বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ ( বিতর্ক ) ...

বিজ্ঞান ( ১০ বছর ) বয়সে পরীক্ষার খাতায় এই বাক্যটি প্রথম লিখেছিলাম – ‘বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ আর কেড়ে নিয়েছে আবেগ’। তারপর থেকে বিতর্ক, উপস্থিত বক্তৃতা, পরীক্ষার খাতাসহ কতো জায়গায়ই না এটি ব্যবহার করেছি! সম্ভব হলে বিজ্ঞান আমার দুই পা ধরে মাফ চাইতো – ( ‘দোহাই লাগে আর অপদস্থ করবেন না’ ) । জীবনে কোনো বাক্য এতো কাজে লাগেনি। একটু নমুনা দেই। আমার স্ত্রীর ধৈর্য্য বেশী। বিয়ের পর থেকে ৮ বার হানিমুনে যাবার উদ্যোগ নেয়া কম কথা না! তবে ৯ বারের মাথায় সে ঘোষণা করলো – এবার কক্সবাজার না নিয়ে গেলে সে একাই হানিমুনে যাবে। আমি শুধু বলেছি সমস্যা আমার না, সমস্যা বিজ্ঞানের। (নানী শাশুড়ি নাকি জিজ্ঞেস করেছিলেন, বিজ্ঞান সাহেবটা আবার কে, তার কি সমস্যা) দুদিন বাদে ঈদ, সবাই কতো খুশী! আর আমি ছুটির দিনে সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে ওএসডি (অপদস্থ) হয়ে গেলাম। পেপার খুলতেই চোখে পড়লো খবরটা – আমেরিকার এমআইটি ( ঘোষিত ২০১৬ সালে ৩৫ ) বছরের কম বয়সী সেরা ৩৫ জন উদ্ভাবকের আবেগ একজন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন বাঙালি তরুণ এহসান হক। এর আগে এই সম্মাননা পেয়েছেন এমন ৩/৪টি নাম বললে আমার মতো আপনাদেরও ভিমড়ি খাবার সম্ভাবনা আছে – আবেগ গুগলের দুই প্রতিষ্ঠাতা সের্গেই ব্রিন ও ল্যারি পেজ, ফেসবুকের মার্ক জাকারবার্গ, আবেগ আইম্যাক ও আইপ্যাডের ডিজাইনার জোনাথন আইভ, লিনাক্সের জনক লিনাস টরভাস, ইয়াহুর সহপ্রতিষ্ঠাতা জেরি ইয়াং, টুইটারের জ্যাক ডরসে প্রমুখ। নিজেদের উদ্বাবনী আত্মা দিয়ে পৃথিবীকে বদলে দেয়া সব নাম। বাঙালি এহসান হকের কাজ হলো মানুষের কথা ও শারীরিক ভাষার গাণিতিক মডেল বের করে সেটাকে কাজে লাগানো। এর মাধ্যমে তৈরি হবে এমন যন্ত্র, যা অটিজম বা ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্তদের আলাপচারিতায়, চাকরিপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকারের প্রস্তুতিতে, এমনকি বিতার্কিক বা বক্তাদের তাঁদের বক্তৃতার ভুলগুলো সংশোধন করতে সহায়তা করবে। এরই মধ্যে বানানো হয়েছে একটি বিশেষ চশমা, যা বক্তৃতা দেওয়ার সময় বক্তাকে আরও সাবলীল হতে সাহায্য করে। আমরা একে অন্যের কথাবার্তা, আকার-ইঙ্গিত, ভাবভঙ্গি বুঝে কথার পিঠে কথা বলে আলাপচারিতাকে এগিয়ে নিয়ে যাই। যদিও আলাপচারিতার এই ‘মুদ্রা’ বা কৌশল কোথাও লেখা নেই, কেউ জানে না, কিন্তু সবাই (মানুষ) বোঝে। আর এহসান সাহেবের কাজ হলো আলাপচারিতার এই কৌশলগুলোকে কম্পিউটারের কাছে বোধগম্য করে তোলা। তাতে লাভ? যাদের অটিজম বা এসপারগার সিনড্রম আছে, তাদের অনেকেই মানুষের সঙ্গে সহজভাবে কথা বলতে পারে না, বুঝতে পারে না অন্যের আবেগ, তাদের কথায় অন্যরা বিরক্ত হচ্ছে নাকি আনন্দিত হচ্ছে, সেটাও বুঝতে পারে না। কারণ আলাপচারিতার শারীরিক ভাষাটা তাদের কাছে বোধগম্য নয়। এখন যদি এমন হতো যে সেই মানুষটির সঙ্গে আছে এমন যন্ত্র, যা বলে দেবে শ্রোতার মনোভাব। মানে শ্রোতার হাসি আসলেই আনন্দের না কাষ্ঠ হাসি। বিজ্ঞান তাহলে এ ধরনের মানুষের যোগাযোগ সক্ষমতা অনেক বেড়ে যেত।’
Romanized Version
বিজ্ঞান ( ১০ বছর ) বয়সে পরীক্ষার খাতায় এই বাক্যটি প্রথম লিখেছিলাম – ‘বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ আর কেড়ে নিয়েছে আবেগ’। তারপর থেকে বিতর্ক, উপস্থিত বক্তৃতা, পরীক্ষার খাতাসহ কতো জায়গায়ই না এটি ব্যবহার করেছি! সম্ভব হলে বিজ্ঞান আমার দুই পা ধরে মাফ চাইতো – ( ‘দোহাই লাগে আর অপদস্থ করবেন না’ ) । জীবনে কোনো বাক্য এতো কাজে লাগেনি। একটু নমুনা দেই। আমার স্ত্রীর ধৈর্য্য বেশী। বিয়ের পর থেকে ৮ বার হানিমুনে যাবার উদ্যোগ নেয়া কম কথা না! তবে ৯ বারের মাথায় সে ঘোষণা করলো – এবার কক্সবাজার না নিয়ে গেলে সে একাই হানিমুনে যাবে। আমি শুধু বলেছি সমস্যা আমার না, সমস্যা বিজ্ঞানের। (নানী শাশুড়ি নাকি জিজ্ঞেস করেছিলেন, বিজ্ঞান সাহেবটা আবার কে, তার কি সমস্যা) দুদিন বাদে ঈদ, সবাই কতো খুশী! আর আমি ছুটির দিনে সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে ওএসডি (অপদস্থ) হয়ে গেলাম। পেপার খুলতেই চোখে পড়লো খবরটা – আমেরিকার এমআইটি ( ঘোষিত ২০১৬ সালে ৩৫ ) বছরের কম বয়সী সেরা ৩৫ জন উদ্ভাবকের আবেগ একজন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন বাঙালি তরুণ এহসান হক। এর আগে এই সম্মাননা পেয়েছেন এমন ৩/৪টি নাম বললে আমার মতো আপনাদেরও ভিমড়ি খাবার সম্ভাবনা আছে – আবেগ গুগলের দুই প্রতিষ্ঠাতা সের্গেই ব্রিন ও ল্যারি পেজ, ফেসবুকের মার্ক জাকারবার্গ, আবেগ আইম্যাক ও আইপ্যাডের ডিজাইনার জোনাথন আইভ, লিনাক্সের জনক লিনাস টরভাস, ইয়াহুর সহপ্রতিষ্ঠাতা জেরি ইয়াং, টুইটারের জ্যাক ডরসে প্রমুখ। নিজেদের উদ্বাবনী আত্মা দিয়ে পৃথিবীকে বদলে দেয়া সব নাম। বাঙালি এহসান হকের কাজ হলো মানুষের কথা ও শারীরিক ভাষার গাণিতিক মডেল বের করে সেটাকে কাজে লাগানো। এর মাধ্যমে তৈরি হবে এমন যন্ত্র, যা অটিজম বা ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্তদের আলাপচারিতায়, চাকরিপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকারের প্রস্তুতিতে, এমনকি বিতার্কিক বা বক্তাদের তাঁদের বক্তৃতার ভুলগুলো সংশোধন করতে সহায়তা করবে। এরই মধ্যে বানানো হয়েছে একটি বিশেষ চশমা, যা বক্তৃতা দেওয়ার সময় বক্তাকে আরও সাবলীল হতে সাহায্য করে। আমরা একে অন্যের কথাবার্তা, আকার-ইঙ্গিত, ভাবভঙ্গি বুঝে কথার পিঠে কথা বলে আলাপচারিতাকে এগিয়ে নিয়ে যাই। যদিও আলাপচারিতার এই ‘মুদ্রা’ বা কৌশল কোথাও লেখা নেই, কেউ জানে না, কিন্তু সবাই (মানুষ) বোঝে। আর এহসান সাহেবের কাজ হলো আলাপচারিতার এই কৌশলগুলোকে কম্পিউটারের কাছে বোধগম্য করে তোলা। তাতে লাভ? যাদের অটিজম বা এসপারগার সিনড্রম আছে, তাদের অনেকেই মানুষের সঙ্গে সহজভাবে কথা বলতে পারে না, বুঝতে পারে না অন্যের আবেগ, তাদের কথায় অন্যরা বিরক্ত হচ্ছে নাকি আনন্দিত হচ্ছে, সেটাও বুঝতে পারে না। কারণ আলাপচারিতার শারীরিক ভাষাটা তাদের কাছে বোধগম্য নয়। এখন যদি এমন হতো যে সেই মানুষটির সঙ্গে আছে এমন যন্ত্র, যা বলে দেবে শ্রোতার মনোভাব। মানে শ্রোতার হাসি আসলেই আনন্দের না কাষ্ঠ হাসি। বিজ্ঞান তাহলে এ ধরনের মানুষের যোগাযোগ সক্ষমতা অনেক বেড়ে যেত।’Bigyan ( 10 Bachhar ) Bayase Parikshar Khatay AE Bakyati Pratham Likhechhilam – ‘bigyan Diyechhe Bag Are Kere Niyechhe Abego Tarapar Theke Bitark Upasthit Baktrita Parikshar Khatasah Kato Jaygayai Na AT Byabahar Karechhi Sambhab Hale Bigyan Amar Dui PA Dhare Maf Chaito – ( ‘dohai Lage Are Apadastha Karaben Nao ) Jibne Kono Bakya Eto Kaje Lageni Ekatu Namuna Dei Amar STREER Dhairjya Beshi Biyer Par Theke 8 Bar Hanimune Jabar Udyog Neya Com Katha Na Tove 9 Barer Mathay Say Ghoshna Karalo – Ebar Kaksabajar Na Niye Gele Say Ekai Hanimune Jabe Aami Shudhu Balechhi Samasya Amar Na Samasya Bigyaner Nani Shashuri Naki Jigyes Karechhilen Bigyan Sahebata Abar K Taur Ki Samasya Dudin Bade Eed Sabai Kato Khushi Are Aami Chhutir Dine Sakalbela Ghum Theke Uthe OSD Apadastha Huye Gelam Paper Khultei Chokhe Paralo Khabarata – Amerikar MIT ( Ghoshit 2016 Sale 35 ) Bachharer Com Bayasi SAIRA 35 John Udbhabaker Abeg Ekajan Sammananay Bhushit Hayechhen Bangali Tarun Ehsan Haque Aare Age AE Sammanana Peyechhen Eman 3 4ti NAM Balale Amar Mato Apanaderao Bhimri Khabar Sambhabana Ache – Abeg Gugler Dui Pratishthata Sergei Brina O Lyari Page Fesbuker March Jakarbarg Abeg Aimyak O Aipyader Designer Jonathan Aibh Linakser Junk Linas Tarabhas Iyahur Sahapratishthata Jerry Iyang Tuitarer Jack Darase Pramukh Nijeder Udwabani Atma Diye Prithibike Badale Dea Sab NAM Bangali Ehsan Haker Kaj Halo Manusher Katha O Sharirik Bhashar Ganitik Model Ber Kare Setake Kaje Lagano Aare Madhyame Tairi Habe Eman Jantra Ja Autism Ba Down Sinadrome Akrantader Alapcharitay Chakriprarthider Sakshatkarer Prastutite Emanaki Bitarkik Ba Baktader Tander Baktritar Bhulgulo Sangshodhan Karate Sahayata Karabe Erai Madhye Banano Hayechhe Ekati Vishesha Chashama Ja Baktrita Dewar Camay Baktake RO Sablil Hate Sahajya Kare Amara Aka Anyer Kathabarta Akar Ingit Bhababhangi Bujhe Kathar Pithe Katha Ble Alapcharitake Egiye Niye Jai Jadio Alapcharitar AE ‘mudrao Ba Kaushal Kothao Lekha Nei Keu Jaane Na Kintu Sabai Manus Bojhe Are Ehsan Saheber Kaj Holo Alapcharitar AE Kaushalaguloke Kampiutarer Kachhe Bodhagamya Kare Tola Tate Love Jader Autism Ba Esapargar Sinadram Ache Tader Anekei Manusher Sange Sahajabhabe Katha Volte Pare Na Bujhte Pare Na Anyer Abeg Tader Kathay Anyara Birakta Hachchhe Naki Anandit Hachchhe Setao Bujhte Pare Na Karan Alapcharitar Sharirik Bhashata Tader Kachhe Bodhagamya Noy Ekhan Jodi Eman Hato Je Sei Manushtir Sange Ache Eman Jantra Ja Ble Dewey Shrotar Manobhab Mane Shrotar Hasi Asalei Anander Na Kashtha Hasi Bigyan Tahle A Dharaner Manusher Jogajog Sakshamata Anek Bere Jet ’
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon
500000+ दिलचस्प सवाल जवाब सुनिये 😊

Similar Questions

বিজ্ঞান মানুষকে দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ-- কথাটি ব্যাখ্যা কর। ...

বিজ্ঞান মানুষকে দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ -- ব্যাখা : বিজ্ঞান মানুষকে দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ। মানুষ মাত্রেই আবেগনির্ভর প্রাণী। আবেগই মানুষের পথ চলার ক্ষেত্রে চালিকাশক্তিরূপে কাজ করে। ফলजवाब पढ़िये
ques_icon

যে আবিষ্কারগুলো কেড়ে নিয়েছিল আবিষ্কারকদের প্রাণ সেগুলি কি ? ...

যে আবিষ্কারগুলো কেড়ে নিয়েছিল আবিষ্কারকদের প্রাণ আছে নানান রকম মজার ঘটনাও। ১৬শ শতকের একজন চীনা রাজকর্মচারীর ইচ্ছা ছিল মহাশূন্যে যাবার। যে আবিষ্কারগুলো কেড়ে নিয়েছিল আবিষ্কারকদের প্রাণ তিনি একটি চেযजवाब पढ़िये
ques_icon

More Answers


বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ ( বিতর্ক ) : বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ বহুল ব্যবহৃত বাক্য। স্কুল জীবনে ভাব-সম্প্রসারণ আসত, নম্বর থাকত ১০। সাহিত্যের ভাষায় বিজ্ঞানকে জীবনের সব নিরস উপাদানের জন্য দোষ দিতে হত। এটাই ছিল নিয়ম, এর ব্যতিক্রম লিখবার কোন ধারণা ছিল না। আমরা বিজ্ঞানের ছাত্ররাই বিজ্ঞানকে বেশি অপবাদ দিতাম এবং আর্টস, কমার্সের ছেলেদের চাইতে বেশি নম্বর পেতাম। এই বিজ্ঞনের ছাত্ররাই আবার একই বাংলা দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষায় “দৈনন্দিন জীবনে বিজ্ঞান” রচনায় বিজ্ঞানের জয়জয়কার করতাম। বিজ্ঞান আমাদের এটা দিয়েছে, ওটা দিয়েছে এই এই সমস্যার সমাধান করেছে ইত্যাদি ইত্যাদি। আজ ভাবি বিজ্ঞান আমাদের বেগ দিলেও আবেগের উপর এর কোন প্রভাব নাই। মানুষ তার আবেগ ঢেলে দিয়ে নিরস বিজ্ঞানকে সরস করে তোলে। তীব্র বেগে চলা নিরস জীবনের রাশ টেনে তাকে খানিক্ষণ বিশ্রাম নিতে বাধ্য করে। একটা সময় আমরা কাগজে চিঠি লিখতাম। আজকের যুগে এটা অপ্রয়োজনিয়। এখন তড়িৎবেগে মেসেজ বা কল চলে আসে মোবাইলে। চিঠি লিখবার আবেগ ই-মেইল বা মোবাইলের এসএমএসে না থাকলেও, মোবাইলের নিজস্ব একটা আবেগ আছে। প্রেমিক-প্রেমিকা রাতে ঘুমাবার আগে অপর পক্ষের এসএমএস বা কল না পেলে বিরহে ভোগে। সকালে ঘুম থেকে উঠেই মোবাইলে পাওয়া একটা সুন্দর এসএমএস দূষিত ঢাকা শহরেও কাশ্মিরের নির্মল আবহাওয়া ছোঁয়া এনে দেয়। দিনে কাজের ফাঁকে ফাঁকে প্রিয়ার মিসকল মুখে এনে স্নিগ্ধ হাসি। আর সেই মিসকল যদি হয় তাকে কল করবার ঠিক একই মুহূর্তেই তাহলে তো কথাই নাই। অনেক প্রেমিক প্রেমিকা তাদের নির্মল মানবিক প্রেমের অস্তিত্ব খুঁজে পায় ছোট ছোট সেই মুহূর্তেই।
Romanized Version
বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ ( বিতর্ক ) : বিজ্ঞান দিয়েছে বেগ কেড়ে নিয়েছে আবেগ বহুল ব্যবহৃত বাক্য। স্কুল জীবনে ভাব-সম্প্রসারণ আসত, নম্বর থাকত ১০। সাহিত্যের ভাষায় বিজ্ঞানকে জীবনের সব নিরস উপাদানের জন্য দোষ দিতে হত। এটাই ছিল নিয়ম, এর ব্যতিক্রম লিখবার কোন ধারণা ছিল না। আমরা বিজ্ঞানের ছাত্ররাই বিজ্ঞানকে বেশি অপবাদ দিতাম এবং আর্টস, কমার্সের ছেলেদের চাইতে বেশি নম্বর পেতাম। এই বিজ্ঞনের ছাত্ররাই আবার একই বাংলা দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষায় “দৈনন্দিন জীবনে বিজ্ঞান” রচনায় বিজ্ঞানের জয়জয়কার করতাম। বিজ্ঞান আমাদের এটা দিয়েছে, ওটা দিয়েছে এই এই সমস্যার সমাধান করেছে ইত্যাদি ইত্যাদি। আজ ভাবি বিজ্ঞান আমাদের বেগ দিলেও আবেগের উপর এর কোন প্রভাব নাই। মানুষ তার আবেগ ঢেলে দিয়ে নিরস বিজ্ঞানকে সরস করে তোলে। তীব্র বেগে চলা নিরস জীবনের রাশ টেনে তাকে খানিক্ষণ বিশ্রাম নিতে বাধ্য করে। একটা সময় আমরা কাগজে চিঠি লিখতাম। আজকের যুগে এটা অপ্রয়োজনিয়। এখন তড়িৎবেগে মেসেজ বা কল চলে আসে মোবাইলে। চিঠি লিখবার আবেগ ই-মেইল বা মোবাইলের এসএমএসে না থাকলেও, মোবাইলের নিজস্ব একটা আবেগ আছে। প্রেমিক-প্রেমিকা রাতে ঘুমাবার আগে অপর পক্ষের এসএমএস বা কল না পেলে বিরহে ভোগে। সকালে ঘুম থেকে উঠেই মোবাইলে পাওয়া একটা সুন্দর এসএমএস দূষিত ঢাকা শহরেও কাশ্মিরের নির্মল আবহাওয়া ছোঁয়া এনে দেয়। দিনে কাজের ফাঁকে ফাঁকে প্রিয়ার মিসকল মুখে এনে স্নিগ্ধ হাসি। আর সেই মিসকল যদি হয় তাকে কল করবার ঠিক একই মুহূর্তেই তাহলে তো কথাই নাই। অনেক প্রেমিক প্রেমিকা তাদের নির্মল মানবিক প্রেমের অস্তিত্ব খুঁজে পায় ছোট ছোট সেই মুহূর্তেই। Bigyan Diyechhe Bag Kere Niyechhe Abeg ( Bitark ) : Bigyan Diyechhe Bag Kere Niyechhe Abeg Bahul Byabahrit Bakya School Jibne Bhaav Samprasaran Asat Number Thakat 10 Sahityer Bhashay Bigyanake Jibner Sab Niras Upadaner Janya Dos Dite Hato Etai Chhil Niyam Aare Byatikram Likhbar Koun Dharna Chhil Na Amara Bigyaner Chhatrarai Bigyanake Bedshee Apabad Ditam Evan Arts Kamarser Chheleder Chaite Bedshee Number Petam AE Bigyaner Chhatrarai Abar Ekai Bangla Dwitiya Patra Parikshay “dainandin Jibne Bigyan” Rachanay Bigyaner Jayajayakar Karatam Bigyan Amader Etah Diyechhe Ota Diyechhe AE AE Samasyar Samadhan Karechhe Ityadi Ityadi Az Bhabi Bigyan Amader Bag Dileo Abeger Upar Aare Koun Prabhab Nai Manus Taur Abeg Dhele Diye Niras Bigyanake Soros Kare Tole Tibra Bege Chala Niras Jibner Rush Tene Take Khanikshan Bishram Nite Badhya Kare Ekata Camay Amara Kagje Chithi Likhtam Ajaker Juge Etah Aprayojniya Ekhan Taritbege Message Ba Call Chale Ase Mobaile Chithi Likhbar Abeg E Mail Ba Mobailer Esaemaese Na Thakleo Mobailer Nijaswa Ekata Abeg Ache Premik Premika Rate Ghumabar Age Apr Paksher SMS Ba Call Na Pele Birhe Bhoge Sakale Ghum Theke Uthei Mobaile Powa Ekata Sundar SMS Dushit Dhaka Shahareo Kashmirer Nirmal Abahawa Chhonya Ene Dey Dine Kajer Fanke Fanke Priyar Misakal Mukhe Ene Snigdha Hasi Are Sei Misakal Jodi Hay Take Call Karabar Thik Ekai Muhurtei Tahle Toh Kathai Nai Anek Premik Premika Tader Nirmal Manbik Premer Astitva Khunje Pay Chhot Chhot Sei Muhurtei
Likes  0  Dislikes
WhatsApp_icon

Vokal is India's Largest Knowledge Sharing Platform. Send Your Questions to Experts.

Related Searches:Bigyan Diyechhe Bag Kere Niyechhe Abeg ( Bitark ),Science Has Taken Advantage Of The Emotions (debate),


vokalandroid