সুযোগ। এছাড়াও সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে, আইন কলেজে আইন বিভাগের গ্রাজুয়েটদের শিক্ষকতার সুযোগ রয়েছে। নিম্ন আদালতে প্র্যাকটিস: বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেই মিলবে সনদ এবং বারের সদস্য পদ। একজন আইনজীবী একই সঙ্গে দুটি বারের সদস্য হতে পারেন। সাধারণত একজন নবীন আইনজীবী সিনিয়র আইনজীবীর জুনিয়র হিসেবে কাজ শুরু করেন। পরে সিনিয়র হলে নিজে স্বাধীনভাবে নিম্ন আদালতে প্র্যাকটিস করতে পারেন। নিম্ন আদালতে অ্যাডভোকেটরা সাধারণত দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা পরিচালনা করে থাকেন। হাইকোর্ট বিভাগে প্র্যাকটিস: নিম্নআদালতে দুই বছর আইনজীবী হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে হাইকোর্ট বিভাগে আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্তির জন্য আবেদন করা যায়। হাইকোর্টে ১০ বছরের বেশি প্র্যাকটিস করছেন, এমন এক সিনিয়র আইনজীবীর সঙ্গে শিক্ষানবিশ চুক্তি করতে হয়। তবে বার-অ্যাট-ল’ বা এলএলএম পরীক্ষায় কমপক্ষে ৫০ শতাংশ নম্বর থাকলে এক বছর পরেই আবেদন করা যায়। এ প্রক্রিয়া অনেকটাই নিম্ন আদালতে অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট পরীক্ষার মতো। আপিল বিভাগে প্র্যাকটিস: একজন আইনজীবী হাইকোর্ট বিভাগে পাঁচ বছর প্র্যাকটিসের পর আপিল বিভাগে মামলা পরিচালনার জন্য আবেদন করতে পারেন। এক্ষেত্রে লাগবে ‘আপিল বিভাগে প্র্যাকটিসের যোগ্য’ এই মর্মে প্রধান বিচারপতি ও হাইকোর্টের বিচারপতিদের সংখ্যাগরিষ্ঠের দেওয়া প্রত্যয়ন। আর এটি পেলেই আপিল বিভাগে মামলা পরিচালনার যোগ্যতা অর্জন করেন একজন আইনজীবী। দেওয়ানি মামলা: সম্পত্তির ওপর স্বত্ব ও দখলের অধিকার নিয়ে যে মামলা হয়, সেটাই দেওয়ানি মামলা। আদালতের ভাষায় এটিকে ‘মোকদ্দমা’ বলে। সব ধরনের দৃশ্যমান স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি এবং অদৃশ্য সব ধরনের অধিকারসংক্রান্ত মোকদ্দমা আইনজীবীরা জেলা জজ আদালতে পরিচালনা করেন। এ মামলা পরিচালনার জন্য ১৮৭৭ সালের সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন, দেওয়ানি কার্যবিধি আইন, সাক্ষ্য আইনের বিভিন্ন ধারা সম্পর্কে ভালো দখল থাকতে হয়। ফৌজদারি মামলা: চুরি, ডাকাতি, খুন, মারামারি, ধর্ষণ ইত্যাদি সংঘটিত অপরাধের বিচার ফৌজদারি মামলার আওতাধীন। এ মামলা আইনজীবীরা ফৌজদারি আদালতে পরিচালনা করে থাকেন। এ মামলা পরিচালনার জন্য ১৮৯৮ সালের ফৌজদারি কার্যবিধি, দণ্ডবিধি ও সাক্ষ্য আইনের বিভিন্ন ধারা সম্পর্কে ভালো জ্ঞান রাখতে হয়। ইনকাম ট্যাক্স আইনজীবী: যারা আইন বিষয়ে পড়াশোনা করেছেন, কিন্তু অ্যাডভোকেট না, তারাও চাইলে আয়কর আইনজীবী হিসেবে প্র্যাকটিসের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও ট্যাক্স বারের সদস্য পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন। বাণিজ্য বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীরাও আয়কর আইনজীবী হওয়ার জন্য এনবিআরে আবেদন করতে পারেন। একই সঙ্গে তাদের ট্যাক্স বারের সদস্য হতে হয়। অ্যাডভোকেট এনরোলমেন্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণের পর ট্যাক্স বারের সদস্য হতে হবে। আবেদন করতে হবে নির্ধারিত ফরমে। আয়কর আইনজীবীরা আয়কর, সম্পদ, আমদানি শুল্ক, আবগারি শুল্ক ইত্যাদি বিষয়ে মামলা পরিচালনা করেন। তাদের আয়কর অধ্যাদেশ, ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন, সম্পদ বিবরণী ইত্যাদি বিষয়ে ভালো জ্ঞান রাখতে হয়। করপোরেট ল’ প্র্যাকটিস অ্যান্ড লিটিগেশন: যিনি করপোরেশন আইনে বিশেষ জ্ঞান রাখেন, তিনি করপোরেট আইনজীবী। করপোরেট খাতে আইনজীবীদের কাজের ক্ষেত্র দিন দিন বাড়ছে। করপোরেট আইনজীবী হতে হলে কন্ট্রাক্ট ল, কোম্পানি রেজিস্ট্রেশন, ট্রেড লাইসেন্স, ট্যাক্স ল, অ্যাকাউন্টিং, সিকিউরিটি ল, দেউলিয়া আইন, মেধাস্বত্ব আইন সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। আইন বিষয়ে পড়েও বা অ্যাডভোকেট হয়েও কোর্টে প্র্যাকটিস করতে না চাইলে বিভিন্ন ল’ ফার্মে কাজের সুযোগ পেতে পারেন। ল’ ফার্মগুলোয় বিভিন্ন কোম্পানির ডকুমেন্টেশন প্রস্তুত, লিগ্যাল অ্যাডভাইস দেওয়া, ফাইল তৈরি, মামলার ড্রাফট তৈরির কাজ করতে পারেন। আরও কাজের ক্ষেত্র: বাংলাদেশে তেমন প্রচলন না থাকলে সাইবার ক্রাইম, ইমিগ্রেশন, স্পোর্টস ও মিডিয়া আইনজীবী হলে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও পেতে পারেন কাজের সুযোগ। তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারের ফলে সাইবার বিষয়ে নানা ধরনের আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে। আর মিডিয়া, মিডিয়াকর্মী বা সেলিব্রিটিদের বিভিন্ন আইনি জটিলতার ক্ষেত্রে অভিজ্ঞদের কদর বাংলাদেশেও তৈরি হচ্ছে। আয়: আইনজীবীদের আয়ের বিষয়টি নির্ভর করে অভিজ্ঞতা, ব্যক্তিগত দক্ষতা, সামাজিক যোগাযোগ, মামলার ধরন ও মক্কেলের ওপর। ৫০ হাজার থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ ও আপিল বিভাগের একজন আইনজীবী। বার-অ্যাট-ল’ ডিগ্রি থাকলে মক্কেলদের কাছে বাড়ে গ্রহণযোগ্যতা। একজন নতুন আইনজীবী সাধারণত ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা আয় করতে পারেন। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বা সহকারী জজ পদে নিয়োগ পেলে সম্মান, নানা সুযোগ-সুবিধাসহ মিলবে আকর্ষণীয় বেতন। মানসিক প্রস্তুতিই হচ্ছে আইন পেশা এর প্রধান হাতিয়ার। আইন পেশার শুরুটা একটু চ্যালেঞ্জের, একটু দুর্গম। তাই শুরু থেকে কঠিন পরিশ্রম, প্রত্যয় এবং একাগ্রতা নিয়ে কাজ করার প্রস্তুতি নিতে হবে। তা ছাড়া এখানে রাজ্যের ধৈর্য নিয়ে আপনাকে বিচারপ্রার্থীর সমস্যার কথা মন দিয়ে শোনার মানসিকতা রাখতে হবে। এ পেশার শুরুটা হয় একজন জ্যেষ্ঠ আইনজীবীর সঙ্গে কাজ দিয়ে। প্রথমে আয়-রোজগারের দিকে না তাকিয়ে কাজের প্রতি মনোযোগী হওয়া বাঞ্ছনীয়। একাডেমিক ফলের চেয়ে আইন পেশা য় পেশা জীবনের মেধা, আইন সম্পর্কে খুটিনাটি জানাশোনা, পরিচিত, পরিশ্রম ও ধৈর্যই এনে দেবে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ। Ain Pesa : Kathin Path Pari Diye Bahu Pratijogita Kare Ain Peshay Valu Karate Hya Jara A Pesa Ya Asate Sun Tara Esab Jene Bujhei Asen Jara Dhairjya Ekagrata Niye Ain Vise Paren Evan Parabartite Prakatise Satata Nyayanishtha Bajay Rakhen Tader Janya A Pesa Y Rayechhe Ujjwal Kyariyar Gadar Hatchhani Bartamane Tarun Prajanmer Shiksharthider Pachhandakramer Shirshe Uthe Esechhe Ain Vise Paralekha Medhabirai Aine Parate Ashche Ekshetre Ekati Subidha Hachchhe Je Kono Byakagraunder Shiksharthi Ba Pesa Jibir Ain Parar Sujog Ache Say Bigyaner Chhatra Hoek Manbik Banijya Kingba Madrasa Byakagraunder Hoek Na Can BCS O Anya Je Kono Non Kyadarer Chakri Bank Swayattashasit O Bahujatik Pratishthane Chakrir Xetre Ainer Chhatrader Anya Byakagraunder Shiksharthider Mato Saman Sujog Ache Vishesha Kichhu Pesa Ache Jekhanay Shudhu Ainer Chhatrarai Kaj Karate Paraben Anyara Noy Jeman Okalati Judicial Sarbhis Kamishner Adhine Jajship Byankasah Sarakari Besarakari Pratishthane Sashastra Bahinite Low Officer Hisebe Shudhu A Bishyer Shiksharthiderai Niyog Dea Huye Thake Sarakari Besarakari Bishwabidyalaye Ain Kaleje Ain Bibhager Grajuyetder Shikshakatar Sujog Rayechhe Aine Digri O Kharach Bartamane Tarun Prajanmer Shiksharthider Pachhandakramer Shirshe Uthe Esechhe Ain Vise Paralekha Medhabirai Aine Parate Ashche Ekshetre Ekati Subidha Hachchhe Je Kono Byakagraunder Shiksharthi Ba Pesa Jibir Ain Parar Sujog Ache Say Bigyaner Chhatra Hoek Manbik Banijya Kingba Madrasa Byakagraunder Hoek Na Can Ain Peshay Asate Hale Prathame Eichaesasir Par Pablik Bishwabidyalay Ba Pvt Bishwabidyalaye Ain Bibhage Bharti Huye CHAR Bachhar Meyadi LLB Honours Karate Habe Pablik Bishwabidyalaye Parate Nammatra Kharach Habe Are Pvt Bishwabidyalaye Ta Giye Danrabe 3 Theke 8 Lac Takay Canada Pariksha Parashona Sheshe Ain Peshay Niyojit Hwar Janya Bangladesh Bar Kaunsiler Advocates Enrollment Canada Parikshay Pass Karate Hya Parikshar Syllabus Powa Jabe Bar Kaunsiler Oyebsaite A Vise Tathya Powa Jabe Bar Kaunsile Thikana Bar Council Bhawan 3 Shahid Captain Mansur Ali Sarani Shahbag Dhaka Ain Peshay Kyariyar Balai Bahulya Ain Peshay Ekhan Jog Hayechhe NATUN NATUN Maatra O Sambhabana BCS O Anya Je Kono Non Kyadarer Chakri Bank Swayattashasit O Bahujatik Pratishthane Chakrir Xetre Ainer Chhatrader Anya Byakagraunder Shiksharthider Mato Saman Sujog Ache Tove Vishesha Kichhu Pesa Ache Jekhanay Shudhu Ainer Chhatrarai Kaj Karate Paraben Anyara Noy Ainajibi Hisebe Nijeke Pratishthit Karar Sujog Chharao Rayechhe Bibhinna Sarakari Besarakari Swayattashasit Pratisthan Bank O Arthik Pratisthan Antarjatik Sanstha Bibhinna Besarakari Manbadhikar Sanstha Bibhinna Desher Dutabas Bahujatik Company O Enajiote Ache Ain Karmakarta Ba Panel Ainajibi Hisebe Kaj Karar Sujog Rayechhe Judicial Myajistret Hisebe Nimna Adalate Jog Dewar Sujog Echharao Sarakari Besarakari Bishwabidyalaye Ain Kaleje Ain Bibhager Grajuyetder Shikshakatar Sujog Rayechhe Nimna Adalate Pryakatis Bangladesh Bar Kaunsiler Advocates Enrollment Parikshay Uttirna Halei Milbe Canada Evan Barer Sadasya Pada Ekajan Ainajibi Ekai Sange Duti Barer Sadasya Hate Paren Sadharanat Ekajan Naveen Ainajibi Siniyar Ainajibir Junior Hisebe Kaj Shuru Curren Pare Siniyar Hale Nije Swadhinbhabe Nimna Adalate Pryakatis Karate Paren Nimna Adalate Adbhoketra Sadharanat Dewani O Faujdari Mamla Parichalna Kare Thaken Haikorta Bibhage Pryakatis Nimnadalte Dui Bachhar Ainajibi Hisebe Kajer Abhigyata Thakle Haikorta Bibhage Ainajibi Hisebe Antarbhuktir Janya Abedan Kara Jay Haikorte 10 Bachharer Bedshee Pryakatis Karachhen Eman Ec Siniyar Ainajibir Sange Shikshanabish Chukti Karate Hya Tove Bar At Low Ba LLM Parikshay Kamapakshe 50 Shatangsh Number Thakle Ec Bachhar Parei Abedan Kara Jay A Prakriya Anektai Nimna Adalate Advocates Enrollment Parikshar Mato Apil Bibhage Pryakatis Ekajan Ainajibi Haikorta Bibhage Paanch Bachhar Pryakatiser Par Apil Bibhage Mamla Parichalnar Janya Abedan Karate Paren Ekshetre Lagbe ‘apil Bibhage Pryakatiser Jogyo AE Marme Pradhan Bicharapati O Haikorter Bicharapatider Sankhyagarishther Dewa Pratyayan Are AT Pelei Apil Bibhage Mamla Parichalnar Jogyata Arjan Curren Ekajan Ainajibi Dewani Mamla Sampattir Opar Swatba O Dakhaler Adhikar Niye Je Mamla Hya Setai Dewani Mamla Adalter Bhashay ATK ‘mokaddamao Ble Sab Dharaner Drishyaman Sthabar Asthabar Humpty Evan Adrishya Sab Dharaner Adhikarasankranta Mokaddama Ainajibira Jela Jojo Adalate Parichalna Curren A Mamla Parichalnar Janya 1877 Saler Sunirdishta Pratikar Ain Dewani Karjabidhi Ain Sakshya Ainer Bibhinna Dhara Samparke Valu Dakhal Thakte Hya Faujdari Mamla Churi Dakati Khoon Maramari Dharshan Ityadi Sanghatit Aparadher Bichar Faujdari Mamlar Aotadhin A Mamla Ainajibira Faujdari Adalate Parichalna Kare Thaken A Mamla Parichalnar Janya 1898 Saler Faujdari Karjabidhi Dandabidhi O Sakshya Ainer Bibhinna Dhara Samparke Valu Gyan Rakhte Hya Income Tax Ainajibi Jara Ain Vise Parashona Karechhen Kintu Advocates Na Tarao Chaile Iqra Ainajibi Hisebe Pryakatiser Janya Jatiya Rajaswa Board NBR O Tax Barer Sadasya Pader Janya Abedan Karate Paraben Banijya Bibhage Snatakottar Digridharirao Iqra Ainajibi Hwar Janya Enabiare Abedan Karate Paren Ekai Sange Tader Tax Barer Sadasya Hate Hya Advocates Enrollment Parikshay Uttirner Par Tax Barer Sadasya Hate Habe Abedan Karate Habe Nirdharit Farame Iqra Ainajibira Iqra Sampada Amadani Shulk Abagari Shulk Ityadi Vise Mamla Parichalna Curren Tader Iqra Adhyadesh Income Tax Return Sampada Bibarani Ityadi Vise Valu Gyan Rakhte Hya Karaporet Low Pryakatis And Litigation Jini Karaporeshan Aine Vishesha Gyan Rakhen Tini Karaporet Ainajibi Karaporet Khate Ainajibider Kajer Kshetra Dinh Dinh Barchhe Karaporet Ainajibi Hate Hale Kantrakta Law Company Registration Trade License Tax Law Accounting Security Law Deuliya Ain Medhaswatba Ain Samparke Valu Gyan Thakte Habe Ain Vise Pareo Ba Advocates Hayeo Korte Pryakatis Karate Na Chaile Bibhinna Low Farme Kajer Sujog Pete Paren Low Farmaguloy Bibhinna Kompanir Dakumenteshan Prastut Legal Advice Dewa File Tairi Mamlar Drafat Tairir Kaj Karate Paren RO Kajer Kshetra Bangladeshe Teman Prachalan Na Thakle Cyber Crime Imigreshan Sportas O Media Ainajibi Hale Desher Gandi Periye Antarjatik Parimandaleo Pete Paren Kajer Sujog Tathyaprajuktir Prasarer Fale Cyber Vise Nana Dharaner Ain Pranayan Kara Hachchhe Are Media Midiyakarmi Ba Selibritider Bibhinna Aini Jatiltar Xetre Abhigyader Kadar Bangladesheo Tairi Hachchhe Ai Ainajibider Ayer Bishayati Nirbhar Kare Abhigyata Byaktigat Dakshata Samajik Jogajog Mamlar Dharun O Makkeler Opar 50 Hajar Theke 5 Lac Taka Parjanta Ai Karate Paren Supreme Korter Haikorta Bibhag O Apil Bibhager Ekajan Ainajibi Bar At Low Digri Thakle Makkelader Kachhe Bare Grahanajogyata Ekajan NATUN Ainajibi Sadharanat 20 Theke 25 Hajar Taka Ai Karate Paren Judicial Myajistret Ba Sahakari Jojo Pode Niyog Pele Samman Nana Sujog Subidhasah Milbe Akarshaniya Baton Mansik Prastutii Hachchhe Ain Pesa Aare Pradhan Hatiyar Ain Peshar Shuruta Ekatu Chyalenjer Ekatu Durgam Tai Shuru Theke Kathin Parishram Pratyay Evan Ekagrata Niye Kaj Karar Prastuti Nite Habe Ta Chhara Ekhane Rajyer Dhairjya Niye Apanake Bicharaprarthir Samasyar Katha Mon Diye Shonar Mansikta Rakhte Habe A Peshar Shuruta Hya Ekajan Jyeshtha Ainajibir Sange Kaj Diye Prathame Ai Rojgarer Dike Na Takiye Kajer Prati Manojogi Hwa Banchhaniya Academic Faler Cheye Ain Pesa Y Pesa Jibner Medha Ain Samparke Khutinati Janashona Parichit Parishram O Dhairjai Ene Dewey Ujjwal Bhabishyt
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Ain Peshar Bhabishyat Keymon,What Is The Future Of Law Career?,


vokalandroid