সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু সম্পর্কে আলোচনা করো । ...

ভারতীয় জাতীয়তাবদী নেতা সুভাষ চন্দ্র বসুর ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৮ অগস্ট জাপানি-অধিকৃত ফরমোসা দ্বীপে (বর্তমান তাইওয়ান) তাঁর অধিক যাত্রীবাহিত বিমান দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়ে দেহাবসান হয়।সে যা-ই হোক, তাঁর অনেক অনুগামীই, বিশেষত বাংলায়, সেই সময় ঘটনাটা অস্বীকার করে, এবং এমনকি এখনো তাঁর মৃত্যু সম্পর্কিত পরিস্থিতি এবং তথ্য বিশ্বাস করতে সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু অস্বীকার করে।তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার বসু সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু মধ্যেই ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব উদ্ভূত হয় এবং তারপর একটা দীর্ঘ ব্যক্তিগত জীবন থাকবার ছিল, সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে বিভিন্ন সামরিক কাহিনি জিইয়ে রাখা সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু হয়েছে।
Romanized Version
ভারতীয় জাতীয়তাবদী নেতা সুভাষ চন্দ্র বসুর ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৮ অগস্ট জাপানি-অধিকৃত ফরমোসা দ্বীপে (বর্তমান তাইওয়ান) তাঁর অধিক যাত্রীবাহিত বিমান দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়ে দেহাবসান হয়।সে যা-ই হোক, তাঁর অনেক অনুগামীই, বিশেষত বাংলায়, সেই সময় ঘটনাটা অস্বীকার করে, এবং এমনকি এখনো তাঁর মৃত্যু সম্পর্কিত পরিস্থিতি এবং তথ্য বিশ্বাস করতে সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু অস্বীকার করে।তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার বসু সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু মধ্যেই ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব উদ্ভূত হয় এবং তারপর একটা দীর্ঘ ব্যক্তিগত জীবন থাকবার ছিল, সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে বিভিন্ন সামরিক কাহিনি জিইয়ে রাখা সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু হয়েছে।Bhartiya Jatiytabdi Neta Subhash Chandra Basur 1945 Khristabder 18 Agasta Japani Adhikrit Faramosa Dwipe Bartaman Taiwan Tanr Adhik Jatribahit Viman Durghatanay Maratmakabhabe Pure Giye Dehabsan Hay Say Ja E Hoek Tanr Anek Anugamii Bisheshat Banglay Sei Samay Ghatanata Aswikar Kare Evan Emanaki Ekhano Tanr Mrityu Samparkit Paristhiti Evan Tathya Biswas Karate Subhash Chandra Basu Mrityu Aswikar Kare Tanr Mrityur Kayek Ghantar Basu Subhash Chandra Basu Mrityu Madhyei Sharajantrer Tattva Udbhut Hay Evan Tarapar Ekata Dirgh Byaktigat Jeevan Thakbar Chhil Subhash Chandra Samparke Bibhinna Samrik Kahini Jiiye Rakha Subhash Chandra Basu Mrityu Hayechhe
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

More Answers


সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হল, ভারতীয় জাতীয়তাবদী নেতা সুভাষ চন্দ্র বসুর ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৮ অগস্ট জাপানি-অধিকৃত ফরমোসা দ্বীপে (বর্তমান তাইওয়ান) তাঁর অধিক যাত্রীবাহিত বিমান দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়ে দেহাবসান হয়। সে যা-ই হোক, তাঁর অনেক অনুগামীই, বিশেষত বাংলায়, সেই সময় ঘটনাটা অস্বীকার করে, এবং এমনকি এখনো তাঁর মৃত্যু সম্পর্কিত পরিস্থিতি এবং তথ্য বিশ্বাস করতে অস্বীকার করে। তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব উদ্ভূত হয় এবং তারপর একটা দীর্ঘ ব্যক্তিগত জীবন থাকবার ছিল, সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে বিভিন্ন সামরিক কাহিনি জিইয়ে রাখা হয়েছে।১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ নাগাদ সুভাষ চন্দ্র বসুর সঙ্গে তাঁর আজাদ হিন্দ ফৌজ-এর (আইএনএ) প্রবীণ অফিসার, কয়েকশো তালিকাভুক্ত আইএনএ সিপাহি, এবং প্রায় একশো আইএনএ-র ঝাঁসির রানি রেজিমেন্টের মহিলা সদস্য ব্রহ্মদেশের মৌলমেইন যাওয়ার জন্যে রেঙ্গুন ছাড়ে। সঙ্গে ছিলেন জাপানি-আইএনএ মৈত্রী সংস্থা হিকরি কিকন-এর প্রধান, লেফটেন্যান্ট জেনারেল সাবুরো ইসোদা, তাদের জাপানি সেনাবাহিনীর কনভয় সিতাং নদীর ডানদিকের তীরে তাহলেও ধীরে পৌঁছাতে সক্ষম হয়। (১ নম্বর মানচিত্র দেখুন) যা-ই হোক, খুব অল্প পরিবহনই নদী পার হতে সক্ষম হয়েছিল, কারণ তখন মার্কিন গোলা ছুটছিল। সুভাষ চন্দ্র এবং তাঁর দলবল মৌলমেইন পৌঁছাবার জন্যে বাদবাকি ৮০ মাইল (১৩০ কিমি) পথ পরের সপ্তাহ জুড়ে হাঁটা দিয়েছিল। মৌলমেইন তখন ডেথ রেলপথ টার্মিনাস হয়ে গিয়েছে, যেটা আগেই ব্রিটিশ, অস্ট্রেলীয় এবং দিনেমার যুদ্ধবন্দিদের দ্বারা গড়া হয়েছে, যা বার্মাকে সিয়াম (বর্তমানে থাইল্যান্ড) পর্যন্ত যোগ করেছে। মৌলমেইনে সুভাষের বাহিনীতে আরো ৫০০ মানুষ আইএনএ-র প্রথম গেরিলা রেজিমেন্ট এক্স-রেজিমেন্ট থেকে যোগ দিয়েছে, নিম্ন বার্মার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে যারা হাজির হয়েছিল । দেড় বছর আগে, ১৬,০০০ আইএনএ সিপাহি এবং ১০০ মহিলা মালয় থেকে বার্মা প্রবেশ করেছিল। এখন, সেই সংখ্যার এক-দশমাংশ দেশ ছেড়ে মে মাসের প্রথম সপ্তাহ চলাকালীন ব্যাংকক পৌঁছাল। বাকি নয়-দশমাংশ হয় যুদ্ধে, ইম্ফল এবং কোহিমার যুদ্ধ-পরবর্তী আঘাতে অথবা অপুষ্টিতে মারা গিয়েছে। অন্যদের ব্রিটিশরা দখল করে নিয়েছে, তাদের ঘুরিয়ে নিয়েছে, অথবা সোজা অন্তর্হিত হয়েছে। সুভাষ চন্দ্র একমাসের জন্যে ব্যাংককে ছিলেন, যেখানে তিনি পৌঁছাবার অব্যবহিত পরই খবরটা শোনেন যে, ৮ মে তারিখে [ জার্মানি আত্মসমর্পণ] করেছে। সুভাষ চন্দ্র পরবর্তী দু-মাস অর্থাৎ ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের জুন এবং জুলাই সিঙ্গাপুরে কাটিয়েছিলেন, এবং দু-জায়গাতেই তিনি তাঁর সৈনিকদের বাসস্থান জোগাড় করে দেওয়ার জন্যে তহবিল সংগ্রহের চেষ্টা করেন অথবা যদি তারা নাগরিক জীবনে ফিরতে চায় তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করেন, যা বেশির ভাগ মহিলা করেছিলেন। সুভাষ চন্দ্র তাঁর রাতের বেতার সম্প্রচারে গান্ধির বিরুদ্ধে তীব্রতা বাড়িয়ে বক্তৃতা করেন; যিনি ১৯৪৪ খ্রিস্টাব্দে জেল থেকে ছাড়া পেয়েছিলেন এবং ব্রিটিশ শাসকবর্গ, দূতগণ এবং মুসলিম লিগ নেতাদের সঙ্গে কথাবার্তায় নিয়োজিত ছিলেন। কিছু প্রবীণ আইএনএ অফিসার নিরাশ হতে শুরু করেছিলেন অথবা সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে মোহভঙ্গ হয়েছিল এবং ব্রিটিশের এবং তার প্রতিপত্তির দিকে পা বাড়াবার প্রস্তুতি নিয়েছিলবিমান দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা দুজন ব্যক্তি, লেফ্টেন্যান্ট কর্নেলগণ নোনোগাকি এবং সাকাই, সঙ্গে ডা. ইয়োসিমি, যিনি হাসপাতালে সুভাষ চন্দ্রের চিকিৎসা করেছিলেন এবং অন্যান্য মৃত্যু-পরবর্তী ব্যবস্থায় যুক্ত ছিলেন, ফিগেসের রিপোর্টের বাকি চার পৃষ্ঠায় তাঁদের সাক্ষাৎকার লেখা ছিল। লিওনার্দ গর্ডন নিজে সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন "লেফ্টেন্যান্ট কর্নেলগণ নোনোগাকি এবং সাকাই, এবং, (এর সঙ্গে যুক্ত, বিমান দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা) মেজর কোনো; ডা. ইয়োশিমি ...; জাপানি আদেশমতো যিনি এইসব চিকিৎসার জন্যে ঘরে বসেছিলেন; এবং জাপানি অফিসার, লেফ্টেন্যান্ট হায়াশিতা, যিনি সুভাষ চন্দ্রের চিতাভস্ম তাইপেইয়ের শ্মশান থেকে জাপানে বহন করেছিলেন।
Romanized Version
সুভাষ চন্দ্র বসু মৃত্যু সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হল, ভারতীয় জাতীয়তাবদী নেতা সুভাষ চন্দ্র বসুর ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৮ অগস্ট জাপানি-অধিকৃত ফরমোসা দ্বীপে (বর্তমান তাইওয়ান) তাঁর অধিক যাত্রীবাহিত বিমান দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়ে দেহাবসান হয়। সে যা-ই হোক, তাঁর অনেক অনুগামীই, বিশেষত বাংলায়, সেই সময় ঘটনাটা অস্বীকার করে, এবং এমনকি এখনো তাঁর মৃত্যু সম্পর্কিত পরিস্থিতি এবং তথ্য বিশ্বাস করতে অস্বীকার করে। তাঁর মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব উদ্ভূত হয় এবং তারপর একটা দীর্ঘ ব্যক্তিগত জীবন থাকবার ছিল, সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে বিভিন্ন সামরিক কাহিনি জিইয়ে রাখা হয়েছে।১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ নাগাদ সুভাষ চন্দ্র বসুর সঙ্গে তাঁর আজাদ হিন্দ ফৌজ-এর (আইএনএ) প্রবীণ অফিসার, কয়েকশো তালিকাভুক্ত আইএনএ সিপাহি, এবং প্রায় একশো আইএনএ-র ঝাঁসির রানি রেজিমেন্টের মহিলা সদস্য ব্রহ্মদেশের মৌলমেইন যাওয়ার জন্যে রেঙ্গুন ছাড়ে। সঙ্গে ছিলেন জাপানি-আইএনএ মৈত্রী সংস্থা হিকরি কিকন-এর প্রধান, লেফটেন্যান্ট জেনারেল সাবুরো ইসোদা, তাদের জাপানি সেনাবাহিনীর কনভয় সিতাং নদীর ডানদিকের তীরে তাহলেও ধীরে পৌঁছাতে সক্ষম হয়। (১ নম্বর মানচিত্র দেখুন) যা-ই হোক, খুব অল্প পরিবহনই নদী পার হতে সক্ষম হয়েছিল, কারণ তখন মার্কিন গোলা ছুটছিল। সুভাষ চন্দ্র এবং তাঁর দলবল মৌলমেইন পৌঁছাবার জন্যে বাদবাকি ৮০ মাইল (১৩০ কিমি) পথ পরের সপ্তাহ জুড়ে হাঁটা দিয়েছিল। মৌলমেইন তখন ডেথ রেলপথ টার্মিনাস হয়ে গিয়েছে, যেটা আগেই ব্রিটিশ, অস্ট্রেলীয় এবং দিনেমার যুদ্ধবন্দিদের দ্বারা গড়া হয়েছে, যা বার্মাকে সিয়াম (বর্তমানে থাইল্যান্ড) পর্যন্ত যোগ করেছে। মৌলমেইনে সুভাষের বাহিনীতে আরো ৫০০ মানুষ আইএনএ-র প্রথম গেরিলা রেজিমেন্ট এক্স-রেজিমেন্ট থেকে যোগ দিয়েছে, নিম্ন বার্মার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে যারা হাজির হয়েছিল । দেড় বছর আগে, ১৬,০০০ আইএনএ সিপাহি এবং ১০০ মহিলা মালয় থেকে বার্মা প্রবেশ করেছিল। এখন, সেই সংখ্যার এক-দশমাংশ দেশ ছেড়ে মে মাসের প্রথম সপ্তাহ চলাকালীন ব্যাংকক পৌঁছাল। বাকি নয়-দশমাংশ হয় যুদ্ধে, ইম্ফল এবং কোহিমার যুদ্ধ-পরবর্তী আঘাতে অথবা অপুষ্টিতে মারা গিয়েছে। অন্যদের ব্রিটিশরা দখল করে নিয়েছে, তাদের ঘুরিয়ে নিয়েছে, অথবা সোজা অন্তর্হিত হয়েছে। সুভাষ চন্দ্র একমাসের জন্যে ব্যাংককে ছিলেন, যেখানে তিনি পৌঁছাবার অব্যবহিত পরই খবরটা শোনেন যে, ৮ মে তারিখে [ জার্মানি আত্মসমর্পণ] করেছে। সুভাষ চন্দ্র পরবর্তী দু-মাস অর্থাৎ ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের জুন এবং জুলাই সিঙ্গাপুরে কাটিয়েছিলেন, এবং দু-জায়গাতেই তিনি তাঁর সৈনিকদের বাসস্থান জোগাড় করে দেওয়ার জন্যে তহবিল সংগ্রহের চেষ্টা করেন অথবা যদি তারা নাগরিক জীবনে ফিরতে চায় তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করেন, যা বেশির ভাগ মহিলা করেছিলেন। সুভাষ চন্দ্র তাঁর রাতের বেতার সম্প্রচারে গান্ধির বিরুদ্ধে তীব্রতা বাড়িয়ে বক্তৃতা করেন; যিনি ১৯৪৪ খ্রিস্টাব্দে জেল থেকে ছাড়া পেয়েছিলেন এবং ব্রিটিশ শাসকবর্গ, দূতগণ এবং মুসলিম লিগ নেতাদের সঙ্গে কথাবার্তায় নিয়োজিত ছিলেন। কিছু প্রবীণ আইএনএ অফিসার নিরাশ হতে শুরু করেছিলেন অথবা সুভাষ চন্দ্র সম্পর্কে মোহভঙ্গ হয়েছিল এবং ব্রিটিশের এবং তার প্রতিপত্তির দিকে পা বাড়াবার প্রস্তুতি নিয়েছিলবিমান দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা দুজন ব্যক্তি, লেফ্টেন্যান্ট কর্নেলগণ নোনোগাকি এবং সাকাই, সঙ্গে ডা. ইয়োসিমি, যিনি হাসপাতালে সুভাষ চন্দ্রের চিকিৎসা করেছিলেন এবং অন্যান্য মৃত্যু-পরবর্তী ব্যবস্থায় যুক্ত ছিলেন, ফিগেসের রিপোর্টের বাকি চার পৃষ্ঠায় তাঁদের সাক্ষাৎকার লেখা ছিল। লিওনার্দ গর্ডন নিজে সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন "লেফ্টেন্যান্ট কর্নেলগণ নোনোগাকি এবং সাকাই, এবং, (এর সঙ্গে যুক্ত, বিমান দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা) মেজর কোনো; ডা. ইয়োশিমি ...; জাপানি আদেশমতো যিনি এইসব চিকিৎসার জন্যে ঘরে বসেছিলেন; এবং জাপানি অফিসার, লেফ্টেন্যান্ট হায়াশিতা, যিনি সুভাষ চন্দ্রের চিতাভস্ম তাইপেইয়ের শ্মশান থেকে জাপানে বহন করেছিলেন।Subhash Chandra Basu Mrityu Samparke Bistarit Alochana Kara Hall Bhartiya Jatiytabdi Neta Subhash Chandra Basur 1945 Khristabder 18 Agasta Japani Adhikrit Faramosa Dwipe Bartaman Taiwan Tanr Adhik Jatribahit Viman Durghatanay Maratmakabhabe Pure Giye Dehabsan Hay Say Ja E Hoek Tanr Anek Anugamii Bisheshat Banglay Sei Samay Ghatanata Aswikar Kare Evan Emanaki Ekhano Tanr Mrityu Samparkit Paristhiti Evan Tathya Biswas Karate Aswikar Kare Tanr Mrityur Kayek Ghantar Madhyei Sharajantrer Tattva Udbhut Hay Evan Tarapar Ekata Dirgh Byaktigat Jeevan Thakbar Chhil Subhash Chandra Samparke Bibhinna Samrik Kahini Jiiye Rakha Hayechhe 1945 Khristabder Epriler Sesh Saptah Nagad Subhash Chandra Basur Sange Tanr Azad Hinda Fouz Aare INA Pravin Officer Kayekasho Talikabhukta INA Sipahi Evan Pray Ekasho INA Ra Jhansir Rani Rejimenter Mahila Sadasya Brahmadesher Maulmein Jawar Janye Rengun Chhare Sange Chhilen Japani INA MAITREE Sanstha Hikri Kikan Aare Pradhan Leftenyanta Jenarel Saburo Isoda Tader Japani Senabahinir Kanabhay Sitang Nadir Dandiker Tire Tahleo Dhire Paunchhate Saksham Hay 1 Number Manchitra Dekhun Ja E Hoek Khub Alpa Paribahanai Nadi Per Hate Saksham Hayechhil Karan Takhan Markin Golla Chhutchhil Subhash Chandra Evan Tanr Dalabal Maulmein Paunchhabar Janye Badbaki 80 Mile 130 Kimi Path Parer Saptah Jure Hanta Diyechhil Maulmein Takhan Death Relapath Tarminas Haye Giyechhe Jeta Agei British Astreliya Evan Dinemar Juddhabandider Dwara Gara Hayechhe Ja Barmake Siyam Bartamane Thailyand Parjanta Jog Karechhe Maulmeine Subhasher Bahinite Aro 500 Manus INA Ra Pratham Guerrilla Rejimenta X Rejimenta Theke Jog Diyechhe Nimna Barmar Bibhinna Anchal Theke Jara Haazir Hayechhil Der Bachhar Age 16 000 INA Sipahi Evan 100 Mahila Malay Theke Burma Prabesh Karechhil Ekhan Sei Sankhyar Ec Dashamangsh Desh Chhere May Maser Pratham Saptah Chalakalin Byankak Paunchhal Bace Nay Dashamangsh Hay Juddhe Imfal Evan Kohimar Juddha Parabarti Aghate Athaba Apushtite Mara Giyechhe Anyader Britishara Dakhal Kare Niyechhe Tader Ghuriye Niyechhe Athaba Soja Antarhit Hayechhe Subhash Chandra Ekamaser Janye Byankake Chhilen Jekhanay Tini Paunchhabar Abyabahit Parai Khabarata Shonen Je 8 May Tarikhe [ Jarmani Atmasamarpan Karechhe Subhash Chandra Parabarti Du Massa Arthat 1945 Khristabder June Evan Gooli Singapure Katiyechhilen Evan Du Jaygatei Tini Tanr Sainikder Basasthan Jogar Kare Dewar Janye Tahabil Sangraher Cheshta Curren Athaba Jodi Tara Nagrik Jibne Firte Chay Tader Punarbasaner Byabastha Curren Ja Beshir Bhag Mahila Karechhilen Subhash Chandra Tanr Rater Betar Samprachare Gandhir Biruddhe Tibrata Bariye Baktrita Curren Jini 1944 Khristabde Gel Theke Chhara Peyechhilen Evan British Shasakabarg Dutagan Evan Muslim Lig Netader Sange Kathabartay Niyojit Chhilen Kichhu Pravin INA Officer Nirash Hate Shuru Karechhilen Athaba Subhash Chandra Samparke Mohabhanga Hayechhil Evan Britisher Evan Taur Pratipattir Dike PA Barabar Prastuti Niyechhilbiman Durghatana Theke Benche Fera Dujon Byakti Leftenyanta Karnelagan Nonogaki Evan Sakai Sange Da Iyosimi Jini Haspatale Subhash Chandrer Chikitsa Karechhilen Evan Anyanya Mrityu Parabarti Byabasthay Jukta Chhilen Figeser Riporter Bace CHAR Prishthay Tander Sakshatkar Lekha Chhil Lionarda Gardan Nije Sakshatkar Niyechhilen Leftenyanta Karnelagan Nonogaki Evan Sakai Evan Aare Sange Jukta Viman Durghatana Theke Benche Fera Major Kono Da Iyoshimi ...; Japani Adeshamato Jini Eisab Chikitsar Janye Ghare Basechhilen Evan Japani Officer Leftenyanta Hayashita Jini Subhash Chandrer Chitabhasma Taipeiyer Shmashan Theke Japane Bahan Karechhilen
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Subhash Chandra Basu Mrityu Somporke Alochana Karo,Talk About The Death Of Subhash Chandra Bose.,


vokalandroid